somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

দার্শনিক ইমরান
নাম হাবিব ইমরান, ভালো লাগে নিয়মতান্ত্রিক স্বাধীনতা। পছন্দ করি ভাবতে, স্বাধীনভাবে ঘুরে বেড়াতে। পাশাপাশি আরো পছন্দ করি প্রচুর পড়তে, জানতে। মুক্তচিন্তাও পছন্দ করি, তবে তা নিয়মের ভিতরে। এবং অতিরিক্ত কোন কিছুই পছন্দ করিনা

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের ইতিকথা, এবং একটি সোনার হরিণের হাতছানি

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩০
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



জানুয়ারির ১ তারিখ।
চারিদিকে কুয়াশাচ্ছন্ন পরিবেশ। বেশ শীতল। পাশাপাশি অসাধারণ। আবার ভয়ানক ৷যেহেতু বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের প্রথম ক্লাস। ভয়, আবেগ সবমিলিয়ে একটা অন্যরকম অবস্থা ৷
চোখে মুখে আনন্দের পাশাপাশি যথেষ্ট ভয়, সংকোচ আর চারদিকে সতর্ক দৃষ্টি। বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশোনার অবস্থা কি ধরনের? শিক্ষকরা কেমন? পাশাপাশি স্টুডেন্টরাও বা কেমন? - এসব ভাবতে ছেলেটি ক্লাসের সামনে পৌঁছে গেল। দরজার সামনে দাঁড়াতেই ভিতর থেকে স্যারের কর্কশ ধ্বনি এবং বিরক্তিকর দৃষ্টি।
: আসবো স্যার ?
: এসো, আমি না বললে কি তুমি আসতেনা?
প্রথম ক্লাসে তোমার ১৫ মি. লেট, কি করবে জীবনে? এখন পর্যন্ত ডিসিপ্লিন শিখতে পারলেনা।
: সরি স্যার, আর দেরি হবেনা।
: ঠিক আছে, এসো, প্রথম প্রথম সবাই এরকম বলে ৷কিন্তু কিছুদিন পর খুঁজে পেতেও কষ্ট হয়ে যায় ৷

ছেলেটি প্রথম দিনের ধাক্কায় যথেষ্ট মর্মাহত হলো ৷ কারণ, সে জানত বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে পড়াশুনা নেই বললেই চলে। সারাদিন আড্ডা, গান, ঘুরাঘুরি এসব করেই কেটে যায়। মাঝেমধ্যে অনেকে নাকি আবার গাঁজা সিগারেটও খায়। আবার কেউ কেউ নাকি প্রেমও করে। এসব ভেবে সে আরো হতাশ হলো। যেরকম জানতাম সেটা ঠিক নাকি আজকেরটা!

ছোটবেলা থেকে সে দেখলো,
প্লে নার্সারীতে বইয়ের ভারে শিশুদের আর খুঁজে পাওয়া যেতনা। তারপর সেই বোঝা কিছুটা হালকা হত প্রাথমিকে গিয়ে। তারপর হাই স্কুলে গিয়ে আরো অনেকটা হালকা হয়ে যেত। কলেজে যাওয়ার পর তো বই ই থাকতো না, শুধুমাত্র একটা খাতা প্যান্টের পেছনের পকেটে পুরে আসা যাওয়া করলেই হয়ে যেত। তার খাতা দেখলেই সবাই বুঝে নিত সে কলেজে পড়ছে ৷
বিশ্ববিদ্যালয়কে অতীতের সিরিয়ালে নিলে এখানে পড়াশোনা একেবারেই নাই হয়ে যাওয়ার কথা ছিলো।কিন্তু ব্যাপারটা ঘটলো ঠিক উল্টো।

কিছুটা মন খারাপ করে সেদিনের বাকি ক্লাস সেরে বাসায় চলে আসলো।
তারপরদিন একটু আগেই ক্যাম্পাসের উদ্দেশ্যে বেরিয়ে পড়লো, যাতে করে স্যারের আবার বকা শুনতে না হয়।
দ্বিতীয় দিন ক্লাসে ঢুকে এবার তার অজ্ঞান হবার উপক্রম।
গিয়ে দেখলো পেছনের সব বেঞ্চ আগেই ফিলাপ হয়ে গেছে। শুধু সামনের বেঞ্চগুলোই খালি। বেচারা হতাশ হলো, শেষ পর্যন্ত বসে বসে ভাবতে লাগলো স্কুল, কলেজ লাইফে কখনো সামনে বসার ইচ্ছেও করতাম না। ইচ্ছে করলেও মেধাবীদের জন্য আর জায়গা পাওয়া যেতনা ৷আর এখন বাধ্য। না জানি কখন আবার আগে স্যারের কথা শুনতে হয়।
ভাবতে ভাবতে হঠাৎ তার মনে পড়লো,
এক গুরুজন বলেছিলেন,
জীবনে একমাত্র পেছনের বেঞ্চের ছেলেরা উন্নতি করতে পারে। আর সব বুংবাং।
সামনের বেঞ্চের পোলাপান একেবারে খালি কলসির মতো ঝনঝন করে, কাজের বেলায় ফাও। মন খারাপ করে সামনে বসে সেদিনের মতো কেটে পড়লো ৷

