somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

বাথরুম সমস্যার শহর, নিউইয়র্ক শহরে ব্লগার চাঁদগাজী

০৭ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ভোর ৪:৩৫
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



সপ্তাহ খানেক আগের ঘটনা: এক বাংগালী নিউইয়র্ক শহরের "পাবলিক এডভোকেট" পদে স্পেশাল ইলেকশানে দাঁড়াবেন, উনি বাংগালীদের ডেকেছেন জ্যাকসন হাইটের ৩৭ নম্বর এভেনিউর এক ঠিকানায়; আমি উনাকে জীবনেও দেখিনি, অনুরোধ করেছেন, তাই যাচ্ছি! বিনা প্রস্তুতিতে রওয়ানা হলাম, ব্রুকলীন-কুইন্স হাইওয়েতে ট্রাফিক, আটকা পড়ে বসে আছি, পানিও খাচ্ছি; ঘন্টাখানেক পরে বুঝলাম পানি বেশী খাওয়া হয়ে গেছে। আগামী ৫/১০ মিনিটে জ্যাম না খুললে, আমাকে ড্রাস্টিক একশানে যেতে হবে, হাইওয়ে হয়ে যাবে মাইওয়ে; সৌভাগ্য, গাড়ী চলছে! সাতটায় পৌঁছার কথা, আটটায় আমি এলাকয় প্রবেশ করলাম, যায়গাটা খুঁজতে হবে, উহা আশেপাশে হবে; কিন্তু তার আগে বাথরুম যেতে হবে। সামনে এক বিরাট হিন্দু টেম্পল, গাড়ী বেআইনীভাবে রেখে ঢুকলাম টেম্পলে; দেখি বাথরুমের লাইনে ১০/১২ জন; দাদারা ফ্রি ডাল বেশী খেয়েছে, মনে হয়; সুবিধা হলো না; বের হয়ে সাইডের একটা অন্ধকার রাস্তায় এলাম; সৌভাগ্য, পার্কিংও পেয়ে গেলাম; এলাকাটা অন্ধকার, গাড়ী রিপেয়ার আর গোডাউন উভয় পাশে। স্যরি, অন্ধকারে গাড়ীর পাশে দাঁড়ায়ে সমস্যার সমাধান করছিলাম। দোতালার ব্যালকনীতে অন্ধকারে এক মহিলা ছিল, উহা আমার জানার কথা নয়; উহা কথা বলে উঠলেন; ইংরেজীর ধরণে বুঝলাম স্পেনিশ; উহা আমাকে বলে,

-জেন্টেলম্যান, তুনি ওখানে কি করছ?
-গাড়ীর চাকায় পানি ঢালছি!
-তুমি রাস্তায় পিপি করছ, ইহা বেআইনী, এখুনি বন্ধ কর।
-তুমি নিশ্চয় জান, ইহা প্রাকৃতিক ব্যাপার, উহাকে বন্ধ করা সঠিক না; স্যরি, এটাই এখানে শেষবার, এরপরে ইহা আর কখনো ঘটবে না।
-আমি পুলিশ ডাকছি!
-তা ডাক, পুলিশ আসতে কতক্ষণ লাগবে? আমি জানতে চাইলাম; মহিলা চুপ হয়ে গেছে।

আজকে দুপুরে জ্যাকসন হাইটে এক ডাক্তারের কাছে গিয়েছিলাম, ওখান থেকে বের হওয়ার আগে বাথরুমে যাবার দরকার ছিল; বাথরুমের ভেতরে কে একজন; ৫ মিনিট অপক্ষা করলাম, খবর নেই, হাল ছেড়ে রাস্তায় এলাম; সাবওয়ের দিকে যাচ্ছি, ঠান্ডায় অবস্হা দ্রুত বদলে গেলো; চারিদিকে তাকাতেই রাস্তার উল্টো পাশে দেখি বাংগালী রেষ্টুরেন্ট, তিতাস; আমি ভাবলাম, কি ভাগ্য, যা খুঁজছি তা' সাথে সাথে পেয়ে যাচ্ছি, ভালোদিন! ভেতরে প্রবেশ করে, ক্যাশের বাংগালী মেয়েকে বললাম,
-আপনাদের বাথরুম কোনদিকে?
-আমাদের বাথরুম শুধুমাত্র কাষ্টমারদের জন্য, উনি উত্তর দিলেন!
-আমি কাষ্টমার; ওকে, আমাকে ১ কাপ চা দেন, কি ধরণের বিরাণী আছে?
-আজকে কাচ্ছি!
-এক প্লেট! আপনি টেবিলে রাখেন, আমি বাথরুম থেকে বের হয়ে টাকা দেবো; একটু চাপে আছি!

