somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

ছবি ব্লগ । আর স্মৃতির এক ফোল্ডারে প্রিয় মনু রেল স্টেশন

০১ লা মার্চ, ২০১৭ সকাল ১১:৩৩
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



শীত শেষের ফুলেল গপ্পো ।









ভ্যালেন্টাইনের ফুল নয়, তাতে কি সৌন্দর্যে একটুও কম নয় ।









“চোখে সর্ষে ফুল” দেখে খারাপ তো লাগেনি । বরং মনটাই ভরে গেছে ।







গতি দানব ।
আগমন ......



দানবীয় রূপ......



প্রস্থান......



ট্রেন দেখলেই । আমার বেশি মনে পড়ে বিভিন্ন সময়ে আমার ট্রেন মিস করার । আর সেটা মনে হলেই একটা গান ও খুব মনে পড়ে স্করপিওন্সের ।

“Don't be lazy man and work off your ass.
He's the boss you've gotta do what he says!
Catch your train, run and forget those ways.
Keep it cool it's not too late! ”

সান্ত্বনাঃ আমার মত ট্রেন মিস করা অলস আছে বিশ্বজুড়ে বর্তমান।

জেলে >>> মাছ (ধাপে ধাপে)









এই স্টেশনটা দেশের সবচেয়ে অবহেলিত স্টেশনগুলোর একটা ।



শৈশব, কৈশোরে আমার নানা বাড়ি মানেই এই মনু স্টেশন । তখন রাস্তাঘাট তেমন ভালো ছিলোনা তাই এই অঞ্চলের একমাত্র বাহন ট্রেন (তাও লোকাল ট্রেন) আর সেই সুত্রে এই স্টেশন । আশেপাশের দুই-তিনটি ইউনিয়ন ও চা বাগানের যাত্রীদের জন্য হাতেগোনা কয়েকটি লোকাল ট্রেন এখানে থামত, মিক্স ট্রেন, কুশিয়ারা, জালালাবাদ ......। এই স্টেশন এতই অবহেলিত যে আমার মনে হয় যার কারনে এর স্টেশন মাস্টার কখনো বদলী হননি । আমি সেই থেকে একজনই স্টেশন মাস্টার দেখে আসছি । খোশ মেজাজি, বিনয়ী ও ভালো মানুষ ।



জায়গা, অবস্থানগত কারনে কোন ধরনের সিগন্যালের বেবস্থা নেই । তাই ক্রসিং হয়না(নিয়মিত রেল যাত্রীরা এই বরিক্তিকর শব্দের সাথে পরিচিত থাকবেন)। কোন ধরনের ফোন নেই তাই অন্য স্টেশনের সাথে কোন যোগাযোগ ছিলোনা তাই কখনই যাত্রীরা জানতে পারতেন না যে ট্রেনটি দেরী করছে সেটি আর কতক্ষণে এসে পৌঁছাবে। এ যেন দীর্ঘ বিরক্তিকর প্রতীক্ষা ।

ছেলেবেলার লাল স্টেশনগুলো এখন আর নেই প্রায় । নতুন ডিজাইনে সংস্কার হচ্ছে সব স্টেশন । এই স্টেশনটি এখনো লাল । নস্টালজিক “লাল স্টেশন”





এই অবহেলিত স্টেশনটি ব্রিটিশ আমলে এতটা অবহেলিত ছিলোনা । বরং এর বাণিজ্যিক গুরুত্ব ছিল । পাশের স্টোর হাউজটি আজো তারই সাক্ষী দিচ্ছে । পাশের মনু নদী হয়ে ভারত থেকে আসতো পন্য সামগ্রী, মনু স্টেশন হয়ে ছড়িয়ে যেত দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। দেশ ভাগের পর আস্তে আস্তে হারিয়ে যায় এর গুরুত্ব। মাঝে মাঝেই গুজব কানে আসত এই বুঝি বন্ধ হয় বলে স্টেশনটি।





সাম্প্রতি আবার মনু স্টেশন তার অস্তিত্বের জানান দিয়ে ছিল । মনু নদীর (নদীর পাড়েই স্টেশন) উপরে যে সেতু তাতে বাঁশ দিয়ে আমাদের ইঞ্জিনিয়াররা জোড়া তালি দিয়ে ছিলেন । তাতেই মিডিয়ায় তোলপাড় আবার আলচনায় মনু স্টেশন।



বুঝলাম না পরে বাঁশের অংশটি তুলে দিয়ে কাঠ দিয়ে মেরামত করাতে কি এমন মহাভারত শুদ্ধ হয়ে গেল । ছবি দেখে এর কিছুটা বুঝতে পারবেন।



