অনুসন্ধান:
cannot see bangla? সাধারণ প্রশ্ন উত্তর বাংলা লেখা শিখুন আপনার সমস্যা জানান ব্লগ ব্যাবহারের শর্তাবলী transparency report

আমার বিভাগ

    কোন বিভাগ নেই

জনপ্রিয় মন্তব্যসমূহ

আমার প্রিয় পোস্ট

সাংবাদিকদের প্রতি বিশেষ অনুরোধ....!

২২ শে অক্টোবর, ২০০৭ সকাল ৭:৪৩ |

শেয়ারঃ
0 0

সামহোয়্যারিনব্লগে অনেক সাংবাদিক আছেন, আমার সীমাবদ্ধতার কারনে তাঁদের সবার পরিচয় জানা নেই। তাই সকল সাংবাদিকের কাছে এই পোস্টের মাধ্যমের বিনীত অনুরোধ জানাই....



.



সাংবাদিকদের লেখার মাধ্যমেই তিন বছর আগে ঘটনাটি আমরা সবাই জানতে পারি। আজ পুনরায় আপনাদের সহযোগীতার প্রয়োজন কিছু ঘৃণ্য নরপশুদের কাছ থেকে আরো কিছু নাম না জানা নারী শিশু রক্ষার জন্য...





রাহেলা- ২০০৪ সালে কুলাঙ্গার লিটন যার সাথে করে মানবতার ইতিহাসের অন্যতম নিকৃষ্ট ও জঘণ্যতম বর্বরোচিত আচরন! শ্রমজীবি দরিদ্র মেয়েটির বেতনের টাকা ও গহনা ছিনিয়ে নেয়, ৩ জন সহযোগী নিয়ে পাশবিক ভাবে ধর্ষন করে রাহেলাকে। সেখানেই ক্ষান্ত দেয়না নরপশুরা, নিজেদের অপকর্মের সাক্ষ্য মিটাতে হত্যার উদ্দেশ্যে ছুরি দিয়ে ক্ষতবিক্ষত করে রাহেলার শরীর। গলা কেটে দেয়, ছিন্ন ভিন্ন করে রাহেলার স্পাইনাল কর্ড! পচে মরার জন্য হতভাগিনীর ক্ষতবিক্ষত দেহটিকে ফেলে আসে ময়লা জঙ্গলে!





মানুষ রাগের মাথায় বা আতংকিত হয়ে অনেক সময় তাৎক্ষনিক ভাবে কান্ডজ্ঞান হারিয়ে ভয়ংকর কাজ করে বসে, তবে কিছুক্ষণ পর অথবা কয়েক ঘন্টা পর সম্বিৎ ফিরে পেলে অনুতপ্ত হয়। এই কুলাঙ্গার ধর্ষকদের নীচতা ও পাশবিকতা এমন ভয়াবহ যে, দু'তিন দিন পর পরিত্যাক্ত দেহটির হাল জানতে গেলে যখন দেখে, রাহেলা জীবিত এবং আকন্ঠ পিপাসার্ত হয়ে তাদের কাছে পানি চাইছে তৃষ্ণা মেটাতে.. এই নরপশুরা পানির পরিবর্তে এসিড ঢেলে দেয় তৃষ্ণার্ত মেয়েটির গলে পচে যাওয়া শরীরের উপর।।।।





আমাদের সমাজে প্রতিনিয়ত অগুনিত রাহেলার জন্ম হচ্ছে... প্রতদিন কোথাও না কোথাও কোন রাহেলা হচ্ছেন ধর্ষিতা, নিপীড়িতা। কোন বিচার নেই, নেই অপরাধীর সাজা। আর এই অভয়ের কারনেই এই ঘৃণ্য নরপশুরা হয়ে উঠে আরো বেপরোয়া। লক্ষ্যনীয়; সেক্স অফেন্ডাররা কখনও একটি অপরাধ করে থেমে থাকেনা। সাজা পেলেও, পরবর্তীতে সুযোগ পেলেই হামলে পরে নতুন শিকারের উপর। আর, যদি বিনা সাজায় পার পেয়ে যায় তাহলেতো কথাই নেই, তারা হয়ে উঠে নির্ভীক আর শেয়ালের মতো চতুর! সুনিপুন ভাবে সংঘটিত করে পরবর্তী অপরাধগুলো। অসহায় নারী শিশুরা মুখ বুজে সহ্য করে তাদের নির্যাতন, কখনও নিরুপায় হয়ে বেছে নেয় আত্মহননের পথ...





প্রধান আসামী লিটন পলাতক। আইনের একটি বড় ফোকর গলিয়ে লিটনের সহযোগী ধর্ষক আর হত্যাকারীরা আজ জামিনে মুক্ত!!!। ডেথ বেড স্টেটমেন্টে রাহেলা সহযোগীদের নাম বলতে পারেনি.... গ্যাংরেপের শিকার একটি মেয়ে, হত্যার উদ্দেশ্যে যার গলা কেটে দেয়া হয়েছে, ছিন্ন ভিন্ন করা হয়েছে কশেরুকা.. শুধু তাই নয় এসিডে দগ্ধ গলে পচে যাওয়া শরীর নিয়ে পরিত্যক্ত অবস্থায় পরেছিলো কিছুদিন... স্টেটমেন্ট দিতে কতোটুকুই বা একবারে বলতে পারে!!!!!

