somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

জাতি অসৎ হলে সরকার তথা প্রাশসনের কিইবা করার থাক-

২০ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ১১:৪০
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

আমার চলাচল সচারচর বাসা - অফিস, অফিস - বাসা। গার্মেন্টেস এ কামলা খাটি তাই দেশের খবরাখবর বলতে, কনটেইনটার বাহি লড়ি ও কাভার্ডভ্যান ধর্মঘট ছাড়া কিছু খোজ রাখার সময় থাকে না বা প্রয়োজনও থাকে না। এর বাইরে যেটুকু সময় পাই সেটুক হয় বাচ্চাদের সাথে অথবা পোষাপাখিদের সাথে ব্যয় করি। অতিব দরকার ছাড়া বাইরে যাই না।

গতকাল রাত ৮টার দিকে বের হলাম একটু প্রয়োজনে। জেলা শহর ও আমি যেহেতু বের হইনা সে জন্য এটা আমার জন্য বেশ রাত। কিপটামি স্বভাব ও স্বারিরিক পরিশ্রম বিবেচনায় আমি ১০মিনিটের রাস্তায় সর্বদা পা'জোড়া ব্যবহার করি। তো পা জোড়ার ব্যবহারে যখন এগিয়ে চলেছি, চারিদিকে শুধু লবন লবন শব্দ, এবং মোটামুটি বাজার ফেরত সবার হাতেই লবনের ব্যাগ। ঘটনা কি? রাষ্ট্রকি তা হলে পেয়াজের গন্ধ দুর করতে লবন নিয়ে মেতে উঠল নাকি। কাজ সেরে হাটছি এককাপ লাল চা' খাবার আশায়। পথে চোখে পড়ল কমলা লেবু, চায়ের কথা ভুলে কমলা লেবু কিনতে গেলাম, দোকানী আমার কাছে কমলা বিক্রিতে যতটা না আগ্রহী তার থেকে বেশি আগ্রহী হয়ে উঠল লবনের কথা নিয়ে। আমি নড়েচড়ে উঠলাম তা হলে কি লবন গুজব সত্যিই নাকি। এজনই কি হাতে হাতে লবন।

এবার গিয়ে দাড়ালাম এক মুদি দোকানে, সেখানেও লাইন লবনের জন্য। এক মহিলা আসল ৫কেজি লবন কিনতে, দোকানী ১কেজির বেশি বিক্রি করবে না। মহিলা নাছোর বান্দা সেও কিনবে, শেষমেশ দোকানদারকে প্রস্তাব করছে দাম বেশি হলেও তার ৫কেজিও লাগবে। আমি গিয়েছিলাম মেথি কিনতে, এসব কান্ড কারখানা দেখে ভুলেই গেলাম আমার মেথির কথা।

বাঙালির একটা স্বভাব আছে তা হল দাম বাড়তি দেখলেই অধিক পরিমানে কিনে স্টক করা। সদ্য পেয়াজের দাম আজ দেশিটা ১৫০ আমদানি করাটা ১২০ আগামীকাল ইনশাল্লাহ আরো অনেক কমে যাবে। পেয়াজের দামের সময় প্রতিটা দোকানে পেয়াজ কেনার হিড়িক। আমি ৫০করে "স্বপ্ন" থেকে পেয়াজ কিনে ঘর ফিরলাম, বাসায় গিয়ে শুনি পেয়াজ নাকি ১০০। খোজ নিতে গিয়ে দেখি সত্যিই ১০০। এখানে এমন তো নয় যে পেয়াজ সে রাতে কিনে এনেছে যার ফলে দাম বৃদ্ধি। প্রতিটা দোকানেই অনন্ত ১সপ্তাহের পিয়াজ স্টক থাকে, আড়তেও তাই। এখানে খুচরা বিক্রেতা থেকে আড়ৎদার কেও কিন্তু সৎ না। এখানে প্রশাসন বা সরকারপক্ষের কেও কিন্তু দাম বাড়ায়নি। দাম যা বাড়ানোর বাড়িয়েছে আমার-আপনার মত কারো ভাই, কারো প্রতিবেশ, কারো আত্মীয়। এখানে আমাদের আত্মীয়, প্রতিবেশী, ভাই এরাই কিন্তু চারিদিকে অতিরিক্ত লাভের আশায় দাম বৃদ্ধি করছে। আর প্রশাসনে এদেরই কেও না কেও।

মোড়ের রিক্সওয়ালা থেকে শুরু করে দেশের সর্বস্তরের মধ্যে সৎলোকের দেখা মেলা বড়ই কষ্টকর।
আকাশে মেঘ, অফিস সময়, আর উৎসব বাড়লেই রিক্সভাড়া দিগুন, আমরাও আজ ৫মিনিটের রাস্তা হাটতে চাই না। আমাদের আর্থিক স্বচ্ছলতায় শরীর একটু গরম হলেই ছুটে যায় ডাক্টারের কাছে, ডাক্টার বসেই আছে লম্বা প্রেসক্রিপশন নিয়ে, জ্বরের এক দিনেই ৩টা টেস্ট, এন্টিবায়োটিক, ভিটামিন এবং এমন সব ভৃতিকর কথা বলবে যে আপনি আবার ৩দিন বাদে ছুটতে বাধ্য। প্রেসক্রিপশন হাতে নিয়ে গেলেন ফার্মেসিতে, এবং ৫টা অষুধের মধ্যে ২টি নকল অষুধ গছিয়ে দিবে। বাড়িতে এসে খাবেন আর মুচকি মুচকি হাসবেন, যাহ রোগ তুই বিদেয় হ।