সে আরো ভাবলো এজন্য মনে হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ে আগে পেছনের বেঞ্চ ফিলাপ হয় তারপর সামনের বেঞ্চ। যে যত ভালো স্টুডেন্ট সে তত পেছনে বসে। ৹৹৹৹
আর এভাবেই চলতে থাকল তার বিশ্ববিদ্যালয় জীবন।
শেষ পর্যন্ত এভাবেই চললেই বোধহয় ভালো হতো! কিন্তু কিছুদিন পরের ঝড় তুফানের কথা মোটেই ভাবতে পারলো না, - ক্লাস টেষ্ট, এ্যাসাইনমেন্ট, প্রেজেন্টেশান এগুলোর কবলে পড়ে সে একজন দার্শনিকে পরিণত হয়ে গেল। জীবন আর জীবনের জায়গায় রইলো না । সবই শেষ । ....

আর এভাবেই তৈরি হয়ে থাকে বাংলাদেশের প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তা। সবাই না, যারা মেনে চলে তারা ৷
কঠোর পরিশ্রম আর শিক্ষকদের চাপের মুখে দেশের জন্য তৈরি হওয়াও বেশ ভালো লাগার মতো।
ঝড়, বৃষ্টি, হাসি, আনন্দ বিসর্জন দিয়ে জীবনের জন্য তৈরি হতে পারে কয়জন?

শুভ কামনা সবার প্রতি!
সর্বশেষ এডিট : ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩৮
৬টি মন্তব্য ৬টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

চীন কথনঃ শিক্ষক - শিক্ষার্থী সমাচার

লিখেছেন Shihab A. Mamun, ২১ শে নভেম্বর, ২০১৮ রাত ৩:০৮

রাত ৮.২০, ক্লাস চলবে আরো ঘন্টা দুইয়েক। পিএইচডি করা মানুষ একটু পাগালাটে গোছের হয় এটা এখানে না আসলে বুঝতাম না। সবারই কিছুনা কিছু পাগলামী আছে। ছবির ব্যক্তির নাম ড.... ...বাকিটুকু পড়ুন

সামু বিশ্ববিদ্যালয়

লিখেছেন আর্কিওপটেরিক্স, ২১ শে নভেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:০২



রাজধানী ঢাকার প্রাণকেন্দ্র Somewherein এলাকায় সদ্য প্রতিষ্ঠিত সামু ব্লগিং বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য শিক্ষক নিয়োগ চলিতেছে । ইতোমধ্যে নিম্নোক্ত বিষয়ে শিক্ষক নিয়োগ সম্পূর্ণ হইয়াছেঃ

০.শিক্ষকদের শিক্ষকঃ

ব্লগার বিজন রয়

১.কম্পিউটার সাইন্সঃ

ব্লগার ইফতেখার... ...বাকিটুকু পড়ুন

নাস্তিক্যবাদি পাদ

লিখেছেন কূকরা, ২১ শে নভেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:৫০

১। পাঁদগাজী
২। উদাসি উল্লুক
৩। ............. ...বাকিটুকু পড়ুন

প্রাপ্তি

লিখেছেন সৈয়দ তাজুল ইসলাম, ২১ শে নভেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১:০৯


প্রাপ্তি'র প্রথম পর্ব... (view this link)
(তিন)
স্বপ্নার অস্বাভাবিক আচরণ দেখে দুশ্চিন্তা বেড়েই চলল আব্দুন নূর সাহেবের। উদগ্রীব হয়ে পরছিলেন মেয়ের অস্বাভাবিকতা উদঘাটনে। চাইছিলেন এখনই স্বপ্নার এই পুরনো ডাইরিটা খোলে... ...বাকিটুকু পড়ুন

রাজধানীর বুকে একটা মেস জীবনের গল্প!

লিখেছেন অগ্নি সারথি, ২১ শে নভেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৪:২৯


মাত্র ৫ সদস্য বিশিষ্ট ঢাকা শহরে চক্রাকারে আবর্তিত হওয়া, ভাঁড়া করা ফ্ল্যাটে ছিল আমাদের মেস জীবন। নিয়মহীনতাই ছিল এখানে নিয়ম। মোবাইল ফোনটা ছাড়া আর কোন ধরনের সম্পদের উপর সুস্পষ্ট... ...বাকিটুকু পড়ুন

×