somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

অন্যরকম ঢাকা

১৭ ই জুন, ২০০৯ রাত ১:৫৯
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

বিলেতের ইংলিশ চ্যানেল, লন্ডনের টেমস্‌ নদীর নাম সেই ছোটবেলা থেকে শুনেছি। ব্রজমোহন নামের এক ব্যক্তি সাঁতার কেটে ঐ বিলাতি চ্যানেল অতিক্রম করেছিলেন। বিশ্বের অনেক নামী দামী শহর গড়ে উঠেছে কোন না কোন নদীর তীরে। শহরবাসী তাদের সেই সব নদীগুলোকে সাজিয়ে রেখেছেন ছবির মত। সকালে তার তীর ঘেষে চলে তাদের হাটা হাটি, মন খারাপ হলে একাকী নদীর সাথে কাটানো আরো কত কি! সমুদ্র তীরে বিস্তৃত সমুদ্রের বিশালতা মানুষের মনকে নাকি প্রসারিত করে দেয়। সংকীর্ণ চিন্তা ছাপিয়ে বিশালতা জায়গা করে নেয়। অস্থির মন হয় শান্ত। সব নগরের নাগরিক এই সুযোগ পায় না। প্রশস্ত নদীই তাদের সমুদ্রের অভাব মেটায়।


নগর জীবনে বিশালতার স্থান কোথায়? মুখ তুলে কোথাও তাকালে দৃষ্টি কতটুকুই বা প্রসারিত হবার সুযোগ পায়? যে দৃষ্টি কখনও বিশালতার ছোঁয়া পায় নি, সে হয়ত বুঝবে না এর গুরুত্ব। কিন্তু, যে সমুদ্রের তীর ঘেঁষে একদিন দাঁড়িয়েছিল তার কাছে বিশালতার তৃষ্ণা থাকবে সবসময়। ২০০৮ এর শুরুতে সমুদ্রের বিশালতার ছোয়া পেয়েছিলাম সেন্টমার্টিনে। ফিরতে না ফিরতেই মন জানান দিল তার অতৃপ্তির কথা। কিন্তু হায়! আমি যে ঢাকায় থাকি। তাই বলে কি হাল ছেড়ে দেব? না! হার মানা হারের প্রতি আগ্রহ আমার নাই। প্রতিদিন সন্ধ্যায় বন্ধুরা তাই বেড়িয়ে পড়তাম বিশালতায় সন্ধানে। কোথায় আর যাব, রাস্তায় হাটা হাটি। প্রতিদিন যেতাম নতুন নতুন পথে, চিনতাম নতুন নতুন রেস্তোরা, নতুন নতুন খাবার। চার দেওয়ালে ঘেরা রুমের চাইতে একদিকে প্রসস্ত রাস্তাই বা কম কিসে!!

এভাবে হাটতে হাটতে একরাতে নতুন এক পথ ধরলাম। কিছুদূর গিয়ে অন্যরকম এক জগতের সন্ধান মিলল। নদীর তীর ঘেষে লম্বা প্রশস্ত রাস্তা, পাশে বড়বড় গাছের কাঠের গুড়ি, তাকে তাকে সাজানো। তারই সামনে একটা অন্য রকম ব্রীজ। ব্রীজটা অন্যরকম এই অর্থে যে এটা নদীর এপার ওপারে না মিলিয়ে নিজেও তীর ঘেষে চলে গেছে। আমাদের ঢাকায় এরকম সময় কাঁটাবার জায়গা আছে জানা ছিল না। রাস্তা ধরে এগিয়ে গেলাম, নির্জন অন্ধকার!! মাঝে মাঝে দু একটি গাড়ি দেখা যায়। একপাশ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে ঢাকার বুড়িগঙ্গা, অন্য পাশে পুরোনো দিনের ঢাকার আমেজ। আজ হতে চারশ বছর আগে নদী পথে ইসলাম খান যখন ঢাকাতে আসেন ঢাকার এই এলাকাই তার চোখে প্রথম বাঁধে। তিনি সিদ্ধান্ত নেনে এখানেই মোঘল বাংলার রাজধানী স্থাপনের।

