somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

বিসিবির তামিম নাটক , ক্রিকেটের এক কলংকজনক অধ্যায়

০৯ ই মার্চ, ২০১২ রাত ৯:১৯
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

অনেক নাটকের পর অবশেষে দলে ফিরলেন তামিম ইকবাল । তবে তার আগে নাটক যা হওয়ার হয়ে গেছে । নাটক না বলে বাংলাদেশ ক্রিকেটের এক কলংকও বলা যায় । কারণ তামিমকে বাদ দেয়া না দেয়ার জের ধরে পদত্যাগ করে বসেন প্রধান নির্বাচক আকরাম খান । ক্রিকেটের ইতিহাসেই দল নির্বাচনে হস্তক্ষেপের ঘটনায় নির্বাচক পদত্যাগের ঘটনা এই প্রথম । সেই হিসেবে এটি অবশ্যই বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য লজ্জাজনক একটি অধ্যায় । আকরাম খান চোখে আঙুল দিয়ে দিলেন বিসিবিতে ক্রিকেটীয় যুক্তি নয় চলে রাজনৈতিক আমলাতান্ত্রিক ক্ষমতা ।



কপালের ভাজ সরিয়ে জ্বলে উঠতে হবে তামিমকে

অনেকেই হয়ত বলতে পারে নিজের ভাতিজাকে বাদ দেয়ার কারণেই হয়ত আকরাম খানের পদত্যাগ । কিন্তু আসল ঘটনা হল নির্বাচকদের স্বাধীনভাবে কাজ করতে না দেয়া , এবং তাদের নির্বাচিত দলে অযাচিতভাবে হস্তক্ষেপই এই পদত্যাগের কারণ । বলা যায় এটি অনেকদিনের পুঞ্জিভূত ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ । নির্বাচকদের নির্বাচন করা দলে কাঁচি চালানো এই প্রথম নয় । জেমি সিডন্সের সময় তিনি রকিবুলকে দলে চাইলেও অনেক সময় বোর্ড থেকেই রকিবুলকে বাদ দেয়া হয়েছিল ।

বিশ্বকাপের সময় গঠন করা হয়েছিল টেকনিক্যাল কমিটি । এই কমিটির কাজ ছিল নির্বাচকদের দেয়া দলে কাঁটছাট করে নিজেদের পছন্দের খেলোয়াড়কে ঢুকানো । যে কারণে মোহাম্মদ আশরাফুল গত বিশ্বকাপের দলের সেরা পারফর্মার হয়েও এবার বিশ্বকাপে ঘরের মাঠেই কয়েকটা ম্যাচে দর্শক ছিলেন । বিশ্বের কোন দেশের ক্রিকেট বোর্ডে এমন টেকনিক্যাল কমিটির খোজ পাওয়া যাবে না যারা নির্বাচকদের কাজে হস্তক্ষেপ করা জন্য গঠিত হয়েছে ।

আবার শোনা যাচ্ছে যে বোর্ডের কার্যনির্বাহী সদস্যদের মধ্যে কোন ক্রিকেটার রাখা হবে না । এর মানে হল বোর্ড পুরোপুরি চলে যাবে রাজনৈতিক নেতাদের হাতে , কিছু অক্রিকেটীয় মস্তিষ্কের হাতে । এসব অক্রিকেটীয় মস্তিষ্ক দেশের ক্রিকেটকে কোথায় নিয়ে যাবে তা একটি শিশুরও খুব ভাল করেই জানা আছে । এই কারণেই বোর্ডের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধ্যে ব্যবস্থা নিতে সাবেক ক্রিকেটাররা আদালতে যাবার হুমকি দিয়ে রেখেছে ।

বোর্ড সভাপতির নাতীর অপছন্দ বলে আশরাফুলকে দলে নিতে না করে দেয়া হয়েছে । কি ভয়ংকর কথা । বাংলাদেশের ক্রিকেট কি তাহলে বোর্ড সভাপতির পরিবারের মনোরঞ্জনের জন্য নাকি । বোর্ড থেকে সুনির্দিষ্ট কোন দিক নির্দেশনা পাচ্ছেন না শাহরিয়ার নাফিস , অলক কাপালীর মত সিনিয়র ক্রিকেটার । জিম্বাবুয়ে সফরের ব্যার্থতার বলি হতে স্বরুপ অধিনায়কত্ব বিসর্জন দিতে হয়েছে সাকিবকে , শুধুমাত্র বোর্ড সভাপতির ইচ্ছায় । সাকিবের ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে এমনও শোনা গিয়েছিল যে সভাপতি সাকিবকে দলে নিষিদ্ধ করেছিলেন । পরে সাকিব নাকি কামালের পা ধরে ক্ষমা চেয়ে পার পেয়ে গেছে ।

নির্বাচকদের কাজে হস্তক্ষেপ এই প্রথম নয় । বলা চলে শুরু থেকেই এটি বাংলাদেশ ক্রিকেটের ছিল । বোর্ড কর্মকর্তাদের এমন কর্মকান্ডের ফলেই অকালে ঝরে গেছে আমিনুল ইসলাম বুলবুল , দূর্জয় , হান্নান সরকারের মত ক্রিকেটাররা । বোর্ড কর্মকর্তাদের জন্য একগুয়েমীর জন্য মোহাম্মদ রফিকের গায়ে লেগে গিয়েছিল ওয়ানডে স্পেশালিস্টের লেবেল । সিনিয়র ক্রিকেটারদের প্রতি বোর্ড কর্মকর্তাদের এমন একগুয়েমীর কারণেই দেশের ক্রিকেট দশ বছর আগেও যেখানে ছিল এখনও সেখানেই আছে । শুরুর মতই দলটা এখনও তরুণদেরই রয়ে গেছে । দলে নেই তারুণ্যের সাথে অভিজ্ঞতার মিশেল । যে কারণের ক্রিকেটে ধারাবাহিক সাফল্য আসছে না । এদেশে সিনিয়র হলেই বিদায়ের ঘন্টি বাজিয়ে দেয়ার ব্যাবস্থা করা হয় ।

