somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

এই গরমে দাদাদের লইয়া কিছু চরম কৌতুক !! (Old Wine in a new bottle !!) ১৮+

১১ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১০:১১
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

বাংলাদেশ লইয়া চীন ও ভারতের রশি টানাটানি চলিতেছে। পাল্লা ভারতের দিকে বেশি হেলিয়া থাকিলেও ভারতের উদ্বেগ যায় না ! এতো প্রতিকূলতা সত্বেও যে জাতি এমন বিস্ময়কর অর্থনৈতিক উন্নতি , মানব সম্পদ উন্নয়ন করিতে পারে তাহারা যেকোন সময় মাইনকা চিপা হইতে বাহির হইতে চাহিবে ইহাই স্বাভাবিক ! তারউফরে চীনের ক্রমাগত অর্থনৈতিক বিনিয়োগে বাংলাদেশ চীনের দিকে হেলিয়া যায় কিনা উহা লইয়া বিরাট আশংকা আছে। তাই আগে হইতে সতর্ক করিতে উচ্চ পর্যায়ের এক প্রতিনিধিদল বাংলাদেশ সফরে আসিল ! ঠিক হইলো স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ আর মানব সম্পদ মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি আসিবেন আর তাহাদের সাথে আসিবেন বিরাট কোহলি ! যথারীতি বাংলাদেশ সুপ্রিমো সহ হাই প্রোফাইল নেতৃবৃন্দের সাথে সফল বৈঠকের পরে তাহারা বাহির হইলেন বাংলাদেশের অবস্থা সচক্ষে অবলোকন করার জন্য ! ঠিক হইলো অমিত শাহ আর স্মৃতি ইরানি যাইবেন তৈরী পোশাকের দোকানে। সেখানে গিয়া ক্রেতাদের আচরণ, পোশাকের মান আর দাম যাচাই করিবেন ! তৈরী পোশাকে বাংলাদেশের এতো উন্নতির কারণ কি তাহা বাহির করিতে চেষ্টা করিবেন !

আর কোহলি যাইবে বাংলাদেশ কাউন্টার ইন্টেলিজেন্সের প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে ! ইন্টেলিজেন্স কমিউনিটিতে বিখ্যাত খেলোয়াড়, সাংস্কৃতিক কর্মীদের রিক্রুট করার রেওয়াজ আছে ! কোহলিকেও কাজে লাগানোর জন্য 'র' হইতে তাহাকে প্রশিক্ষণের জন্য পাঠানো হইয়াছে ! মুখে স্বীকার না করিলেও ট্যাকটিক্যাল প্রশিক্ষণে যে বাঙালি সেরা তাহা 'র' এর কর্তাব্যক্তিরা বিলক্ষণ জানেন ! তাই ঠিক হইয়াছে কোহলি কিংবদন্তি মাসুদ রানার অধীনে প্রশিক্ষণ লইবে ! প্রশিক্ষণ শেষে তাহাকে আলাদা রিপোর্টও করিতে হইবে ! নির্দিষ্ট দিনে সকলেই নিজ নিজ গন্তব্যে হাজির হইলো !

ক । অমিত শাহ ঘুরিতে ঘুরিতে যাইয়া হাজির হইলেন ব্লগার "বিবাহিত লালসালু"র দোকান ‘সাজগোজে’ ! নিজের পরিচয় গোপন করিয়া লালসালুর সাথে দরদাম করিতে লাগিলেন !

অমিত শাহ : দাদা, একখানা আন্ডারপ্যান্ট দেখান তো ?
লালসালু : এটা নিয়ে যান দাদা, আমাগো টারজান এই ব্র্যান্ড পরেন। পুরাই এয়ার কন্ডিশনার ! দাম মাত্র ১০০ টাকা ।
অমিত শাহ : আরেকটু কমের মধ্যে দেখান না, দাদা ।
লালসালু : তবে এটা দেখুন দাদা, বেসম্ভবরে সম্ভব করা সুপারম্যান পড়েন। খুব আরাম, মাত্র ৭০ টাকা। আপনি ধুতির উফরেও পড়িতে পারিবেন !
অমিত শাহ : দাদা আরেকটু কম, বোঝেন ই তো।
লালসালু : তবে এটা নিন দাদা, স্পাইডার ম্যান পড়েন। মাত্র ৫০ টাকা। মাথায়ও পড়িতে পারিবেন !
অমিত শাহ : আরেকটু কম দাদা ।। ... ...আরেকটু...............
লালসালু : তবে এক কাজ করুন দাদা, ধুতিটা খুলে রঙ করিয়ে নিন ।

