somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

চারদিকে শুধু দেখছি হিস্রতার বসবাস, বিদ্বেষের শ্লোগান এবং সাম্প্রদায়িকতার বিস্ফোরণ!

১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৩৭
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



কখনো আর পূর্বের মত করে কিছুই ফিরে পাবো না, এবং খুব সম্ভবত এটা একটি ভাল খবর।
— The Conversation

মনে হচ্ছে আমরা অশান্তির(Unrest) যুগে চলে যাচ্ছি, তবে রাজনৈতিক দর্শন আশা জাগাচ্ছে। স্ব্যাস্থমন্ত্রীর কথা শুনে আমার এমন কেনো মনে হচ্ছে, "বাংলাদেশকে তিনি তাঁর বক্তিতায় একটি ফিলোসোফিক্যাল স্টেট হিসেবে নির্দেশ করেছেন"। মানে এখানে টেকনিক্যালি করোনাভাইরাস নেই, তাই এর চর্চা বা কর্চা বাদ দিলেও দেওয়া যেতে পারে। এই কথা নিয়ে তিনি বিশেষভাবে আলোচনা ও সমালোচনার সম্মুখীন হয়েছেন "দ্য ডেইলি স্টার" পত্রিকায়।

‘করোনা এমনিতেই চলে যাবে’
— স্বাস্থ্যমন্ত্রী(দ্য ডেইলি স্টার)

প্রশ্ন হচ্ছে, "Unrest State" -এর মত ভারি শব্দ ব্যবহার করছি কেন? তার নিশ্চয় কারণ আছে।

১. করোনা ভাইরাসের কারণে বাংলাদেশে হু...হু... করে বেকারত্বের সংখ্যা বাড়ছে। বিশেষ করে শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা আমাদের শঙ্কায় ফেলে দিয়েছে, কারণ তারা দক্ষ হওয়া সত্ত্বেও কাজ পাচ্ছেন না।

২. অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ নির্দেশ করছে আমাদের মত উন্নয়শীল দেশের জন্য। বন্ধ আছে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বিকল্প হিসেবে বা বাধ্য হয়েই আমাদের শ্রদ্ধেয় শিক্ষকগণ অনলাইন ভিত্তিক পড়াশোনাকে এগিয়ে নিতে চাচ্ছেন। কিন্তু তা ব্যাকফায়ার করছে।

৩. অর্থনৈতিক চাকার অচল অবস্থার জন্য ভেঙ্গে পড়তে পারে মধ্যবিত্তদের চলার চাকা। ফলে অসংগতি বাড়বে। এর ফলে ক্রাইম রেট বাড়তে পারে।

৪. প্রতিবেশি বন্ধু রাষ্ট্রের সাথে চলছে রেষারেষি। এতে করে ভবিষ্যতে আমাদের উপর কি ধরণের ইমপ্যাক্ট পড়বে সেটাও অনিশ্চিত। আবার বাংলাদেশীদের মধ্যে দ্বিধা - বিভক্ত হয়ে পড়েছি আমরা অনেকেই।

৫. সীমান্ত হত্যা, তিস্তা চুক্তি, লিঞ্চিং, প্রতিবেশির আগ্রাসী মনোভাব আমাদের শঙ্কায় ফেলে দিয়েছে এমন মত বিশেষজ্ঞদের। শেষ খবর পাওয়া অবধি পেঁয়াজ নিয়েও অনেক আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে।

৬. বাড়ছে ধর্ষণ। উপযুক্ত সময় পার হবার পরেও বিয়ে নামক প্রতিষ্ঠানটি অনেকক্ষেত্রে ভেঙ্গে যাচ্ছে যোগ্যতার অভাবের কারণে। ফলে নৈতিকভাবে ডুবে যেতে পারে আমাদের যুব সমাজ।

৭. বাড়ছে মিডিয়াতন্ত্রের কন্সপাইরেসি। নেই কাজ, তাই খই ভাজ অবস্থা। খবর না পেলে, অনেকক্ষেত্রে নতুন সস দিয়ে একই খবর ভিন্নভাবে প্রকাশ করা হচ্ছে।

৮. বাড়ছে অনলাইন উদ্যোক্তা। ইউটিউবারদের সংখ্যাও জ্যামিতিক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। আবার অনলাইন উদ্যোগ যারা নিয়েছেন তাদের কিছু সংঘটিত গোষ্ঠি দিচ্ছেন সাধারণদের ধোঁকা।

