somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

অভিযোগ ও অভিযোগ সহ যুদ্ধাপরাধীদের আংশিক তালিকা

১৩ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ৯:০৯
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

অভিযোগ ও অভিযোগ সহ যুদ্ধাপরাধীদের আংশিক তালিকা

ওয়েবমাস্টার বাংলাদেশ নিউজ (অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশীদের ভয়েসেস) দ্বারা প্রকাশিত / ডিসেম্বর ১৬, ১৯৯৯, ভিক্টোরিয়া লেভেল ১০, ৪৫৯ লিটল কলিনস সেন্ট, মেলবোর্ন ভিক ৩০০০, অস্ট্রেলিয়ায় একটি সংবাদপত্র হিসাবে নিবন্ধিত - দ্য ওয়ার্ল্ড ক্রিমিনালদের নামকরণ করা হ”েছ: লিখেছেন: আহমেদ জিয়াউদ্দিন) [সংক্ষেপে]
অভিযোগ এবং অভিযোগ সহ যুদ্ধাপরাধীদের একটি আংশিক তালিকা নীচে দেওয়া হয়েছে।

নাম: লেঃ জেন.নিয়াজি
নং: পিএ ৪৭৭
পোস্ট হোল্ড:: কর্পস কমান্ডার, সামরিক আইন প্রশাসক জোন বি
অভিযোগ: অভিযুক্তের বির“দ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে যে, তিনি পধাকায় কমপক্ষে ১ লা মার্চের মধ্যে ছদ্মবেশে পৌঁছেছিলেন। এরপরে, তিনি একাধিক উ”চ স্তরের সম্মেলনে অংশ নিয়েছিলেন যেখানে গণহত্যার সাথে যুক্ত সামরিক অভিযানগুলি পরিকল্পনা ও চূড়ান্ত করা হয়েছিল। তাঁর অংশগ্রহণ ছিল আড়ালে। তিনি সামরিক আইন প্রশাসক জোন বি হিসাবে দায়িত্ব নেওয়ার পরে, আসামিরা গণহত্যার পরিকল্পনা এবং এর সাথে সংযুক্ত সামরিক অভিযানের বিষয়ে প্রচুর পরিমাণে প্রকাশ্য বিবৃতি দেয় এবং প্রচুর আদেশ জারি করে। তিনি তাঁর অধীন¯’ পুর“ষদের দ্বারা পরিচালিত সমস্ত অপরাধমূলক কাজ এবং প্রকৃতপক্ষে বাংলাদেশের সামরিক দখলের সময় তাঁর সৈন্যদের সমস্ত কাজকর্মের পুরো দায়ভার নিজেই গ্রহণ করেছিলেন। তার অধীনে পুর“ষদের দ্বারা গণধর্ষণ ও মহিলাদের অপরাধমূলক লঙ্ঘন সম্পর্কে প্রমাণ পাওয়া যায়। অভিযোগ করা হয় যে তিনি ব্যাক্তিগতভাবে ঘটনা¯’লের দৃশ্যে উপ¯ি’ত ছিলেন
একাত্তরের ১২ থেকে ১ উবপবসনবৎ ই ডিসেম্বর বাঙ্গালীর বুদ্ধিজীবী হত্যার ঘটনা। কমিশন কমিশনের আগে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বুদ্ধিজীবী হত্যার পরিকল্পনার জন্য তিনি ওই ¯’ান পরিদর্শন করেছিলেন বলেও অভিযোগ করা হয়। তাঁর ব্যক্তিগত খুশির জন্য ঐবাকায় কমপক্ষে ৫০ জন মহিলা ও মেয়েকে অবৈধভাবে আটক করেছিলেন বলেও অভিযোগ করা হয় তাকে ”
প্রস্তাবিত অভিযোগ: আগ্রাসী যুদ্ধ চালানোর ষড়যন্ত্র, গণহত্যা করার ষড়যন্ত্র, মানবতাবিরোধী অপরাধ করার ষড়যন্ত্র, গণহত্যা ও যুদ্ধাপরাধের কমিশনে জড়িততা এবং মানবতাবিরোধী অপরাধ। শৃঙ্খলা রক্ষা করতে ব্যর্থতা, মিথ্যা গ্রেপ্তার, ধর্ষণ, লাঞ্ছনা এবং ব্যাটারি এবং হত্যা এবং আন্তর্জাতিক চুক্তিগুলির অপরাধমূলক লঙ্ঘন।

