somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

দাবা - খেয়াল রাখার শিক্ষা

০৮ ই আগস্ট, ২০১০ সন্ধ্যা ৭:৫১
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


দাবা খেলা আগে শেখা ভালো। এটা অনেকটা ভাষা শেখার মত, যত আগে হাত খড়ি তত এগিয়ে যাওয়া যায়। যাদের বাবা-মা দাবা জানে, তারা অনেকেই একটা বিশেষ সুবিধা আগে পেত। অনেকে এক বছর বয়সের আগেই দাবার চালে পারদর্শী হয়ে যেত।

এখন কম্পিউটারের যুগে বাবা-মা দাবা ভালো না জানলেও শিশুকে কম্পিউটার দিয়ে প্রশিক্ষণ দিতে পারেন। যেহেতু এখনকার কম্পিউটার সফটওয়্যার মানুষের চেয়ে ভালো 'চিন্তা' করে, এবং এর ধৈর্য অসীম, শিক্ষক হিসাবে হয়তো কম্পিউটারই ভালো।

এই উপমহাদেশের প্রথম গ্র্যান্ডমাস্টার নিয়াজ মুর্শেদ অবশ্য কোন কম্পিউটারের কাছে শেখেন নি। অনেক পরে তিনি বোধ হয় জাতীয় দাবা ফেডারেশনের কাছ থেকে একটা পিসি পেয়েছিলেন। ততদিনে অবশ্য জিয়াউর রহমান, রিফাত বিন সাত্তার এরাও উদীয়মান খেলোয়াড় হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলেন।

বিশ্বনাথ আনন্দও মায়ের কাছ থেকে শিখেছেন, খুব অল্প বয়সে। তিনি আমাদের নিয়াজ ও অন্যান্যদের পিছে ফেলে অনেক গিয়ে গেছেন। প্রায় চ্যাম্পিয়ন কাস্পারস্কিকে ধরে ফেলেছিলেন। এখনো দ্রুত দাবায় তাঁর সমকক্ষ পাওয়া কঠিন।

দাবার সবচেয়ে বড় কিংবদন্তী ছিলেন ববি ফিশার। নিজে ইহুদী মায়ের সন্তান হলেও ইহুদী বিদ্বেষী ছিলেন। বিশ্ব মিডিয়া প্রথমে অল্প বয়সে খ্যাতি অর্জনকারী হিসাবে এবং রুশদের বহুদিনের দাবায় আধিপত্যের প্রতি সফল চ্যালেঞ্জ প্রদানকারী হিসাবে তাঁকে সমর্থন দিয়ে এলেও এই ইহুদী বিদ্বেষের কারণেই সম্ভবত পরে সে সমর্থন প্রত্যাহার করে, এবং ফিশার তাঁর অসামান্য প্রতিভার পূর্ণ প্রদর্শনের সু্যোগ আর পান নি।

আমি নিজে খুব খারাপ খেলি। আমার ৮০ বছরের নানীও আমাকে হারিয়ে দেয়। সব দিকে নজর রাখার ধৈর্য পাই না। হয় তো একটা চিন্তার লাইনে ছয় চাল পর্যন্ত ভাবলাম, অথচ বিপদজনক আরেক দিকে দু চালও না। আজকাল মানুষ যে মেশিনের কাছে দাবায় হেরে যায়, তার প্রধান কারণ মানুষ ব্লান্ডার, বা মারাত্মক ভুল, করে, যা মেশিন করে না। নিচে তিনটা ব্লান্ডারের মজার উদাহরণ দিলাম। এগুলোকে সংক্ষিপ্ততম দাবা খেলা বলা যেতে পারে। নোটেশন রীতি আন্তর্জাতিক অনুযায়ী। শেষ অবস্থানের (মাত) ছবি দেয়া হলো।


দু চালে মাত।



তিন চালে মাত।



ছয় চালে মাত।



১টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

ঢাকার প্রত্নতত্ত্ব, ঢাকার ইতিহাস, ঢাকার ঐতিহ্য – ভার্চুয়াল ট্র্যাভেলীং টু আরকিওলজিক্যাল সাইটস অফ ঢাকা (প্রথম পর্ব)