আমি বাথরুম থেকে বের হওয়ার পর, উনি আমাকে টেবিল দেখায়ে বললেন,
-চা ও বিরাণী দেয়া হয়েছে।
আমি দেখলাম বিরাণী থেকে ধুয়া উঠছে! আমি বললাম,
-অর্ডারটা কিন্তু আপনার কারণে দিয়েছি, আপনি খেয়ে নিয়েন।
আমি বের হয়ে সাবওয়ের দিকে রওয়ানা হলাম।
সর্বশেষ এডিট : ০৮ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১১:৫৩
৪৭টি মন্তব্য ৪৮টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

অগ্রহায়ণের অনুরণন!

লিখেছেন মনিরা সুলতানা, ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৫:০৮




ভেজা আচঁলের খুটে বেঁধে রাখা কিছু মমতা
জমিয়ে রাখি।
ফজর শেষের স্নিগ্ধতা যখন সমস্ত চরাচরে
দরদী দোয়ায় সিক্ত করে -
মুঠোভরে তুলে রাখি তার দু এক ছটাক।... ...বাকিটুকু পড়ুন

সুইটি আপু

লিখেছেন বাকপ্রবাস, ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৫:২৩


সুইটি আপুর তাড়া আছে
চালাও রিকশা জোরে
রিকশাওয়ালার পা চলেনা
কেমনে চাকা ঘুরে।

সুইটি আপুর ওজন ভারি
চেষ্টা চলে তবু
মাজা খিচে পা চলেনা
সহায় হও প্রভূ।

সুইটি আপু রাগলে ভারি
গালাগালি সাথী
চড় থাপ্পড়ে মন ভরেনা
মারল পাছায়... ...বাকিটুকু পড়ুন

কবিতার মৃত্যু নেই *****************

লিখেছেন , ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৯:৩২

কবিতার মৃত্যু নেই
******************************


কবিতা তো নয় শুধু নিছক কল্পনার স্তুপ,সময়ের সাথে এযে হয়না বিলীন!
কবিতার হৃদপিণ্ডে আছে ভাষা কম্পনের সিম্ফোনি;সুর লহরী চিরকালীন।

কবিতার অন্তর্গত শব্দের শয়ানে সুপ্ত এক বিশাল পৃথ্বী,
কবিতার... ...বাকিটুকু পড়ুন

গণজোয়ার কিংবা পুঁটি মাছের মত ভোট...

লিখেছেন বিচার মানি তালগাছ আমার, ১৩ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১২:০১



১. আওয়ামী লীগের নেতা কর্মী, সমর্থক গণ এক ধরনের ট্রমার মধ্যে আছে। তারা ভাবতেই পারেনি(এমনকি বিএনপি সমর্থকরাও না) শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচন করার জন্য বিএনপি-র নেতারা ১৩ কোটি টাকা দিয়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

শেষ বিকেলের আলোয় - মাইলস (লিরিক্স) পথ চলার গান যখন জীবনের ভালোবাসা

লিখেছেন ঠাকুরমাহমুদ, ১৩ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১:৪৬



শীতের দিন, দ্রুত সন্ধ্যা নেমে আসে, গ্রামের বাড়ী হতে কোলাহল মুখর ঢাকা ফিরে আসছি আবার সেই কর্ম ব্যাস্ততা, রুটিন জীবন যাপন, ছাত্র বয়ষে ভাবতাম কবে পড়ালেখা শেষ হবে কাজ... ...বাকিটুকু পড়ুন

×