somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

লন্ডনের ডায়েরি (ছবির এলবাম-২) "ক্রিসমাস লাইটিং ফটোগ্রাফি"

২৪ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৫:১০
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


লন্ডন সিটিকে কি নামে ডাকা যায়; যারা লন্ডনে থাকেন কিংবা বেড়াতে গিয়েছেন তাদের কাছে এটি একটি কঠিন ধাঁধা বটে! ঐতিহাসিক নগরী? ব্রিটিশ সম্রাজ্যের তীর্থস্থান? পর্যটন নগরী? নাইট লাইফের স্বর্গভূমি? থিয়েটারের নগরী? মাল্টি কালচারাল সিটি? ক্যাসিনো সিটি? ব্ল্যাক ক্যাবের নগরী? চাইলে আরো অনেক বিশেষণে বিউটিফুল অভিজাত আর সদা জাগ্রত এ সিটিকে বিশেষায়িত করা যায়। তবে আমার কাছে সবকিছু ছাপিয়ে লন্ডন হলো 'শপিং' এর তীর্থস্থান। হ্যা, লন্ডন হলো শপিং নগরী; বিশেষ করে পৃথিবীর বিখ্যাত আর ধনী মানুষদের শপিংয়ের অন্যতম পছন্দের স্থান।

লন্ডনের অক্সফোর্ড স্ট্রিটকে (Oxford Street) বলা হয় ইউরোপের সবচেয়ে বড় শপিং এরিয়া। এখানে পৃথিবীর এমন কোন নামকরা ব্রান্ড নেই যা পাওয়া যায় না। লন্ডনের দ্বিতীয় বিখ্যাত শপিং মল সেলফরেজ্ (Selfridge) এখানে অবস্থিত। আর ইউকে তথা ইউরোপের অন্যতম সেরা শপিং মল হারডস্ (Harrods) অক্সফোর্ড স্ট্রিট থেকে টেক্সিতে পাঁচ মিনিট দূরত্বে নাইস ব্রিজে (Knight Bridge) অবস্থিত। এছাড়া শপিং এর জন্য বিখ্যাত বন্ড স্ট্রিট (Bond Street), রিজেন্ট স্ট্রিট (Regent Street) এবং মে ফেয়ার (May fair) অক্সফোর্ড স্ট্রিটের সাথে সংযুক্ত। লন্ডনের অন্যান্য বিখ্যাত শপিং এলাকা হলো- নাইস ব্রিজ (Knight Bridge) ও কভেন্ট গার্ডেন (Covent Garden)। এছাড়া স্টার্টফোর্ড (Stratford) ও হোয়াইট সিটির (White City) বিখ্যাত Westfield Market অন্যতম।

ক্রিসমাস আসলে এসব এলাকা বর্ণিল সাজে সজ্জিত হয়। রাস্তাগুলো সরকারি খরছে বাহারী সাজে রঙিন হলেও মার্কেটগুলো পাল্লা দিয়ে সেজে উঠে নিজস্ব পরিকল্পনায়। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে আসা লক্ষ লক্ষ পর্যটক ও শপাররা মন ভরে তা উপভোগ করেন। বছরে অন্যান্য সময়ে অক্সফোর্ড স্ট্রিট আরব ধনী পর্যটকদের দখলে থাকলেও ক্রিসমাসের সময়ে বড়দিনের শপারদের আধিক্য থাকে। বড় বড় শপিং মল আর প্রশস্ত ফুটপাতগুলো কানায় কানায় পূর্ণ থাকে। রাস্তায় দেখা যায় ভয়াবহ যানজট। আন্ডারগ্রাউন্ড (Underground) ট্রেনে তিল ধারণের ঠাই থাকে না।

