somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

তোমার সাথে খেলার ছলে, তোমার কথায় ছিলাম ভুলে…

২৪ শে জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৯:০২
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



প্রিয় শাফায়েত,
মানুষ তার বিপরীত মানুষের বিশ্বাসের সমান প্রতারক, সরলতার সমান সুযোগসন্ধানী, আগ্রহের সমান উদাসীন। বাতাসে ভাসমান পাতা যদি কখনো পথ পরিবর্তন করে, তাহলে সেটা আকস্মিক মানা যায়। কিন্তু কোনো উড়ন্ত পাখি যদি তার পথ পরিবর্তন করে, তবে তাকে পরিকল্পনাই বলা হয়। ফুল যদি কখনো ঈশ্বরের চরণে সমর্পিত না হয়ে নর্তকীর কবরীতে স্থান পায়, তাতে ঈশ্বরের অপমান হয় না; ফুলেরই দুর্ভাগ্য বটে। মনে পড়ছে সক্রেটিসের কথা; তিনি বলেছিলেন, কোনো মানুষের যদি সাধন করার মতো মহত কার্য থাকে, তাহলে তার সম্মুখে প্রশ্ন, জীবন কিংবা মৃত্যু নয়। তার বিবেচনার একমাত্র বিষয় হওয়া আবশ্যক, আপন কার্য সাধনে সে কোথাও অন্যায় কিংবা অবিচারের আশ্রয় গ্রহন করলো কি না।

এমন অনেক দম্পতি পাবে যারা সারাজীবন একসাথে থাকার পর বুঝতে পারেন একে অন্যের মনের মত নয়। সংসার অনেক ক্ষেত্রেই অভ্যাস, কর্তব্যবোধ আর খানিকটা মায়া। সেখানে ভালোবাসা থাকতেই হবে এমন কোনো বাধ্যবাধকতা নাই। ভালো ব্যবহার করেও একসঙ্গে সারাজীবন কাটানো যায়। একসাথে বাঁচার জন্য কতদিন পেলাম? তারচেয়েও বড় কথা যতদিন পেলাম, তার মধ্যে কতটা সময় একসাথে কাটালাম! তোমার লেখায় হৃদয়ের জ্যামিতি যতখানি নিখুঁত মাপের ধরা পড়েছে, গভীরতা ততখানি মুখ খোলে নি...। সম্পর্ক আসলে একধরনের ইনিভিজিবল টেনশন। হারানোর ভয় তখন হেরে যাওয়ার বেদনাকেও হারিয়ে দিয়ে প্রাইওরিটি লিষ্টে আগে চলে আসে। আমি 'বেনালোপ' নই যে অপেক্ষাতে কাটিয়ে দিবো জীবন। তবুও ভেবে দেখলাম, একা থাকাই বরং সোজা এবং সহজ। নিজেকে আমার মাঝে মধ্যেই ‘মিসফিট’ মনে হয়।

আমরা যা চাই, খুব অদ্ভুতভাবে সেটাকে আমরা আমাদের প্রাপ্য বলে ধরে নিই। অপ্রতিরোধ্য ঐশ্বর্যময় জীবনের ইচ্ছে কার না হয় বলো? সময় আমাদেরকে সহনশীল করে দেয়। অভিমানের দেয়াল মেয়াদউর্ত্তীণ হয়ে একসময় নিজেই খসে পড়ে। জেনেছি শুধু নিজের উপর আস্থা রেখে কোনো সম্পর্কে জড়ানো ঠিক না। যার কিংবা যাদের সাথে সম্পর্কিত হতে যাচ্ছি তাদেরকেও বোঝাটা জরুরি। ভদ্রতার শীতলতা... কি অসহ্য! তাই না? পাশের মানুষটির অপূর্নতা ভালো। তাকে পূর্ণ হওয়ার পথে সঙ্গ দেয়া যায়। পূর্ণ চাঁদও খুব দ্রুত অমাবস্যার দিকে এগোয়।

সংসারে মানুষের দুটি চেহারা থাকে, অসাধু ব্যবসায়ীর যেমন থাকে দুটো খাতা, খাজনা ফাঁকি দেয়ার জন্য। তোমার মধ্যে সরলতা যতটা ছিলো, সততা ততটা ছিলো না। কেউ অনেক ভালোবাসে, আর কেউ অনেককে ভালোবাসে। দ্বিতীয়দলের তোমার লেখা পড়ে মাঝে মধ্যেই তাই লিখতে ইচ্ছে করে, ‘তোমার সত্যিটা আমার মনোপুত হয় নাই। তুমি কি আরেকটা সত্যি বলবা প্লিজ’। মানুষের সবকিছুতে ভুল হতে পারে, তবে ভুল ভাঙ্গতে ভুল হয় না। নিরস্ত্র হলেও আমি আসলে ভালো রকমের যুদ্ধবাজ। আমরা এখন একে অন্যের সমস্যা নই, অনেক ক্ষেত্রেই স্মৃতি। কিছু সম্পর্ক আসলে নিমজ্জিত জাহাজ, স্মৃতি যাকে জলের মতো ঘিরে রাখে। ভালোবাসা আর শ্রদ্ধাবোধ থাকলে মানুষ পরস্পরের প্রতি বিশ্বস্ত থাকে। মানুষ আসলে বিশ্বস্ততা চায়।