নাম: মেজর জেনারেল রাও ফরমান আলী খান
নং: পিএ ১৩৬৪
পোস্ট হোল্ড: ডেপুটি মার্শাল ল অ্যাডমিনিস্ট্রেটর জোন বি (১৯৬৯৯ সালের মার্চ থেকে জুলাই ১৯৭০ এ ব্রিগেডিয়ার হিসাবে); জুলাই ১৯৭০ থেকে মেজর জেনারেল সিভিল অ্যাফেয়ার্স)
কার্যাবলি: সামরিক আইনের উদ্দেশ্যে সিভিল প্রশাসনকে ব্যবহার করা, জেলাগুলিতে পোস্ট দেওয়ার আগে সিভিল অফিসারদের স্ক্রিনিং করা, সিভিল অফিসার বা গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের সাথে প্রতিদিন বা সাপ্তাহিক বৈঠকের মাধ্যমে রাজনৈতিক প্রশংসা করা এবং ইসলামাবাদের সামরিক জান্টায় তথ্য সরবরাহ করা।
অভিযোগ: ১৫ ই মার্চ থেকে পধাকা সেনানিবাসে জেনারেল ইয়াহিয়া খান কর্তৃক অনুষ্ঠিত সমস্ত গোপন বৈঠকে অংশ নেওয়া। বাংলাদেশের সকল সামরিক মহড়ায় অংশ নেওয়া। তাঁর সুপারিশ ও মাস্টার প্ল্যান প্রণয়ন করে সকল বেঙ্গালি বুদ্ধিজীবী ও আওয়ামী লিগুয়ারকে নির্মূল করতে এবং মাস্টার প্ল্যান বাস্তবায়নে বাংলাদেশে সেনা ক্র্যাকডাউন করার জন্য সময় ও তারিখ নির্বাচন করা হয়েছে।
প্রস্তাবিত অভিযোগ: আগ্রাসন যুদ্ধ চালানোর ষড়যন্ত্র, মানবতাবিরোধী গণহত্যা ও অপরাধ করার ষড়যন্ত্র, গণহত্যা কমিশনে জটিলতা, যুদ্ধাপরাধ এবং মানবতাবিরোধী অপরাধ। গণহত্যা এবং মানবতাবিরোধী অপরাধের পরিকল্পনা কার্যকর করা।


নাম: মেজর জেনারেল মোহাম্মদ হুসেন আনসারী
নং পিএ ৪৪০৪
পদটি অনুষ্ঠিত: স্টেশন কমান্ডার, .াকা (২৫ মার্চ ১৯৭১ এর আগে) ১৯৭১ স্টেশন কমান্ডার, চট্টগ্রাম, জি.ও.সি. নবম বিভাগ, উপ-সামরিক আইন প্রশাসক, সেক্টর তৃতীয়।
অভিযোগ: প্রমাণগুলি ইঙ্গিত দেয় যে অভিযুক্ত ব্যক্তি ১৯৭১ সালের ২৫ শে মার্চ থেকে শুর“ হওয়া সামরিক অভিযানের পরিকল্পনার সাথে জড়িত ছিল এবং অংশ নিয়েছিল। তিনি বেশ কয়েকটি উ”চ স্তরের কর্মী এবং অপারেশনাল প্ল্যানিং সেশনে অংশ নিয়েছিলেন বলে মনে হয় যার পরিকল্পনার বিবরণ গণহত্যা চূড়ান্ত করা হয়েছিল। চট্টগ্রামে তিনি চট্টগ্রাম গ্যারিসনে কর্মরত বেনগালি সেনা সদস্যদের অপসারণের লক্ষ্যে পরিচালিত অভিযান পরিচালনা করেছিলেন। যখন তিনি জিওসি, নবম বিভাগ এবং উপ-সামরিক আইন প্রশাসক, তৃতীয় বিভাগের অধিনায়ক হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন, তখন তিনি যশোর, জিনাদাহ, বরিশাল, খুলনা, খুলনা বন্দর, সাতক্ষীরা, মাগুরা, কুষ্টিয়া, ফরিদপুর, চৌদ্ঙ্গা, গোপালগঞ্জ সমন্বিত একটি বৃহত অঞ্চলের জন্য দায়বদ্ধ হয়েছিলেন। মাদারীপুর, পটুয়াখালী, ভোলা ও বাগেরহাট। তার নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকায় হত্যা বা নির্যাতন, ধর্ষণ ও অগ্নিসংযোগ সহ বিস্তীর্ণ গণ-অত্যাচারের বিস্তৃত প্রমাণ রয়েছে যা ১৯ পড়সসধহফ১ সালের জুলাই থেকে আত্মসমর্পণ পর্যন্ত তাঁর কমান্ডের অধীনে গঠন করা সদস্যদের।
প্রস্তাবিত অভিযোগ: মানবতাবিরোধী গণহত্যা ও অপরাধ করার ষড়যন্ত্র। গণহত্যা, গণহত্যা, নির্যাতন, ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগ, ভুয়া গ্রেফতার ও আটককরণ ইত্যাদির ষড়যন্ত্রের অনুসরণে কার্য সম্পাদন ও পরিচালনা পরিচালনা।