লিখেছেন বোকা মানুষ বলতে চায়, ২৭ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ২:১৯



আমার ঢাকা, প্রাণের ঢাকা, আমাদের ঢাকা। শতবর্ষী এই ঢাকার বুকে আজও টিকে আছে ইতিহাসের সাক্ষী হিসেবে শতবর্ষী অনেক পুরাকীর্তি যার বেশীরভাগই কিন্তু প্রত্নতাত্ত্বিক অধিদপ্তর এর তালিকাভুক্ত প্রত্নতাত্ত্বিক... ...বাকিটুকু পড়ুন

মেজর হাফিজ বলছে, জেনারেল জিয়া অবশ্যই শেখ সাহেবকে হত্যা করেনি

লিখেছেন চাঁদগাজী, ২৭ শে আগস্ট, ২০১৫ ভোর ৬:১৪

"শেখ হত্যার সকালে, আমি জেনারেল জিয়ার বাসায় গিয়ে দেখলাম, উনি শেভ করছেন; তিনি কখনো শেখ সাহেবকে হত্যা করেননি", এইটা হলো বিএনপি'র ভাইস প্রেসিডেন্ট মেজর হাফিজের উক্তি। উনি খেতাব-প্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা,... ...বাকিটুকু পড়ুন

বিদ্রোহী দুখু, তুমি জেগে উঠ

লিখেছেন দীপংকর চক্রবর্ত্তী, ২৭ শে আগস্ট, ২০১৫ সকাল ৮:১৬



=====আজ আমাদের জাতীয় কবি নজরুল ইসলামের ৩৯তম মৃত্যু বার্ষিকী। শ্রদ্ধা রইল তাঁর প্রতি। সেই সাথে আশা করছি জেগে উঠবে আবার কোনো বিদ্রোহী দুখু, যার হাতে বিনাশ হবে যত অনাচার-দুর্নীতি... ...বাকিটুকু পড়ুন

পারিবারিক রান্না-বান্না #পর্ব-১ঃ আম্মুর পিঠাপুলি (ছবিব্লগ)

লিখেছেন রহস্যময়ী তনয়া, ২৭ শে আগস্ট, ২০১৫ সকাল ১০:২৪

আমাদের পরিবারের সবার-ই মোটামোটি রান্না-বান্নার ঝোঁক আছে। আমাদের রান্না করা কিছু জিনিষ সবার সাথে শেয়ার করার ইচ্ছা ছিল। তাছাড়া পড়ালেখায় ব্যস্ত থাকায় ব্লগে অনিয়মিত হয়ে পড়ায়, ছবিব্লগ দিয়েই আবার শুরু... ...বাকিটুকু পড়ুন

”তবুও তিনি কাজী জাফর আহমেদ”

লিখেছেন মঞ্জু রানী সরকার, ২৭ শে আগস্ট, ২০১৫ সকাল ১১:৫৪

১৯৮৮ সালে ঢাকায় আসার পর প্রচন্ড বন্যার তোড়ে যখন ভেসে যেতে গিয়েছিলাম, তখন যে তৃন খন্ডটি ধরে বেঁচে গেলাম তা হলো কাজী জাফর আহমেদের পরিবার। ঐ পরিবারে আমার প্রবেশ গৃহ... ...বাকিটুকু পড়ুন

পিয়াজ-রসুন-আদা

লিখেছেন প্রামানিক, ২৭ শে আগস্ট, ২০১৫ দুপুর ১২:৩৭


শহীদুল ইসলাম প্রামানিক

চৈত্র মাসের প্রখর রোদে
বসে বটের তলায়
হিন্দু ব্রাম্মণ আছে একজন
তুলসি মালা গলায়।

দাড়ি, টুপি, আলখেল্লাতে
তিনি মুসলমান
একটু দুরে দাঁড়িয়ে আছে
মাথায় মুদির দোকান।

বটের ছায়ায় চৈতী হওয়ায়
করছে ক্লান্তি... ...বাকিটুকু পড়ুন