বেতনের মতোই প্রতি মাসে একবার চিঠি পাওয়ার বিষয়টা কিন্তু মন্দ নয়, কি বলো? অকাল সন্ধেতে তোমার চিঠিগুলো আসে এক রেলগাড়ী ভরতি বিষাদ নিয়ে। চিঠিগুলোতে আমরা বাক্য নয় বরং পয়সা বিনিময়ের মতো করে গুনে বুঝে কথা বলি। অধিকাংশ পুরুষের মতই তুমি আমার অভিমানের রেখা ছুঁতে পারোনি। তুমি প্রায়শ অনেক কথার বাইরের অর্থটা বোঝ, ভেতরের মর্মটা বুঝতে পারো না। তুমি নিজেকে যা ভাবো, কোনো ভাবেই তার ধারপাশ দিয়ে যাও না। কত বীজ থেকে তো বিষবৃক্ষও জন্মায়! জগতে উচিৎ বাক্যের মতো অসহনীয় আর কী আছে! আমাদের ভালোবাসা খুব সযত্নে তোলা এবং অব্যবহৃত রইলো। এবং ‘আমি চাইনা তুমি ফিরে আসো; সঙ্গে কিছু মিথ্যে নিয়ে, অন্য কারো শরীরের গন্ধ নিয়ে…’

বি. দ্র. জানতে চেয়েছো, কেমন আছি আমি? বড় জটিল প্রশ্ন; বড় জরুরী প্রশ্ন।
‘ব্যথার অথৈ গাঙ- চিরকাল আমি তার উজানের মাঝি’। ভালো আছি।
সর্বশেষ এডিট : ১৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১:৪৪
১২টি মন্তব্য ১২টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

করোনা

লিখেছেন ম্যাড ফর সামু, ২৭ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:২২




বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে এবার ভর্তি হলেন কোন একজন মন্ত্রী মহোদয়, যিনি সিঙ্গাপুর থেকে আক্রান্ত হয়ে দেশে এসে ভর্তি হয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়-এ।

তাঁকে আপাতত কোন... ...বাকিটুকু পড়ুন

সময় এসেছে ঘরে ঘরে মুসলিম,হিন্দু ঐক্যবদ্ধ সংঘঠন গড়ে তুলতে হবে

লিখেছেন :):):)(:(:(:হাসু মামা, ২৭ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২০

ভ্স্মীভূত কোরআন এভাবেই মাটিতে পুঁতে রাখছেন স্থানীয়রা। ছবি: এএফপি[/sb
আজকাল কথায় কথায় ব্লগ সহ প্রায় সকল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে নানান ধরনের কমেন্টে দেখা যায়,এক পক্ষ আছেন
যারা বিভিন্ন সংঘাত বা ঝামেলার... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্লিজ

লিখেছেন ইসিয়াক, ২৭ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৩৫


কিছু কথা আছে,
ফোনটা রেখোনা …………প্লিজ।

একা বসে আছি তোমারই অপেক্ষায়,
আর নিজেকে সামলাতে পারছিনা কিছুতেই
জানো কিনা জানিনা.
বোঝ কিনা বুঝিনা।
আমি সত্যি আর পারছিনা প্রিয়তমা।
আমার ঘেটে যাওয়া জীবনটাতে তোমাকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

এনআরসি প্রতিবাদে মুসলমানদের রাস্তায় নামা কি ঠিক?

লিখেছেন চাঁদগাজী, ২৭ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:০৮



প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যেইদিন দিল্লী এলো, সেইদিনটি কি রাস্তায় এনআরসি প্রতিবাদের জন্য "উপযুক্ত দিন" ছিলো? ট্রাম্পের ভিজিট মাত্র ১ দিন, এই দিন সম্পর্কে মোদীর সরকার ও বিজেপি খুবই সেন্সসেটিভ;... ...বাকিটুকু পড়ুন

ভারতের মুসলিমদের উপর অত্যাচার এবং বাংলাদেশে মুজিব বর্ষে মোদির প্রাসঙ্গিকতা।

লিখেছেন রাজজাকুর, ২৭ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:১৫

ভারতের Citizenship Amendment Act (CAA) এর উদ্দেশ্য আফগানিস্তান, বাংলাদেশ এবং পাকিস্তান থেকে আগত হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, জৈন, পারসি এবং খ্রিষ্টান এই ছয় ধর্মাবলম্বী অভিবাসীদের ভারতীয় নাগরকিত্ব দেয়া। কিন্তু প্রশ্ন হলো-... ...বাকিটুকু পড়ুন

×