somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

@ যে দেশ তার নাগরিকদের তেমন কিছু দিতে পারে না, সে দেশের নাগারিকগণও সে দেশকে তেমন কিছু দিতে চায় না বা পারে না @

১৭ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ রাত ৯:২৭
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

এবারের সংগ্রাম আমাদের বেকারত্ব থেকে মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম আমাদের বাঁচা মরার সংগ্রাম।বেকার যখন হয়েছি আরও প্রয়োজনে যুগ যুগ বেকার থাকবো। আমরা বেকার যখন হয়েছি প্রয়োজনে , কিছু নতুন বেকার তৈরি করবো তবু বাংলাদেশকে বেকার মুক্ত করে তুলবো ইনশাল্লাহ। আসুন সকল বেকাররা মিলে এক যুগে বেকার মুক্তির আন্দলন গড়ে তুলি। সকল বেকার ভাই বোন এবং বন্ধুঃ হাতে হাত রেখে ঐক মত গড়ে তুলি আর আওয়াজ তুলি হয় সকল বেকারদের মেরে ফেলা হোক না হয় চাকরি দাও !!!!!!! ( জাতির পিতার বানী পারোডি করার জন্য আন্তরিক ভাবে দুঃখিত )।
শিক্ষা মানুষকে দেয় আলো এবং সম্মুখে চলার পথ। শিক্ষা যখন আলো দানের পরিবর্তে শিক্ষার্থীদের অন্ধকারে নিক্ষেপ করে তখন আমরা আসলে কাকে দায়ী করব? শিক্ষার্থীদের, না শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে, না অভিভাবকদের, না শিক্ষাব্যবস্থাকে না রাজনৈতিক নেতৃত্বকে? আসলে কমবেশী সবাই দায়ী।
ক্রমবর্ধমান বেকারত্বের দেশ আমাদের প্রিয় বাংলাদেশ (বেকারদের কাছে মনে হয় খুব একটা প্রিয় না শুধুমাত্র চাকুরি ছাড়া )। কী দরকার শিক্ষিত তরুণদের ছোট মেসে থাকা, গুটিসুটি হয়ে এবং অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপন করা আর রাস্ট্রের উপর চাপ বাড়ানো।
কিন্তু পরিস্থিতি যে কত ভয়াবহ তা বিভিন্ন পরিসংখ্যান এবং চিত্রের মাধ্যমে বুঝা যায়। আমরা যখনই কোনো নিয়োগ পরীক্ষায় পরীক্ষা দিকে তাকায়, তখন দেখা যায় শিক্ষিত বেকারদের কী করুণ দুর্দশা। হাজার হাজার নয়, লাখ লাখ শিক্ষিত বেকার ঘুরে বেরাচ্ছে চাকুরি নামক সোনার হরিণের পিছনে। এই হরিণ ধরার জন্য একশটি পদের বিপরীতে কয়েকশ কিংবা কয়েক হাজার প্রার্থী এসে হাজির হয়, সবাই উচ্চশিক্ষিত। দিনের পর দিন, মাসের পর মাস এবং বছরের পর বছর তারা হয় বাবা-মার উপর কিংবা টিউশনি বা এ ধরনের কিছু অস্থায়ী পেশার উপর নির্ভর করে চলছে। কোথায় তাদের ভবিষ্যত, কোথায় দেশকে কিছু দেয়ার চিন্তা আর কোথায় সুকুমার বৃত্তি কিংবা দেশ সেবার চিন্তা। শুধুই বেঁচে থাকার সংগ্রাম। এই চিন্তাই তাদের আচ্ছন্ন করে রাখে সর্বক্ষণ। তাদের চোখে মুখে ফুটে উঠে, যে দেশ তার নাগরিকদের তেমন কিছু দিতে পারে না, সে দেশের নাগারিকগণও সে দেশকে তেমন কিছু দিতে চায় না বা পারে না ।
ইন্টারভিউয়ের ক্ষেত্রে দেখা যায়, অনেক প্রার্থী মৌখিক পরীক্ষার সব নিয়মকানুন জানা থাকা সত্ত্বেও কঠিন বাস্তবতা এবং জীবনের ঘাত-প্রতিঘাত তাদেরকে মৌখিক পরীক্ষার বোর্ডেই কেঁদে ফেলতে বাধ্য করেছে। কেউ এসেছে বোনের ভর্তির টাকা দিয়ে সুদুর উত্তরবঙ্গ থেকে ঢাকায় পরীক্ষা দিতে, কেই শয্যাগত পিতার চিকিৎসার টাকা যোগাতে পারছে না বরং সেই সংসারের উপরই নির্ভর করে তার শিক্ষিত জীবন চালাতে হচ্ছে, নেই বাবার জমি যা দিয়ে উপার্জন বাড়াতে পারে বা কিছু করে খেতে পারে।
দেশের প্রতিটি ছোট ছোট জেলা শহরগুলোর কলেজে এখন অনার্স পড়ার সুযোগ রয়েছে। ছাত্রছাত্রীরা অনার্স পড়ছে পাঁচ, ছয় কিংবা সাত বছর যাবত। তারপর মাস্টার্স করছে আরও এক দু-বছর ধরে। পুরো সময়টাই তারা কৃষক কিংবা স্বল্প আয়ের বাবা-মার স্বল্প উপার্জনের উপর নির্ভর করে পড়াশুনা করছে। বছরের পর বছর তারা মেসে থাকছে আর স্বপ্নের দিন গুনছে কবে নিজে উপার্জনক্ষম হবে, কবে বাবা-মা ভাইবোনদের উপকার করবে কবে নিজে বিয়েশাদি করে সুখের সংসার গড়বে। কিন্তু পাশ করার পর শুরু হয় আর এক বিড়ম্বনা। চাকুরির জন্য ছুটতে হয় দ্বারে দ্বারে আর অফিসে অফিসে। কিন্তু চাকুরি মিলছে না। হতাশা নিত্যসঙ্গী।
এই অবস্তায় আমাদের একটাই স্লোগান “এবারের সংগ্রাম আমাদের বেকারত্ব থেকে মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম আমাদের বাঁচা মরার সংগ্রাম।বেকার যখন হয়েছি আরও প্রয়োজনে যুগ যুগ বেকার থাকবো। আমরা বেকার যখন হয়েছি প্রয়োজনে , কিছু নতুন বেকার তৈরি করবো তবু বাংলাদেশকে বেকার মুক্ত করে তুলবো ইনশাল্লাহ। “ আসলেই কি দেশকে পাকিস্তানি শত্রু মুক্ত করার মত কি সহজ কাজ বেকারত্ব মুক্ত করা ??