আমরা কথায় কথায় সরকারী লোকজনদের ঘুষ/দুর্নীতি নিয়ে দোষ দিয়ে থাকি। কিন্তু নিজের দিকে আঙুল তুলি না। গার্মেন্টেস এ কামলা খাটি এটা বেশ মজার জায়গা যেখন থেকে National and International চিটার বাটপারের দেখা মেলে। একজন মার্চেটডাইজার ৫-১০বছর চাকরী করে বিলাসবহুল বাড়ি, গার্মেন্টস এর মালিক বনে যান, কিভাবে যান সে কথা থাক, কাখানায় শ্রমিকদের টিফন দেয়া হয় সেটা কখনও মালিককৃত বরাদ্দের সমমানের থাকে না, বিভিন্ন সময় শ্রমিকদের উপহার সামগ্রী দেয়া হয় সেখানেও একই অবস্থা। ৩০হাজার টাকা বেতনে চাকরী করে ৫তলা বাড়ি বানিয়ে ফেলে নিশ্চয় সৎপথে না সেটা নিঃস্বন্দহে বলা যায়।

ঠিক এভাবে প্রতিটা স্তরে আজ অসৎ লোকে ভরপুর। সেখানে প্রশাসন বা সরকারের কিইবা করার আছে যদি না মানুষ নিজেদের অবস্থান থেকে সৎ না হয়।
সর্বশেষ এডিট : ২০ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ১১:৪১
৫টি মন্তব্য ৫টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

সাইয়েমা হাসানের ‘ফ্রেন্ডলি ফায়ার’

লিখেছেন নান্দনিক নন্দিনী, ৩০ শে মার্চ, ২০২০ রাত ৮:২৯



এদেশের সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্যব্যবস্থা নিরাপদ রাখতে সরকার সরকারি-বেসরকারি অফিসগুলোতে দশদিনের সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছেন। যেহেতু কোভিড-১৯ বা করোনা ভাইরাস জনিত রোগ তাই দশদিনের সাধারণ ছুটির মূল উদ্দেশ্য জনসাধারণ ঘরে... ...বাকিটুকু পড়ুন

বিশ্বের রাজধানি এখন করোনার রাজধানি।( আমেরিকা আক্রান্তের সংখ্যায় সবাইকে ছাড়িয়ে প্রথম অবস্থানে চলে এসেছে)

লিখেছেন রাফা, ৩০ শে মার্চ, ২০২০ রাত ১০:৪৫



যে শহর ২৪ ঘন্টা যন্ত্রের মত সচল থাকে।করোনায় থমকে গেছে সে শহরের গতিময়তা।নিস্তব্দ হয়ে গেছে পুরো শহরটি।সর্ব বিষয়ে প্রায় প্রথম অবস্থানে থেকেও হিমশিম খাচ্ছে সাস্থ্য... ...বাকিটুকু পড়ুন

কারো লেখায় মন্তব্যে করার নৈতিক মানদন্ড। একটু কষ্ট হলেও লেখাটি পড়ুন।

লিখেছেন সৈয়দ এমদাদ মাহমুদ, ৩০ শে মার্চ, ২০২০ রাত ১১:০২

সম্মানিত ব্লগারদের দৃষ্টি আকর্শন করে বলছি ব্লগারদের লেখা পড়ে মন্তব্য করবেন শিষ্টাচারের সঙ্গে। মন্তব্য যেন কখনো অন্যকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য না হয়। মন্তব্য হবে সংশোধনের লক্ষ্যে। কারো কোন... ...বাকিটুকু পড়ুন

করোনাময় পৃথিবিতে কেমন আছেন সবাই?

লিখেছেন রাফা, ৩০ শে মার্চ, ২০২০ রাত ১১:২৪



পোষ্ট লিখলাম একটা ক্ষুদ্র কিন্তু প্রথম পাতায় এলোনা ।সেটা জানতে এটা পরিক্ষামূলক পোষ্ট।সব সেটাপ'তো ঠিকই আছে তাহলে সমস্যা কোথায় ? আমি কি সামুতে নিষিদ্ধ নাকি?

ধন্যবাদ। ...বাকিটুকু পড়ুন

পোষ্ট কম লিখবো, ভয়ের কোন কারণ নাই

লিখেছেন চাঁদগাজী, ৩১ শে মার্চ, ২০২০ সকাল ৮:০১



আপনারা জানেন, নিউইয়র্কের খবর ভালো নয়; এই শহরে প্রায় ৫ লাখ বাংগালী বাস করেন; আমিও এখানে আটকা পড়ে গেছি; এই সময়ে আমার দেশে থাকার কথা... ...বাকিটুকু পড়ুন

×