somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

দুই কিংবদন্তির অভিষেক দিন

১৪ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:৫২
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

১৫ই নভেম্বর ১৯৮৯ সনের এইদিনে টেস্ট ক্রিকেটে দুই কিংবদন্তির অভিষেক হয়। তাদের মধ্যে একজন পাকিস্তানি পেসার ইর্য়কার মাস্টার ওয়াকার ইউনুস অন্যজন ভারতীয় ঠাণ্ডা মেজাজের ধ্বংসাত্মক ব্যাটসম্যান শচীন টেন্ডুলকার।

ইর্য়কারের রাজা বলে পরিচিত ওয়াকার ইউনুস। তিনি তার টেস্ট ক্রিকেট জীবনে ৮৭ ম্যাচে ৩৭৩ উইকেট সংগ্রহ করেছেন। সেরা বোলিং ছিল এক ইনিংসে ৭৬ রানে ৭ উইকেট। তিনি টেস্ট ক্রিকেটে এক ইনিংসে ৫ উইকেট নিয়েছে ২২ বার এবং ১টি টেস্ট ম্যাচে ১০ উইকেট নিয়েছে ৫ বার। এক টেস্ট ম্যাচে সেরা বোলিং ছিল ১৩৫ রানে ১৩ উইকেট। ১৯ শতকে তার ইর্য়কার জাদুতে কেপে উঠতো ক্রিকেট বিশ্ব। অনেক দানবীয় ব্যাটসম্যান তার ইর্য়কারের সামনে হার মেনেছে। সেই ধ্বংসাত্মক বোলার ২০০৩ সালের ২রা জানুয়ারীতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে শেষ ম্যাচ খেলে তার টেস্ট ক্রিকেটীয় জীবনে ইতি টানেন। এ বছরে তিনি সিলেট সিক্সার্সের সেরা ১০ বোলার ‘ফিউচার সিক্সার্স’ ট্যালেন্ট হান্ট ক্যাম্পেইনে কার্যক্রমে বিচারক হিসেবে ছিলেন। বিপিএলের প্রথম তিন ম্যাচে জয় দিয়ে শুরু করলেও পরের দুই ম্যাচে হেরে যায় সিলেট। দলের জয়ের ধারাবাহিকতা ফিরিয়ে আনতেই এবার বিদেশি মেন্টরের দিকে হাত বাড়াল দলটি। তাই সিলেট সিক্সার্সের মেন্টর হিসেবে দেখা যাবে ওয়াকার ইউনুসকে।

এবং সর্বকালের সেরা ব্যাটসম্যান শচীন টেন্ডুলকার। ১৯৮৯ সালে রাজ সিং দুঙ্গারপুর শচীনকে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভারতের সফরে ভারতীয় দলের সদস্য হিসেবে নির্বাচন করেন। এর ফলে ১৯৮৯ সালের নভেম্বর মাসে করাচী টেস্টে মাত্র ১৬ বছর ২২৩ দিন বয়সে তাঁর আন্তর্জাতিক টেস্ট ক্রিকেট অভিষেক হয়। তার ২৪ বছরের ক্রিকেটীয় জীবনে রযেছে অসংখ্য রেকর্ড। টেস্ট ক্রিকেটে ২০০ ম্যাচে করেছেন ১৫ হাজার ৯২১ রান। সেরা ব্যাটিং ২৪৮ রান। শতরান হাকিয়েছেন ৫১টি এবং অর্ধশতক রযেছে ৬৮টি। একমাত্র শচীন টেন্ডুলকার টেস্ট ও ওডিআই একত্রে শতক হাকিয়েছে ১০০টি। ১৯৮৯ থেকে ২০১৩ সন পর্যন্ত প্রতিটি মানুষকে মাতিয়ে রেখেছিলেন তার নৈপুণ্য ব্যাটিং এর মাধ্যমে। তিনি তার শেষ টেস্ট ম্যাচ খেলেছেন ১৪ই নভেম্বর, ২০১৩ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে।

© মুহসিন মুন্সী
সর্বশেষ এডিট : ১৪ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:৫৩
০টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

ঢাকার শিশুদের ইদ বিনোদন

লিখেছেন তারেক_মাহমুদ, ১৯ শে জুন, ২০১৮ দুপুর ১:০৫



ইদের পর অফিস খুলেছে দুইদিন, তবে রাজধানীতে এখনো ঈদের আমেজ কাটেনি। ঢাকার রাস্তাঘাট একদম ফাকা, অন্য সময় যেখানে দুই আড়াই ঘন্টা লাগতো, আজ ত্রিশ মিনিটেই অফিসে চলে আসলাম। গত... ...বাকিটুকু পড়ুন

বিশ্বকাপ ফুটবল- দলগুলোকে সাপোর্টের নামে কী করছি!!

লিখেছেন কাওসার চৌধুরী, ১৯ শে জুন, ২০১৮ বিকাল ৫:৫২


:: বাঙালিরা নিজের সফলতার চেয়ে অন্যের ব্যর্থতায় বেশি খুশি হয়। অন্যভাবে বললে, ব্যর্থ মানুষরা সফল মানুষদের ব্যর্থ হতে দেখতে চায়, বড়ই পুলকিত হয়। আর খেলাধুলা ক্ষেত্রে তো আমরা আরো... ...বাকিটুকু পড়ুন

সত্যের পথে চলতে হবে এটাই শেষ কথা

লিখেছেন সেলিম আনোয়ার, ১৯ শে জুন, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:২৪


ভোটাধিকার নেই বিশ্বকাপ ফুটবল নিয়ে
আছে মেতে সবেই-
নিজোদেশে বাস করে প্রবাসীদের মতো
তবু মনে নেই তাদের গভীর কোন ক্ষত।
যুদ্ধার্জিত স্বাধীনতারে কত দামে বিক্রি করে
আমরা সবে আজ... ...বাকিটুকু পড়ুন

নিজের চোখে দেখা কয়েকটি মৃত্যু

লিখেছেন রাজীব নুর, ১৯ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:১৭



১। ভদ্রমহিলা আমাদের বাসায় ভাড়া থাকতেন। তার দুইটা মেয়ে দশ-বারো বছর। স্বামী রেড ক্রিসেন্টে চাকরি করেন। কথা নেই, বার্তা নেই মহিলা হঠাৎ করে অসুস্থ হয়ে পড়লেন। প্রচুর বমি... ...বাকিটুকু পড়ুন

"স্বপ্ন বয়ন"

লিখেছেন বৃষ্টি বিন্দু, ১৯ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:২০



কবিতা তুমি কোথায়?
কোথায় তোমার গন্তব্য?
এত পথ চলো,
এতো কবির নিউরনে ঝড় তুলো!
অথচ তুমি ক্লান্ত নও।
নাকি প্রচণ্ড ক্লান্ত,
তাও শুধু আমার জন্য?
মাঝে মাঝে পথ ভুলে চৌরাস্তায় দাঁড়িও।
সেখান থেকে তোমাকে নাহয় পিক... ...বাকিটুকু পড়ুন

×