somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

তসলিমা নাসরিন

১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০১২ রাত ১২:০৫
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

শরাফ মামা তার শরীর কে হাসতে হাসতে আমার ওপরে ধপাশ করে ফেলে আবার টেনে নামান আমার হাফ প্যান্ট। আর নিজের হাফ প্যান্ট খুলে তার নুনু ঠেশে ধরেন আমার গায়ে। বুকে চাপ লেগে আমার শ্বাস আটকে থাকে। ঠেলে তাকে সরাতে চেষ্টা করি আর চেঁচিয়ে বলি- এইটা কি কর, সর শরাফ মামা সর।
গায়ের সব শক্তি দিয়ে ঠেলে তাকে এক চুল সরাতে পারি না।
-মজার জিনিশ দেখাইতে চাইছিলাম, এইডাই মজার জিনিশ।
শরাফ মামা হাসেন আর সামনের পাটির দাঁতে কামড়ে রাখেন তার নিজের ঠোঁট।
-এইটারে কি কয় জানোস, চোদাচুদি। দুনিয়ার সবাই চোদাচদি করে। তোর মা বাপ করে, আমার মা বাপ করে।
শরাফ মামা তার নুনু ঠেলতে থাকেন বিষম জোরে। আমার বিচ্ছিরি লাগে। শরমে চোখ ঢেকে রাখি দু হাতে! (পেজ নং- ৪২, বই-আমার মেয়ে বেলা, লেখিকা- তসলিমা নাসরিন)

এতো টুকু পড়ে আমি ধপাশ করে বিছানায় চিত হয়ে কিছুক্ষণ শুয়ে চিন্তা করলাম- এটা আমি কি পড়লাম! নাসরিন আনটি এটা কি লিখল। শেষ পর্যন্ত মামা.....!

এটা লেখার উদ্দেশ্য লেখিকার মামা লেখিকাকে শারীরিক নির্যাতন করেছে এক কথায় যাকে বলে যৌন নির্যাতন। কিন্তু একটা আট বছরের বালক কি করে একটা সাত বছরের বালিকা কে রেপ করতে পারে তা আমার মাথায় কিছুতেই আসছে না । আর তাছাড়া এক অজানা অচেনা উদ্ভ্রান্ত পল্লীতে তসলিমা নাসরিন কে তার শারাফ মামা যেই কুৎসিত জিনিশ শিখিয়েছিলেন, সেই কুৎসিত জিনিশ লেখিকার শত-লক্ষ পাঠক-পাঠিকা কে শেখানর কি এমন দরকার পড়ল তা আমি ভেবে পাচ্ছিনা। পৃথিবীতে কোটি কোটি মামা আছে। আমার বিশ্বাস এমন মামার সংখ্যা খুব বিরল। বেক্তিগত ভাবে আমি প্রাত্থনা করি, এই বিরল সংখ্যা টাও পৃথিবী থেকে নির্মূল হবে।

লেখক লেখিকারা অনেক সময় পাঠক-পাঠিকা ধরে রাখার জন্য কিংবা সস্তা নাম কামাবার জন্য এমন রগরগে এবং দুর্ধর্ষ বিবরন দিয়ে থাকেন। কিন্তু তসলিমা নাসরিনের ব্যাপার আলাদা। তিনি এই দেশের একজন নাম করা লেখিকা। আমি নীলক্ষেত থেকে যখন তার ‘আমার মেয়েবেলা’ বই টি কিনি তখন দেখলাম সব দোকানেই সারি সারি করে তার বই সাজানো। দোকানদার কে জিজ্ঞেশ করে জানলাম , হুমায়ুন আহমেদের চাইতেও তার বই এর কাটতি বেশী! একজন নিসিদ্ধ লেখিকা যে এত টা জনপ্রিয় হতে পারে, নিজের চোখে না দেখলে বিশ্বাস করা যায় না। তবে এত টুকু উপলব্ধি করলাম, এই দেশে নিষিদ্ধ পাঠক পাঠিকার সংখাও কম নয়। যেমন আমি।