নাম: কর্নেল এম ইয়াকুব মালিক
নং: পিএ ৩৮৩৭
ইউনিট: ৫৩ ফিল্ড আর্টিলারি রেজিমেন্ট (৫৩ ব্রিগেড ১৪ বিভাগ)
পদটি অনুষ্ঠিত: সি.ও.
অভিযোগ: তার ইউনিট কুমিল্লায় ২৫ শে মার্চ, ১৯৭১ এরও আগে অব¯’ান নিয়েছিল এবং আত্মসমর্পণ পর্যন্ত বাংলাদেশে ছিল। একাত্তরের ২৫ শে থেকে ২৯ শে মার্চ, ব্রিগেড সদর দফতরে কুমিল্লায় ৩০০ বাঙালি সামরিক কর্মকর্তা এবং অন্যান্য পদমর্যাদারকে নিরস্ত্র করে আটক করা হয়েছিল। এছাড়াও, ১ ১৬০০ বেসামরিক নাগরিককেও গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। ১৯৭১ সালের ৩০ শে মার্চ, গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে ১৫ এবং ২০ জনের ব্যাচকে ব্রিগেড সদর দফতরের সীমান্তে বের করে হত্যা করা হয়। পেট্রোম্যাক্স আলোর সাহায্যে একই রাতে নিহত ব্যক্তিদের মৃতদেহগুলি সেনানিবাসের সীমানায় গণকবরে সমাহিত করা হয়। আসামি কুমিল্লায় সমস্ত সময় এবং হত্যার তারিখটি আসলে ব্রিগেড সদর দফতরে যেখানে হত্যাকাণ্ড ঘটেছিল সেখানে উপ¯ি’ত ছিল।
প্রস্তাবিত অভিযোগ: পরিকল্পিত গণহত্যা কার্যকর করা, গণহত্যা, নির্যাতন, আন্তর্জাতিক চুক্তির ফৌজদারী লঙ্ঘন, ভুয়া গ্রেফতার ও আটকে রাখা ইত্যাদি নাম: লে। উ: শামস-উল-জামান (কর্নেল শামস নামেও পরিচিত)
নং: পিএ ৪৭৪৫
ইউনিট: ২২ এফএফআর এবং পদাতিক ব্যাটালিয়ন (১০৭ ব্রিগেড, ১৪ বিভাগ)
পদ: সহকারী উপ-সামরিক আইন প্রশাসক (খুলনা) একাত্তরের জুন পর্যন্ত; সাব-মার্শাল মাও প্রশাসক (যশোর) জুলাই ১৯৭১।
অভিযোগ: ১৯৭১ সালের ২৫ শে মার্চ আসামির আগে অভিযুক্তকে যশোরে রাখা হয়েছিল। পরে তিনি খুলনা চলে যান এবং যশোর ফিরে এসেছেন বলে মনে হয়। তিনি ছিলেন বাংলাদেশের সকল বস্তুগত সময়ে। যশোর-খুলনা এলাকায় ব্যাপক নৃশংসতার প্রমাণ রয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, ১৯ অঢ়ৎরষ১ সালের ৪ এপ্রিল পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর সামরিক কর্মীরা সং¯’ার জোরে যশোর শহরের চাচারা মহল্লায় গিয়ে নির্বিচারে অগ্নিসংযোগ করে ২০০ জনকে হত্যা করে। ১৯৭১ সালের মার্চ থেকে মে অবধি প্রায় ২০০০ ব্যাচ ধরে থাকা ব্যক্তিকে খুলনা সার্কিট হাউসে আনা হয়েছিল, সার্কিট হাউস থেকে ২০০ গজ দূরের বনঘাটে নির্যাতন ও হত্যা করা হয়েছিল। এই সময়কালে, আসামি সার্কিট হাউসে থাকতেন এবং ব্যক্তিগতভাবে নির্যাতন কক্ষগুলি পরিদর্শন করেছিলেন।
প্রস্তাবিত অভিযোগ: পরিকল্পিত গণহত্যা, গণহত্যা, নির্যাতন, আন্তর্জাতিক চুক্তির ফৌজদারী লঙ্ঘন, ভুয়া গ্রেফতার ও আটকানো ইত্যাদি বঃপ.

