somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

ক্যামনে আগারগাও অফিস থেইকা নতুন পাসপোর্ট এর জন্যে আবেদন করবেন (একটা হাউ টু মার্কা পোস্ট) [পার্ট - ১]

১৭ ই জানুয়ারি, ২০১৪ রাত ৮:৪৮
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

একই বিষয় নিয়া ব্লগে/ফেইসবুকে বেশ কিছু পোস্ট পাওয়া যায়। তয় সবগুলাই মনে হয় আউটডেটেড। নিজের ফ্রেশ অভিজ্ঞতা থেইকা জনকল্যাণে কিছু জ্ঞানদান দরকার মনে করতেছি।


1। প্রথমেই passport.gov.bd থেকে অনলাইনে পাসপোর্টের ফরম পূরণ কইরা নেন। আপনার নিজের ছবির স্ক্যান কপির কোনো প্রয়োজন নেই। ফরম পূরণ করা হয়ে গেলে PDF আকারে ডাউনলোডের অপশন পাবেন। অনলাইনে ফরম পূরণ করলে পরে পাসপোর্ট অফিসে আপনার অনেকটা সময় বেচে যাবে। (ছাত্ররা অবশ্যই ফরমের অভিভাবকের ডিটেইলসের ঘরটা পূরণ করবেন)

2। সাধারণ+নতুন পাসপোর্টের বেলায় PDF এর দুইটা প্রিন্ট নেবেন। দুটোতেই আপনার নরমাল পাসপোর্ট সাইজের দুটো ছবি আঠা দিয়ে লাগিয়ে নেবেন (বিশ্বাস রাখেন -এই ছবির দিকে কেউ ফিরাও তাকাবে না)। সত্যায়িত নিজের এলাকার কাউকে দিয়ে করিয়ে নেবেন,পাসপোর্ট অফিসের কাউকে দিয়ে সত্যায়িত করানোর চিন্তাও মাথায় আনবেন না। ছবির ওপরও সত্যায়িত করতে হবে। (ছাত্রদের ক্ষেত্রে অন্যান্য সব ডকুমেণ্টের সাথে নিজের স্টুডেন্ট আইডি এর সত্যায়িত কপিও সাথে রাখবেন এবং ফরমের সাথে জমা দেবেন)

3। যদি সম্ভব হয় তবে আগেই সোনালী ব্যাংকে 3000 টাকা পাসপোর্টের ফি হিসেবে জমা দিয়ে স্লিপটা নিজের কাছে রাখবেন। 5 টাকা ব্যাংক ফি হিসেবে রাখবে। ব্যাংক থেকে স্লিপের একটা অংশে সিরিয়াল নম্বর লিখে আপনাকে ফেরত দেবে। এই সিরিয়াল নম্বরটা প্রিন্ট করা ফরমের 25 নম্বর ঘরে লিখতে হবে।

4। এবার স্লিপটি ফরমের দু'কপির যে কোনো একটিতে ওপরের দিকে আঠা দিয়ে লাগিয়ে নিন। খেয়াল রাখবেন - স্লিপটি ফরমের বারকোডের ওপরে লাগাবেন না।

5। সপ্তাহের প্রথম দিকে (শেষ দিকে ভিড় বেশি হয়) সকাল ৯টার ভেতর পাসপোর্ট অফিসে চলে যাবেন। বিল্ডিং এর নিচে দেখবেন ২-৩ জন আর্মি পারসন টেবিল নিয়ে বসে আছেন। তাদের থেকে সিল নিয়ে সোজা তিনতলায় ৩০৪ নম্বর রুমে চলে যান। যত দেরি করবেন - ৩০৪ এর সিরিয়ালে তত পিছনে পড়বেন। ৩০৪ এ একজন এসিসটেন্ট ডিরেক্টর আপনার কাগজ চেক করবেন - তিনি কিছু প্রশ্নও করতে পারেন মিলিয়ে দেখতে। তারপর আপনার যে ফর্ম এ ব্যাংক স্লিপ লাগিয়েছেন - সেটাতে তিনি তেরছা ভাবে 'আবেদিত' লেখা একটা সিল মেরে দেবেন। দুই কপি ফরমের এই কপিটাতেই পাসপোর্ট অফিসের সবাই লেখাজোকা করবে, অন্য কপিটা পরে লাগবে। সেটা একটু পর বলছি।

6। এটা নিয়ে চলে যান নিচ তলায় সিড়ির পাশে টেবিল পেতে বসে থাকা আর্মিম্যানের কাছে (এটাই রুম নম্বর ১০২)। তিনি ব্যাংক স্লিপ লাগানো ফরমের নিচের দিকে একটা সিল মেরে সিরিয়াল নম্বর লিখে ছবি তুলতে ৪ তলায় যেতে বলবে।

