somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

কিসে পুরুষের উপকারঃ বিবাহে না ব্যাভিচারে?

১৩ ই মে, ২০১১ দুপুর ১২:০১
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

লেখক মাই নেম ইজ খান "বিবাহ না ব্যভিচার : কিসে নারীর উপকার?" রচনাটিতে বলতে চেয়েছেন "ইসলামি বিবাহে" নারীর উপকার। এবার প্রশ্ন করা যাকঃ "বিবাহ না ব্যভিচার : কিসে পুরুষের উপকার?" জানিনা লেখকের উত্তর কি হবে এ প্রশ্নের। তবে ইস্লামি তত্ত্বে উত্তর হবেঃ 'উভয়েই - বিবাহে ও ব্যভিচারে'।

কোন বিবাহিত ব্যক্তির তার স্ত্রী বা স্বামী বিনা অন্য কারো সাথে যৌন মিলনকে ব্যভিচার (adultery) গণ্য করা হয়। ইসলাম কোন নারীর দ্বিতীয় পুরুষের সাথে যৌন মিলনের খায়েসকে ঠিকই বন্ধ করেছে ব্যভিচারকে মৃত্যুদণ্ডের যোগ্য অপরাধ রায় দিয়ে।

কিন্তু পুরুষের ক্ষেত্রে ভিন্ন ব্যাপার। পুরুষ তো আল্লাহর অনেক কাছাকাছি; কম করে হলে পুরুষ ও আল্লাহ একই লিংগধারী। কাজেই পুরুষকে তো আর নারীর সাথে একই মাপে মাপতে পারেন না আল্লাহ্‌। মৃত্যুদণ্ড দিয়ে নারীর ব্যাভিচারে লিপ্ত হওয়ার আকাংখাকে বন্ধ করেছেন আল্লাহ্‌, কিন্তু সম-লিংগের পুরুষের ব্যভিচারে লিপ্ত হওয়ার আকাংখাকে তো বাস্তবায়ন না করে পারেন না তিনি। কিন্তু কিভাবে করবেন সেটা। সমস্যার সমাধান সহজ আল্লাহ্‌ কাছে। পুরুষের জন্য ব্যাভিচারকে "বৈধ" করে দিলেই হলো। কাজেই ইসলামে পুরুষের রয়েছে তিনটি অতিরিক্ত নারীর সাথে ব্যাভিচারের "বৈধ" অধিকার (কোরান ৪.৩): "If ye fear that ye shall not be able to deal justly with the orphans, Marry women of your choice, Two or three or four; but if ye fear that ye shall not be able to deal justly (with them), then only one, or (a captive) that your right hands possess, that will be more suitable, to prevent you from doing injustice."

এখানেই শেষ নয়ঃ আল্লাহ্‌ মুসলিম পুরুষের ব্যাভিচারে লিপ্ত হওয়ার খায়েসকে চার নারীর মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখেন নি। আল্লাহ্‌ আমাদের মহানবীকে -- যার ব্যাভিচারে লিপ্ত হওয়ার খায়েস ছিল সাধারণ মানুষের তুলনায় লাগামহীন মাত্রায় বেশি -- অবারিত করে দেন একই সঙ্গে লাগামহীন ব্যাভিচারে লিপ্ত হওয়ার সু্যোগ দিয়ে। সুতরাং আল্লাহ্‌ বলেন (Qur'an 33:50) - "O Prophet! surely We have made lawful to you your wives whom you have given their dowries, and those whom your right hand possesses out of those whom Allah has given to you as prisoners of war, and the daughters of your paternal uncles and the daughters of your paternal aunts, and the daughters of your maternal uncles and the daughters of your maternal aunts who fled with you; and a believing woman if she gave herself to the Prophet, if the Prophet desired to marry her-- specially for you, not for the (rest of) believers; We know what We have ordained for them concerning their wives and those whom their right hands possess in order that no blame may attach to you;"।

