somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

আপনার অনুরোধটি কার্যকর করা সম্ভব হচ্ছে না, অনুগ্রহ করে তথ্যগুলো পর্যালোচনা করে আবার চেষ্টা করুন।

আলোচিত ব্লগ

রাস্তায় পাওয়া ডায়েরী থেকে- ১৮৭

লিখেছেন রাজীব নুর, ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১১:২৭



১। সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখি, আমার পাশে একটি মেয়ে শুয়ে আছে! মেয়েটির মুখে এক আকাশ মায়া। মেয়েটিকে দেখেই বুঝা যাচ্ছে- খুব আরাম করে সে ঘুমাচ্ছে। মাথা ভর্তি এক... ...বাকিটুকু পড়ুন

ডাকাতদর্শন

লিখেছেন মৃত্তিকামানব, ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:৩০


আমাদের ছোটবেলায় প্রতিদিন নিয়ম কইরা দিনের বেলায় চুরি হইত আর রাতের বেলায় ডাকাতি।ডাকাতরা বেবাক কিসিমের মুখোশ পইরা, অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হইয়া আইসা স্বর্ণালংকার, টাকাকড়ি থেকে শুরু কইরা শ্বশুরবাড়ি থেকে আসা পিঠাপুলি... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমার উপদেশ বা অনুরোধ

লিখেছেন রাজীব নুর, ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:০৩



একটা গল্প দিয়ে লেখাটা শুরু করি-
একজন বয়োজ্যেষ্ঠ ভদ্রলোক তরমুজ বিক্রি করছেন। তরমুজের মূল্যতালিকা এমন: একটা কিনলে ৩ টাকা, তিনটা ১০ টাকা।
একজন তরুণ দোকানে এসে একটা তরমুজের দাম... ...বাকিটুকু পড়ুন

মিন্নিসহ ৬ জনের ফাঁসির আদেশ

লিখেছেন শাহ আজিজ, ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:০৪






সকালে তৎপর মিডিয়া দেখাচ্ছিল বাবার মোটর বাইকে চড়ে মিন্নি কোর্টে এসেছে মাস্ক পরে । এই তিনটার সময় বাবা মিন্নি ছাড়াই বাইক নিয়ে ফিরে গেল... ...বাকিটুকু পড়ুন

তিস্তায় চীনাদের যোগ করার কোন প্রয়োজন নেই, বাংগালীদের পারতে হবে।

লিখেছেন চাঁদগাজী, ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৫:৫৯



ভারতের সাথে তিস্তার পানি বন্টন ও বন্যা কন্ট্রোল কোনভাবে হয়ে উঠছে না; ভারতের পানির দরকার, এতে সমস্যা নেই; ওদের প্রয়োজন আছে, বাংলাদেশেরও প্রয়োজন আছে, এই সহজ ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

নির্বাচিত ব্লগ

নাগর্নো কারাবাখ এবং ককেশাসে ভূরাজনৈতিক জাদু

লিখেছেন সপ্রসন্ন, ০১ লা অক্টোবর, ২০২০ রাত ১২:১২



ককেশাসের অবস্থান ইউরোপ এবং এশিয়ার সংযোগকেন্দ্রে, পূর্বে ও পশ্চিমে এ অঞ্চল যথাক্রমে কাস্পিয়ান ও কৃষ্ণসাগর দ্বারা পরিবেষ্টিত, উত্তরে আছে রাশিয়া, এবং দক্ষিণে ইরান এবং তুরস্ক।

রুশ, পারসিক এবং তুর্ক জাতির মিলনস্থল এই অঞ্চলকে উত্তর এবং দক্ষিণ এ দুইটি ভাগে ভাগ করা যায়।
দক্ষিণ ককেশাস অঞ্চলে তিনটি স্বাধীন দেশ রয়েছে। আর্মেনিয়া, জর্জিয়া, আজেরবাইজান।
উত্তর ককেশাসে কোন স্বাধীন দেশ নেই, তবে স্বাধীনতাকামী চেচনিয়া, দাগেস্তান, আবখাজিয়া, ওশেটিয়াসহ কিছু অঞ্চল রয়েছে যা রাশিয়ার অন্তর্ভুক্ত।

পার্বত্যঘেরা দক্ষিণ ককেশাসে প্রায় তিন দশক ধরে বিরোধ চলছে নব্বই দশকে স্বাধীন হওয়া দুই দেশ আর্মেনিয়া এবং আজেরবাইজানের মধ্যে, নাগর্নো কারাবাখ এর দখল নিয়ে।

একটু ইতিহাস

১৯২০ এর দশকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্রিয়দর্শিনীকে লেখা নেহেরুর চিঠি, বিশ্ব ইতিহাস প্রসঙ্গ- ৩

লিখেছেন আমি সাজিদ, ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৯:৪৯


নাইনি জেলে বসে লেখা শেষ চিঠিগুলোতে নেহেরু তার বলা ইতিহাসের সময়কালকে টেনে নিয়ে এসেছিলেন খ্রিস্টপূর্ব চারশোতে৷ সে সময়কালের বর্ণনায় ইন্দিরাকে তিনি জানিয়েছেন পারশ্য ও গ্রীসের যুদ্ধগুলো সম্বন্ধে। 'রাজাদের রাজা' দারিয়ুসের ব্যর্থতার পর জেরিক্সিসের পারশ্য সম্রাট হওয়া এবং গ্রীস দখল করতে যুদ্ধ ঘোষণা, এই পুরো সময়টিকে কয়েকটি দৃষ্টিকোন থেকে দেখেছেন নেহেরু। ক্ষুদ্র এথেন্স নগর রাষ্ট্রটির ম্যারাথনের যুদ্ধে পারশ্য সেনাদলকে হারিয়ে দেওয়ার ঘটনাটিকে তিনি তুলনা করেছেন ভারতবর্ষের স্বাধীনতা সংগ্রামের সাথে। আবার দারিয়ুসের ব্যর্থতার পরেও জেরিক্সিসের গ্রীসে পুনরায় অভিযান চালানোর ঘটনাকে সংগ্রামের বৃহৎ উদ্দেশ্যের সাথে মেলাতে দেখা যায় তাঁকে। ইন্দিরাকে নেহেরু শুনান হিরোডটাসের বিবরণ থেকে নেওয়া জেরিক্সিসের বিখ্যাত সেই... ...বাকিটুকু পড়ুন