আমার ধারণা মতে বাংলা অশ্লীল ছবির এমন অনেক দর্শক আছে, যারা টানা তিন ঘণ্টা পূর্ণ মনোযোগের সাথে ছবি দেখার পর হল থেকে বেরোতে বেরোতে কমেন্টস করে- ছিঃ, এমন বাজে জিনিশ মানুষ দেখে! এর বিরুদ্ধে অবশ্যই পদক্ষেপ নেওয়া উচিত। শারাফ মামাকে ছেড়ে বাংলা ছবির অসুস্থতার দিকে যাচ্ছি কেন? কারন আছে।- আমার কাছে মনে হয়েছে, লেখিকা মামার যে কুকর্মের কথা বর্ণনা করেছেন, তা বাংলা অশ্লীল ছবির মতই অনেক রসালো। আমি অনেক রেপ কাহিনী পরেছি, যেমন ছেলেরা মেয়ে দের রেপ করেছে, মেয়ে রা ছেলে দের রেপ করেছে! সেগুল পড়ে আমার রেপ এর শিকার হওয়া মানুষ গুলর প্রতি অনেক সমবেদনা জেগেছে। রেপ করা মানুষ গুলর প্রতি ও জেগেছে ঘৃণা। কিন্তু এমন রসালো রেপ ও যে হতে পারে, তা জানলাম লেখিকার বই টি পড়ে। তবে কেন যেন আমার শারফ মামার প্রতি একটুও ঘৃণা জাগে নি, সেই সাথে লেখিকার প্রতিও জাগেনি সমবেদনা! এটা কি লেখিকার লেখনির জাদু, নাকি আমার অবচেতন মনের বিকৃত নির্লিপ্ততা? !



লেখিকা শুধু মামার ধর্ষণের কথাই প্রকাশ করে খেন্ত থাকেননি, চাচার ধর্ষণের কথাও এক ই বইতে বিতং করে লিখেছেন। যেমন-
আমার শরীর বেয়ে কাকার হাত নেমে আসে আমার হাফ প্যান্টে। হাত টি নামতে থাকে আমার হাফ প্যান্ট এর নীচের দিকে। গড়াতে গড়াতে আমি বিছানা থেকে নেমে যেতে থাকি । আমার পা মেঝে তে, পিঠ বিছানায়, হাফ প্যান্ট হাঁটুর কাছে, হাঁটু বিছানাতেও নয়, মেঝেতেও নয় (এটা কেমন করে সম্ভব কে জানে)! কাকা তার লুঙ্গি ওপরে তোলেন,দেখি কাকার তল পেটের তল থেকে মস্ত বড় এক সাপ ফনা তুলে আছে আমার দিকে, যেন এক্ষনি ছোবল দেবে। ভয়ে আমি সিটিয়ে থাকি। আমাকে আরও ভয় পাইয়ে দিয়ে আমার দু উরুর মাঝ খানে ছোবল দিতে থাকে সেই সাপ। এক ছোবল, দুই ছোবল, তিন ছোবল। (পেজ নং- ৫৪)

এই বইতে এরকম একের পর এক ,লেখিকা শুধু তার ওপর পুরুষ দের নির্যাতনের কথাই লিখে গেছেন। যেন সারা পৃথিবীর পুরুষরা তাকে ধর্ষণ করার জন্য উদগ্রীব। তিনি তার বই তে এই ধারনাও পোষণ করেছেন ,- এই নোংরা পুরুষ সমাজ শুধু তাকেই নয়, সুযোগ পেলে সব মেয়ে কেই নির্যাতন করবে। তিনি আরও বোঝাতে চেয়েছেন- পুরুষ মাত্রই পশু, পুরুষ মাত্রই পিচাশ। চাচা, মামা, ভাই, খালুরাও নারীর জন্য নিরাপদ না। এমন কি নিজের বাবা কেও নারীদের বিশ্বাস করা ঠিক না।

তার বই পড়ে কিছুক্ষণের জন্য হেপ্নটাইজড হয়ে যেতে হয়। নিজের বিশ্বাসেও ফাটল ধরে। আমি একজন পুরুষ, তার মানে কি আমি একজন পশু? সবাই হয়তো প্রভাবিত হবেনা, কিন্তু একজন দুর্বল চিত্তের মানুষ হিসেবে আমি অনেকটাই প্রভাবিত হয়েছিলাম আমার মেয়ে বেলা পড়ে। প্রভাবিত হবার পরিমান এতই বেশী ছিল যে আমি পুরুষ সমাজের মুখে চুন কালি মেখে আমি নিজেই একটি পুরুষ বিরোধী কবিতা উৎপাদন করে ফেলেছিলাম। কবিতা টি এ খানে হুবুহু দিয়ে দিলাম। যারা আমার এই কবিতাটির চরিত্র, তারা ছাড়া অন্য সব পুরুষ রা আমাকে ক্ষমা করবেন!



আমি ধর্ষক খেলোয়াড়,
আমি উন্মাদ কামে টেনে টেনে ছিরি-মেয়েদের সালোয়ার।
আমি ললনার মহা ক্ষতি।
নজর আমার নয় বালিকার-যৌনাঙ্গের প্রতি।

মা-বোন হয়েছে ফিকে,
আমি রাস্তা ঘাটে তাকিয়ে থাকি-নারীর পাছার দিকে।
আমি কালো আকাশের রব।
প্রলোভন দিয়ে প্রেমে ফেলে শেষে-রমণীর লুটি সব।
আমি অমানুষ পশু পাজি,
আমি কাজের বুয়া কে ফুসলিয়ে-হেসে বিছানায় নিতে রাজি।

