somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

বিজয়ীদের লেখা ইতিহাসে যারা ঘৃণিত, তাদের কিছু ভালো কাজ

২৪ শে আগস্ট, ২০১১ রাত ১২:৪০
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


আজ পৃথিবীতে এমন ব্যাক্তি খুঁজে পাওয়া খুব কস্টকর হবে ,যারা হিটলার বা তার নাৎসি পার্টিকে ঘৃণা করেন না। ২য় বিশ্বযুদ্ধের কারন হিসেবে বেশীরভাগ মানুষই হিটলারকে দায়ী করবে। তবে আমার ব্যাক্তিগত মতামত হলো ২য় বিশ্বযুদ্ধের মূলকারণ ছিলো অসম ভার্সাই চুক্তি, মূলত ভার্সাই চুক্তির মধ্যেই রোপিত হয়েছিলো ২য় বিশ্বযুদ্ধের বীজ। পরাজিতদের কথা কেউ মনে রাখেনা , ভুলে যায় এবং সেই সাথে ভুলে যায় তাদের সব ভালো কাজের কথা। আজ আপনাদের সাথে শেয়ার করবো নাৎসিদের কিছু ভালো কাজ।

জীব বৈচিত্র্য সংরক্ষণ : নাৎসি জার্মানরা সবসময়ই জীব বৈচিত্র্য সংরক্ষণের ব্যাপারে সচেতন ছিলো । তারাই প্রথম বৈজ্ঞানিক কাজে পশুহত্যা(vivisection) বন্ধ করেছিলো । গোয়েরিং ,হিমলার , এবং হিটলার নিজেও জৈববৈচিত্র সংরক্ষণের ব্যাপারে সচেতন ছিলেন


ধূমপান বিরোধী আন্দলোনঃ ১৯৩০ থেকে ১৯৪০ সালের মধ্যে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ধূমপান বিরোধী আন্দোলন শুরু হলেও একমাত্র জার্মানিতেই এই আন্দোলন কিছুটা হলেও সফল হয়। নাৎসিরাই সর্বপ্রথম অফিস এবং অন্যান্য পাবলিক প্লেসে ধূমপান নিষিদ্ধ করেন। হিটলার যেখানে থাকতো সেখানে কেউ ধূমপান করতে পারতো না।


সমাজকল্যাণ এবং পারিবারিক মূল্যবোধ বৃদ্ধি: এখন পর্যন্ত সবথেকে বড় জনকল্যাণ মূলক কাজ নাৎসিদের দ্বারাই পরিচালিত হয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম ছিলো শীতকালীন ত্রাণ বিতরণ কর্মসূচী যেখানে উচ্চপদস্থ নাৎসি কর্মকর্তা এবং সাধারণ মানুষরা পথে নেমে এসে দরিদ্র মানুষদের জন্য তহবিল সংগ্রহ করতো ।
এবং ঐতিহ্যগতভাবে পারিবারিক মূল্যবোধ রক্ষা করা ছিলো নাৎসিদের অন্যতম মূলনীতি।


সড়ক পথ নির্মানঃ হাইওয়ে নির্মাণের মূল ধারনা কিন্তু জার্মানদের কাছ থেকে এসেছে , হিটলার অন্যতম স্বপ্ন ছিলো সমগ্র জার্মান জুড়ে সড়ক পথ নির্মাণ করা , যাতে সহজেই সব জায়গায় পৌঁছানো যায়।


আধুনিক মোটরযানের পথিকৃতঃ মূলত নাৎসি জার্মানরাই ছিলো আধুনিক মোটরযানের পথিকৃৎ । হিটলারই সর্বপ্রথম এমন একটি গাড়ির পরিকল্পনা করেছিলেন যেখানে পরিবারের সবাই থাকতে পারে। যেই পরিকল্পনার ফসল ছিলো Volkswagen



আধুনিক রকেট বিজ্ঞানের জনক: নাৎসিরাই ছিলো আধুনিক রকেট জনক । ভন ব্রাউন নামের একজন নাৎসি বিজ্ঞানী সর্বপ্রথম আধুনিক রকেট তৈরি করে । তার তৈরিকৃত v2 রকেটই ছিলো আধুনিক মিসাইলের দিকনির্দেশক। ভন ব্রাউন ২য় বিশ্বযুদ্ধের পরে আমেরিকার হয়ে কাজ করেছিলেন এবং আমেরিকার মহাকাশ মিশনে ব্যবহৃত রকেটগুলোর মূল কারিগর তিনিই ছিলেন । এ পি জে আব্দুল কালাম (ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি) তার লেখে বই wings of fire এ পড়েছিলাম যে ভারতের হাতে বর্তমানে যেসব আধুনিক মিসাইল আছে যেমন অগ্নি ,ত্রিশুল ,পৃথ্বী ইত্যাদি মিসাইল তৈরীতেও ভন ব্রাউন সাহায্য করেছিলেন