পদ্মবিল

লিখেছেন সাদা মনের মানুষ, ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৮:৪৮


ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহর থেকে ৩৫ কিলোমিটার দূরে আখাউড়া উপজেলার ত্রিপুরা সীমান্তবর্তী মিনারকোট পদ্মবিল। টিভির খবরটা দেখেই কয়েকজন বন্ধু নিয়ে ছুটে গিয়েছিলাম পদ্মবিল দেখতে। প্রত্যন্ত অঞ্চল হলেও ওখানটায় গাড়ি নিয়ে যাওয়ার মতো ভালোই রাস্তা রয়েছে দেখে চমৎকৃত হয়েছিলাম আমরা। শাপলা ফুলদের মতো অবাধ বিচরণ সারাদেশে পদ্মফুলদের নেই বলে ওদের প্রতি আকর্ষণটা আমাদের অন্যরকম। আগে আমি পদ্মফুলদের দেখার জন্য মাঝে মাঝে ঢাকার বোটানিক্যাল গার্ডেনে চলে যেতাম।

মিনারকোটের পদ্মফুলদের সৌন্দর্য ছুয়ে দেখার জন্য ভাড়ার ডিঙ্গি নৌকায় চড়ে পুরো বিল ঘুরে বেড়ানোর সুযোগ রয়েছে। ভোরের শিশিরগুলো পদ্মের পাতায় টলোমলো আর পদ্মের ফাঁকে পানকৌড়িদের ডুব সাতার খেলা দেখে একটা দিন ওখানে কাটিয়ে দেওয়া যায় অনায়াসেই।... ...বাকিটুকু পড়ুন

অণুবীক্ষণ - একটা কবিতার ভেতরে পরিভ্রমণ

লিখেছেন সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই, ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৫৭

রহস্য ঘুচে গেলে আর কোনো মাধুর্য নেই
তখন পরকীয়া বঁধু আর ঘরের নারীতে অভিন্ন গন্ধ

সকল বসন ও ভূষণ খুলে ফেলো
যেটুকু রহস্য লুকিয়ে রাখো, অমৃত সেটুকু

অণুবীক্ষণে তোমাকে দেখি। গভীর আড়ালে একফোঁটা নির্যাস
তোমার মাধুর্য শুষে খাই, সবটুকু নিঃশেষে

২৭ জুন ২০১৩


পরিভ্রমণ কিংবা ব্যবচ্ছেদ অথবা পাদটীকা

এ লেখাটাকে ধীরে ধীরে পড়ুন। প্রথমেই ধরে নিন যে, এটি একটা এক লাইনের কবিতা, এ রকম:

রহস্য ঘুচে গেলে আর কোনো মাধুর্য নেই

এরপর, আবার পড়ুন। এবার দ্বিতীয় লাইনটি বাদ দিয়ে পড়ুন:

রহস্য ঘুচে গেলে আর কোনো মাধুর্য নেই

সকল বসন ও ভূষণ খুলে ফেলো
যেটুকু রহস্য লুকিয়ে রাখো, অমৃত সেটুকু

অণুবীক্ষণে তোমাকে দেখি। গভীর আড়ালে একফোঁটা নির্যাস
তোমার মাধুর্য শুষে খাই, সবটুকু নিঃশেষে


দ্বিতীয় লাইনটা উপমা হিসাবে... ...বাকিটুকু পড়ুন

ডাকাতদর্শন

লিখেছেন মৃত্তিকামানব, ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:৩০


আমাদের ছোটবেলায় প্রতিদিন নিয়ম কইরা দিনের বেলায় চুরি হইত আর রাতের বেলায় ডাকাতি।ডাকাতরা বেবাক কিসিমের মুখোশ পইরা, অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হইয়া আইসা স্বর্ণালংকার, টাকাকড়ি থেকে শুরু কইরা শ্বশুরবাড়ি থেকে আসা পিঠাপুলি পর্যন্ত লুট কইরা লইয়া যাইত।

সেই সময় কালাইয়ার রুটির দোকানই ছিল যাবতীয় খবরের উৎস। কালাইয়ার রুটির দোকানই তখনকার সময়ের একমাত্র টেলিভিশন,স্থানীয় পত্রিকা, ফেসবুক।সবার আগে সর্বশেষ সংবাদ পাওয়া যাইত সেই রুটির দোকানে।গতরাতে কোন এলাকায় কার বাড়ীতে কিভাবে ডাকাতি হইছে,কি কি নিয়া গেছে এসব গুরুত্বপূর্ণ তথ্য,উপাত্ত আমরা
সকাল বেলা রুটি আনতে যাইয়া রুটির সাথে বাড়ীতে নিয়া আসতাম।তারপর সারাদিন বাড়ীতে-গাড়ীতে-মাঠে-ঘাটে-হাটে ডাকাতদের নিত্যনতুন কীর্তিকলাপ আলোচিত হইত।সর্বত্র লোকমুখে ডাকাত এবং ডাকাতির এমনসব শৈল্পিক বর্ণনা শুইনা মনে... ...বাকিটুকু পড়ুন