somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

চিরতার রসঃ কৃষক বজলু মিয়া যেভাবে ফকির হলেন!!

২৬ শে মার্চ, ২০১৯ বিকাল ৩:৩০
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



নামঃ বজলু মিয়া
বাড়িঃ নিঃস্বপুর
বর্তমান পেশাঃ ভিক্ষাবৃত্তি (স্বাধীন ও নিশ্চিন্ত পেশা)
সাবেক পেশাঃ বর্গাচাষী (অন্যের জমি লিজ নিয়ে কৃষিকাজ)
পরিবারের সদস্যঃ চারজন (স্ত্রী, বার বছরের নাবালিকা কন্যা ও শিশু পুত্রসন্তান)

ফার্মগেটের ফুটওভার ব্রিজের নিচে হাতে ঝোলা নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে এক কৃশকায় প্রতিবন্ধী লোক। সাথে সুর করে মানুষকে আকৃষ্ট করছে। প্রফেশনাল না হওয়াতে মানুষের সহানুভূতিটা কম পাচ্ছে। তবে দিন শেষে রোজগার ভালোই মনে হয়।

আমি দীর্ঘক্ষণ লোকটিকে লক্ষ করছি। বেশভূষা ও কথাবার্তা শুনে আমার মন বলে উঠল এই লোকের সাথে কথা বলা দরকার।

-’ভাইজান বুঝি শহরে নতুন।’ --আমার কৌতূহলী জিজ্ঞাসা।

-’তা বলতে, এই শহরে কে নতুন নয়? এই আমি নতুন, আপনি নতুন, রাস্তায় চলাচলকারী সবাই নতুন, সবার নতুন ফন্দিফিকির, নতুন জিন্দেগীর আশা। নতুন ছলনা। এই শহরে সবাই নতুন ভাই, সবাই নতুন।’ দার্শনিকসুলভ কথা বলে একটি দীর্ঘশ্বাস ফেলে আমার দিকে সন্দেহের দৃষ্টিতে তাকালেন। তারপর মৃদু স্বরে বলে উঠলেন, ‘তা ভাইজান কি এই পেশায় নামবার চায় নাকি। নেমে পড়েন। আগের চেয়ে এখন আমি বহুৎ সুখে আছি’।

রহস্যের গন্ধ পেয়ে, ‘তা আগে কী পেশায় ছিলেন?’
-চাষবাস।
-তা চাষবাসের মতো চমৎকার একটি পেশা বাদ দিয়ে ভিক্ষাবৃত্তিতে নেমে পড়লেন কেন?

আমার কথা মাটিতে পড়ার আগেই উনি খেঁকিয়ে উঠলেন, ‘চমৎকার পেশা না *লের পেশা। কোন ফকিন্নির পুত ধানচাষকে ‘চমৎকার পেশা’ বলছে আমাকে দেখিয়ে দ্যান। *লার পুতের বাঙ্গি যদি না ফাটাতে পারি তাইলে আমি কৃষক বজলু মিয়া নই’।

আমি আমার আগের বলা বাক্যটা ক্যোঁৎ করে গিলে ফেললাম। এবং এও জানলাম উনি একজন সাবেক কৃষক যার নাম বজলু মিয়া।

-ঘটনা কী? একটু খুলে বলবেন ভাইজান।

-আমি আগে বর্গাচাষী ছিলাম। বিভিন্নজনের থেকে জমি নিয়ে ১২ বিঘার (৩৩ শতাংশে এক বিঘা) মতো ধানচাষ করতাম। আগের বছরগুলোতে টেনে-টুনে চলেছে। এই বছর আর পেরে উঠে নি। মাসখানেক হল বিশাল এক ঋণের বোঝা নিয়ে দেশান্তরি হয়ে এখন বর্তমান পেশায়। বেশ ভালো আছি।

-কীভাবে লস খেলেন?
-প্রতি বিঘা জমিতে চাষ, বীজ, আগাছাদমন, সার, কীটনাশক ও কামলাবাবদ খরচ প্রায় আট হাজার টাকা। ১২ বিঘায় খরচ ১২*৮ = ৯৬ হাজার টাকা। মহাজন থেকে ৪০ হাজার টাকা নিয়েছিলাম সিজনভিত্তিক সুদে। ৪০ হাজার টাকায় ধান উঠার পর ২০ হাজার অতিরিক্ত দিতে হত।

এই বছর বর্ষার বৃষ্টির ঘাটতিতে বিঘাপ্রতি ফসল হয়েছে ১৬ মণ। মোট ধান পেয়েছিলাম (১২*১৬) = ১৯২ - ১৯.২ = ১৭২.৮ মণ। (শতকরা ১০% ধানকাটা-মাড়াই বাবদ বাদ দিয়ে)

এখান থেকে জমির মালিককে (আধিভাগা হিসেবে) দিতে হয়েছে অর্ধেক মানে (১৭২.৮/২) = ৮৬.৪ মণ। অর্থাৎ আমার ভাগে থাকল বাকি ৮৬.৪ মণ।