অমিত শাহ রিপোর্ট লিখিলেন :


১. অর্থনৈতিক সাশ্রয়ের জন্য ভারতীয়রা আন্ডারপ্যান্ট না পড়িয়া রং করিলে বিপুল পরিমান অর্থ সাশ্রয় হইবে ! ইহা অর্থনৈতিক সংকট হইতে উত্তরণে বিরাট ভূমিকা রাখিবে ! সাশ্রয়ী অর্থ দিয়া মঙ্গল গ্রহে পায়খানা বানানো যাইতে পারে !!

২. রং অবশ্য গেরুয়া রঙের হইতে হইবে ! দেশপ্রেমের প্রতীক হিসাবে ইহা রাজনীতিতে ব্যবহার করা যাইতে পারে ! বিজেপি সমর্থকদের জন্য ইহা আবশ্যক করিতে হইবে ! যাহারা রঙ না করিয়া আন্ডু পড়িবে তাহাদের দেশদ্রোহী হিসেবে চিহ্নিত করিতে হইবে ! পরবর্তী ভোটের প্রচারণার মূল ভিত্তি ইহাই হইতে পারে !

বি. দ্র. টারজানের নেঙটিকে আন্ডু বলা যাইবে কিনা ইহাতে অবশ্য সরকারি ও বিরোধী দলীয় রাজনীতিজীবীবৃন্দ, বুদ্ধুজীবিবৃন্দ, ব্লগারবৃন্দ একমত হইতে পারেন নাই !


খ। অতঃপর স্মৃতি ইরানি যাইয়া হাজির হইলেন সাজগোজে ! নিজের পরিচয় গোপন করিয়া লালসালুর সাথে দরদাম করিতে লাগিলেন ! লালসালু কিন্তুক স্মৃতিরে চিনিয়া ফেলিল ! না বুঝিবার ভান করিয়া ধড়িবাজ লালসালুও দরদাম চালাইতে লাগিলেন !!!


স্মৃতি : দাদা , সস্তার ভিতরে ভালো দেখে ব্রা দেখান তো ?।

লালসালু : এইটা নেন দিদি, মাত্র ১০০ টাকা। ওয়ান্ডার ওম্যান এই ব্র্যান্ডের ব্রা পড়ে ! এইডা পইড়া কাশ্মীরে যুদ্ধেও যাইতে পারিবেন ! বুলেট ভি ঠেকাইয়া দিব !

স্মৃতি : আর একটু কমে নাই, দাদা?

লালসালু : তাইলে এইটা নেন দিদি, মাত্র ৭০ টাকা !! সানি লিওনি এই ব্র্যান্ডের ব্রা পড়ে ! এইটা পইড়া কাশ্মীরে গেলে গোলাগুলি বন্ধ হইয়া যাইব ! পাকি , ইন্ডিয়ান কেহই চোখ ফেরাইতে পারব না , যুদ্ধ তো দূরের কথা ! এমনকি অজিত দোভালও চাইয়া থাকব !!

স্মৃতি : আর একটু কম দেখান না , দাদা !

লালসালু : তাইলে এইটা নেন , মাত্র ৫০টাকা !! প্রিয়াঙ্কা চোপড়া এই ব্র্যান্ডের ব্রা পড়ে ! মা কি কছম, এইটা পইড়া গেলে কাশ্মীরি পোলাপাইন ঢিল ছোড়া বন্ধ কইরা দিবে !! বাচ্চা পোলা নিক যেমনে বশ হইছে , পোলাপাইনও বশ হইয়া যাইবে !

স্মৃতি : নাহ্ বেশী হইয়া গেল ! আরেকটু কম দেখান না দাদা !!

লালসালু : ওই মদন ! ম্যাডাম রে আইসক্রিম এর দুইটা খালি কাপ আর একটুকরা সুতা দিয়া দে !

স্মৃতি ইরানি রিপোর্ট লিখিলেন :

১. অর্থনৈতিক সাশ্রয়ের জন্য ভারতীয়রা ব্রা না পড়িয়া আইসক্রিমের কাপ পড়িলে বিপুল পরিমান অর্থ সাশ্রয় হইবে ! ইহা অর্থনৈতিক সংকট হইতে উত্তরণে বিরাট ভূমিকা রাখিবে ! সাশ্রয়ী অর্থ দিয়া "বাহুবাল-৩" বানানো যাইতে পারে !!