7। এতক্ষণে দেখবেন সিড়িতে ছবি তোলার বিশাল লাইন। পাবলিক যা ইচ্ছা বলুক - লাইনে দাড়াবেন না, সব ইগোনোর করেন। সোজা 4 তলায় উঠে সিড়ির বা পাশে 402 নম্বর রুমে ঢুকে যান। দরজা লক করা থাকে - ভয় পাবেন না - সোজা দরজা খুলে ঢুকে যান। ভেতরে দেখবেন ম্যাক্সিমাম 3-4 জনের ছবি তোলার লাইন। এই রুমে 4 টা ছবি তোলার বুথ আছে এবং এটা শুধুমাত্র অনলাইন আবেদনকারীদের জন্যে। এখানে কোন একটা বুথে আপনাকে ডেকে নেবে - ছবি তুলবে, সিগনেচার নেবে, এবং চার আঙ্গুলের ছাপ নেবে। এরা আপনার কাছ থেকে ফরমের দুটো কপিই রেখে দেবে। সবশেষে আপনাকে আপনার সব তথ্য সংবলিত এক পাতার একটা কাগজ ধরিয়ে বিদায় দেবে। আপনার আগারগাও পাসপোর্ট অফিস ভ্রমণের এখানেই সমাপ্তি।

২০ দিনের ভেতর পাসপোর্ট পেয়ে যাবেন।

কোনও অবস্থাতেই দালাল ধরবেন না। ব্যাংকের কাজটাও নিজে করবেন - অযথা রিস্ক নেয়া বোকামি।


উপরের পুরোটাই আমার পাসপোর্ট অফিসে ৫ ঘন্টার এক্সপেডিশনের রেজাল্ট। আমার মত ভুল+বোকামি+তথ্যের জন্যে হাহাকার যেন অন্য কাউকে না করতে হয় - তাই এখানে পোস্ট দিচ্ছি।

ধন্যবাদ


ফুলিশ ভেরিফিকেশন (পাসপোর্ট করা বিষয়ক জ্ঞানদান মূলক পোস্ট) পার্ট - 2
সর্বশেষ এডিট : ০৪ ঠা জুলাই, ২০১৬ ভোর ৫:৪৫
৮টি মন্তব্য ৫টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

❤️ সাত রংগা ভালবাসা ♥️

লিখেছেন ওমেরা, ২০ শে জুন, ২০১৮ রাত ৯:৩৭



শুভ্র সাদার মত একটা মন নিয়ে শুধু তোমাকেই ভালবাসি।
আমার মনের সব গোলাপী আবেগ গুলো শুধু তোমাকে ঘিরেই।
তোমার প্রতি আমার ভালবাসা নীল আকাশের মত বিশাল আর
তোমার প্রতি আমার আকর্ষন সকালের... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্রেমানুভূতি

লিখেছেন শাহরিয়ার কবীর, ২১ শে জুন, ২০১৮ সকাল ১১:০৮


প্রভাব ও প্রেরণার মাঝে লুকিয়ে আছে কিছু স্বপ্ন
যা কখনো বিচিত্র, কখনো কল্পনাপ্রবণ,
কখনো স্বপ্নময়, কখনো মহত্তম রহস্য...
ঘেরা অনুভূতিগুলোর অস্তিত্ব জুড়ে
মিশে আছে কুয়াশা আর ধুপছায়া;
যা পরক্ষণেই উল্কার মত মিলিয়ে যায়।... ...বাকিটুকু পড়ুন

নতুন জীবন ফিরে পেলাম।

লিখেছেন দেশ প্রেমিক বাঙালী, ২১ শে জুন, ২০১৮ সকাল ১১:৪৫




ব্লগার ভাই ও বোনেরা, বিভিন্ন বিষয়ে মত প্রকাশে, মতামত তৈরীতে, স্বাধীন ভাবে কথা বলতে ব্লগে অনেক দিন হলো আপনাদের সংগে আছি। কিন্তু তার ফাঁকেই হঠাৎ করে পা ফসকে যাওয়া... ...বাকিটুকু পড়ুন

লেখক!!

লিখেছেন কাইকর, ২১ শে জুন, ২০১৮ দুপুর ১:০৯


একজন ভাল লেখককে সহজেই ভাল মানুষ ভেবে নেয়াটা বোকামী। যেমন একজন ভাল ডাক্তার ভাল মানুষ নাও হতে পারে। বাংলাদেশে যত জন ডাক্তার আছে এরা সবাই যদি ভাল মানুষ হত, যদি... ...বাকিটুকু পড়ুন

সুশীল ফরমান আলী (গল্প)

লিখেছেন কাওসার চৌধুরী, ২১ শে জুন, ২০১৮ দুপুর ১:৩৬


ফরমান আলী মানিব্যাগে রাখা তিনটি একশত টাকার নোট, সাতটি বিশ টাকার নোট এবং এগারোটি দশ টাকার নোট থেকে একটি কড়কড়ে বিশ টাকার নোট বের করে দোকানের কর্মচারী বাবুলের হাতে... ...বাকিটুকু পড়ুন

×