somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

মানুষ পিঠিয়ে মারার আওয়ামী ইতিহাস

২৯ শে অক্টোবর, ২০১১ রাত ১:০৫
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

পিটিয়ে মানুষ হত্যার ঐতিয্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নতুন নয়। অনেকে ২৮ অক্টোবর ২০০৬ লগি-বৈঠা দিয়ে মানুষ হত্যা দেখে ভাবতে পারেন আওয়ামী লীগ মনে নয় একাজে নতুন। মোটেও নয়। কারণ আওয়ামীলীগ পিঠিয়ে মানুষ মারতে উস্তাদ। শুধু মেরে তারা ক্ষান্ত হয় না মৃত লাশের উপর নৃত্য করতে, উল্লাস করতেও ধিদ্বাবোধ করে না। তাদের এ নৃশংস পিঠিয়ে মারার রাজনীতির শিকার হয়েছে অনেকে। ২০০৬ সালের আজকের দিনের কথা সারা পৃথিবীর জানা। কি নিমমতা, কি নৃশংসতা তা সারা পৃথিবী দেখেছে মিডিয়ার কল্যানে। ২০০৬ সালের নিমমতা শেষ হতে না হতে ২০১০ সালে দিনে দুপুরে নাটোরে উপজেলা চেয়ারম্যানকে পিঠিয়ে হত্যার দৃশ্য করুন দৃশ্য আমাদের দেখতে হলো। ক্ষমতার মারপ‌্যাচে অপরাধীরা পার পেয়ে যাচ্ছে। তাদের সেই নিমমতার সবশেষ করুণ শিকার হলো চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের মেধাবী ছাত্র আবিদুর রহমান আবিদ। তাদের সেই পিঠিয়ে মানুষ মারার সংক্ষিপ্ত ইতিহাস নিম্নে উপস্থাপন করা হল। ( না জানি এ পিঠিয়ে মারার ইতিহাস রচনা করতে গিয়ে আমাকেও না তাদের পিঠিয়ে মানুষ মারার ইতহাসের অংশ হতে হয়!)



২০১১
আবিদুর রহমান আবিদ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের মেধাবী ছাত্র ছাত্রলীগের পিঠিয়ে মারার রাজনীতির শিকার হয়ে ২১শে অক্টোবর মৃত্যু বরণ করেন।


১৯৫৮ সালের ২৩শে সেপ্টেম্বর তৎকালীন প্রাদেশিক পরিষদের অধিবেশনে ডেপুটি স্পীকার শাহেদ আলীকে চেয়ার দিয়ে পেটানো হয়েছিল শেখ মুজিবের নেতৃত্বে। যার ফলে ২৫শে সেপ্টেম্বর শাহেদ আলী মারা যান। যাদের বাবাই পিটিয়ে মানুষ মারা শুরু করে গেছে, তারা তো সেই কাজ করবেই।


১৯৬৯ সাল

ঐ বছরের ১২ আগষ্ট বর্তমান আওয়ামী লীগ নেতা (সেই সময় ছাত্র নেতা) তোফায়েল আহমদের নেতৃত্বে ছাত্র লীগের এক ঝাক গুন্ডা আহত করে ঢাবির ততকালীন মেধাবী ছাত্র আব্দুল মালেককে। আব্দুল মালেক পরে ১৫ আগষ্ট ১৯৬৯ শহীদ হন।


১৯৭০ সাল

ঐ বছরের ১৮ই জানুয়ারী পুর্ব পাক জামায়াত পল্টন ময়দানে আয়োজন করেছিল এক সমাবেশের। সেটা ছিল মুলত নির্বাচনী সমাবেশ।
আওয়ামী লীগ সেই সমাবেশে হামলা করে পন্ড করে দেয়। এমনকি ঐ হামলায় জামায়াতের দুই জন কর্মী নিহতও হয়।

২০০৬

দীর্ঘ ৩৬ বছর পর আবার আওয়ামী লীগ তার পুরোনো চেহেরা জাতির সামনে প্রকাশ করে ২০০৬ এর ২৮ অক্টোবরে। ২০০৬ সালের এই দিনে পল্টন মোড়ে আওয়ামী লীগসহ মহাজোট নেতাকর্মীরা লগি-বৈঠা ও আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে হামলা করে প্রকাশ্য দিবালোকে ৭ জনকে হত্যা করে। মহাজোট নেতাকর্মীরা লগি-বৈঠা দিয়ে বর্বরোচিত কায়দায় শুধু হত্যাই নয়, এরপর মৃতদেহের ওপর তারা উল্লাস-নৃত্য করে। সাপকে যেভাবে পিটিয়ে মারা হয়, সেভাবেই মারা হয়েছিল মানুষকে। টিভি চ্যানেলের মাধ্যমে ভয়াল সে দৃশ্য দেখে গোটা বিশ্ববিবেক সেদিন স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিল। প্রকাশ্যে গুলিবর্ষণ ও মুহুর্মুহু বোমা হামলা চালিয়ে মানুষ হত্যা করে হায়েনার মতো উল্লাস প্রকাশের সেই দৃশ্য মনে হলে মানুষ আজও শিউরে ওঠে।

