somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

অ আ আজকের লেখালেখি - ২৮৫ (একটি কবুতর চোর ও অগ্নি সংযোগ নাশকতা)

২৭ শে মার্চ, ২০১৩ দুপুর ২:২০
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

আমাদের গোপিবাগের দাদার বাড়ীটা বেশ পুরানো। পঞ্চাশ দশকের শেষের দিকে তৈরী এই দ্বিতল বাড়ীর প্রধান বৈশিষ্ট্য ছিল দোতালায় এক পাশে বিশাল খোলা ছাদ। আমরা দোতালায় থাকতাম। আমারা বাবার বিভিন্ন পশুপাখির বিষয়ক নানান শখ ছিল । যার ভিতর ছিল কবুতর ও একুরিয়ামের মাছ। বাবার কবুতরগুলো বাড়তে বাড়তে গোটা ৫০ সংখ্যাতে পৌঁছেছিল। বাবার রোজ গুনে গুনে সেগুলোকে ঘরে ঢুকাতেন উনি না থাকলে আমাদের বাসার কেয়ারটেকার আমীর ভাই সেগুলোর খেয়াল রাখতেন। আমাদের ছাদের পেছন দিকে থাকা কবুতরের ঘরগুলোকে ডাকতাম পায়রা মহল। হঠাৎ একদিন থেকে এই পায়রা মহল থেকে কবুতর কমতে লাগলো। প্রথম কয় দিন একটা করে কমতে লাগলো। চুরি যাওয়া নিঁখোজ কবুতর কোথাও পাওয়া যাচ্ছিল না। এরকম করে চার পাঁচ দিন চললো এ কদিনে পনরোখানা কবুতর চুরি হয়ে গেল। অতঃপর আমাদের পারিবারিক মিটিং হলো, এর একটা সুরাহার জন্যে সবাই নানান বুদ্ধি দিলেন, শেষমেষ বাবার বুদ্ধিটাই সবার মনে ধরলো, কারেন্ট জাল দিয়ে চোর ধরা হবে। কারেন্টের শক খেয়ে চোর মরবে না চিৎপটাং হয়ে বেকুবের মতন পড়ে থাকবে। আমরা সবাই তাকে হাতেনাতে ধরে ফেলবো তারপর পুলিশের কাছে দিব। এররকম একটা সিদ্ধান্ত হলো। বাবার তদারকিতে গুনা তার দিয়ে চোর ধরার কারেন্ট জাল বানানো হলো। আমরা সবাই খুব উত্তেজিত কেননা, আমরা কখনো চোর দেখি নি, চোর ধরি নি। প্রতিদিন রাত এগারোটার পর আমাদের ছাদে যাওয়া বারন ছিল। সেই সময় থেকে ভোর ছয়টা পর্যন্ত এই কারেন্ট জাল কার্যকর ছিল। প্রথম দিন কোন চোর ধরা পড়ে নি। সেদিন চোর আসে নি। দ্বিতীয় দিন চোর এলো না । আমরা সবাই বিচলিত চোর কি তবে আমাদের গোপন পরিকল্পনার কথা জেনে গেল । তৃতীয় দিন আমরা সবাই গভীর ঘুমে। রাত তিনটার সময় শুনি ধুপধাপ শব্দ। বড় একটা কিছু পড়ে যাওয়ার শব্দ। আমরা সবাই ছুটে এলাম দেখি একটা গায়ে তেল কালি মাখা খালি গায়ে একটা লোক পড়ে আমার মা'র গোলাপ বাগানে টবের উপর শুয়ে আছে তার হাতে খালি বস্তা। আমরা সবাই হাতেনাতে চোর ধরে ফেললাম। পুলিশ এলো বাড়ীতে চোরকে বেঁধে নিয়ে গেল।