এ আয়াতটির মাধ্যমে আল্লাহ্‌ আমাদের মহানবীকে যে কোন সংখ্যক নারীকে বিয়ের অনুমোদন দেন। এবং সর্বশ্রেষ্ঠ নবী তার সদ্ব্যবহারও করেন জীবনে ২২-২৩ খানা বিয়ে করে। বিদায় হজ্জ্বের সময় মহানবীর সংগী ছিলেন তার ৯ জন স্ত্রী।

মনে হয় আল্লাহ্‌ বুঝতে পেরেছিলেন নবির মত অসংখ্য নারীর সাথে যৌনকর্মে লিপ্ত হওয়ার বাসনা সাধারণ মুসলিম পুরুষের মাঝেও রয়েছে। কাজেই তিনি তাদেরকেও চারের অধিক নারীর সাথে সংগমের সু্যোগ করেছেন পুরুষকে যখন-ইচ্ছা-তখন স্ত্রীকে তালাক দেওয়ার অধিকার দান করে। সুতরাং আল্লাহ্‌ বলেন (কোরান ৩৩.৫১): "You may put off whom you please of them, and you may take to you whom you please, and whom you desire of those whom you had separated provisionally; no blame attaches to you; this is most proper, so that their eyes may be cool and they may not grieve, and that they should be pleased."

অন্যান্যদের মধ্যে মহানবীর বড় নাতি হাসানকে দেখা যায় আল্লাহ্‌র এ বাণীর সদ্ব্যবহার করতে। তিনি তালাক দিতেন আর বিয়ে করতেন। এভাবে তিনি ১০০টি বিয়ে করেছিলেন, তবে এক সংগে চারটির বেশী নয়। কিন্তু পরম করুনাময় আল্লাহ্‌ সাধারণ মুসলিম পুরুষের উপর এক সংগে চারটি নারীর সাথে ব্যাভিচারের অধিকার সীমিত করে স্বস্তি বোধ করেন নি বলে মনে হয়। নবীর মতো সব পুরুষকে লাগামহীন সুযোগ দেওয়াটাই পরম স্রষ্টার মত সুবিচার নয় কি? আর সুবিচার না করে কি আল্লাহ্‌ পারেন? সুতরাং সব মুসলিম পুরুষকে আল্লাহ্‌ তাদের করায়ত্তাধীন নারী দাসী/ ক্রীতদাসীদের সাথে যৌন-সম্ভোগের অধিকার বৈধ করে আয়াত নাজিল করেন (কোরান ৪.৩, ৪.২৪)। যুদ্ধ করে ক্রীতদাসী করায়ত্ত করাকেও উৎসাহিত করেন আল্লাহ্‌ কোরানের ৩৩.৫১ আয়াতে।

যৌন আচরনে আল্লাহ্‌ ইস্লামে পুরুষের জন্য যে অঢেল সুযোগ-সুবিধার যোগান দিয়েছেন আর মেয়েদের ক্ষেত্রে করেছেন তার উলটো -- সেটা বুঝলে যে কোন নারী আফসোচ করতে বাধ্য যেঃ আল্লাহ্‌ তাকে পুরুষ করে জন্ম দিলেন না কেন?

লেখকের আলোচ্য এ রচনাটি পশ্চিমা সমাজে যৌনাচার, প্রধানত ব্যাভিচারকে ধীক্কার দেওয়ার একটা প্রয়াস মাত্র, কেননা সেখানে ব্যাভিচারকে শায়েস্তা করা হয় না। আসলে প্রকৃত ইসলামেও ব্যাভিচারের ছড়াছড়ি, তবে বৈধতার লেবাসে; এবং লজ্জাহীনভাবে সে ব্যাভিচারের অধিকার রয়েছে কেবল পুরুষের, নারীর জন্য সেটা মৃত্যুদণ্ডমূলক অপরাধ এবং সে মৃত্যু কার্যকর হবে পাথর ছুড়ে হত্যার মত বর্বর পন্থায়। যৌনাচারের এরূপ নিয়ম সভ্য মানুষ ও সমাজ চরম বর্বরতা হিসেবে গণ্য করে।