(২) হারডস্ (Harrods): লন্ডনের নাইট ব্রিজে অবস্থিত পৃথিবীত অন্যতম ব্যয়বহুল শপিং মল। ১৮২৪ সালে Charls Henry Harrods লাক্সারি এই মলটি প্রতিষ্ঠা করেন। পরে বিভিন্ন সময়ে এটি রিফ্রেশমেন্ট হয়। বর্তমানে এর মালিকানা কাতার সরকারের হাতে। মূলত, আরব ধনকুবেরেরা হারডস্ এর কাস্টমার। তবে চায়নিজ, আমেরিকান ও স্থানীয় ধনীদের পছন্দের শপিং মল এটি। লন্ডনের সবচেয়ে দামী আর ধনী মানুষদের বসবাস এই এলাকায়। লন্ডনের সবচেয়ে বড় 'হাইড পার্ক' এবং 'বাকিংহাম প্যালেস' এর হাঁটা দূরত্বে অবস্থিত।


(৩) রিজেন্ট স্ট্রিট (Regent Street) : অক্সফোর্ড সার্কাস ও পিকাডিলি সার্কাসকে সংযুক্তকারি এ রাস্তাটি লন্ডনের অন্যতম ব্যস্ত ও সুদৃশ। মূলত শপিংয়ের জন্য এটি বিখ্যাত। এটি লন্ডনের সবচেয়ে দৃষ্টি নন্দন ও অভিজাত রাস্তা। এত সুন্দর ও আকর্ষণীয় রাস্তা একবার দেখে মন ভরবে না। বারবার দেখতে মন চাইবে। পৃথিবীর সর্ব বৃহৎ টয় শপ 'হেমলিজ' (Hamleys) এখানে অবস্থিত। পৃথিবীর সর্ববৃহৎ মিডিয়া কর্পোরেশন BBC রিজেন্ট স্ট্রিটে অবস্থিত।


(৪) উইন্ডো শপিং (Window Shopping) : উইন্ডো শপিং ধারণাটি লন্ডনে যাওয়ার আগে কখনো ছিল না। লন্ডনের বড় বড় সব শপিং মলেই বাইরের দিকে ছোট ছোট করে অনেকগুলো চমৎকার দৃষ্টি নন্দন এরিয়া থাকে। এতে বিভিন্ন পণ্যের চমৎকার এ্যাড দেওয়া থাকে। এগুলো বানাতে লক্ষ লক্ষ টাকা খরছ করে ব্রান্ডগুলো। এগুলো ২৪ ঘন্টাই পথচারীদের দৃষ্টিতে পড়ে। এখানে উল্লেখ্য যে, এসব শপিংমলগুলোর দরজা ও বেড়া কাঁচের তৈরী। এজন্য শপগুলো বন্ধ হওয়ার পরও ভেতরের সবকিছু সহজেই দেখা যায়।


(৫) কভেন্ট গার্ডেন (Covent Garden) : কভেন্ট গার্ডেন লন্ডনের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত। রেস্তোরাঁ ও শপিং এর জন্য বিখ্যাত হলেও লন্ডনের বিখ্যাত অনেক থিয়েটার এখানে আছে। বিশেষ করে Royal Opera House এখানে অবস্থিত। এছাড়া বিকেল বেলার সার্কাস দেখতে, গান শুনতে এবং আড্ডা দিতে হাজারো মানুষ এখানে আসে। চার্লি চ্যাপলিন সার্কাসটি এখানে অনেকবার দেখেছি। আমার খুব প্রিয় জায়গা এটি।


(৬) চায়না টাউন (China Town) : চায়না টাউন না থাকলে হয়তো লন্ডনের আভিজাত্যে পূর্ণতা আসতো না। পৃথিবীর বড় বড় শহরে শুনেছি চায়না টাউন আছে। দারুণ দৃষ্টি নন্দন দু'টি গেইট এলাকাটাকে একটা মিনি চায়না বানিয়ে দিয়েছে। শতাধিক চায়নিজ রেস্টুরেন্টে প্রতিদিন লক্ষাধিক ফুড লাভার এসে উদরপূর্তি করেন। সুদৃশ্য এই গেইটটি ২০১৫ সালে তৈরী করা হয়।


(৭) কত রকম ডিজাইন আর ফ্যাশনের ক্রিসমাস সাজ! বিখ্যাত Carnaby Street এভাবেই সাজানো অসংখ্য অলঙ্কার দিয়ে। শপিং, রেস্তোরাঁ, পাব ও ক্লাবিং এর জন্য বিখ্যাত।


(৮) এটি Regent Street এর Piccadilly সাইড। দৃষ্টিনন্দন বিল্ডিং আর শপিং এর জন্য বিখ্যাত। U শেপের বিল্ডিংটা এতো চমৎকার যে, দৃষ্টি সরানো যায় না। চমৎকার কারুকাজে সমৃদ্ধ।


(৯) বন্ড স্ট্রিটে (Bond Street) অবস্থিত একটা আস্ত স্টার!!