নদী, নিস্তব্ধতা, নির্মল বাতাস এই তিনের সংমিশ্রন এই শহরে পাওয়া আর আলাদিনের চেরাগ পাওয়া একই মনে হল। সব সুন্দরের সাথে আল্লাহ কিছু না কিছু অসুন্দর মিলিয়েই দেন। এখানে আছে ময়লা পানির একধরনের গন্ধ। তবে তা এতটা প্রকট না যে আমাদের দূরে সরিয়ে দেবে। সেই থেকে প্রতি সন্ধ্যায় পৌছে যাই সেখানে। ইদানিং খুব বাতাস বয়, নদীর পানিও বেড়েছে। ভাল লাগে। রাতে যাই, তাই ছবি তুলতে পারি না। পূর্ণিমার রাতে জায়গাটা অন্যরকম হয়ে যায়। নিজেকে আর ঢাকাবাসী মনে হয় না। কাঠ ব্যবসায়ীদের ফেলে রাখা বিশাল বিশাল কাঠের গুড়ির উপর নদীর এক তীরে বসা আমরা অন্য দিকে জাহাজ বানাবার ডকইয়ার্ড। ওপারের একটা ঘাটের নাম "সাগর"। এপারে বসে ওপার হতে মাঝে মাঝে আসা অক্সি এসিটিলিন শিখার আভাস পাওয়া যায়। ডান দিকে তাকালে দেখি বুড়িগঙ্গার উপরের আলুবাজার ব্রীজ বেয়ে চলে যাচ্ছে কতগুলো গাড়ি। বামে তাকালে দেখি বুড়িগঙ্গার পোস্তাগোলা ব্রীজের লাইটপোস্টগুলো। একই সাথে বুড়িগঙ্গার উপরের দুটি ব্রীজ আর একটি ব্রীজের উপর দিয়ে দেখা।

সেখানে আর একটি বিশেষ নজরকাড়া ব্যাপার আছে, সেটা হল র‌্যাব ১০ এর হেডকোয়াটার। অন্য র্যা ব অফিসগুলোর চাইতে এই হেডকোয়াটারটা আলাদা। যে জানে না তার চোখে কখনই র‌্যাবের অফিসটা আটকাবে না। সাধারন একটা বাড়ি, ফটক সবসময় বন্ধ। সামনে নেই কোন গাড়ি বা কালো র‌্যাব পাহাড়ারত। শুধু একটা সাইনবোর্ডে লেখা "র‌্যাব ১০", নিচে একটা সিসিটিভির ক্যামেরা।

প্রথম দিকে হেটে হেটে জায়গাটার সন্ধান পেয়েছিলাম। যেদিন হাটতে ইচ্ছে করত না আমরা রিক্সা নিতাম। প্রতিদিনই রিক্সাওয়ালার সাথে ঝামেলা বাধত, কারন আমরা ঠিক করে বলতে পারতাম না কোথায় যাব। রিক্সাওয়ালার ভাব বুঝে আন্দাজের উপর ভাড়া ঠিক করতাম। কখনও ঠকতাম আমরা, কখনও বা রিক্সাওয়ালা। একদিন আমরাও চিনে গেলাম। টিকাটুলির বলধা গার্ডেনের মোড় থেকে ফরাশগঞ্জ কাঠপট্টি যাব, বললেই ১৫/২০ টাকায় পৌছে যাওয়া।