ধান বিক্রি করেছি ৬৪০ টাকা দরে। অর্থাৎ ৮৬.৪*৬৪০ = ৫৫,২৯৬ টাকা। সাথে খড় বিক্রি করেছি প্রতি বিঘাতে ১,০০০ টাকা করে। ১২*১০০০ = ১২,০০০ টাকায়।

১২ বিঘাতে মোট আয় = ৫৫,২৯৬ + ১২,০০০ = ৬৭,২৯৬ টাকা।
১২ বিঘাতে মোট খরচ = ৯৬, ০০০ টাকা + সুদের ২০,০০০ টাকা = ১,১৬,০০০ টাকা।
১২ বিঘাতে নিট লোকসান = ১,১৬,০০০ - ৬৭,২৯৬ = ৪৮,৭০৪ টাকা।

-’একটি গাই-বাছুর ছিল বিক্রি-বাটা করে কিছু ঋণ শোধ করে বাড়িতে তালা-চাবি দিয়ে এই খাম্বার নিচে দাঁড়াইছি। ভালো করি নি'। আরো কী সব বলছিল ফকির বজলু মিয়া। আমার সে কথা শোনার মতো আর সৎ সাহস নেই।

আমি উদাস হয়ে আকাশের পানে চেয়ে নব্য ভিক্ষুক বজলু মিয়া থেকে দূরে সরে আসলাম।

আর শীর্ষেন্দুর ‘যাও পাখি’র সোমেনের বাবার মতো বিড়বিড় করে বললাম, ‘ভগবান সকলকে সুখে রাখুন’।

****************************************************************************************************
@আখেনাটেন/২০১৯
ছবি: অন্তর্জাল
সর্বশেষ এডিট : ২৬ শে মার্চ, ২০১৯ রাত ১১:৩০
৩৪টি মন্তব্য ৩২টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

চট্রগ্রাম যে ভাবে বাংলাদেশের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ।

লিখেছেন দেশ প্রেমিক বাঙালী, ১২ ই আগস্ট, ২০২০ সকাল ৯:১২


আরাকান আমলে চট্টগ্রাম বন্দরের সমৃদ্ধি ঘটলেও সে সময় দৌরাত্ম বেড়ে যায় পর্তুগীজ এবং মগ জলদস্যুদের। এরা চট্টগ্রামের আশেপাশে সন্দ্বীপের মত দ্বীপে ঘাঁটি গেড়ে বাংলার বিভিন্ন অঞ্চলে লুটপাট করত এবং... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্রতিভা

লিখেছেন রাজীব নুর, ১২ ই আগস্ট, ২০২০ দুপুর ১:৪৩



এক শকুনের বাচ্চা তার বাপের কাছে আবদার ধরলো-
বাবা, আমি মানুষের মাংস খেতে চাই, এনে দাও না প্লিজ!
শকুন বলল, ঠিক আছে ব্যাটা সন্ধ্যার সময় এনে দেব।

শকুন উড়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

গরুর নাড়ি ভুরি খাওয়া নিয়ে দ্বিধা জায়েজ /না জায়েজ

লিখেছেন মোঃ মাইদুল সরকার, ১২ ই আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৩:৩৭


কোরবানী বা ঈদ-উদ-আযহা এলে সারা পৃথিবীতে মুসলমানরা বিভিন্ন পশু কোরবানী করে থাকে। মাংস ও ভুড়ি খাওয়ার ধুম পড়ে। অনেকে আবার ভুড়ি খাননা বা খেতে চাননা কারণ খাওয়া ঠিক না বেঠিক... ...বাকিটুকু পড়ুন

আলোচিত খুন , আলোচিত গুম, আলোচিত ধর্ষণ ও আলোচিত খলনায়ক।

লিখেছেন নেওয়াজ আলি, ১২ ই আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৩:৪০

মেজর সিনহাকে চারটা নাকি ছয়টা গুলি করেছে তা নিয়ে বিতর্ক করে কি লাভ এখন। তাকে নির্মম নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করা হয়েছে এটাই সত্য। আর এই হত্যা করেছে দেশের আইন শৃঙ্খলা... ...বাকিটুকু পড়ুন

৮ টি প্রয়োজনীয় ও বিনোদনমূলক ওয়েবসাইটের লিংক নিয়ে সামুপাগলা হাজির! (এক্কেরে ফ্রি, ট্রাই না করলে মিস! ;) )

লিখেছেন সামু পাগলা০০৭, ১২ ই আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪৬



করোনার সময়ে অনেকেই ঘরবন্দি অবস্থায় আছেন। বাচ্চাদের স্কুল বন্ধ। বড়দের অফিস চললেও অপ্রয়োজনীয় কাজে সচেতন মানুষেরা বাইরে যাচ্ছেন না। ইচ্ছেমতো বাইরে গিয়ে শপিং, ইটিং, ট্র্যাভেলিং করে ছুটির দিনটা... ...বাকিটুকু পড়ুন

×