চলচিত্রে অবদানঃনাৎসি জার্মানরাই ছিলো আধুনিক চলচিত্রের পথিকৃৎ । চলচিত্রের জন্য ম্যাগনেটিক ট্যাপ রেকর্ডিং সর্বপ্রথম ব্যবহৃত হয় Leini Riefenstah (নিচের ছবি) এর পরিচালিত একটি প্রোপাগান্ডা চলচিত্র Triumph of the Will এ।



চিকিৎসা বিজ্ঞানে অবদানঃ নাৎসিরা চিকিৎসা ক্ষেত্রে অনেক আধুনিক ছিলো ,তারা অনেক গবেষণা করেছিলো যা প্রকাশ পায় নি কারন তাদের এই গবেষনা বেশীরভাগই চালিত হতো ইহুদী ক্যাম্প গুলোতে



আরো কিছু জানতে নিচে রিফাত হোসেনের মন্তব্যে লিঙ্ক গুলো পড়তে পারেন

এইরকম আরো অনেক কারন আছে যা বলে শেষ করা যাবেনা , অন্তত এইসব কারনগুলোর জন্য হলেও হিটলারকে সবার শ্রদ্ধা করা উচিত ।

একটা যুদ্ধবিধ্বস্ত জাতিকে এত দ্রুততার সাথে সুপার পাওয়ারে পরিনত করা একজন সাধারন নেতার পক্ষে সম্ভব না ।
আমি মনে করি আমাদের দেশের যে অবস্থা , হিটলারের মত একজন নেতা আমাদের খুব দরকার

সর্বশেষ এডিট : ২১ শে ডিসেম্বর, ২০১২ বিকাল ৪:২১
৪৪টি মন্তব্য ৪৪টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

কক্সবাজার ভ্রমণ ২০২০ : যাত্রা শুরু

লিখেছেন পগলা জগাই, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২০ দুপুর ১২:৫১




দীর্ঘ্য ৬ বছর পরে পরিবার নিয়ে বেরাতে যাওয়ার সুযোগ হলো আবার। এর মধ্যে ওদের নিয়ে বেরাতে গেলেও তা ছিলো ডে ট্রিপ, যেখানেই গেছি রাতের মধ্যে বাড়িতে ফিরতেই হয়েছে। স্ত্রী-কন্যকে নিয়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

নারী পাচার

লিখেছেন রাজীব নুর, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২০ দুপুর ১:৫৯



এশিয়ার এক নম্বর নারী ও শিশু পাচার রুট বাংলাদেশ।
প্রতিদিন দেশ থেকে প্রচুর নারী ও শিশু বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত দিয়ে অথবা বিমান যোগে পাচার হয়ে যাচ্ছে। পাচারকৃত নারী ও... ...বাকিটুকু পড়ুন

চিলেকোঠার প্রেম- ১২

লিখেছেন কবিতা পড়ার প্রহর, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২০ বিকাল ৪:২৩

প্রায় দেড় বছর! না না এক ফাল্গুন থেকে আরেক ফাল্গুন পেরিয়ে চৈত্রের শেষ। নাহ ঠিক দেড় বছর না, এক বছরের একটু বেশি সময় পর পা দিলাম আমার চিরচেনা... ...বাকিটুকু পড়ুন

মানুষের প্রতি দয়ামায়া না থাকলে দেশে কি কি ঘটতে পারে?

লিখেছেন চাঁদগাজী, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:১০



ভারত খাদ্য রপ্তানী করে, বাংলাদেশের মতো ভারতে সকাল-বিকেল খাদ্যদ্রব্যের দাম বাড়ে না, আয়ের তুলনায় খাবারের দাম কম; খাবারে কেমিক্যাল, ফরমালিন মিশায় না; অনেক বছর এত বেশী খাদ্য উৎপাদন... ...বাকিটুকু পড়ুন

হিরু আলুমের সিনেমা বাহিরে চলিচ্ছে , ভিতরে খালি ক্যারে

লিখেছেন শাহ আজিজ, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩৮


প্রাডো গাড়ি নিয়ে ঘুরছেন হিরো আলম। ছুটছেন এক প্রেক্ষাগৃহ থেকে আরেক প্রেক্ষাগৃহে। তাঁকে ঘিরে প্রেক্ষাগৃহের বাইরে আবার উৎসুক জনতার ভিড় লক্ষ করা গেলেও প্রেক্ষাগৃহের ভেতরে আসন ফাঁকা। নেই... ...বাকিটুকু পড়ুন

×