৯. মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্ব-ইচ্ছা থাকলেও মাঠ পর্যায়ে নিয়মতান্ত্রিক ভাবে ত্রান-সাহায্য পৌঁছাতে বিভিন্ন জায়গায় বাত্যয় ঘটেছে।

১০. ইন্টারনেট ডাটার অস্বাভাবিক দাম ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। ওদিকে একটার পর একটা ভিডিও আমদানি হচ্ছে। এতে শিক্ষা থেকে বিশেষ অঙ্কের ছেলেমেয়ে পিছিয়ে পড়ছে। ঝিমিয়ে পড়ছে পুরো ছাত্রসমাজ।

১১. রিজেন্ট কেলেঙ্কারি এবং মেজর (অবঃ) সিনহা হত্যাকান্ড যেনো ডিপ্রেশনের এই গল্পে টুয়িষ্ট হয়ে কটাক্ষ করছে।

১২. এই লম্বা অবসর ও বদ্ধ সময় জন্ম দিচ্ছে হতাশা ও উন্মাদনা। মুক্ত আকাশ আর বাতাসে পাখি হওয়ার যে স্বাধীনতা তা যে কত সুন্দর সেটা বোধ করি আমরা এখন ভালোই বুঝতে পারছি।

১৩. চলছে "Beef Politics" এবং "Anti-Muslim propaganda" -যার কোন উদ্দেশ্য আছে বলে আমার বোধগম্য নয়। ব্যক্তি স্বার্থ এবং রাজনৈতিক স্বার্থের জন্য কিছু মানুষ এমন করছেন বলে আমার ধারণা।

১৪. বাংলাদেশকে ধর্ম নিরপেক্ষ রাষ্ট্র করার জন্য হাইকোর্টে রিট জারি করার খবর এ দেশের কে জানেনা!

এই সব লম্বা তালিকায় থাকা বিষয়গুলি জানান দিচ্ছে আমাদের ঐক্যের অসামঞ্জস্যতা বা ভিন্ন অর্থে সাম্প্রদায়িক হবার কথা। আর এতকিছু শুধুমাত্র একটি "Unrest State" তে ঘটতে পারে বলে আমার ধারণা।

• সব শেষ হয়নি(All is not lost)

ভাগ্যক্রমে, হবস আমাদের শিখিয়েছেন যে, আমরা বিনষ্ট হয়ে যাইনি, প্রকৃতির অবস্থা থেকে বাঁচা সম্ভব। তবে বেঁচে থাকার একমাত্র উপায় হ'ল সামাজিক সহযোগিতা। এর সমস্ত দুর্দশা এবং কৃপণতার জন্য, প্রকৃতির রাজ্যও সমতার একটি রাষ্ট্র। আমরা সকলেই নশ্বর এবং সমানভাবে দুর্বল। এটি অবশ্যই কোভিড-১৯ এর অধীনে জীবনের সত্য। এই ভাইরাসটি একটি দুর্দান্ত লেভেলার, এটি জাতীয়তা বা জাতিগত, লিঙ্গ বা সামাজিক শ্রেণি, ধর্ম বা ভাষাগুলির মধ্যে পার্থক্য করছে না। আজ আমরা সকলেই সমান ঝুঁকিতে আছি এবং এই মৌলিক সাম্য থেকে আরেকটি বাস্তবতা আরোহণ করেছে; কেবল একতা ও দলবদ্ধভাবে কাজ এবং সংহতি এই অদৃশ্য শত্রুকে পরাস্ত করবে।

প্রকৃতির হব্বেসিয়ান রাষ্ট্র থেকে বাঁচতে আমাদের একটি নতুন সামাজিক চুক্তি তৈরি করতে হবে, পারস্পরিক উপকারী একটি চুক্তি হতে হবে। এবং সবার সম্মতিক্রমে সেটি দীর্ঘমেয়াদি হতে হবে।

একইভাবে, কোভিড -১৯ কাটিয়ে উঠতে আমাদের এক অভূতপূর্ব ত্যাগ, আস্থা এবং সামাজিক সহযোগিতার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হতে হবে। অস্থায়ী লকডাউনের অধীনে জীবনযাপন করা এবং শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা অনেক লোকের জন্য একটি বড় ত্যাগ, বিশেষত বেকারত্ব বাড়ার সাথে সাথে এবং অনেকগুলি ব্যবসায় তাদের অবস্থা হাঁটুর উপরেও রয়েছে তবে আমাদের বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা(WHO) এবং আমাদের জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের উপর আস্থা রাখতে হবে, যেহেতু এই জরুরি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে সবাই ব্যতিক্রম ব্যতিরেকে যদি কাজ করে তবেই কাজ করুন।

