somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

মেয়েদের খৎনা

১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২২ দুপুর ১২:৩৩
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


পুরুষদের খৎনা করা হয় এটা আমরা জানি। পুরুষদের খৎনা মানে হল পুরুষদের দেহের সামনের অংশের মধ্য অঞ্চলে অবস্থিত ঝুলন্ত এবং লম্বাকৃতির একটি অঙ্গের অগ্রভাগের ত্বক কেটে কমিয়ে দেয়া হয়। কিন্তু পৃথিবীতে অনেক দেশ আছে যেখানে ব্যাপক হারে মেয়েদের অঙ্গের খৎনা করা হয়। উত্তর আফ্রিকার দেশগুলিতে এই হার বেশী। এই ধরণের খৎনায় মেয়েদের ক্লাইটরিস কিংবা ইনার ল্যাবিয়া অথবা আউটার ল্যাবিয়া আংশিক বা পুরোপুরি কেটে ফেলা হয়।

ঐতিহাসিকদের মতানুসারে খৃস্টপূর্ব ৮০০ অব্দে নীল নদের তীরবর্তী এবং সুদানের নিকটবর্তী মেরো (Meroite) সভ্যতায় মেয়েদের খৎনার প্রচলন ছিল বলে প্রমাণ পাওয়া যায়। এছাড়া খৃস্টপূর্ব ১৯৯১ অব্দে প্রাচীন মিসরের কফিনের মধ্যে হায়েরোগ্লিফস লেখায় মেয়েদের খৎনার প্রমাণ পাওয়া গেছে।

এখনও উত্তর আফ্রিকার প্রায় ২৭ টা দেশে (সোমালিয়া, সেনেগাল, মিশর, তাঞ্জানিয়া, গিনি, জিবুতি, সিয়েরালিয়ন, মালি, সুদান, ইরিত্রিয়া, গাম্বিয়া, ইথিওপিয়া, মউরিতানিয়া, লাইবেরিয়া, চাদ, নাইজেরিয়া, সেনেগাল, কেনিয়া, ইয়েমেন, বেনিন, তোগো, ঘানা, নাইজার, উগান্ডা, ক্যামেরুন) ব্যাপকভাবে ধর্ম নির্বিশেষে মেয়েদের খৎনা করা হয়। এছাড়া ইয়েমেন, ইরাকি কুরদিস্তান, জর্ডান, ইরাক, সিরিয়া, ওমান, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং কাতারে এই প্রথা বেশ ভালো ভাবেই চালু আছে। এশিয়া মহাদেশে ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়াতে এই প্রথা আছে।

উপরে উল্লেখিত দেশগুলিতে ব্যাপকভাবে মেয়েদের খৎনা করার প্রথা আছে। অনেক দেশে এটার হার ৯৫%। আবার অনেক দেশে ২০%। এই দেশগুলি ছাড়াও আরও কয়েকটি দেশে মেয়েদের খৎনা করা হয়। যদিও এই ধরণের খৎনার হার এই সব দেশে খুব কম। এই দেশগুলির মধ্যে আছে মধ্যপ্রাচ্চের অন্য দেশগুলি, লিবিয়া, কঙ্গো, উগান্ডা, আফগানিস্তান, ইসরাইল ইত্যাদি।

মেয়েদের এই খৎনার কারণে অনেক সময় মেয়েদের অঙ্গে জখম হয় এমন কি অনেক সময় মৃত্যু পর্যন্ত হয়। এছাড়া মেয়েদের জীবনে এটার কারণে অনেক সময় দীর্ঘস্থায়ী ভিতি, উৎকণ্ঠা এবং বিষণ্ণতা সৃষ্টি হয়। সাধারণত বাড়িতে ছুরি, কাচি দিয়ে এই খৎনা করা হয়। ইউনিসেফ এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই খৎনার বিরুদ্ধে তাদের মতামত দিয়ে থাকে। পশ্চিমের অনেক দেশে এই ধরণের খৎনা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। ইসলাম ধর্মে এই ধরণের খৎনা ঐচ্ছিক ব্যাপার। পক্ষে বা বিপক্ষে কোন কিছুই বলা নাই। খৎনা করতে হবে এমন কোন আদেশ, নিষেধ বা উপদেশ নেই। যে সব দেশে এই ধরণের খৎনার প্রবণতা বেশী তাদের বড় অংশই অমুসলিম।

মজার ব্যাপার হচ্ছে যে এই ধরণের খৎনা অনেক নারী সমর্থন করছে। পরিবারের নানী, দাদীরা এই খৎনা করাকে জরুরী মনে করছে। ১৯৮৩ সালে সুদানের মাত্র ১৭% মেয়ে এই খৎনার বিরোধী ছিল। বিভিন্ন জরীপ থেকে দেখা যায় যে এই দেশগুলিতে বর্তমানে প্রায় অর্ধেক নারী এটার পক্ষে এবং অর্ধেক বিপক্ষে। এই ধরণের খৎনার পক্ষে সামাজিক চাপ আছে।