সর্বশেষ এডিট : ১৭ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ রাত ৯:২৮
০টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

ধর্ম যার যার, উৎসব সবার

লিখেছেন rezaul827, ২৪ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৫:২৩

- দাদা, পুজো দেখতে যাবেন না?
- না ভাই, সেটাতে আমার ধর্মে মানা আছে।
- কেন?
আমরা যখন গরু কুরবানি করি, সেই জায়গায় আপনাদের যাওয়া নিষেধ না?
হ্যাঁ নিষেধ। ভগবানের অভিশাপ পরে।
- ঠিক... ...বাকিটুকু পড়ুন

রহিঙ্গাঃ বাংলাদেশেই আরেকটি ইসরাইল হতে যাচ্ছে হয়তো।

লিখেছেন এম আর এফ সোহান, ২৪ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:০২

আবেগে জড়িয়ে সবসময় মানবতা দেখাতে নেই। রহিঙ্গারা এদেশে আরেকটি ইসরাইলও সৃষ্টি করতে পারে। একটা সত্য হলো, মানবতা কখনো কখনো চরম বিপদ ডেকে আনতে পারে। আবার কখনো কখনো একটি জাতিকে করতে... ...বাকিটুকু পড়ুন

''বদি-মোদি কাব্য'

লিখেছেন কি করি আজ ভেবে না পাই, ২৪ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:০১




মোদি আর বদিজীরে
বশে মোরা ব্যর্থ;
সুচীর ঐ বর্মায়
খুঁজে ওরা স্বার্থ।

মোদি চায় কাজ তার
জিয়াবাও'র নকলে;
বদি চায় রাজ তার
ইয়াবার দখলে।

বদি-মোদি চলে রাজ
টেকনাফ-দিল্লী;
ক্যান জানি দুনো-তরে
বুবু ভিজে বিল্লি।

কারো পুঁজি... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমার চোখের জল

লিখেছেন ওমেরা, ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১:২৩




অপেক্ষার কষ্টকর প্রহর গুলো পার করেছি, গুনে গুনে ৩২ টা দিন ।
প্রতিদিন একটা- একটা ফুল জমা রেখেছি তোমার নামে।
কত কথার স্তর সাজিয়েছি,তোমায় একটু একটু শোনাব বলে ।

অবশেষে তুমি... ...বাকিটুকু পড়ুন

বিশ্বের সেরা ৫০ ওয়েস্টার্ন সিনেমা

লিখেছেন এম এম করিম, ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সকাল ৯:১৭



আমেরিকান ফিল্ম ইন্সটিটিউটের সংজ্ঞানুযায়ী ওয়েস্টার্ন হচ্ছে আমেরিকান পশ্চিমের প্রেক্ষাপটে নির্মিত সেসব সিনেমা যেগুলো নিউ ফ্রন্টিয়ার এর স্পিরিট, সংগ্রাম ও প্রস্থানকে ধারণ করে। জুলাই ১৯১২ তে মোশন পিকচার ওয়ার্ল্ড ম্যাগাজিনের... ...বাকিটুকু পড়ুন

×