somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

অনিকেত চট্টোপাধ্যায়
অনিকেত চট্টোপাধ্যায় এর ব্লগ

"টিভি ক্যামেরার সামনের মেয়েটি" অধ:পতিত’, ‘খারাপ মেয়ে’ নয়... বরং একজন প্রতিবাদী মানুষ...

১৫ ই এপ্রিল, ২০১৩ বিকাল ৫:০০
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

সম্প্রতি সর্বজনশ্রদ্ধেয় "হাসনাত আব্দুল হাই"....প্রথম আলোতে প্রকাশিত "টিভি ক্যামেরার সামনের মেয়েটি" ছিল বাংলা নববর্ষ-১৪২০ বাংগালীর জন্য এক অনন্য উপহার...যেভাবে যৌনসুড়সুড়ি দিয়ে সাহিত্য রচনার মত স্পর্শকাতর বিষয়টি সম্পন্ন করেছেন, তা দেখে মনে হয়েছে....নিয়তিবাদী লেখক বলে তার যে পরিচয় ছিল সেটা অনেকটাই প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে...

মনস্তাত্বিক থেকে শুরু করে পেশাগত দ্বন্ধ, সামাজিক পারিবারিক জটিলতা, রোমান্স, শাসক ও শোষিতের গল্প সবকিছুই শেখার আসে বর্ষীয়ান এই ঔপন্যাসিক এর কাছ থেকে..মানব চরিত্রের অন্ধকার ও নোংরা দিকটা তার লেখায় ফুটে উঠেছে বারবার... রাজনৈতিক উত্তাল বিষয়গুলি হয়ত সরকারি উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা(তিনি সচিব পদে কর্মরত অবস্থায় অবসর নেন) ছিলেন বলে এ বিষয়গুলো এড়িয়ে গিয়েছেন।তবে তা পুষিয়ে দিয়েছেন সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের নানা দুর্নীতি স্বেচ্ছাচারিতা বা নির্যাতনের লেখা দিয়ে। কিন্তু "টিভি ক্যামেরার সামনের মেয়েটি" শিরোনামে লেখায় সীমা নামের যে চরিত্রটি অংকিত হয়েছে তা যে অগ্নিকণ্যা "লাকী" দের নিয়ে লেখা, সেটা খুবই কটুভাবে দৃশ্যমান...অগ্নিকন্যা লাকি কে নিয়ে আমি আগেও লিখেছি...বলেছি অনেক কথা....কিন্তু জমির চাচা আর মঞ্চের ছাত্রনেতারা, যারা 'প্রগতিশীলতার' ধারক এবং বাহক হিসেবে তার লেখায় উর্দ্দিষ্ট হয়েছেন, তাদের চরিত্র রুপায়নের সংগে সংগে তিনি গনজাগরন বিরোধীদের সুরে সুর মিলিয়ে গেছেন...সুর মিলিয়েছেন হেফাজতের সকল দাবীর সাথে....সুর মিলিয়েছেন....বিখ্যাত চটিসাহিত্যিক "রসময় গুপ্তের" সাথে....

তার এই লেখনি ও ভাবনাকে জনসম্মুখে "বাস্তব" রুপ দিতে প্রথম আলোর ভুমিকা অনস্বীকার্য..."আমার দেশ" এর সাময়িক অনুপস্থিতে "সাময়িক মুখপত্রহীন" পাঠকদের বিশ্বাস অর্জনের ও পত্রিকার বিক্রি বাড়ানোর এক চেস্টা হিসেবে সেটাকে সাধুবাদ জানানো যেতেই পারে...কিন্তু হাসনাত আবদুল হাইয়ের এই গল্পটিকে নোংরা অপপ্রচারণা থেকে আলাদা করে দেখার আক্ষরিক অর্থেই কোন সুযোগ নেই। গল্পকারের স্বাধীনতা কোন ভাবেই বাস্তব চলমান রাজনৈতিক সংগ্রামের নারী নেতা-কর্মীদের নামে নোংরা অপপ্রচারকে অনুমোদন করে না।

গণজাগরণ মঞ্চের নারী শ্লোগানদাতাদের ‘অধ:পতিত’, ‘খারাপ মেয়ে’ হিসেবে দেখার জন্য যে দৃষ্টিভংগি দরকার, তা এককালের "সবল এর বিরুদ্ধে দুর্বল এর লড়াই ও অত:পর জয়" এর কথক জনাব "হাসনাত আব্দুল হাই" কোথায় পেলেন সেটাই এখন ভাববার বিষয়....তার বক্তব্য শুধুমাত্র সুনির্দিষ্ট করে গণজাগরণ মঞ্চের, মিডিয়ার এবং রাজনীতিতে অংশগ্রহণকারী নারী কর্মীদেরকে অপমান করা, নোংরা অপবাদ দেয়ার মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়, বরং নিজ অবস্থান থেকে সংগ্রাম করে যাওয়া প্রতিটি নারীর প্রতি একটা মূর্তমান "কষাঘাত"...আবার "সম্পাদকীয় নীতিমালা" অনুসারে এরকম ইংগিতপূর্ণ এবং নোংরা অভিযোগ মূলক গল্প প্রথম আলোতে যথেষ্ট গুরুত্ব সহযোগে প্রকাশিত হলে সেটা কি ইংগিত করে, তার মর্মার্থও অনেকেরই জানা...