আফ্রিকার অনেক প্রখ্যাত নারী নৃতত্ত্ববিদ এই খৎনার পক্ষে বলছেন। তাদের দৃষ্টিতে এই খৎনার বিরোধিতাকারী পশ্চিমারা আফ্রিকার পারিবারিক চর্চা ও যৌনতার সংস্কৃতিকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চাচ্ছে।

আনন্দের কথা হল বাংলাদেশে এই চর্চা নাই।

সুত্র -
https://en.wikipedia.org/wiki/Female_genital_mutilation#Prevalence
https://www.guttmacher.org/journals/ipsrh/1997/09/female-circumcision-rite-passage-or-violation-rights
https://bmcpublichealth.biomedcentral.com/articles/10.1186/s12889-015-2203-6
https://en.wikipedia.org/wiki/Prevalence_of_female_genital_mutilation#Saudi_Arabia
https://en.wikipedia.org/wiki/Female_genital_mutilation
https://www.who.int/news-room/fact-sheets/detail/female-genital-mutilation

ছবি- ghrd.org
সর্বশেষ এডিট : ১৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২২ সকাল ১১:১৪
২০টি মন্তব্য ২০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

সে কোন বনের হরিণ ছিলো আমার মনে-১৯

লিখেছেন অপ্‌সরা, ২৫ শে নভেম্বর, ২০২২ রাত ৯:৩৫



আজকাল আমি রোজ বিকেলে সিদ্দিকা কবিরের বই দেখে দেখে ডালপুরি, সিঙ্গাড়া, সামুচা বানাই। বাবার বাড়িতে আমি কিছুই রান্না শিখিনি, এমনকি ভাতও টিপ দিয়ে বুঝতে শিখিনি সিদ্ধ হলো নাকি হলো না... ...বাকিটুকু পড়ুন

নূর মোহাম্মদ নূরু ভাইয়া আর কখনও ফিরবেনা আমাদের মাঝে

লিখেছেন শায়মা, ২৬ শে নভেম্বর, ২০২২ রাত ২:০২


নূর মোহাম্মদ নূরু
আমরা কিছু সামু পাগল আছি যাদের সামুতে না লিখলে কিছুই ভালো লাগে না। নুরুভাইয়া মনে হয় ছিলেন সেই দলে। প্রথমদিকে উনাকে ফুল ফল ও মনিষীদের জীবন নিয়েই লিখতে... ...বাকিটুকু পড়ুন

শোক সংবাদঃ ব্লগার নূর মোহাম্মদ নূর আর আমাদের মাঝে নেই।

লিখেছেন কাল্পনিক_ভালোবাসা, ২৬ শে নভেম্বর, ২০২২ রাত ৩:০৪



সুপ্রিয় ব্লগারবৃন্দ,
আমরা অত্যন্ত দুঃখ ভারাক্রান্ত হৃদয়ে জানাতে চাই যে, সামহোয়্যারইন ব্লগের ব্লগার নূর মোহাম্মদ নূরু (নূর মোহাম্মদ বালী) আর আমাদের মাঝে নেই। ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্নইলাহি রাজিউন। গত ২৯ অক্টোবর রাত... ...বাকিটুকু পড়ুন

যেকোনো মৃত্যু: বড় কষ্টের, বড় বেদনার.....

লিখেছেন জুল ভার্ন, ২৬ শে নভেম্বর, ২০২২ সকাল ১০:৪৯

যেকোনো মৃত্যু: বড় কষ্টের, বড় বেদনার.....

ছড়াকার সাংবাদিক ব্লগার বন্ধু নুর মোহাম্মদ নুরু ভাইর চলে যাওয়া খুব কষ্টের। আরও বেশী কষ্ট পেয়েছি ব্লগার শায়মার পোস্টে নুরু ভাইয়ের মেয়ের হৃদয়বিদারক লেখা পড়ে।... ...বাকিটুকু পড়ুন

১ মাস গত হয়ে যাবার পর?

লিখেছেন শূন্য সারমর্ম, ২৬ শে নভেম্বর, ২০২২ দুপুর ১:২৮





ব্লগে রেজিস্ট্রেশন করে লিখতে শুরু করলেন, সময় গত হবার পর আপনি পরিচিতি পেলেন, সবাই আপনার পোস্ট, কমেন্ট চায় ; আপনি যথেষ্ট সক্রিয় ব্লগে।হঠাৎ আপনি অসুস্থ হয়ে অনিয়মিত, অসুস্থতায় আপনি মৃত্যুবরণ... ...বাকিটুকু পড়ুন

×