তবে পারস্পরিক সামাজিক সহযোগিতা ভঙ্গুর এবং অস্থায়ী, বিশেষত একটি পুঁজিবাদী বিশ্বে যেখানে স্বার্থপরতা একটি পুণ্যবান এবং লোভ কে পুরষ্কারযুক্ত করা হয়। এই সঙ্কট আমাদের অনেক দৃঢ়ভাবে ধরে নেওয়া অনুমানগুলি নিয়ে পুনর্বিবেচনা করতে বাধ্য করছে। স্বতন্ত্র স্বার্থের অনুধাবন এই মুহূর্তে কার্যকর হবে না, কোনও ট্রিকল-ডাউন প্রভাব থাকবে না, এবং নির্বোধ, অপব্যয়যুক্ত বস্তুবাদ আর টেকসই নয়।

(৩১ই আগষ্ট অবধি)বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার(WHO) মতে, বাংলাদেশে এই পর্যন্ত ৩,০৮,৯২৫ জন সংক্রমিত হয়েছেন এবং করোনা ভাইরাস থেকে সংক্রমিত হয়ে ৪,২০৬ জন মারা গেছেন।

২৬শে মার্চ, সরকার প্রথম ৪ই এপ্রিল পর্যন্ত ১০ দিনের শাটডাউন চালু করেছিলেন। ১ম এপ্রিল, সরকার ঘোষণা করেছিল যে শাটডাউন ১১ই এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হবে। ২০২০ সালের ৫ই এপ্রিল, সরকার আবার চলমান 'সাধারণ ছুটি' বাড়িয়ে আরও তিন দিন বাড়িয়েছিল, ১৪ই এপ্রিল পর্যন্ত। ১০ই এপ্রিল সরকার আবারও সরকারী এবং বেসরকারী অফিসের চলমান বন্ধকে ২৫ই এপ্রিল পর্যন্ত বাড়িয়ে দিয়েছিল যাতে এর বিস্তার ছড়িয়ে না যায়। দেশে করোনভাইরাস এর সাথে সামঞ্জস্য রেখে, ১১ই এপ্রিল, এটি জানানো হয়েছিল যে সমস্ত গণপরিবহন পরিষেবা ২৫ই এপ্রিল পর্যন্ত স্থগিত করা হবে।

হাসপাতাল, রান্নাঘর বাজার, ওষুধের দোকান এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় পরিষেবাগুলি অবশ্য খোলা থাকবে।

সরকার বারবার ভাইরাসটির বিস্তারকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে লোকদের ঘরে থাকতে বলছেন। তবে ২৪শে মার্চের ঘোষণার পরপরই লোকেরা রাজধানী ছেড়ে তাদের গ্রামের বাড়ির উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে। একাধিক স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে যে শত শত নগরবাসী বাসে ও ট্রেনে চড়ে বাড়ি ফিরতে, সারা দেশে ভাইরাসের আরও ছড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা বাড়িয়ে তুলেছিলো।

১ম এপ্রিল, কোরোনাভাইরাস উপন্যাসের প্রসারণ নিয়ন্ত্রণের প্রচেষ্টার অংশ হিসাবে জনসমাগম এড়ানোর জন্য সরকার বাংলা নববর্ষ পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে সমস্ত পাবলিক কর্মসূচি বাতিল করে।

• কোভিড -১৯ এর মধ্যে গার্মেন্টস্ শ্রমিকের ব্যস্ততা এবং নিরীক্ষণঃ

"সদ্য বিদায়ী ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৩ হাজার ৪১৩ কোটি ডলারের তৈরি পোশাক রপ্তানি করেছে বাংলাদেশ। এই আয় আগের অর্থবছরের চেয়ে ১১ দশমিক ৪৯ শতাংশ বেশি। গত ২০১৭-১৮ অর্থবছরে পোশাক রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ৩ হাজার ৬১ কোটি ডলার"।
সূত্রঃ প্রথম আলো