সমাজের সমকালীন চালচিত্র ফুটিয়ে তোলা বাইরেও একজন ঔপন্যাসিক এর সাধারণ দ্বায়িত্ব থাকে সেই চরিত্রটিকে আবাল-বৃদ্ধ-বণিতা পাঠকের কাছে সেটাকে বাস্তব এবং গ্রহণযোগ্য করে তুলে ধরার....যেটা "চটি সাহিত্যিক" বা "চটি প্রকাশক" দের থাকে না...ব্যাক্তিগতভাবে, আমি কথাসাহিত্যিক বা সমালোচক নই...শুধু "আবাল-বৃদ্ধ-বণিতা" পাঠক গোষ্ঠীর একজন মাত্র...আমার সেই ক্ষুদ্র অবস্থান থেকেই আমি মনে করি যে, চিন্তা ভাবনায় প্রগ্রতিশীলতার নামে "নারীদের মক্ষীরাণী" হিসেবে উপস্থাপন করার "রগরগে" প্রচেষ্টা, পুরো নারী সমাজকে হেয় করার একটা সুক্ষ প্রয়াস...যেটা "রসময় গুপ্ত"দের মানায়...শ্রদ্ধেয় "হাসনাত আব্দুল হাই" এর মতো ঔপন্যাসিকদের নয়.....
সর্বশেষ এডিট : ১৫ ই এপ্রিল, ২০১৩ বিকাল ৫:০৮
১টি মন্তব্য ১টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

"তোমাকে বেঁচে দেব জোড়া শালিকের কাছে"

লিখেছেন দিশেহারা রাজপুত্র, ০৭ ই জুলাই, ২০১৫ রাত ১২:২৫



নীলাদ্রীতা,
আজ রাতে সময়কে ধরে বেঁধে বেঁচে দেব
লাল নীল ফানুসে উড়িয়ে দেব স্বপ্ন সাধ
কৃষ্ণপক্ষের রাত মুখ বাঁকা চাঁদ
শ্রাবণের অপেক্ষায় তুমি নিও নির্ঘুম যত রাত।

কিছু অবাঞ্চিত স্মৃতিকথা বাতাসের বুক চেপে সুর... ...বাকিটুকু পড়ুন

শোন সনাতনী বন্ধু শোন

লিখেছেন চাঁপাডাঙার চান্দু, ০৭ ই জুলাই, ২০১৫ রাত ১২:২৭

আগাচৌ এর কাহিনী দেখি বেশ সিরিয়াস মোড় নিচ্ছে, এমনটা আশা করি নাই। ভেবেছিলাম এই অথর্ব বুড়ার বাকোয়াজ সবাই বুড়া বয়সের ভীমরতি হিসেবে ধরে নিবে। কিন্তু গণজাগরণ মঞ্চ দেখি রীতিমতো কোমর... ...বাকিটুকু পড়ুন

নয়ন-১

লিখেছেন উর্বি, ০৭ ই জুলাই, ২০১৫ রাত ১:৫৯

প্রিয়তমেষু,


এতদিন যা ছিল নয়নে নয়নে
আজ তাই এড়োই বড় সযতনে
ingredients:
CAMLIN 10B
Pelikan 2B

...বাকিটুকু পড়ুন

পাথর বন্ধু । (অণুগল্প )

লিখেছেন কলমের কালি শেষ, ০৭ ই জুলাই, ২০১৫ রাত ২:৪১

রাতুল আজও পাথরটাকে লালন করছে । এই পাথরটা তাকে সঙ্গ দিচ্ছে গত পনেরটি বছর । এক মুঠি পাথরটির দিকে তাকালে তার সেই ছোটবেলার বন্ধু আবিরের কথা মনে পড়ে । তারা... ...বাকিটুকু পড়ুন

মৃত আমি!

লিখেছেন হোয়াইট ক্লাউড, ০৭ ই জুলাই, ২০১৫ ভোর ৬:২৭



এইমাত্র আমি মারা গেলাম।
আমার যে মৃত্যু হয়েছে তা এখনও কেউ জানে না... ও এখন ওর স্টাডি রুমে। আমি একা একা শুয়েছিলাম। হঠাত মনে হল আমার দম নিতে অসহ্য রকমের কষ্ট... ...বাকিটুকু পড়ুন

একাত্তরে নারীদের সম্ভ্রমহানি নিয়ে কিছু কথা

লিখেছেন নেফার সেটি, ০৭ ই জুলাই, ২০১৫ সকাল ৭:৩৫

"It is not uncommon in history when a battle has been lost because troops were over indulgent in loot and rape."
পাকিস্তানি সৈন্য কর্তৃক ধর্ষণ আর লুটের মাত্রা এমনভাবে ছাড়িয়েছিলো... ...বাকিটুকু পড়ুন