নাম: মেজর মোহাম্মদ আবদুল্লাহ খান
নং: পিটিসি ৫৯১১
পদটি অনুষ্ঠিত: উপ-সামরিক আইন প্রশাসক, উপ-সেক্টর ১২, ব্রাহ্মণবাড়িয়া।
অভিযোগ: ১৯৭১ সালের ২১ শে নভেম্বর অভিযুক্তকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সাব-কারাগার থেকে প্রায় ৫০ জনকে নিয়ে যায় এবং তাদের পয়ারতলা ব্রিজের নিকটে এমন একটি জায়গায় হত্যা করা হয়েছিল যেখানে পরে ৪২ টি মৃতদেহ ভেঙে দেওয়া হয়েছিল। প্রত্যক্ষদর্শীর অ্যাকাউন্ট পাওয়া যায়। এই অঞ্চলটি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বুদ্ধিজীবী হত্যার আগে লেঃ জেনারেল নিয়াজী এবং মেজর জেনারেল মজিদ খান পরিদর্শন করেছিলেন। প্রমাণ সেই অঞ্চলে গণহত্যা করার একটি নকশা প্রকাশ করেছে।
প্রস্তাবিত অভিযোগ: গণহত্যা, খুন, মিথ্যা গ্রেপ্তার ইত্যাদির পরিকল্পনা কার্যকর করা

নাম: মেজর খুরশিদ ওমর
নং: পিএ ৪৫৫৩
ইউনিট: ৬১৪ ফিল্ড ইন্টেলিজেন্স ইউনিট, যশোর সেনানিবাস।
অভিযোগ: অভিযুক্ত কমপক্ষে ১৯৭১ সালের মার্চ থেকে আত্মসমর্পণ পর্যন্ত যশোর সেনানিবাসের ফিল্ড ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের ইনচার্জ ছিলেন। রাজনৈতিক বুদ্ধি সংগ্রহ এবং রাজনৈতিক পরি¯ি’তি সম্পর্কিত গোয়েন্দা প্রতিবেদন দাখিল করার দায়িত্ব তার ছিল বলে মনে হয়
যে এলাকায়। গণহত্যার পরিকল্পনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বাঙালি সামরিক ও বেসামরিক কর্মীদের জিজ্ঞাসাবাদ ও স্ক্রিনিংয়ের সাথেও তিনি এই দায়িত্বে ছিলেন; কমপক্ষে ৯০০ জনকে তাঁর সামনে আনা হয়েছিল, জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে এবং অনেক মামলায় তার আদেশ ও তত্ত্বাবধানে নির্যাতন করা হয়েছিল। অভিযুক্তরা অত্যাচারের উদ্ভাবিত যন্ত্র উদ্ভাবনে বিশেষত্ব নিয়েছে বলে মনে হয়।
প্রস্তাবিত অভিযোগ: গণহত্যা, হত্যা, নির্যাতন, মিথ্যা গ্রেপ্তার এবং আটক এবং আন্তর্জাতিক আইন ও চুক্তিগুলির ফৌজদারী লঙ্ঘনের পরিকল্পনা কার্যকর করা।

