somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

এটা-সেটা: (পর্ব ১ - প্রথম) (ধারাবাহিক তথ্যসমৃদ্ধ বকর-বকর) B-) :D ;) :)

০৪ ঠা সেপ্টেম্বর, ২০১২ রাত ১২:০৯
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

সারাদিন বন্ধু-বান্ধব নিয়ে ঘুরে বেড়িয়েছেন। রাতে বাড়ি ফিরে সারাদিন ধরে তোলা মৌজ-মাস্তি করে কাটানো মুহূর্তের ছবিগুলো ফেইসবুকে আপলোড করে দিচ্ছেন। এটাতো গেল আপনার ছবির গল্প। কিন্তু জানেনকি, ক্যামেরায় তুলে ওয়েবে আপলোড করা বিশ্বের সর্বপ্রথম ছবি কোনটি?

ছবিটি হচ্ছে Les Horribles Cernettes নামের একটি কমেডি মিউজিকাল ব্যান্ডের সদস্যদের ছবি -



ছবির ৪ জন মেয়ে হলেন হলেন এই ব্যান্ডের সদস্য। বাম থেকে ডানে যথাক্রমে- অ্যাঞ্জেলা হিগনে, মিচেল ডি জেনারো, কোলেট মার্কস-নেলনেস এবং লিন ভেরোনি।

খেয়াল করলে দেখতে পারবেন ছবিটিতে ব্যান্ড সদস্যদের মাথার চারপাশটা দেখতে কাটা-কাটা, খোঁচা খোঁচা। এর কারণ হচ্ছে ছবিটিতে এডিট করে পেছনের কিছু অংশ ফেলে দেয়া হয়েছে। সাথে যুক্ত হয়েছে লেখা। মূল ছবিটি দেখতে ছিল এমন:



১৯৯২ সালে ছবিটি নেটে আপলোড করেছিলেন স্বয়ং ইন্টারনেটের জনক স্যার টিম বার্নার্স লি। :)


ছবি - স্যার টিম বার্নার্স লি

১৯৯২ সালের ১৮ জুলাই মূল ছবিটি তুলেছিলেন সিলভানো ডি জেনারো নামের একজন আইটি ডেভলপার, যিনি তখন স্যার টিম বার্নার্স লি এর সাথে ইন্টারনেটের আবিষ্কারে কাজ করেছেন। ছবিটি তোলা হয়েছিল Canon EOS 650 ক্যামেরা দিয়ে। আর এডিট করা হয়েছিলো কি দিয়ে বলুনতো? হুঁ হু! সেটাও কিন্তু ইতিহাস। .GIF ফরম্যাটের সেই ছবিটি স্ক্যান ও এডিট করা হয়েছিলো ফটোশপের প্রথম পূর্ণ সংস্করণ - Adobe Photoshop 1.0-তে। সেই ফটোশপ দেখতে অনেকটা আজকের ফটোশপের মতো হলেও বর্তমান ফিচারের ২৫ শতাংশও তাতে ছিল না। প্রাগৈতিহাসিক সেই ফটোশপের কিছু স্ক্রিনশট -











মজার ব্যাপার দেখুন, এই ২০১২-সালে এসেও আমরা ফটোশপে এডিট করা ছবি নিয়ে ব্যাপক বিরক্তি দেখাই, আবার উচ্ছ্বসিতও হই। অথচ নেটে আপলোড করা প্রথম ফটোগ্রাফই ছিল ফটোশপে এডিট করা একটা ছবি! :) বোঝা যাচ্ছে মানুষ শোধরায়নি!

যাদের আগ্রহ আছে তারা দেখে নিতে পারেন, ভার্শন 1.0 থেকে CS5 পর্যন্ত ফটোশপের বিভিন্ন ভার্শনের ইতিহাস ও যাত্রা নিয়ে একটি দারুণ আর্টিকেল: ক্লিক করুন

এতক্ষণ কথা বললাম নেটে আপলোড করা ছবি নিয়ে। কেননা এবার শুধু ছবি নিয়ে কথা বলি? ক্যামেরায় তোলা ও সফলভাবে সংরক্ষণ করা প্রথম ছবি কোনটি ছিল?