শত অবহেলায় ক্ষয়ে ক্ষয়ে চলা অখ্যাত এ স্টেশনটি আমার স্মৃতির পুরোটা জুড়েই থাকবে । আমি বলতে শিখিনি রেলগাড়ি কিংবা ট্রেন, শিখেছি লম্বা গাড়ি। বাবা চাকুরি করতেন ফেঞ্চুগঞ্জে ৭ টি স্টেশন পরেই কাঙ্ক্ষিত মনু স্টেশন । মাইজগাও, ছকাপন, লংলা, টিলাগাও, কুলাউড়া স্টেশনগুলো কিভাবে ভুলা যায় !!! এই স্টেশনে নেমেই শিহরিত হতাম - এসেগেছি নানা বাড়ি, আমার স্বর্গ । যেখানে আজো বার বার যেতে চাই । ফেরার পথে সকাল সাড়ে আট টায় কুশিয়ারা ট্রেন । স্টেশন মাস্টারের হাসি । কটাকট টিকেটে সিল মারা । ট্রেনের আসা, খুব অল্প সময় থেমেই যাত্রীদের কোলাহলের মধ্যে বিকট এক হর্ন বাজিয়ে আবার ছুটে চলা। নানা বাড়িছেড়ে যাওয়ার কষ্টটা (যেটা কণ্ঠ পর্যন্ত এসে অস্বস্তি দিতে থাকে) ঝিক ঝিক শব্দের সাথে সাথে সেটা মিলিয়ে যায় । এই স্টেশনটি ও হয়ত কখনো সংস্কার হবে নয়তো বাতিল । তাতে গুরুত্বপূর্ণ কাজের কাজ কিছুই হবেনা । তাই এটি নস্টালজিক লাল রঙে পুরনো স্টেশনের সাক্ষী হয়েই থাক । আমি অন্তত তা ই চাই।

আমার হাসি কান্নার শৈশবের লাল রঙের মনু স্টেশন।






ফক্রেঃ Aklis Ahmed and Meah Md. Sharif

সর্বশেষ এডিট : ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৪২
৩৩টি মন্তব্য ৩৩টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

অবৈধ উপার্জনের সুযোগ ও উৎস বন্ধ করুন - মদ, জুয়া, পতিতাবৃত্তি এমনিতেই কমে যাবে ।

লিখেছেন স্বামী বিশুদ্ধানন্দ, ২২ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সকাল ৭:২৯

দুর্নীতিই বাংলাদেশের প্রধান সমস্যা | আমরা যেমন অক্সিজেনের মধ্যে বসবাস করি বলে এর অস্তিত্ব অনুভব করতে পারি না, আমাদের গোটা জাতি এই চরম দুর্নীতির মধ্যে আকণ্ঠ নিমজ্জিত রয়েছে বিধায়... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্রভাতী প্রার্থনা

লিখেছেন ইসিয়াক, ২২ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১:৫৫


প্রভাত বেলার নব রবি কিরণে ঘুচুক আঁধারের যত পাপ ও কালো ,
অনাচার পঙ্কিলতা দূর হোক সব ,ভালোত্ব যত ছড়াক আলো ।

আঁধার রাতের... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমাদের কাশ্মীর ভ্রমণ- ১৫: যবনিকা পর্ব

লিখেছেন খায়রুল আহসান, ২২ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:৪১

এর আগের পর্বটিঃ আমাদের কাশ্মীর ভ্রমণ- ১৪: বেলা শেষের গান


শ্রীনগর বিমান বন্দর টার্মিনালের মেঝেতে বিচরণরত একটি শালিক পাখি

টার্মিনাল ভবনের প্রবেশ ফটকে এসে দেখলাম, তখনো সময় হয়নি বলে নিরাপত্তা প্রহরীরা... ...বাকিটুকু পড়ুন

আত্মপক্ষ সমর্থন

লিখেছেন স্বপ্নবাজ সৌরভ, ২২ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:৫৯



আর কিছুদিন পর সামুতে আমার রেজিস্ট্রেশনের ৮ বছর পূর্ণ হবে।রেজিস্ট্রেশনের আগে সামুতে আমার বিচরণ ছিল। এই পোস্ট সেই পোস্ট দেখে বেড়াতাম। মন্তব্য গুলো মনোযোগ সহকারে পড়তাম।... ...বাকিটুকু পড়ুন

কালোটাকা দেশে বিপুল পরিমাণে বেকারত্বের সৃষ্টি করছে

লিখেছেন চাঁদগাজী, ২২ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:০৫



কালোটাকা হলো, দেশের উৎপাদনমুখী সেক্টর ও বাজার থেকে সরানো মুদ্রা; কালোটাকা অসৎ মালিকের হাতে পড়ে স্হবির কোন সেক্টরে প্রবেশ করে, কিংবা ক্যাশ হিসেবে সিন্ধুকে আটকা পড়ে, অথবা... ...বাকিটুকু পড়ুন

×