somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

মুভি রিভিউ: 100 Days of Love

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৫:০২
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :





Movie Name: 100 Days of Love
Cast: Dulquer Salmaan, Nithya Menen, Sekhar Menon, Aju Varghese, Vineeth, Parveena, Rahul Madhav, V.K. Prakash, Abhirami Suresh & Jacob Gregory.
Language: Malayalam
Genre: Romantic comedy
Directed by: Jenuse Mohamed
Rating: IMDB 6.4/10, Times of India: 3/5
Personal rating: 7/10
Released worldwide on 26th August 2015
Alert! Alert! Alert!
‘Spoiler’

গল্পঃ বালান.কে.নায়ার(সালমান), সংক্ষেপে নিজেকে সে বলে বি.কে.এন.।বি.কে.এন. বেঙ্গালুরোর একটি বিখ্যাত দৈনিক পত্রিকার রিপোর্টার।ফেসবুকে সে একজন জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ত্ব।গল্পের শুরুতে দেখা যায়, বি.কে.এন ঘুম থেকে উঠে যখন সে আবার ফেসবুকে প্রবেশ করে তখন সেখানে তার এক্স-গার্লফ্রেন্ডের ফটো দ্যাখে নতুন বয়ফ্রেন্ডের সাথে।বিষয়টি সে একদম মেনে নিতে পারছিলো না তাই ড্রিংস্ক করে।মদ্যপ অবস্থায় সে তার এক্স-গার্লফ্রেন্ডের সাথে ঘটে যাওয়া, রয়ে যাওয়া কিছু ফটো ফেসবুকে প্রকাশ করে দেয়।এতে করে ফেসবুক বন্ধুদের মধ্যে এই বিষয়টি নিয়ে নতুন করে ঝড় উঠে।৯৬টি মেসেজ এবং ৬১৮টি নোটিফিকেশনে সে বুঝতে পারে বাকি ইজ্জতেরও বারোটা বেজেছে।এমনকি এক্স-গার্লফ্রেন্ডের গালি খেতে-খেতে ফোনের লাইনটা কাটার সময় পায় না সে।অন্যদিকে নিজেকে সে একজন ব্যর্থ মানুষ ভাবা শুরু করে দেয়।কারণ তার পরিবারের সবাই ডাক্তার।তার বড় ভাই রকি.কে.নায়ার.ও একজন সফল ডাক্তার।কলামিস্ট হওয়ার জন্য সে তার বাবা-মাকে ছেড়েছিলো।সে বেঙ্গালুরোতে তার একজন খুব কাছের বন্ধু “ওমর(শেখর মেনন)” এর সাথে থাকে।ওমর একজন কম্পিউটার গেমার।ওমর খুব খেতে পছন্দ করে এবং বাকি সময়টা কম্পিউটার গেম খেলে কাটিয়ে দেয়।একদিন বালান তার চাকুরীটা হারায়।তখন ওর মনে হচ্ছিলো জীবনের ভালো কিছু হওয়ার এখানেই সমাপ্তি।বৃষ্টিতে ভিজতে ভিজতে রাস্তায় একা একা হাঁটছিলো।একসময় একটা টাক্সি ডাকে।টাক্সিটা থামলে, বালান ভেতরে প্রবেশ করতে গেলে দেখতে পায়, “শিলা(নিথিয়া মেনন)” কে।বালান প্রথম দেখাতেই তার প্রেমে পড়ে যায়।একসময় টাক্সিটা চলে যায়।বালান লক্ষ্য করে তাড়াহুড়োতে আগে টাক্সিটা নিতে গিয়ে মেয়েটি একটা ব্যাগ ফেলে রেখে গেছে।সেখানে রয়েছে একটি পুরনো ক্যামেরা সাথে বেশ কয়েকটা ফটো যেসব তোলা হয়েছে বেঙ্গালুরোর বেশ কিছু আলাদা আলাদা জায়গা থেকে।পরবর্তীতে বালান এবং তার বন্ধু ওমর ফটোগুলোকে তথ্যসূত্র ধরে মেয়েটাকে খুঁজতে শুরু করে দেয়।