পশ্চিমা সমাজের সাথে ইসলামি সমাজের যৌনাচারের পার্থক্য হলোঃ পশ্চিমা সমাজ নারী-পুরুষ উভকেই ব্যাভিচারে লিপ্ত হওয়ার সমান অধিকার দিয়েছে। সেটা ভাল কি মন্দ যাই হোক, বর্বরতামূলক ইসলামি যৌনাচারের রীতি তারা গ্রহণ করবে বলে মনে হয় না।

পরিশেষে লেখক মাই নেম ইজ খানকে অনুরোধ করব এটা ভেবে দেখতেঃ ইসলামে যৌন আচরনে পুরুষের অধিকার নারীকে আর নারীর অধিকার পুরুষকে দিলে (যেমন নারী চার থেকে বহু পুরুষকে বিয়ে করবে ও সেই সাথে অসংখ্য পুরুষ ক্রীতদাসকে যৌন সম্ভোগ হিসেবে ব্যবহার, পুরুষ সে সুযোক পাবে নয়া) কেমন হবে? তখন কি তিনি "বিবাহ না ব্যভিচার : কিসে পুরুষের উপকার?" শিরোনামে একটি অনুরূপ রচনা লিখবেন যৌন আচরনে নারীর অবারিত সু্যোগকে মহিমান্বিত করে?
৩৪টি মন্তব্য ১৪টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

তুমিও কি শুনতে পাও?

লিখেছেন শাহরিয়ার কবীর, ১৭ ই জানুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:২১


পরম নারী মূর্তির
অগ্নি-পরীক্ষার আরেক পরীক্ষার প্রতিচ্ছবি
মায়াবীনী তোমার মধ্যে কি এমন পবিত্র মায়া
তা হয়তো আমি জানি না !
কিন্তুু কি যেন এক সুর বাজে
দিশেহারা এ হৃদয়ের মাঝে।
তুমিও কি... ...বাকিটুকু পড়ুন

এক চিলতে আকাশ

লিখেছেন সেলিম আনোয়ার, ১৭ ই জানুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩৬


পারবে না কেউ—কেড়ে নিতে তোমায়
এ মায়াবী বাঁধন ছিঁড়ে,
ওগো মায়াবতী!
হৃদয়ের গহীনে থেকে—শব্দ এনে
বেঁধেছি তোমায় কবিতার ফ্রেমে
অক্ষত অবিকৃত
চিরন্তন শাশ্বত বন্ধন সে!

চাইলেই পারবে কি?
... ...বাকিটুকু পড়ুন

বাইতুল্লাহর মুসাফির (পর্ব-৮)

লিখেছেন নতুন নকিব, ১৭ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:৩১



কালো পাথরের মায়ার টানে
হজরে আসওয়াদ। কালো পাথর। পবিত্র বাইতুল্লাহর পূর্ব কোনে বসানো জান্নাতি পাথরখন্ড। এই পাথরের প্রতি মানুষের হৃদয়ের ভালবাসা। প্রানপন কসরত এ্ই পাথর ছুঁয়ে দেখার। চুমু খাওয়ার পবিত্র... ...বাকিটুকু পড়ুন

আশঙ্কা

লিখেছেন জাহিদ অনিক, ১৮ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৩:১৫

ভয় হয় বুঝি মেঘ কেটে যায়
এই বুঝি টুপ করে চলে আসে ভালোবাসা
সুখের দমকা হাওয়া এই বুঝি খেলে যায় পালে
অথৈ সাগরে অসুখের ডিঙা যায় এই ডুবে;
ভয় হয় সুখের... ...বাকিটুকু পড়ুন

বুঝলাম না দেশে এত মানুষ থাকতেে শামীম ওসমান আপনাকে বেছে নিল কেন ?

লিখেছেন :):):)(:(:(:হাসু মামা, ১৮ ই জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৮:৫৭


না না মনের ভিতর এরকম একটা প্রশ্ন জাগাই সম্ভব।আর সেটা শুধু আমারই না বরং আরো সচেতন অনেকে মানুষেরি কাছে
প্রশ্ন জাগতে পারে বা জাগাতাই স্বাভাবিক।দেশে আরো কত গণ্যমাণ্য... ...বাকিটুকু পড়ুন

×