(১০) Carnaby Street : ছোট্ট ঘিঞ্জি একটি জায়গা। অথচ কতই না পরিচিত, বিখ্যাত। দিনের বেলায় শপিং ও রেস্তোরাঁর জন্য বিখ্যাত হলেও সন্ধায় পাব আর ড্রিংকস এর জন্য বিখ্যাত। আর মধ্যরাতে পার্টি, ক্লাবিং, ডিসকোর জন্য বিখ্যাত। আমি অনেক বছর এখানে জব করেছি। দ্রুতগতির জ্যামাইকান Usain Bolt এবং Shahrukh Khan এর সাথে এখানেই দুই দিন কিছু সময়ের জন্য আড্ডা মেরেছি। টাইটানিক ছবির পরিচাক Stephen Spilburg কে এখানে দেখেছি। Justin Biber, Rihana সহ অসংখ্য পৃথিবী বিখ্যাত সেলিব্রেটিকে এখানে ক্লাবিং করতে দেখেছি।


(১১) Shaftesbury Memorial Fountain : Piccadilly Circuses-এ অবস্থিত এই মেমরিয়ালটি ১৮৯৩ সালে প্রতিস্থাপন করা হয়। পিকাডিলি সার্কাস হলো লন্ডন সিটির হার্ট। লন্ডনের সবকয়টি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক পিকাডিলির সাথে সংযুক্ত। একদিকে Regent Street হয়ে Oxford Circus; আরেকদিকে Trafalgar Square হয়ে Westminster, Downing Street, Buckungham Palace, Parliament Building, Big Ben ইত্যাদি। আরেকদিকে, Soho, China Town, Covent Garden, Holborn ইত্যাদি। আরেক দিকে St. James Park, Hyde Park, Knight Bridge, Marbel Arch, May fair ইত্যাদি।


(১২) Victoria Secret : না, এটা রাণী ভিক্টোরিয়া নয়! কিংবা রাণীর কোন সিক্রেট প্লেস নয়। তবে পৃথিবীর হাজারো ধনীর দূলালীর সিক্রেট প্লেস। এখনো বুঝতে পারেন নাই? তাহলে গুগলে সার্চ দেন। দেখবেন সুন্দরী রমণীরা দল বেঁধে কেন এখানে আসেন। ও, আরেকটি কথা Bond Street-এ অবস্থিত এ শপটি লন্ডনের একমাত্র Victoria Secret শপ। এখানকার কাপড়গুলো খুব ব্যয়বহুল। সাধারণ শপের চেয়ে কয়েকগুণ বেশি টাকা গুণতে হয় কাস্টমারদের। দামী ব্রান্ড বলে কথা!!


(১৩) GAP (oxford street) : GAP1969 আমার অন্যতম প্রিয় ব্রান্ড। সব সময় ব্যবহারের জন্য এখান থেকেই সার্ট-প্যান্ট সহ যাবতীয় পোষাক কিনতাম। আমেরিকান এ ব্রান্ডটি লন্ডনে খুব পরিচিত। সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী Tony Blair এর বউকে এই স্টোরে শপিং করতে পেয়েছি; কেউ তাকে বাড়তি খাতির করেনি, কোন চামচা-আয়া সাথে নেই, নেই কোন বডিগার্ড কিংবা এসএসএফ সিকিউরিটি! খুবই সাধারন কাস্টমার আমার মতোই।