নাম: ক্যাপ্টেন আবদুল ওয়াহিদ
নং: পিএসএস ৮৪৬৪
ইউনিট: ৩০ এফএফ
অভিযোগ: ১৯৭১ সালের ২৫ শে মার্চ থেকে শুর“ হওয়া সামরিক ক্র্যাক ডাউনের সময় অভিযুক্তকে ধপাকা শহরে পোস্ট করা হয়েছিল। পধাকায় যেদিন হত্যা, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছিল তাতে তার অংশগ্রহনের প্রমাণ রয়েছে।
প্রস্তাবিত অভিযোগ: হত্যা, লুট, অগ্নিসংযোগ, শৃঙ্খলা বজায় রাখতে ব্যর্থ।
(লেখক ব্রাসেলস ক্যাথলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন পড়ান এবং জেনোসাইড স্টাডিজের বাংলাদেশ কেন্দ্রের প্রধান))


সর্বশেষ এডিট : ১৩ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ৯:০৯
১টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

আজকের ডায়েরী- ৮৮

লিখেছেন রাজীব নুর, ২১ শে অক্টোবর, ২০২১ রাত ১২:৪২


ছবিঃ আমার তোলা।

মন মেজাজ ভালো নেই।
তাই ব্লগে কম আসি। কম লিখি। যদিও বেশ কিছু লেখা মাথায় জমে আছে। ইচ্ছার বিরুদ্ধে ব্লগে আসলে ঝামেলা হয়ে যাবে। দেখা... ...বাকিটুকু পড়ুন

বাতাস বুঝে ছুইটেন !

লিখেছেন স্প্যানকড, ২১ শে অক্টোবর, ২০২১ রাত ১:৪১

ছবি নেট।

হুমায়ুন আজাদ বলেছিলেনঃ "মানুষের ওপর বিশ্বাস হারানো পাপ, তবে বাঙালির ওপর বিশ্বাস রাখা বিপদজনক! " 

আসলেই তাই! খবরে দেখলাম ইকবাল নামের একজন ব্যক্তি পবিত্র কুরআন মুর্তির কাছে রেখে চলে... ...বাকিটুকু পড়ুন

একজন ভবঘুরে ইকবাল হোসেন জন্য সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ল

লিখেছেন মোঃ মাইদুল সরকার, ২১ শে অক্টোবর, ২০২১ সকাল ১০:৩৫



গত বুধবার ভোরে শারদীয় দুর্গাপূজার মহা অষ্টমীর দিন কুমিল্লা শহরের নানুয়া দীঘির উত্তর পাড়ে দর্পণ সংঘের উদ্যোগে আয়োজিত পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন দেখা যায়। ব্যস আর যায় কোথায়... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমি ও আমার পৃথিবী......

লিখেছেন জুল ভার্ন, ২১ শে অক্টোবর, ২০২১ সকাল ১০:৫১

আমি ও আমার পৃথিবী......

আজও খুব ভোরে উঠেছি প্রতিদিনের মতো। আকাশে তখনও আলগোছে লেগে রয়েছে রাত্রির মিহি প্রলেপ। আমার চেনা পাখিরা জেগে ওঠেনি তখনও। মনটা কেমন যেন একটু বিস্বাদে ভরে আছে।... ...বাকিটুকু পড়ুন

পেডাগোজিকাল ট্রানজিশন- শিশু শিক্ষনে শিক্ষকদের দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য কি ধরনের উদ্যোগ নেয়া যায়

লিখেছেন শায়মা, ২১ শে অক্টোবর, ২০২১ বিকাল ৩:৪৪


করোনাকালীন চার দেওয়ালে বন্দী জীবন ও অনলাইনের ক্লাসরুমের মাঝে গত বছর নভেম্বরে BEN Virtual Discussion "শিশুদের নিয়ে সব কথা" একটি টক শো প্রোগ্রাম থেকে ইনভিটেশন এলো।... ...বাকিটুকু পড়ুন

×