২০১০

০৮ অক্টোবর ২০১০ নাটোরে বিএনপির মিছিলে স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের সশস্ত্র হামলায় বড়াইগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যান ও বনপাড়া পৌর বিএনপির সভাপতি সানাউল্লাহ নুর বাবু (৪০) নিহত হয়েছেন।

এভাবে যুগে যুগে আওয়ামী হায়েনারা পিঠিয়ে মারার এ নৃশংস রাজনীতি অনুসরণ করে চলেছেন। যার সবশেষ শিকার হলেন আবিদ। এভাবে আর কত মানুষকে নৃশংস ভাবে মারা হবে? কেন এত হিংস্রতা? কেন বিরোধী মতের লোকদের উপর এত নিমমতা। বন্ধ হোক এ নিশংস হত্যাকান্ড। সবার প্রতি ভালবাসায় ভরে উঠুক মানবের মন। দেশে ফিরে আসুক ভালবাসার জোয়ার। ফাঁসি হোক এ সব নর ঘাতকদের। বন্ধ হোক এসব নরঘাতকদের প্রতি রাজনৈতিক পৃষ্টপোষকতা। সবার উপরে মানুষ সত্য তার উপরে নাই।

৬টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

ধ্বনিত হইল কবিতা মন্দ্রস্বরে

লিখেছেন দীপংকর চন্দ, ০১ লা জুলাই, ২০১৫ রাত ৮:২২



আবার বরষা আসিল ভরসা দিতে
তপ্ত দিবস দিশাহীন রজনীতে
হৃদয়ে পশিল উচ্ছল বারিধারা
সজল বাণীতে জাগিল সর্বহারা
মঙ্গলগীত বাজিল সন্ধিক্ষণে
জড়তা কাটিল নন্দিত শিহরণে

মুখরিত ধরা বৃষ্টির রিনিঝিনি
পুষ্ট হইল শীর্ণ পুষ্করিণী
থৈ থৈ জল উথলি উঠিল ঘাটে
সীমানা... ...বাকিটুকু পড়ুন

দেশের গুরুত্বপূর্ণ সব পদে এত অযোগ্য লোকের ভিড় কেন?

লিখেছেন মঞ্জুর চৌধুরী, ০১ লা জুলাই, ২০১৫ রাত ১০:০০

প্রধাণমন্ত্রীর গাড়ি যাওয়ার সময়ে রাস্তার একটি নেড়ি কুকুর ঘেউ ঘেউ করে ডেকে উঠলো। প্রধাণমন্ত্রীর কী তাতে ইজ্জত চলে গেল? তাঁকে কী কুকুরটার উদ্দেশ্যে ঘেউ ঘেউ করা মানায়?
দুপুরের সূর্যকে নিভিয়ে দেয়ার... ...বাকিটুকু পড়ুন

ওরা বিজ্ঞাপন বানাইলে কোন দোষ নাই দোষ খালি আমরা বানাইলে

লিখেছেন রাঘব বোয়াল, ০১ লা জুলাই, ২০১৫ রাত ১১:২৩

আপনারা সবাই জানেন প্রথম আলোর রসালোতে মুস্তাফিজ কাটার শিরোনামে
একটি ছবি ছাপা হয়েছিলো।যেখানে ধনি,কোহলি,ধাওয়ান,রোহিত সহ
অনেককেই মুস্তাফিজ কাট দেয়া হয়েছিলো।
ছবিটি শেয়ার করলাম না সামুর ভয়ে।যদি কট হইয়া যাই!!
আর এই ছবির জন্য... ...বাকিটুকু পড়ুন

কাকরাইল মসজিদের ইতিহাস!!

লিখেছেন কাঠুরে, ০২ রা জুলাই, ২০১৫ রাত ১২:২১

রাজধানী ঢাকার কাকরাইল এলাকায় রমনা পার্কের পাশে অবস্থিত বিশাল মসজিদটিই কাকরাইল মসজিদ।
এটি বাংলাদেশের তাবলীগ জামাতের মারকায বা প্রধান কেন্দ্র। ১৯৫২ সালে এই মসজিদটি তাবলীগ জামাতের প্রধান কেন্দ্র হিসেবে নির্ধারিত হয়।... ...বাকিটুকু পড়ুন

মুভি রিভিউঃ Chappie(2015)

লিখেছেন তওসীফ সাদাত, ০২ রা জুলাই, ২০১৫ রাত ১২:৪৪

আবেগ বা অনুভূতি, সব প্রানীরই হয়তো আছে অথবা নেই। আমরা সৃষ্টির সেরা জীব, আমাদের কথা ভিন্ন। রবোটিক্স সেক্টরে এখন পর্যন্ত অনেক উন্নতি হয়েছে। কিন্তু আমাদের নিউরন আর নিউরনের এক্টিভিটি নিয়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্রধানমন্ত্রীর উক্তি ও একটা মজার কৌতুক!

লিখেছেন আহমদ জসিম, ০২ রা জুলাই, ২০১৫ রাত ২:০২

আসলে এটা একটা কৌতুক কিংবা গল্প, তবে সেটা মনে পড়ল মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর: সব ঠিকটাক আছে, দেশ এগিয়ে যাচ্ছে,’ উক্তিটা শোনার পর। গল্পটা এই রকম: দীর্ঘ দিন প্রবাসে থাকার পর এক... ...বাকিটুকু পড়ুন