আমার এই ছোটবেলার গল্প মনে হওয়ার একটা বিশেষ কারন জড়িত। এখন আমরা প্রায়ই দেখছি, হরতালের আগের দিন আমাদের গাড়ীতে আগুন দেওয়া হচ্ছে। এই গাড়ীগুলো আমরা মাসের পর মাস ব্যাংক লোন দিয়ে শোধ করে যাচ্ছি। আমাদের অক্ষত গাড়ী থাকুক আর না থাকুক ব্যাংককের লোন সুদসহ শোধ করতে হচ্ছে। একে ওকে বলে কয়ে মেরে ফেলা হচ্ছে। আমরা কাউকে ধরতে পারছি না। জানতেও পারছিনা কাজটা কে করছে। কারা ইন্ধনাকারী আমরা জানতেও পারছি না। আমরা অন্ধকারে হাতরাচ্ছি। সরকার ও বিরোধী দল আমাদের কোন ক্ষতিপূরন দিচ্ছে না। পুলিশকে অভিযোগ করতে গেলে তারা আমাদের বলছে জানেন তো হরতালের আগের দিন এসব হয় আমরা কি করতে পারি বলেন, একটা জিডি করে রাখেন দেখি কি হয় ! আমরা আশাহত হই। আমরা যদি সেই ছোটবেলাকার কারেন্ট জালে এদেরকে বেঁধে পুলিশকে দিতে পারতাম। তাহলে হয়ত কেউ এমনটি করার সুযোগ পেত না। এক্ষেত্রে কিন্তু দুঃখের কথা মাসিক মাসোহারা পাওয়া কোন একদল পুলিশ এসে আপনাকে আটক করতে পারে আইন নিজের হাতে তুলে নিয়েছেন এই অভিযোগে।

২৩ই মার্চ, ২০১৩
--------------------------------------------------------------------------------
লেখালেখি ৩৬৫ প্রজেক্ট ২৮৫/৩৬৫
সর্বশেষ এডিট : ২৭ শে মার্চ, ২০১৩ দুপুর ২:২০
১টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

বানান আসর- ৪ : উঁয়ো (ঙ) ও অনুস্বর (ং)-এর ব্যবহার

লিখেছেন শাবা, ২৫ শে এপ্রিল, ২০১৮ রাত ৮:২১

বানান আসরে সবাইকে স্বাগতম। দীর্ঘ সাড়ে তিন বছর বিরতির পর আবার বানান আসর শুরু করতে যাচ্ছি। এবার ইচ্ছা আছে বানানের এ আয়োজন শেষ পর্যন্ত নিয়ে যাওয়ার, বাকি আল্লাহর ইচ্ছা।

বানান বিভ্রাটে... ...বাকিটুকু পড়ুন

মুখোশের আড়ালে মাটি চাঁপা বিবেক (ফিচার)

লিখেছেন কাওসার চৌধুরী, ২৬ শে এপ্রিল, ২০১৮ রাত ৩:১২


আমরা খুব আবেগ প্রবণ জাতি। ঠিক এক বছর পর কেউ তিতুমীর কলেজের রাজীবের (দুই বাসের চাপায় হাত হারানো, পরে হাসপাতালে মৃত্যু) কথা মনে রাখবে না। তার দুই ভাই পড়াশুনা করতে... ...বাকিটুকু পড়ুন

“একফোটা অশ্রু”

লিখেছেন কামরুননাহার কলি, ২৬ শে এপ্রিল, ২০১৮ দুপুর ১২:১২

শেষ পর্ব
আমার গল্পের নাম চেঞ্জ করে দিলাম। কেউ রাগ করবেন না।



আজ কয়েকদিন হলো রিয়াকে সবাই বাড়ি নিয়ে আসছে। পাড়া-প্রতিবেশি, আশেপাশের আত্মীয়-স্বজনরা শুনে সবাই দেখতে এসেছে রিয়াকে। বাড়ি... ...বাকিটুকু পড়ুন

মাহে রমজানের ফজিলত, গুরুত্ব ও তাৎপর্য- রিপোস্ট

লিখেছেন নতুন নকিব, ২৬ শে এপ্রিল, ২০১৮ দুপুর ১২:৫৬



সমস্ত প্রশংসা, শোকর, ছানা, হামদ সেই মহান আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআলার যিনি রমজানকে শ্রেষ্ঠ মাস হিসেবে নির্ধারন করেছেন এবং সে সময় মু'মিন মুসলিমের প্রত্যেক ভাল কাজের প্রতিদান বৃদ্ধি করে... ...বাকিটুকু পড়ুন

স্বামীর ফেসবুক ইনবক্স চেক করবেন মাস্ট ।। বিবাহিতাদের জন্য ফারিয়ার উপদেশ

লিখেছেন শাহ আজিজ, ২৬ শে এপ্রিল, ২০১৮ দুপুর ২:১৮


স্ত্রীদেরকে স্বামীর ফেসবুক ইনবক্স চেক করার পরামর্শ দিয়েছেন সাবেক লাক্স তারকা ফারিয়া শাহরিন। সম্প্রতি নিজের ফেসবুক ব্যান্ডেলে এসব কথা জানান তিনি। ফারিয়া বলেন, যে সব জামাই তাদের বৌ'দের মন... ...বাকিটুকু পড়ুন

×