যাইহোক, অনেক কর্মী ৫ই এপ্রিল কর্মস্থলে ফিরে আসবেন এই ধারণার মধ্যে দিয়ে রাজধানীতে ফিরে আসেন, কেবল এটি জানার জন্য যে ১২ই এপ্রিল অবধি বন্ধ থাকবে কি না। এপ্রিল মাসে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুন্সী কারখানার মালিকদের মার্চ মাসের বেতন তাদের শ্রমিকদের ১৬ই এপ্রিলের আগে প্রদানের জন্য অনুরোধ করেছিলেন। তিনি আরও বলেছেন, "দেশে (কোভিড -১৯) মহামারীর কারণে কারখানাগুলি বন্ধ থাকা সত্ত্বেও মালিকরা কোনও শ্রমিককে বরখাস্ত করতে পারবেন না"।

সাভারের কমপক্ষে ১১ টি কারখানার গার্মেন্টস শ্রমিকরা পূর্ববর্তী মাসের মজুরির দাবিতে ১২ই এপ্রিল রাজপথে নেমেছিল, কারণ তাদের মধ্যে কিছুকে আগের মাসের মজুরি দেওয়া হয়নি, যা মাসের দশম দিন পর্যন্ত প্রদান করার কথা ছিলো।

১০ই এপ্রিল, বাংলাদেশ গার্মেন্টস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিজিএমইএ) এবং বাংলাদেশ নিটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারারস অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিকেএমইএ) একটি যৌথ বিবৃতিতে ঘোষণা করেছিলো যে, তৈরি পোশাক (আরএমজি) কারখানাগুলি ২৫ই এপ্রিল অবধি বন্ধ থাকবে। বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, ‘এই সময়ের মধ্যে যদি কোনও কারখানা অফিস মজুরি বিতরণ এবং অন্যান্য অর্থ প্রদানের জন্য উন্মুক্ত থাকে, কারখানা কর্তৃপক্ষকে সংশ্লিষ্ট ট্রেড সংস্থা এবং শিল্প পুলিশকে এ বিষয়ে অবহিত করতে হবে’।

২৫ই এপ্রিল বিজিএমইএ জানিয়েছিলো যে, এটি ধীরে ধীরে সদস্য কারখানা পুনরায় চালু করার তারিখ নির্ধারণ করবে।

‘কোনও নির্দেশনা না পাওয়া পর্যন্ত আপনাকে (কারখানার মালিকদের) কর্মীদের ঢাকায় ফিরে আসতে বলার অনুরোধ করা হয়নি,’ বিজিএমইএ জানিয়েছিলো।

বিজিএমইএ সদস্য কারখানাগুলিকে পুনরায় চালু করার বিষয়ে একটি সাধারণ নির্দেশ জারি করে। প্রথম পর্যায়ে, ২৬ই এপ্রিল থেকে, কারখানার কার্যক্রম ৩০% জনবল দিয়ে শুরু হবে, যা কেবলমাত্র তাদের নিজ নিজ কারখানার নিকটে বসবাসকারী শ্রমিকদের যোগদানের জন্য বলার পরামর্শ দিয়েছিল। স্বাস্থ্য ও সুরক্ষা নির্দেশিকা অনুসরণের সাফল্যের উপর ভিত্তি করে ২য় মে দ্বিতীয় পর্যায়ে, কারখানাগুলি অতিরিক্ত ২০% কর্মশক্তিকে ফিরে আসতে আমন্ত্রণ জানাতে পারে।


• নির্দেশিকা নীচে এক বা একাধিক পদ্ধতি ব্যবহার করে কারখানাগুলি খোলার পরামর্শ দেয়ঃ

কাছাকাছি বাসকারী কর্মীদের অগ্রাধিকার দিন;
যারা গ্রামে ফিরেছেন তাদের ফিরতে নিরুৎসাহিত করা উচিত, বা দ্বিতীয় পর্যায় শেষ না হওয়া পর্যন্ত কারখানার চত্বরে অনুমতি দেওয়া উচিত নয়।
দুর্বল শ্রমিক বা ঝুঁকির মধ্যে যারা সবচেয়ে বেশি, যেমন গর্ভবতী শ্রমিক বা ৫০ বছরের বেশি বয়সী শ্রমিকদের বাদ দিন। দ্য গাইডলাইনে আরও উল্লেখ করা হয়েছে যে কারখানায় এই শ্রমিকদের বেতনের ছুটি বিবেচনা করা উচিত।