তিনি ধীরে ধীরে তাঁর মা'র কাছে সবার নাম জানিয়েছিলেন... আর সব চেয়ে বড় কথা.. রাহেলা শরীরে বহন করেছিলেন এসব নরপশুদের আস্তিত্বের চিহ্ন!



আরেকটি সুত্র থেকে জানা যায়, "লিটনের সাথে রাহেলার শশুরের পারিবারিক পূর্ব শত্রুতা ছিলো! ঘটনার বেশ কিছুদিন আগে লিটন রাহেলাদের বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়েছে.." তবে এই তথ্যের ভিত্তি বা বিশ্বাসযোগ্যতা সম্পর্কে নিশ্চিত নই!





"রাহেলা হত্যা মামলা" এখনও আদালতে চলছে, কিছুদিন পর এর শুনানি। সাংবাদিকদের কাছে বিনীত অনুরোধ.. আপনাদের কলমের খোঁচায় আবার তুলে ধরুন এই হতভাগিনীর কথা.. এই নরপশুদের কুকর্মের কথা স্মরণ করিয়ে দিন আমদের বিস্মৃত জাতিকে...আপনার কিছু সময় হয়তো সাহায্য করবে এই ঘৃণ্য নরপশুদের সাজা দিতে।





আগামী ২৯শে অক্টোবর, ২০০৭ কেসটি কোর্টে উঠবে সাক্ষ্য গ্রহনের জন্য।

ঢাকায় অবস্থিত 'আইন ও সালিশ কেন্দ্র' মামলাটি পরিচালনা করছে।

প্রধান আসামী লিটন এখনও ধরা পড়েনি। লিটনের ৪ সহযোগী হাইকোর্ট থেকে জামিনে মুক্তি পেয়েছে...





সংবাদ পত্রে আবারো রাহেলার কথা তুলে ধরা হলে, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হয়তো কিছুটা টনক নড়বে.. এতো সহজে লিটনের সঙ্গীরা, যারাও এই ধর্ষন আর হত্যার সাথে সমান ভাবে জড়িত তারা যেন ছাড়া না পায়...





অসহায়, দরিদ্র ঘরের কন্যা.. তাঁর পরিবারের অঢেল টাকা, পরিচিতি, ক্ষমতা কিছুই নেই.. কালের স্রোতে হারিয়ে যায় এসব নির্যাতিতা হতভাগিনীদের কথা... পুরনো পত্রিকার পাতার খবর হয়েই থেকে যায়..এঁদের প্রতি করা অন্যায়ের প্রতিবাদ করার তেমন কেউ নেই, তাঁদের হয়ে লড়াই করার কেউ থাকেনা.. মূল্যহীন এঁদের জীবন, তার চেয়েও মূল্যহীন এঁদের মৃত্যু.. অথচ, আপনার আমার মতোই এরা বাংলাদেশী, আমাদের কারো চেয়ে এদের নাগরিক অধিকার এতোটুকু কম হবার কথা ছিলোনা...



রাহেলার সাথে করা পাশবিক আচরন সাংবাদিকরা তুলে ধরেছিলেন সমগ্র দেশের মানুষের কাছে.... আজ তাঁর উপর করা নির্মম নির্যাতনের ন্যায়বিচারের জন্য সাহায্য করুন প্লিজ!



আগামীকাল রাহেলার অবস্থানে যে কেউ হতে পারে.. আমি, আপনি, আপনাদের স্ত্রী, কন্যা, বোন, পরিচিতা...



সাংবাদিকদের প্রতি একান্ত অনুরোধ.. আপনারা আরেকবার এগিয়ে আসুন এই দুর্ভাগা, নির্যাতিতা, দরিদ্র মেয়েটির প্রতি করা অন্যায়ের ন্যায্য বিচারের সাহায্যে...









২০০৪ সালে প্রকাশিত ডেইলী স্টারের প্রতিবেদন



রাহেলা হত্যা মামলার বর্তমান অবস্থা জানতে ব্লগার 'ফয়সল নোই' এরঅসাধারন প্রচেষ্টা

 

সর্বশেষ এডিট : ২৮ শে অক্টোবর, ২০০৭ সকাল ৭:৪৩ | বিষয়বস্তুর স্বত্বাধিকার ও সম্পূর্ণ দায় কেবলমাত্র প্রকাশকারীর...

 


মন্তব্য দেখা না গেলে - CTRL+F5 বাট্ন চাপুন। অথবা ক্যাশ পরিষ্কার করুন। ক্যাশ পরিষ্কার করার জন্য এই লিঙ্ক গুলো দেখুন ফায়ারফক্স, ক্রোম, অপেরা, ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার

২৮৯টি মন্তব্য

 

সকল পোস্ট     উপরে যান

সামহোয়‍্যার ইন...ব্লগ বাঁধ ভাঙার আওয়াজ, মাতৃভাষা বাংলায় একটি উন্মুক্ত ও স্বাধীন মত প্রকাশের সুবিধা প্রদানকারী প্ল‍্যাটফমর্। এখানে প্রকাশিত লেখা, মন্তব‍্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর...

 

© সামহোয়্যার ইন...নেট লিমিটেড | ব্যবহারের শর্তাবলী | গোপনীয়তার নীতি | বিজ্ঞাপন