এর উত্তর জানতে হলে আমাদেরকে যেতে হবে প্রায় ২০০ বছর আগের ফ্রান্সে। ১৮৩৬ সালে এই অস্পষ্ট ছবিটিতে জানালার বাইরের দৃশ্য ধারণ করেন ফটোগ্রাফি প্রযুক্তির অন্যতম উদ্ভাবক নিসেফোর নিপসে -



অবশ্য ওপরের ছবিটিতে কোন মানুষ নেই। কোন মানুষ আছে পৃথিবীর প্রথম এমন ছবিটি তোলেন ফরাসী পদার্থবিদ ও শিল্পী লুইস ডাগুয়ের, ১৮৩৮ সালে। সম্ভবত ছবির ব্যক্তিটির জুতো পলিশ করা হচ্ছে-



আর প্রথমবারের মত কোন মানুষের মুখের ছবি, অর্থাৎ পোর্ট্রেইটটি তোলা হয় ১৮৩৯ সালে। ছবির ব্যক্তিটির নাম রবার্ট কর্নেলিয়াস। -



প্রথম তোলা ছবিগুলো দেখলাম ,কিন্তু প্রথম রেকর্ড করা শব্দ? আজ পর্যন্ত পাওয়া সবচেয়ে পুরনো সাউন্ড রেকর্ডিংটি করেছিলেন এডওয়ার্ড লিওন স্কট ডি মার্টিনভিল নামের এক ফরাসী তার আবিষ্কৃত 'ফোনাটোগ্রাম' নামের একটি যন্ত্র দিয়ে। তবে এটি কিসের আওয়াজ বলা মুশকিল। ডাউনলোড লিংক (mp3): ক্লিক করুন

প্রথম রেকর্ড করা মনুষ্য কণ্ঠ ছিল একটি ফরাসী গান। এটিও করেছিলেন এডওয়ার্ড লিওন স্কট। গানটির নাম Au Clair de la Lune. সম্ভবত তাঁর নিজের গলায় গাওয়া। তবে আসলে কার গলা এখন আর বোঝার কোন উপায় নেই। শুনলেই বুঝবেন কেন। ডাউনলোড লিংক (mp3): ক্লিক করুন

অনেক তো হল এমন বিষয়ের কথা যা ঘটে গেছে বা হয়ে গেছে। শেষ করি এমন কিছু দিয়ে যা এখনও হয়নি। :)

হিলারি-তেনজিং আর আমাদের মুসা, মুহিত, নিশাত আর ওয়াসফিয়াদের বিজয় নিশান এভারেস্টে উড়েছে... উড়েছে আরো হাজারো হাজারো পর্বত আরোহীর নিশান শত শত পর্বতে। কিন্তু ব্যতিক্রম গাংখার পুয়েনসাম।



২৪,৮৩৬ ফিট ‍বা ৭,৫৭০ মিটার উঁচু ভুটানের গাংখার পুয়েনসাম পর্বতের শিখরে আজ অব্দি কোন মানুষ পা রাখেনি। ধর্মীয় কিছু বিশ্বাস ও মর্য‍াদা রক্ষায় ১৯৯৩ সাল থেকে ভুটানে ৬ হাজার মিটারের ওপরে পর্বত আরোহণ নিষিদ্ধ করে সে দেশের সরকার। ২০০৪ থেকে নিষিদ্ধ করে দেয়া যে কোন ধরণের পর্বত আরোহণ। আর তাই আজো মানুষের পদচিহ্ন এঁকে দেবার অপেক্ষায় গাংখার পুয়েনসাম।

সূত্র: ইউটিউব, উইকিপিডিয়া, গুগল সার্চ‌ ও ব্যক্তিগত জ্ঞান।

পরের পর্ব: পর্ব ২: একাকীত্ব
সর্বশেষ এডিট : ০৮ ই সেপ্টেম্বর, ২০১২ রাত ১:৪৮
৪৪টি মন্তব্য ৪৩টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

কানাডার স্কুলে একেকটি দিন (পর্ব ৫) - ঈদ মোবারক সবাইকে! কিছু পাঠকের প্রশ্নের উত্তরে আজকের পর্ব : কেমন কাটে প্রবাসে ঈদ?