পরিকল্পনা দল প্রাথমিকভাবে সমাপ্তি বিভাগ, নমুনা বিভাগ বা সেলাইয়ের অংশটি খোলার বিষয়ে অগ্রাধিকার দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিতে পারে।
নির্দেশিকাগুলিতে সামাজিক দূরত্ব, পিপিই ব্যবহার, স্যানিটেশন, হ্যান্ড ওয়াশিং, একটি চিকিৎসা দল থাকা এবং সন্দেহজনক রোগীদের নির্ধারণ এবং পৃথকীকরণের জন্য একটি পৃথক অঞ্চল সম্পর্কিত বিভিন্ন পদক্ষেপের বিশদও রয়েছে।

পুনরায় খোলার অনুমতি দেওয়ার ঘোষণার পরে স্থানীয় সংবাদ জানিয়েছে যে ২৬ই এপ্রিল অন্যান্য রফতানিমুখী ইউনিট পুনরায় চালু হয়েছিল, তারপরে ২৭ই এপ্রিল আরও ১,৮২০ কারখানা খুলেছিলো। বিজিএমইএর নির্দেশে শ্রমিকদের (যারা তাদের গ্রামে ফিরেছেন) ঢাকায় ফিরে আসতে না বলা সত্ত্বেও, শত শত পোশাক কারখানার শ্রমিকরা ঢাকা এবং এর আশেপাশের কাজে যোগ দিতে পারে এমন যে কোনও যানবাহনে যাতায়াত করে, তাদের গ্রামে পায়ে ফেলে বা জ্যাম করে, ফলে তারা উপেক্ষা করেছিলো করোনভাইরাসকে চুক্তি ও ছড়িয়ে পড়ার ঝুঁকি।
বিশেষজ্ঞ ও ইউনিয়ন নেতারা উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন।

সাভার, আশুলিয়া এবং মিরপুরের বিভিন্ন কারখানার বহু শ্রমিক বলেছিলেন যে স্বাস্থ্য ও সুরক্ষা ব্যবস্থা অপ্রতুল ছিল এবং তাদের কাজ করার ক্ষেত্রে খুব কমই কিছু পরিবর্তন হয়েছিল। বড় বড় পোশাক কারখানার কর্মস্থল এবং কারখানার প্রবেশদ্বারগুলিতে স্বাস্থ্য সুরক্ষা নির্দেশিকা অনুসারে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখছে না, যা কারনোভাইরাস সংকোচনের ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে। নিবন্ধটিতে উল্লেখ করা হয়েছে যে ‘আশুলি ও চ্যাটগ্রামের বেশ কয়েকটি কারখানা তাদের ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ শ্রমিক নিয়ে কাজ শুরু করেছিল’।

বিজিএমইএর এক কর্মকর্তা বলেছেন, সমিতির মাঠপর্যায়ে পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থা রয়েছে, জোন-ওয়াইজ দল থেকে অবাক করা দর্শন সহ মঙ্গলবার পর্যবেক্ষণের প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করে এই কর্মকর্তা বলেছিলেন, ‘আমরা ২৭ টি কারখানায় অবাক করে তদন্ত করেছি এবং এর মধ্যে ২৫ টির অবস্থা খুব ভাল অবস্থায় পেয়েছি’। বিকেএমইএও ইঙ্গিত দিয়েছে যে এটি তার সদস্য কারখানায় স্বাস্থ্য ও সুরক্ষা সম্পর্কিত বিষয়গুলি পর্যবেক্ষণ করছে।

এমন কারখানাগুলির খবর পাওয়া গেছে যেখানে শ্রমিকরা করোনাভাইরাস সংক্রামিত হয়েছিল। বিজিএমইএ ১২ জুন প্রকাশিত হয়েছে যে ২৯৯ পোশাক শ্রমিক (৪ মিলিয়নের মধ্যে) COVID-19 -বিষয়ে চুক্তি করেছেন। তবে শ্রমিক নেতারা এই পরিসংখ্যান সম্পর্কে সন্দেহ জাগিয়েছেন, পরামর্শ দিচ্ছেন যে এগুলি অনেক বেশি, কারণ তারা সন্দেহ করে যে কারখানার ব্যবস্থাপকরা ব্যবসায়ের উপর প্রভাব কমাতে সংক্রামিত শ্রমিকদের সম্পর্কে সংবাদ দমন করতে পারেন।

স্থানীয় মিডিয়া বন্ধ কারখানা এবং অন্যের অপর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা নিয়ে বিভিন্ন এলাকায় বিক্ষোভের খবর প্রকাশ করেছিলো, যার মধ্যে কিছু হিংসাত্মক হয়ে উঠেছিলো। আরও, ‘সাভার ও আশুলিয়ায় কিছু শ্রমিক দেখল যে অন্যান্য কারখানাগুলি চালু হয়েছে তবে তাদের কারখানা বন্ধ রয়েছে, যা তাদের চাকরি থাকার ভয় পেয়ে বসেছিলো,’ বলেছেন বাংলাদেশ জাতীয় পোশাক শ্রমিক কর্মচারী লীগের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম রনি।