একসময় বালান সেই আশাও ছেড়ে দেয়।আর ভাবতে থাকে এসব করে কোন লাভ হবে না।এরপর হঠাৎ একদিন এক হাসপাতালে শিলার সাথে বালানের দেখা হয়ে যায় এবং জানতে পারে শিলা তাকে আগে থেকেই চেনে।বালানের স্কুলের দিনগুলো আবার মনে পড়ে যায়, যেখানে এই মেয়েটিই সেই কারণ ছিলো যার জন্য তাকে সবাই “লুজার...লুজার...” বলে ডাকতো।যাইহোক শিলা বালানের সাথে সময় সুযোগ পেলে দেখা করে এবং ভাবটা এমন দেখায় যে, সে বালানের গার্লফ্রেন্ড।কিন্তু বালান ভবিষ্যৎ জীবনে এমন মেয়ের কাছে থেকে দূরে থাকার সিদ্ধান্ত নেয়।কিন্তু গল্পটা মোড় নেয় যখন বালানের এক্স-গার্লফ্রেন্ডের বিয়ের তারিখ ঠিক হয়ে যায় তখন।অন্যদিকে শিলা ব্যাপারটা জেনে যায়।তাই বালান শিলার কাছে ছোট হতে চায় না এবং শিলাকে দেখাতে চায় যে, সে কত বাস্তববাদী।তাই চলে যায় এক্স-গার্লফ্রেন্ডের বিয়েতে, সাথে যায় শিলা।এখানে তার বড় ভাইয়ের সাথে দেখা হয়।যে কিনা মনে করে বালানকে দিয়ে আদতেই কিচ্ছু হবে না।এমনকি যে একটা মেয়ে ওকে চাইতো তারও বিয়ে হয়ে যাচ্ছে।তাই বড় ভাইয়ের কাছে পার্ট নিতে গিয়ে বলে ফেলে, শিলা তার গার্লফ্রেন্ড।শিলা সে সময় শুধু বালানের কথার সাথে কথা মিলায়।পরবর্তীতে বালান জানতে পারে ফটোগুলোর মধ্যে একটি ছেলের ফটো ছিলো।ওর নাম “রাহুল(রাহুল মাধব)”।রাহুল অনেক স্মার্ট, অনেক বড় প্রোফাইল এবং মেয়েদের কাছেও অনেক জনপ্রিয়।আরো জানতে পারে, তার সাথে শিলার বিয়ে ঠিক করা আছে।আবার শিলা ভালোবাসায় বিশ্বাস করে না, সে বেশ বাস্তববাদী।সে বরং “অ্যারেঞ্জ ম্যারেজে” বিশ্বাস করে।

অন্যদিকে বালানের একমাত্র বন্ধু ওমর তাকে জানায় যে, সে ইউ.এস. যাবে এবং বাবার সাথে কাজ করবে।এরমধ্যে বালান তার চাকুরীটা আবার ফিরে পায়।বালানের অফিসে যোগ দেয় একজন নতুন সম্পাদক।যিনি সত্যিই কর্মনিষ্ঠ একজন মানুষ।তাই বালান চিন্তা করে তার আঁকানো কার্টুন ডায়েরী নতুন সম্পাদককে দেখাবে।কিন্তু শেষমেশ সেই ডায়েরীটা স্থান পায় ডাস্টবিনে।যেটা দেখে সে চাকুরীটা ছেড়ে দেয়।সবমিলিয়ে বালানের জীবনটা অনেক বেশি অগোছানো হয়ে যায়।ওমরের যাবার পর বালান অনেক বেশি মদ খেয়ে ফেলে এবং ভুলে যায় সেদিন শিলার বাবা-মার ২৫তম বিবাহবার্ষিকী ছিলো।শিলা এই দিনে ঐ ফটোগুলোকে বাবা-মাকে দেখাতে চেয়েছিলো।ফটোগুলো ভালো করে গোছানোর দায়িত্ব নিয়েছিলো বালান।ফোন করে শিলা বালানকে বেশ খারাপ ভাবে কিছু কথা বলে।বালান সেদিন কোনমতে সময়মত ফটোগুলোকে শিলাকে পৌঁছে দেয়।অন্যদিকে শিলা যখন আবার বালানের কাছে ক্ষমা চাইতে আসে তখন বালান তাকে জানায় যে, এটা তার জন্য সহজ ঠিক রাহুলের মতো হয়ে যাওয়া কিন্তু সে একজন কার্টুনিস্ট হতে চায়।সে হতে চায়, নিজের “অরিজিন্যাল”।
আশা করছি বাকিটা সহজেই অনুমেয়।