মাঝে মাঝে আমি একাকী ঘুরতে বের হই, একেবারে নিসঙ্গ। অনেকের মাঝে একা একা ঘুরতে ভাল লাগে। সেরকমই এক বিকেলে গিয়েছিলাম সেখানে, কিছু তোলা ছবি দিলাম। জায়গাটাতে স্থানীয় ছেলেপুলেরা ছাড়া অন্যরা যায় বলে মনে হত না। ইয়ুটিউবে মোস্তফা সারোয়ার ফারুকীর 'থার্ড পার্সন সিঙ্গুলার' নাম্বার মুভিতে জায়গাটার একটা দৃশ্য আছে। আমাদের রাজধানীর ভারী জীবনকে একটু হালকা করার অনেক উপকরণ এখনও ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। আমরা চাইলে সেগুলোকে গুছিয়ে নিতে পারি, গড়তে পারি আমাদের এক অন্যরকম ঢাকা।


থার্ড পারসন সিঙ্গুলার নাম্বার মুভির এই এলাকাটা বুড়িগঙ্গার তীরে

















সর্বশেষ এডিট : ০৮ ই আগস্ট, ২০০৯ রাত ১২:১৩
৯টি মন্তব্য ৯টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

আফগানিস্তান, ইরান, পাকিস্তান, বাংলাদেশ থেকে অন্য-ধর্মীদের চলে যাওয়া

লিখেছেন চাঁদগাজী, ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:২১



আপনিও হয়তো সমর্থন করেন যে, মুসলমান ব্যতিত অন্য ধর্মের লোকজনের মক্কা নগরে বসবাস করা ঠিক নয়; এতে নগর অপবিত্র হয়ে যাবে! এই মনন ও বিশ্বাস বর্তমান বিশ্বে... ...বাকিটুকু পড়ুন

গাঙচিল কটেজ

লিখেছেন জাহিদ অনিক, ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:০১

গল্পের মত সাগর মোহনায় বেলাভূমি
ভারী বাতাসে ভেসে বেড়ায় নিঃসঙ্গ গাঙচিল,
এখানে আমি একলাই থাকি, দুটো ভাত নিজেই ফুটাই।
একাই বেশ দিব্যি আছি, সন্ধ্যা হলে হলদে চাঁদের আলোয় নীড়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

এক ঈশ্বরের সংজ্ঞা এবং আত্মা ও ঈশ্বর তথ্যে নাস্তিক্যবাদীদের কর্মপন্থা।

লিখেছেন শাহাদাৎ হোসাইন (সত্যের ছায়া), ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:১৩


ধর্ষক গুরু রাম-রহিম সিং

ঈশ্বর:
ঈশ্বর কারো মুখাপেক্ষী নন, তিনি কারো জন্ম দেননি, আর তিনি কারো জন্মের নন।
ইসলাম ধর্মে ঈশ্বরের যে সমস্ত বৈশিষ্ট্য দেয়া আছে, এই সমস্ত... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্রিয়জন প্রতিশ্রুতি রেখে চলে গেলে!

লিখেছেন বিজন রয়, ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:১০




প্রিয়জন স্বপ্ন রেখে চলে গেলে
হৃদ্যতায় কতটুকু উষ্ণতা হয়?
"আলো ও উত্তাপ
কিংবা
ফুল ও ফসল"
হৃদয়ের এইসব শুদ্ধতম দ্রোহ
সংগ্রাম ও সখ্যে স্মৃতিময় হয়।

প্রিয়জন প্রতিশ্রুতি রেখে চলে গেলে
ভালবাসার কতটুকু অগ্নিপরীক্ষা হয়?
"সূর্য ও জীবন
অথবা
প্রেম ও... ...বাকিটুকু পড়ুন

তুমি কেবল আমারই হবে

লিখেছেন সেলিম আনোয়ার, ১৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:২১



নিনাদ কিগো পেয়েছো শুনতে
গগণবিদারি চিৎকারে সে কি বলছে?
ঝড়ো হাওয়া তুলেছে ঢেউ
ভরা নদীর বুকে।
একই কথা বলছে কি সেউ?

তুমি কেবল আমারই... ...বাকিটুকু পড়ুন

×