২. আইসক্রিমের কাপ অবশ্যই গেরুয়া রঙের হইতে হইবে ! দেশপ্রেমের প্রতীক হিসাবে ইহা রাজনীতিতে ব্যবহার করা যাইতে পারে ! বিজেপি সমর্থকদের জন্য ইহা আবশ্যক করিতে হইবে ! যাহারা কাপড়ের ব্রা পড়িবে বা অন্য রংয়ের কাপ পড়িবে তাহাদের দেশদ্রোহী হিসেবে চিহ্নিত করিতে হইবে ! পরবর্তী ভোটের প্রচারণার মূল ভিত্তি ইহাই হইতে পারে !

৩. আইসক্রিমের কাপের মাপ অবশ্যই ব্রার মাপের হইতে হইবে !


গ। অতঃপর কোহলি বিসিআই ট্রেনিং ক্যাম্পে হাজির হইলো ! ইন্সট্রাক্টর ছিলেন স্বয়ং মাসুদ রানা ! কোহলি তাহারে চিনে না বিধায় স্বভাবসুলভ ভাব লইতে লাগিল !

সৌজন্যের খাতিরে রানা কোহলির কুশল জিজ্ঞাসা করিলেন ! কেমন আছো কোহলি ?

কোহলি : (ভাব লইয়া ) আছি বেশ। দু'আঙুলে ভারত রে নাচাইতাছি।

রানা : কস কি ! ভারতরে নাচাইতাছোস !! খাড়া , তোর ইয়ে বাইর করতাছি! অতঃপর , ইন্সট্রাক্টরের স্বভাবসুল গরম মেজাজ সামলাইয়া মনে মনে এই বেয়াদবরে একখানা শিক্ষা দেওয়ার মনস্থ করিলেন ! তবে মুখে কিছু না বলিয়া কোহলিরে ট্রেনিংয়ে ডাকিলেন ! তাহার সাথে ট্রেনিং নিতেছে গিলটি মিয়া ! রানা ঠিক করিলেন দুইজনের ভিতরে প্রতিযোগিতা লাগাইবেন ! ঠোঁটের কোনে ঈষৎ হাসি লইয়া কোহলির চৌদ্দ পুরুষ সম্পর্কিত গালি দিয়া তাহাকে ময়দানে যাইতে কইলেন ! রানার কমান্ড আর গালি শুনিয়া কোহলির প্যান্ট এমনিতেই নামিয়া যাইতেছিলো ! এক্ষণে কি করিতে হইবে শুনিয়া প্যান্ট আর কোমরে উঠিতেই চাহে না!

-----------বয়েজ , ওই তাল গাছের মাথায় একখানা কাউয়ার বাসা আছে ! কাউয়ার পেটের নিচে আন্ডাও আছে ! লুঙ্গি/ধুতি পইড়া গাছে উইঠ্যা কাউয়ার পেটের নিচ হইতে আন্ডা লইয়া আসিতে হইবে ! কাউয়া উড়িলে ফেল !

কোহলি : ছোহ ! এইডা একখানা কাজ হইলো !! আনুশকারে কতজনের তলা হইতে বাইর করলাম , কেউ কি টের পাইছে ! এ আর এমন কি !! ছোহ !! তয় ধুতি পইড়া গাছে ওঠা ---- কেমুন কেমুন জানি লাগে !
রানার দাবড়ানি খাইয়া কোহলি আর চিন্তা করার সময় পাইলো না ! ধুতিখানা পড়িয়া তর তর কইরা গাছে উঠিয়া গেলো এবং কাউয়ার পেটের তলা হইতে আন্ডাও লইয়া আসিল, কাউয়া টেরও পাইলো না !!

নামিয়া , বুকের ছাতি ৮০ ইঞ্চি ফুলাইয়া, ভাব দেখাইয়া তৃপ্তির স্বরে বলিল : এই যে বস , কাউয়ার পেটের তলা হইতে আন্ডা লইয়া আসিয়াছি , কাউয়া টেরই পায় নাই , বইসা আছে !