মন্তব্যঃ মুভির শুরুতেই এমন কিছু কথা আছে যে আপনি চাইলে তা উক্তি আকারে ডায়েরীতে লিখে রাখতে পারেন।এবং এই কথাগুলোই আপনাকে বাধ্য করবে পুরো মুভিটা অন্তত একবার দেখতে।আপনার সুবিধার্থে কথাগুলো আমি বাংলায় সাজিয়ে তুলে দিলাম,
“আপনি কি কখনো প্রেমে পড়েছেন? তাহলে সিনেমাতে ভালোবাসার যে অভিব্যক্তি সেটা আপনি বুঝতে পারবেন।ভালোবাসার গল্পগুলোতে যে মধুর সমাপ্তি দেখানো হয় সেটা আসলে মিথ্যা! বাস্তবজীবনে আসলে প্রেমের কোন সুখময় সমাপ্তি নেই।একজন নায়ক সূর্যাস্তের পানে নায়িকাকে বাহুডোরে আবদ্ধ করে স্লো মোশনে সামনের দিকে হেঁটে যায়।যেটা আপনি সিনেমাতে অহরহই দেখতে পাবেন।কিন্তু বাস্তব জীবনে আপনি আমার মত হতাশাগ্রস্ত লোককেই বেশী দেখতে পাবেন।
এখন আমি আপনাকে আমার ভালোবাসার ১০০দিনের গল্প বলবো.....”
যাইহোক, আবহ সংগীত ছিলো সত্যিই অসাধারণ।এত সাধারণ একটি গল্পকে এত সুন্দর করে উপস্থাপন করা হয়েছে যা সত্যিই প্রশংসার দাবী রাখে।অন্যদিকে ঠিক তেমনি বেশ রসিকতায় ভরপুর।সময় সময় হাসি আটকানো সম্ভব হবে না।মালায়ালাম মুভি খুব কম দেখা হয় কিন্তু সালমানের অভিনয়ে আমি সত্যিই মুগ্ধ।সবমিলিয়ে অনেকদিন পর একটা ভালোলাগার মত রোমান্টিক মুভি দেখলাম এবং বেশ উপভোগ্য ছিলো।
(মুভিটি দেখার জন্য খুব সহজেই বাংলা সাবটাইটেল ইন্টারনেটে গোগল সার্চ দিলেই আপনি পেয়ে যাবেন।)
সর্বশেষ এডিট : ১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৫:০২
০টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

আমার মতে ঐশীর মত মেয়েদের খারাপ হওয়ার জন্য তাদের অবিভাবক ও এই সমাজ দায়ী আপনার মত কি ?

লিখেছেন :):):)(:(:(:হাসু মামা, ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:১০


এই সেই ঐশী যে কিনা মালিবাগে নিজ ফ্ল্যাটে পুলিশের পরিদর্শক মাহফুজুর রহমান ও তার হ স্ত্রীকে হত্যা করেছিল ।আর সেই পুলিশ ও তার স্ত্রী ছিল ঐশীর নিজেরিই মাতা পিতা।... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমাদের সহব্লগার উনি, অথচ :(

লিখেছেন কাজী ফাতেমা ছবি, ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:২৩

উনি আমাদের সহ ব্লগার শাহানাজ সুলতানা। আমি আগে জানতাম না উনি ব্লগার এবং উনার বই্ও বের হইছে। অথচ সেদিন আমার লেখা উনার লেখার মাঝখানে ঢুকিয়ে পোস্ট দিলেন। ফ্রেন্ড একজন সেখানে... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমি বাংলায় ডাকি প্রভু

লিখেছেন বিদ্রোহী ভৃগু, ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৩:১৬

আমি বাংলায় ডাকি প্রভু
খূঁজি বাংলায় অবতার
বাংলাতে বুঝি মায়ের দরদ
বাংলায় মুক্তি আমার।

বাংলা আমার প্রেম বিরহ
বাংলাতে সূখ উন্মুখ
বাংলাতেই হাসি-কান্না আমার
বাংলায় স্বর্গ সূখ।

বাংলায় করি প্রার্থনা
করি বাংলায় উপবাস,
বাংলায় করি তীর্থ ভ্রমণ
বাংলায় যোগাভ্যাস।

বাংলায়... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্রারম্ভ ( পর্ব -২ )

লিখেছেন নীলপরি, ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ৮:৫১



রাত প্রায় ১টা বাজে! আবার মেসেজ করলো ছেলেটা!রাহুল মিত্তাল । দিদিয়ার শ্বশুর বাড়ির সম্পর্কের বলে, কিছু বলতেও পারেনা তিন্নি! সেই দিদিয়ার বিয়ে থেকে স্টিকি টাইপ... ...বাকিটুকু পড়ুন

গণতন্ত্রও চান, বেগম জিয়াকেও চান, এটা কি রাজনীতি?

লিখেছেন চাঁদগাজী, ২৩ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ৯:১১



মির্জা ফখরুল সাহেবের কথা বলছি; তিনি আদি রাজনীতিবিদ ওলি আহাদের স্মরণসভায় কথা বলছিলেন; তিনি বলেছেন যে, বাংলাদেশে গণতন্ত্র নেই; এ ব্যাপারে উনি সঠিক; তিনি গণতন্ত্র চান, এবং চান... ...বাকিটুকু পড়ুন

×