• সুধা রামচন্দ্রন(ভারতীয় সাংবাদিক) ২৯ই এপ্রিল বাংলাদেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে "দ্য ডিপ্লোম্যাট" এ এমন সব তথ্য দিয়েছেন যার সাথে আমি অন্তত কোনভাবেই একমত পোষণ করতে পারছি না, গিলতে পারছি না। ম্যাম, মাফ করবেন, "আপনার দেয়া তথ্য দেখে আমি শিহরিত"। কিছু অংশ তুলে ধরছি,

(ক) (বাংলায় অনুবাদ করা হয়েছে)

"যেহেতু ধর্মীয় বিশ্বাসগুলি বাংলাদেশের একটি উল্লেখযোগ্য অংশের মধ্যে দৃঢ় বিশ্বাস এবং এই লোকদের চিন্তাভাবনা ও কর্ম সম্পর্কে সরকারের চেয়ে আলেমরা বেশি প্রভাবিত করে, তাই সরকার আশঙ্কা করছে যে এই জাতীয় সমাবেশগুলি দেশে ইতোমধ্যে করোনভাইরাস সংক্রমণের ক্রমবর্ধমান সংখ্যাকে নাটকীয়ভাবে বাড়িয়ে তুলবে।"

বাংলাদেশ সরকারকে তবে কি আলেমরা প্রভাবিত করছেন? বা ইসলামিক স্কয়ার যারা আছেন তারা? আবার খানিক বাদে, উনি নিজেই বলছেন, "আওয়ামীলীগ সেক্যুলার পার্টি"। উল্লেখ্য, সাম্প্রতিক এক সাংসদের জবাবে আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নামাজ পড়ার কথা জানিয়েছেন। তাহলে উনাকে কি করে আলেমরা প্রভাবিত করছেন?

এক্সকিউজ মি! প্যানডেমিক যেখানে সেটি ধর্ম, বর্ণ, গোত্র বা দেশ দেখে ছাড় দেয় না। এমন নয় যে ভারতে ৩০% ডিসকাউন্ট এবং বাংলাদেশে ৫০% ডিসকাউন্ট আকারে মহামারী ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

(খ) (বাংলায় অনুবাদ করা হয়েছে)

উনি বলেছেন, "১৮ই এপ্রিল, কোভিড-১৯ এর বিস্তারকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য দেশব্যাপী তালাবন্ধের মধ্যে, জনপ্রিয় ইসলামী শিক্ষক মাওলানা জুবায়ের আহমেদ আনসারীর জানাজায় অংশ নিতে বাংলাদেশের প্রায় বার্তোলা গ্রামের রহমানিয়া মাদ্রাসায় প্রায় এক লক্ষ লোক জড়ো হয়েছিল"।

উনি অনুচ্ছেদটি শুরুই করেছেন এই তথ্য দিয়ে। প্রশ্ন হলো, কয়জন আক্রান্ত হয়েছিলো সেই জানাযা থেকে? সেই ডাটা কই? শুরুতেই কেন? এর পূর্বে কি কিচ্ছুটি ঘটেনি?

অথচ, ভারতের NDTV এর এক রিপোর্টে বলা হচ্ছে, প্রতি মিলিয়নে বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এবং মৃতের হার ভারতের চেয়ে কম। কেনো? তার কারণ হচ্ছে, এখানের বিভিন্ন কমিউনিটি সমন্বিত ভাবে কাজ করছেন।

আমার মতে, বাংলাদেশ অন্তত ভারত ও পাকিস্তানের চেয়ে অনেক বেশি অসাম্প্রদায়িক একটি দেশ।

(গ) উনি অনুচ্ছেদটির Byline দিয়েছেন এভাবে,

"The virus risks plunging Bangladesh into social, economic, and political turmoil — not to mention the public health crisis."

অতি সুন্দর। সোশ্যাল, ইকোনমিক ও পলিটিকয়াল! কোথাও রিলিজিয়াস খুঁজে পাওয়া যায় না। তাই না?