লিখেছেন সামু পাগলা০০৭, ২৪ শে জুন, ২০১৭ সকাল ৮:৪১

পোস্টের শুরুতে সকল ব্লগারকে ঈদের অগ্রীম শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। দোয়া করছি, আপনাদের সকলের ঈদ আপনজনদের সাথে নিরাপদে, নির্বিঘ্নে, আনন্দে কাটুক।

আগের পর্বগুলো:
আগের সিরিজ: কানাডার স্কুলে একদিন (এক থেকে বাইশ): [link|http://www.somewhereinblog.net/blog/samupagla007/30173473|পর্ব... ...বাকিটুকু পড়ুন

অভিমানী বুবু...... যেয়ো না চলে

লিখেছেন কাজী ফাতেমা ছবি, ২৪ শে জুন, ২০১৭ দুপুর ২:৩২



বুবু আমার অভিমানী-মুছে দিলো সুখের ছন্দ
আচম্বিতে মনে লাগল-জানি নাকো কিসের দ্বন্দ্ব।
কত কথা লিখা ছিলো- সামু ব্লগের পাতায় পাতায়
পাতাগুলো শূন্য দেখে-মন’টা কষ্টে বড্ড ছাতায়।
গল্প স্বল্প আড্ডাবাজি-কাব্য ছড়া ইসলাম কথন
ছিলো সবই... ...বাকিটুকু পড়ুন

রোমান্টিক, বেরোমান্টিক

লিখেছেন মাহফুজ, ২৪ শে জুন, ২০১৭ বিকাল ৪:১০

-এই চলো বৃষ্টিতে ভিজি।
-আমার এসব বৃষ্টি ফিষ্টি ভাল্লাগেনা।
-ধুর তুমি যে কি না!
-আমি কি?
-রোমান্স নাই একটুও, বেরোমান্টিক।
-বৃষ্টিতে ভিজা না ভিজাতেই বুঝি রোমান্স নির্ভর করে?
-করেতো।
-তাহলে আমার আসলেই রোমান্স নাই,... ...বাকিটুকু পড়ুন

সামু ব্লগারগণ কোথায়?কারো কাছ থেকে ঈদের দাওয়াত পাইলাম না /#) (হতাশায় হতাশিত হইয়া পোষ্ট)

লিখেছেন দ্যা ফয়েজ ভাই, ২৪ শে জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫২


আজ ২৮রোজা।এবার ২৯ রোজার শেষেই ঈদ হতে পারে।তার :-B মানে কাল বাদে পরশুই ঈদ হবার সম্ভাবনা।আমি তো সেই কবে থেকে প্ল্যান করে রাখলাম,কখন কোন ব্লগারের বাসায় গিয়ে পেট পুরে... ...বাকিটুকু পড়ুন

মিসকলের গ্যাঁড়াকলে...

লিখেছেন নাদিম আহসান তুহিন, ২৪ শে জুন, ২০১৭ রাত ১০:৪৮

চাঁদপুরের একটা মেয়ে আমারে খুব ডিস্টার্ব করতেছে। এই মেয়ের হাত থেকে বাঁচার একটা উপায় বলেন তো আমারে। আমারে এর কবল থেকে রক্ষা করেন।
::
ঘটনাটা তাহলে খুলেই বলিঃ
::
বেশ কিছুদিন আগে (প্রায় দু'তিন... ...বাকিটুকু পড়ুন

×