(১৪) Oxford Street : বিখ্যাত Oxford Street এর ক্রিসমাস লাইটিং। চমৎকার আর বর্ণিল সাজ চোখ ধাধিয়ে দিচ্ছে। রাস্তা যতটুকু বড় দুই পাশের ফুটপাতও ঠিক ততটুকু প্রসারিত। ফুটপাত দখল করে রাখার বুকের পাটা লন্ডনে কারো নেই। ফুটপাত ও রাস্তা খুবই পরিচ্ছন্নও বটে। বাস লেন এবং বাস স্টপে পাবলিকের কোন গাড়ি ঢুকতে পারে না। কেউ ভুল করে ঢুকলেও নিশ্চিত বড় অঙ্কের জরিমানা গুণতে হয়। আর লন্ডনের Black Cab তো পৃথিবী বিখ্যাত। Black Cab এর ড্রাইভারদের পৃথিবীর সবচেয়ে স্মার্ট ক্যাব ড্রাইভার বলা হয়। পেসেঞ্জার কোন মতে নাম বলে দিতে পারলেই তারা সহজেই তাকে ম্যাপ না দেখে জায়গায় পৌছে দিতে পারে। তবে কখনো ঘুরিয়ে পেঁচিয়ে অবশ্যই নয়। এই ইথিক্স অন্তত তাদের আছে।


(১৫) Bond Street : Oxford Circus এর সাথে সংযুক্ত Bond Street পৃথিবী নামকরা ব্রান্ড শপগুলোর জন্য বিখ্যাত। আর লন্ডনের বিখ্যাত mayfair এখানে অবস্থিত। লন্ডনের নামকরা অনেকগুলো রেস্টুরেন্ট এবং ক্যাসিনো ও নাইট ক্লাব এই রাস্তার আশপাশে অবস্থিত। সেলিব্রেটিদের শপিং এর জন্য Bond Street বিখ্যাত।


(১৬) Bond Street Underground Station এর ঠিক পাশে এবং Selfridge Shopping Mall এর সামনের মনোরম এই ওয়াকওয়েটি শপিং এর জন্য বিখ্যাত। এখানে বিভিন্ন ব্রান্ডের শপের পাশাপাশি অনেক কফি শপও আছে।


(১৭) Selfridges : Oxford Street-এ অবস্থিত লন্ডনের অন্যতম লাক্সারিয়াস শপিং মল। পৃথিবী বিখ্যাত সব ব্রান্ডের ফ্যাশন সামগ্রী এখানে পাওয়া যায়। ১৯০৮ সালে Harry Gordon Selfridge এটি প্রতিষ্ঠা করেন। Harrods এর পর Selfridge হলো ইউকের দ্বিতীয় বৃহত্তম শপিং মল। Manchester এবং Barmingham-এ Selfridge এর শাখা আছে।


(১৮) Disney Store : পৃথিবী বিখ্যাত Disney ব্রান্ডে যাবতীয় পণ্য দিয়ে সাজানো Oxford Street-এর Disney Store-টি ইউকের সর্ববৃহৎ। সারাদিন হাজার হাজার ডিজনি প্রেমী ক্রেতা শপটিতে ভীড় জমায়। মূলত, বাচ্চাদের খেলাধুলার সামগ্রির জন্য Disney বিখ্যাত।


(১৯) Bond Street এর বিখ্যাত Fenwick শপিং মল।


(২০) Apple Market : না, এখানে কোন আপেল বিক্রি হয় না; কিংবা আপেলের কোন গাছের অস্থিত্বও এখানে নেই। এটা Covent Garden এর বিখ্যাত বিভিন্ন ডিজাইনার পণ্যের স্টল। সহজ কথায় বললে, হরেক রকম ডিজাইন আর বিভিন্ন দেশের তৈরী চমৎকার কারুকাজে সমৃদ্ধ অনেকগুলো স্যুভিনর শপ। এছাড়া বুটিক ও ক্রাফটের দোকানও আছে এখানে।