বিতর্কের আর কোন অবকাশই নেই যে এতসব কিছুর মূলে রয়েছেন বোর্ড সভাপতি মোস্তফা কামাল এমপি । তিনিই আসল নাটের গুরু । বিসিবিতে একছত্র ক্ষমতার অপব্যাবহার করছেন তিনি । একজন বোর্ড সভাপতি একটি দেশের ক্রিকেটের অধিনায়ক । আর সেই অধিনায়ক যখন বিতর্কিত হয়ে পড়েন তখন দেশের ক্রিকেট হয়ে পড়ে অভিভাবক শূন্য , নেমে আসে অশনিসংকেত । আর যখন বোর্ড সভাপতি স্বৈরতন্ত্রিক ব্যাবস্থা প্রচলন করেন তখন বিদ্রোহ আর প্রতিবাদ অবশ্যম্ভাবী হয়ে পরে । আকরাম খানের পদত্যাগ সেই প্রতিবাদেরই বহিঃপ্রকাশ

দেশের ক্রিকেট এখন একজন দক্ষ মাঝি এবং হাল ছাড়া নৌকার মত , যার গন্তব্য অনির্দিষ্ট । আর দুই দিন পরই এশিয়া কাপ । দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে এমন ঘটনা অবশ্যই প্রভাব ফেলবে । এসব ঘটনার পর দলের কাছে সাফল্য প্রত্যাশা অনেক বেশিই হয়ে যায় । দলে ফিরলেও এই ঘটনা তামিমের উপর চাপ হয়ে দেখা দেবে । ব্যাহত করবে তামিমের স্বাভাবিক খেলা । তামিম কি পারবেন সকল চাপ আর বিতর্কের ঊর্ধ্বে উঠে নিজেকে নতুন করে চেনাতে । অপেক্ষা করা ছাড়া উপায় নেই । মাত্রই তো দুটো দিন

শেষ খবরঃ তামিম মুচলেকা দিয়ে দলে ঢুকেছেন । প্রধানমন্ত্রীর অনুরোধে আকরাম খান সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করবেন বলে জানিয়েছেন

লেখাটি একই সাথে স্পোর্টসব্লগ বিডিস্পোর্টসনিউজব্লগ এবং আমার ব্যাক্তিগত ব্লগস্পটে প্রকাশিত

সর্বশেষ এডিট : ০৯ ই মার্চ, ২০১২ রাত ৯:৫৯
২৩টি মন্তব্য ২১টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

সুপ্রিয় কবি নীলপরির "মহিয়সী" কবিতার অনুভবে

লিখেছেন ভ্রমরের ডানা, ১৯ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১০:৪৭




ভ্রমরের ডানা

আর তাকেও বলা যায় নক্ষত্র বলাকা পাখা~
হিম হিম বাতাস যার ভালবাসা মধু মাখা..
যে ছুঁয়ে গেছে রহস্যাবৃত উষ্ণসাগর ঘেঁষে
মিহিদানা মিহি প্রেম বালুকা বেলার দেশে...
উত্তর থেকে দক্ষিণ বলয় কোলে..
প্রকাণ্ড সুনামি... ...বাকিটুকু পড়ুন

একরাত থাকা যাক সুইডেনের আরলান্ডা বিমানবন্দরে, হোটেল যখন বিশালাকার বোয়িং ৭৪৭-২০০ জাম্বো জেট

লিখেছেন মাহবুবুল আজাদ, ১৯ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১১:২৬




সুইডেনের আরলান্ডা বিমানবন্দর, অন্যরকম একটা অভিজ্ঞতা হতে পারে যে কারো জন্য। এখানে একরাত কাটাতে পারেন ইচ্ছে করলে বিশালাকার বোয়িং ৭৪৭-২০০ বিমানের মধ্যে, আকাশে উড়তে হবেনা্‌ মাটিতেই থাকবে। এটা বিমানবন্দরের... ...বাকিটুকু পড়ুন

অস্তিত্ব

লিখেছেন জাহিদ অনিক, ১৯ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১১:৩৯

সন্ধ্যার বেশ কিছু সময় পরের কথা, সারা দিনের খাটাখাটনির পরে বাসে করে বাসায় ফিরছি। সকাল ৭ টায় বের হয়ে বাসায় ফিরছি প্রায় রাত ১০ টার কিছু পরে।

মাঝখানে তিনবার হালকা থেকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

একটি ক্ষুদ্র সাফল্যঃ

লিখেছেন খায়রুল আহসান, ২০ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ৮:১৪

আমাদের মধ্যে হয়তো এমন অনেকেই আছেন, যারা মাঝে মধ্যে একটু আধটু কিংবা নিয়মিতভাবেই ইংরেজীতেও লেখালেখি করে থাকেন। ইংরেজীতে মাঝে মধ্যে দু’চারটে কবিতাও লিখেছেন, স্রেফ মনের ইচ্ছের কারণেই, এমনও হয়তো... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্রকৃতার্থ...

লিখেছেন কথাকথিকেথিকথন, ২০ শে অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৪:৩৭


আমি কী হারিয়ে যাচ্ছি ? দিনের পর দিন বাড়ছে দেহ ভস্মের ঘ্রাণ। বৃষ্টির জলে আঁকাবাঁকা পথে ভেসে যায় সদ্য ঝরে পড়া ফুল। আমি তার পথ ধরে মিশে যাই জলস্রোতে... ...বাকিটুকু পড়ুন

×