গিলটি মিয়া : খাড়াও মিয়া ! বসের লগে ভাব লওনের আগে আমার কথা হুইন্যা লও !! তুমি ভারত রে দুই আঙুলে ঘুরাও ঠিকই। গাছে উইঠা কাউয়া না উড়ায়া কাউয়ার পেটের তলা থেইকা আন্ডা ভি লইয়া আইছো ঠিকই। মগর উঠোনের টাইমে আমি যে দুই আঙুলে তোমার ধুতি খুইল্যা রাইখা দিছি তুমি হালায় টেরই পাইলা না। নিচে চায়া দেহো পুরা সুন্দরবন দেহা যাইতাছে !!

কোহলি রিপোর্ট লিখিল :

১. বাঙালীর প্রশিক্ষণ বিদঘুটে মনে হইলেও অতিশয় উন্নতমানের !
২. ইহারা অত্যন্ত কৌশলী, কৌশলে পরাস্ত করিতে সিদ্ধহস্ত !
৩. ইহাদের সাথে দিগ্ গারি না করিয়া দূরে থাকাই ভালো ! দিগ্ গারি করিলে ইজ্জত-সম্মান হারাইবার আশংকা আছে , মায় পরনের কাপড়ও !!

সর্বশেষ এডিট : ১১ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১০:১১
১৪টি মন্তব্য ১৪টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

একজন কাওসার চৌধুরী ও তার গল্পগুচ্ছ 'পুতুলনাচ' (বই রিভিউ)

লিখেছেন আকতার আর হোসাইন, ১৭ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ২:১৫



লেখকের প্রথম বই--- বায়স্কোপ: যে বইয়ে কাওসার চৌধুরী এঁকেছেন জীবনের বায়স্কোপ

আর সবার মতন একজন লেখকেরও রয়েছে স্বাধীনতা। যার যে বিষয়ে ইচ্ছে সে সেই বিষয়েই লিখবে। জোড় করে কোন লেখকের... ...বাকিটুকু পড়ুন

যীশুর রহস্যময় বাল্যকালঃ মিশর অবস্থান কাল বার বছর পর্যন্ত

লিখেছেন শের শায়রী, ১৭ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ৩:৩০



যীশুর জীবনের অন্যতম রহস্যময় ঘটনা হিসাবে যা আমার কাছে মনে হয় তা হল যীশুর বাল্যকাল। ইতিহাস প্রসিদ্ধ ধর্মপ্রচারকদের মাঝে যীশুর জীবনির একটা অংশ নিয়ে আজো কোন কুল কিনারা পাওয়া যায়... ...বাকিটুকু পড়ুন

বাড়ী ভাড়া বিষয়ক সাহায্য পোস্ট - সাময়িক, হেল্প/অ্যাডভাইজ নিয়েই ফুটে যাবো মতান্তরে ডিলিটাবো

লিখেছেন বিষন্ন পথিক, ১৭ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সকাল ৯:১৭

ফেসবুক নাই, তাই এখানে পোস্টাইতে হৈল, দয়া করে দাত শক্ত করে 'এটা ফেসবুক না' বৈলেন্না, খুব জরুরী সহায়তা প্রয়োজন।

মোদ্দা কথা...
আমার মায়ের নামে ঢাকায় একটা ফ্লাট আছে (রিং রোডের দিকে), ১৬০০... ...বাকিটুকু পড়ুন

সমস্ত দিনের শেষে শিশিরের শব্দের মতন সন্ধ্যা আসে...

লিখেছেন পদ্ম পুকুর, ১৭ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সকাল ১০:৪৫


জীবনানন্দ দাস লিখেছেন- সমস্ত দিনের শেষে শিশিরের শব্দের মতন সন্ধ্যা আসে...। বনলতা সেন কবিতার অসাধারণ এই লাইনসহ শেষ প্যারাটা খুবই রোমান্টিক। বাংলা শিল্প-সাহিত্যের রোমান্টিসিজমে সন্ধ্যার আলাদা একটা যায়গাই রয়ে গেছে।... ...বাকিটুকু পড়ুন

বাবার ঘরেও খেতে পাইনি, স্বামীর ঘরেও কিছু নেই!

লিখেছেন চাঁদগাজী, ১৭ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:৪৪



"বাবার ঘরেও খেতে পাইনি, স্বামীর ঘরেও কিছু নেই!", এই কথাটি আমাকে বলেছিলেন আমাদের গ্রামের একজন নতুন বধু; ইহা আমার মনে অনেক কষ্ট দিয়েছিলো।

আমি তখন অষ্টম শ্রেণীত, গ্রাম্য এক... ...বাকিটুকু পড়ুন

×