[লন্ডনের ডায়েরি- (ছবি এলবাম ১); চাইলে এই ছবিগুলোও দেখতে পারেন।]
...................................................................................................................
নতুন কিছু জানা, ঘোরাঘুরি করা এবং ছবি তোলা আমার একটি সখের কাজ। লন্ডনের এমন কোন গুরুত্বপূর্ণ স্থান নেই যেখানে আমি যাইনি। কোন কোন জায়গায় শতাধিকবারও যাওয়া হয়েছে। সাথে ক্যামেরা থাকতো বলে অসংখ্য ছবি তুলেছি। ভাবছি মাঝে মাঝে এসব ছবি ব্লগে প্রকাশ করবো। ছবিগুলো ২ বছর আগে ক্রিসমাসের সময়ে তোলা।

ফটো ক্রেডিট,
তিনি একজন লাজুক ভদ্রলোক/ভদ্রমহিলা। এজন্য বিখ্যাত এ ফটোগ্রাফারের ছবি দিতে পারলাম না। ভবিষ্যতে অনুমতি পেলে ছবিসহ বিস্তারিত বলতে পারবো। বর্তমানে তিনি ব্রিটেনের কুইন এ্যালিজাবেথের ব্যক্তিগত ফটোগ্রাফার হিসেবে কর্মরত আছেন। তিনার রুহের মাগফেরাত কামনা করছি।
সর্বশেষ এডিট : ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১:১২
৫০টি মন্তব্য ৫০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

জীবনের গল্প- ২৪

লিখেছেন রাজীব নুর, ০৮ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৫৪



জনাব আহাদ সাহেব একজন সফল মানুষ।
অথচ তিনি দরিদ্র পরিবারে জন্মগ্রহন করেছেন। তারা দুই ভাই, দুই বোন। তিনিই সবার বড়। লেখাপড়া দূর্দান্ত ছিলেন। দারুন মেধাবী। মেট্রিক-ইন্টার দু'টাতেই... ...বাকিটুকু পড়ুন

মীমাংসিত বিষয়সমুহও বাংলা ব্লগে ঘুরে ঘুরে ফেরত আসে।

লিখেছেন চাঁদগাজী, ০৯ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ৩:০৭



বাংলা ব্লগসমুহ চালু হবার পর, কিছু কিছু বিষয় নিয়ে অনেক বাহাস হয়েছে; এতে অনেক আলাপ-আলোচনা, তর্ক-বিতর্ক, গালাগালি হয়েছে; শেষে, এক সময়ে ওসব বিষয়গুলোর মোটামুটি মীমাংসা হয়ে গেছে। এখন... ...বাকিটুকু পড়ুন

কদম-বুচি....

লিখেছেন কিরমানী লিটন, ০৯ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ভোর ৫:৪৩


আকাশ গুলো এখন দেখি
চোখের চেয়ে ছোট,
সূর্যকে তাই বিদায় বলি-
অন্য কোথাও উঠো।

জীবন চেয়ে হচ্ছে যারা
চাল পিঁয়াজে- খুন,
বিকল বিবেক বধির তারা
নির্মলেন্দু গুণ।

খুনী বলে বিচার হবো
বিচার বলে খুনী,
তসবি জপে আইন খুঁজে
পালিয়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

সাময়িক পোষ্ট

লিখেছেন রাজীব নুর, ০৯ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সকাল ৯:৩৭



সামুর ব্লগার কুহক।
দারুন কবিতা লিখতেন তিনি। তিনি আমাদের মাঝে নেই। ব্লগার কুহক কাজ করতেন অনুপ্রানন প্রকাশনীতে। অনুপ্রানন একটা সাহিত্যে পত্রিকা বের করে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। তাদের এবারের সংখ্যার... ...বাকিটুকু পড়ুন

ব্লগ ডে :: ২০১৯

লিখেছেন নীলসাধু, ০৯ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১:১৪



আমরা যারা ব্লগে লেখালিখি করি তাদের কাছে ব্লগ বিশেষ কিছু।
ব্লগের প্রতিটি নিক আমাদের কাছাকাছি। নিকের পেছনে মানুষটিকে না চিনলে, না জানলেও তার লেখা এবং আমার লেখায় তাদের মন্তব্যের... ...বাকিটুকু পড়ুন

×