Now, If you check her article, you may get these words. Such as "Rahmania Madrassa", "Islamic teacher", "Religious gatherings", "religious beliefs", "mosques", "markets during Ramzan", "Islam’s holy month", "mosque officials", "Ramzan prayers", "banned iftar", "religious piety", "sensitive religious issue", "religious fundamentalists" etc.

আর কত Narrative দেওয়া যায় আমার জানা নেই, দিদি। এই আর্টিকেল যদি রোবটও পড়ে তবে তার আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স দিয়ে ধরে ফেলবে এবং বলবে, "এটি একটি ধর্মীয় বিদ্বেষমূলক স্ক্রিপ্ট"। তবে এটা আপনাদের "তাবলীগি জামাত ইস্যু" নয়। এটা বাংলাদেশ। এখানে প্রায় ৯০ শতাংশ লোক মুসলিম। যখন মসজিদে স্পিকারে বলা হচ্ছিলো, "আজ থেকে আপনারা বাড়িতে নামাজ পড়ুন"। তখন ঐ ধর্মীয় কিছু মানুষদের মনে অভিমান দেখেছি, কিন্তু তবুও বাড়িতেই নামাজ পড়েছেন। ১৬৪.৪ মিলিয়নের মধ্যে দুই একটি দূর্ঘটনা যদি ঘটেই যায়, তবে তাদের বিশ্বাসকে এমন ছোট করে দেখা উচিত নয়। তাদের অনুভূতিতে এমন আঘাত করাও উচিত হবে না।

ধর্ম(Religion) ছাড়া আমার চোখে এই অনুচ্ছেদে কিচ্ছু পড়লো না। আমার কেন জানিনা মনে হচ্ছে খুব সম্ভবত আমি চোখে একটু কম দেখি।
Sorry! " Your opinion is not my reality(Dr. Steve Maraboli)".

(ঘ) আবার ভারতীয় বলেই তারা বাংলাদেশ সম্পর্কে বায়াস তথ্য প্রদান করেন এমন নয়। শ্রুতি মেননের বিবিসিতে দেওয়া ৭ই সেপ্টেম্বরের রিপোর্টে দেখানো হয়েছে, প্রতি মিলিয়নে মৃতের সংখ্যা বাংলাদেশে এখন ২.৯ শতাংশ নিয়ে এশিয়ায় চতুর্থ অবস্থানে আছে। অন্যদিকে প্রতিবেশি দেশ ভারত প্রতি মিলিয়নে ৬ শতাংশ মৃতের সংখ্যা নিয়ে এশিয়ায় প্রথম অবস্থানে আছে। ফেইক রিপোর্ট নিয়েও তিনি কথা বলেছেন। কিন্তু এ দেশের সরকারের সেটার প্রতি দ্রুত একশন নিয়ে আলোচনা এড়িয়ে গেছেন। যা আমার বোধগম্য নয়।

শেষাংশে প্রথমাংশের বলা কথায় দ্বিমত পোষণ করে বলতে ইচ্ছে করে, যে বইগুলো পকেট খরচ বাঁচিয়ে কিনেছিলাম সেসবের উপর ধূলো জমছে। একসময় আমার নিজেরই মনে হত, এই একাডেমিক কিচ্চা-কাহিনী থেকে একবার বের হই তারপর ফাটিয়ে পড়বো। সিলেবাসের বাহিরের শত শত বই। কত কত লিখবো যে সবাই হা... হয়ে বলবে, "তুমি পারো কী করে?"

ক্লাসের চাপে তখন লেখা হত না, সিলেবাসের বাহিরের বই পড়া হত না, ঠিকমতো ঘুম হত না তাই মনে হত ছুটি পেলেই চরম একটা ঘুম দিয়ে নিবো। শুধু তাই নয় প্রবীণ থেকে নবীন সব লেখকদের বই সংগ্রহে রাখবো, মন দিয়ে পড়বো। হ্যাঁ, এখন সেটারই পালা। দীর্ঘ ছয় মাসের অবসরে আমি এখন ১৯ ঘন্টা ঘুমাচ্ছি, বাকি দুই ঘন্টা চা খাই। পরিচিত মুখ প্রতিদিন দেখা যে কি রকম বিরুক্তিকর হতে পারে যার জন্য মনে হচ্ছে, আমি আবার সেই ক্লাসেই জয়েন করতে চাই। একমাত্র ভরসা ফেসবুক কিন্তু সেটাও কতক্ষণ চালানো যায়? আবার কোথাও তেমন বের হতে পারি না। আর প্রেমিক হওয়া তো শিল্পের ব্যাপার, জন্ম থেকেই না কি এই প্রতিভা নিয়েই জন্ম গ্রহণ করতে হয়। তাই অন্তত এই শিল্পে কমতি-খামতি থাকার জন্য কেউ আর বলছেনা, "বাবু খাইছো?"