লম্পট এক লুঙ্গি গায়ে, হেঁটে হেঁটে চুপি নগ্ন পায়ে,
দরজা ফুটোয় অন্য লোকের-বৌ এর গোসল দেখি।
আমি 3x হাতে প্রতিদিন রাতে, নরকের গান লেখি।

আমি লুকিয়ে লুকিয়ে মুখ,
নব বিয়ে হওয়া দম্পত্তির-দেখি মিলনের সুখ।
আমি ভিড়ের ভেতর ঢুকে,
ডান হাত ঘেঁষি লাজ কিশোরীর-গোল গোল দুটি বুকে।
আমি স্ত্রীর অগোচরে,
কনডম ভরি মাসে দশবার,বেশ্যা বিবির ঘরে।
আমি ছুটছি দেহের পাছে,
আমি মানতে শিখিনী নারীর মাঝেও-মন বলে কিছু আছে!

আমি রক্ষিতা পুষি দুই,
তিনজন মোরা একসাথে মিলে-উন্মুখ হয়ে শুই!

আমি সেক্স বাড়াবার ট্যাবলেট খেয়ে,
কিছু কামিনির প্রশ্রয় পেয়ে-লাখ লাখ কোটি বছর ধরে-
কতনা আকার ধরি।
আমি গর্বিত হব কোনদিন যদি ,এইচ আই ভি তে মরি!

(হাসিব হায়াত………।।)








সর্বশেষ এডিট : ২৪ শে সেপ্টেম্বর, ২০১২ বিকাল ৩:৩২
৮টি মন্তব্য ৪টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

আমরা কেন অটোপ্রমোশন চাচ্ছি?

লিখেছেন জাহিদ হাসান, ১৪ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ১০:২৬

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বলছে অধিভুক্ত কলেজগুলো পুনরায় খোলার এক মাসের মধ্যে তারা সবার ফাইনাল পরীক্ষা নেবে। কিন্তু আমাদের কলেজ আবার কবে খুলবে বা কত বছর পরে খুলবে কেউ জানে না।... ...বাকিটুকু পড়ুন

অপ্রকাশিত পান্ডুলিপি

লিখেছেন বিদ্রোহী ভৃগু, ১৪ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ১১:৪৪

জীবনের প্রাপ্তি কি?
প্রশ্নের মূখে নিজেকে বড়ই অসহায় মনে হয়!
কেঁচোর মতো গুটিয়ে যাই নিজের ভেতর!

ভাবনা তো ভার্চুয়াল
চেতনা তো অদৃশ্য
আসলেইতো! নিজেকেই নিজে প্রশ্ন করে হাঁপিয়ে উঠি!

সততা: দুর্বলতা হিসেবে প্রতিপন্ন
কৃচ্ছতা- ব্যার্থতার অনুফল হিসেবে... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমার জিজ্ঞাসা

লিখেছেন রাজীব নুর, ১৪ ই জুলাই, ২০২০ দুপুর ১:৪২



১। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে যারা দূর্নীতি করে ধনী হলো তাদের সরকার গ্রেফতার করছে না কেন?

২। চিপা গলির মধ্যে রাস্তায় অসংখ্য দোকানপাট, পুলিশ বা সিটিকরপোরেশন ওদের সরিয়ে দিচ্ছে... ...বাকিটুকু পড়ুন

ঝাড়ফুঁকের নামে নারীদের ধর্ষণ করতেন মাদ্রাসার ভাইস প্রিন্সিপাল ।

লিখেছেন নেওয়াজ আলি, ১৪ ই জুলাই, ২০২০ দুপুর ২:৪৪


  উনি এক মাদ্রাসার ভাইস প্রিন্সিপাল। এই কাঠমৌল্লার বিরুদ্ধে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ করেছেন এক গৃহবধু। এর আগেও এই মৌল্লা ঝাড়ফুঁকের নামে একাধিক নারীকে ধর্ষণ করেছেন। কিন্তু লোক... ...বাকিটুকু পড়ুন

শীর্ষ শিল্পপতিদের মৃত্যু যেন অভ্যন্তরীণ শ্রমবাজারে নতুন সংকট বয়ে না আনে!

লিখেছেন এক নিরুদ্দেশ পথিক, ১৪ ই জুলাই, ২০২০ দুপুর ২:৫০

১।
মির্জা আব্বাসের কল্যাণে নুরুল ইসলাম বাবুল ভূমিদস্যু পরিচয় পেয়েছেন সত্য, তবে বসুন্ধরার মালিক আহমেদ আকবর সোবাহান সহ বড় বড় ভূমিদস্যু বাংলাদেশে রাজার হালতেই আছে। শীর্ষ বেসরকারি ভুমিদস্যু বসুন্ধরা, ইস্টার্ণ, স্বদেশ,... ...বাকিটুকু পড়ুন

×