স্যারদের প্রয়োজনে অনুরোধ করে ই-মেইল পর্যন্ত পাঠাতে ইচ্ছে করছে। আর সত্যি বলতে পড়ছিনা, পড়তে পারছিনা। লেখায় হাত আস্তে আস্তে জড়সড় হয়ে যাচ্ছে। দুই লাইন লেখার সময় সেটার প্রয়োজনীতা নেই বলে মনে হচ্ছে। আগামীকাল প্রথম আলো পত্রিকা হয়তো আবারও জানাবে বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে মোট ৪২জনের মৃত্যু।

ছবি কৃতজ্ঞতাঃ ABC News

(বিঃ দ্রঃ তথ্যে কোন ভুলভ্রান্তি বা পক্ষপাতদুষ্ট হয়ে গেলে আমি ক্ষমাপ্রার্থী। মাফ করবেন।)

ধন্যবাদ

References:

1. Click This Link

2. Click This Link

3. Click This Link

4. Click This Link

5. https://www.bbc.com/news/world-asia-53420537

6. Click This Link
সর্বশেষ এডিট : ১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৩৭
৩টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

রঙ বদলের খেলা

লিখেছেন ইসিয়াক, ২৫ শে অক্টোবর, ২০২০ সকাল ৯:৪৮


কাশ ফুটেছে নরম রোদের আলোয়।
ঘাসের উপর ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র শিশিরকণা।

ঝরা শিউলির অবাক চাহনি,
মিষ্টি রোদে প্রজাপতির মেলা।

মেঘের ওপারে নীলের অসীম দেয়াল।
তার ওপারে কে জানে কে থাকে?

কি... ...বাকিটুকু পড়ুন

শ্রদ্ধেয় ব্লগার সাজি’পুর স্বামী শ্রদ্ধেয় মিঠু মোহাম্মদ আর নেই

লিখেছেন বিদ্রোহী ভৃগু, ২৫ শে অক্টোবর, ২০২০ সকাল ১০:৩৮

সকালে ফেসবুক খুলতেই মনটা খারাপ হয়ে গেল।
ব্লগার জুলভার্ন ভাইয়ের পেইজে মৃত্যু সংবাদটি দেখে -

একটি শোক সংবাদ!
সামহোয়্যারইন ব্লগে সুপরিচিত কানাডা প্রবাসী ব্লগার, আমাদের দীর্ঘ দিনের সহযোগী বিশিষ্ট কবি সুলতানা শিরিন সাজিi... ...বাকিটুকু পড়ুন

এখন আমি কি করব!

লিখেছেন মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন, ২৫ শে অক্টোবর, ২০২০ বিকাল ৩:১৯

মাত্র অল্প কিছুদিন হল আমি ফরাসি ভাষা শিক্ষা শুরু করেছিলাম।



এখন আমি ফরাসি ভাষা অল্প অল্প বুঝতে পারি। হয়তো আগামী দিনগুলিতে আরেকটু বেশি বুঝতে পারব।

ফ্রান্স একটি সুন্দর দেশ।... ...বাকিটুকু পড়ুন

=স্মৃতিগুলো ফিরে আসে বারবার=

লিখেছেন কাজী ফাতেমা ছবি, ২৫ শে অক্টোবর, ২০২০ বিকাল ৪:০৮



©কাজী ফাতেমা ছবি
=স্মৃতিগুলো ফিরে আসে বারবার=

উঠোনের কোণেই ছিল গন্ধরাজের গাছ আর তার পাশে রঙ্গন
তার আশেপাশে কত রকম জবা, ঝুমকো, গোলাপী আর লাল জবা,
আর এক টুকরা আলো এসে পড়তো প্রতিদিন চোখের... ...বাকিটুকু পড়ুন

পাহারা

লিখেছেন মা.হাসান, ২৫ শে অক্টোবর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩৩




আমাবস্যা না । চাঁদ তারা সবই হয়তো আকাশে আছে। কিন্তু বিকেল থেকেই আকাশ ঘোর অন্ধকার। কাজেই রাত মাত্র নটার মতো হলেও নিকষ অন্ধকারে চারিদিক ডুবে আছে।

গায়ের... ...বাকিটুকু পড়ুন

×