somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

গজল আর শের নিয়ে দু'চার কথা

২২ শে জুন, ২০২৩ সকাল ১১:১৯
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

গজল

গজল উর্দু কবিতার ধ্রুপদী ধারার কবিতা। গজলের সূচনা আরবি কবিতায় সপ্তম শতাব্দীতে। ক্বাসিদার কিছুটা সংক্ষিপ্ত রূপ গজল। গজল অর্থ ‘প্রেমাস্পদের সাথে কথপোকথন’। উর্দুতে গজল এসেছে প্রতিবেশী ফারসী সাহিত্য থেকে। তবে উর্দু গজল খুব দ্রুতই ফারসী গজল থেকে কিঞ্চিৎ ভিন্ন পথে চলে স্বতন্ত্র চেহারা লাভ করেছে। বিশিষ্ট গজল অনুবাদক জাভেদ হুসেন বলেছেন, 'গজলের জন্ম আরবে। এর সমৃদ্ধি পারস্যে। আর সবচেয়ে সফল সে ভারতবর্ষে'। দ্বাদশ শতাব্দীতে দিল্লী সালতানাতের প্রতিষ্ঠা এবং মরমী সুফীবাদের প্রভাবে এ উপমহাদেশে গজলের প্রচলন হয়। এর আগে পারস্যের সাহিত্যে গজলের পরিপুষ্টি ঘটে। এরপর উর্দু, তুর্কি ভাষায় এবং নজরুলের হাত দিয়ে বাংলা ভাষায় গজল প্রচলিত হয়।

গজল কতিপয় শের-এর সমাহার। প্রতিটি শের গঠিত হয় দু’টি পংক্তি বা ’’মিস্রা’’ মিলে। প্রথম পংক্তির নাম ’’মিস্রা-ই-উলা’’ আর দ্বিতীয় পংক্তির নাম ’’মিস্রা-ই-সানি’’। প্রতিটি শের একটি অভিন্ন ভাবের দ্যোতক। শের-এর বহুবচন ’’আশার’’। কিন্তু একই গজলের শেরগুলোর মধ্যে পারষ্পরিক সম্পর্কের কোন বালাই নেই। একদম স্বাধীন, পারষ্পরিক সম্পর্কহীন অনেক শের মিলেমিশে খাসা একখানা গজল হয়ে ওঠে। গরমিলই যেন সেখানে সবচেয়ে বড়ো মিলের ভিত্তি। এ রকম ৫ থেকে ২৫টি শের মিলে হয় একটি গজল। গজল রচনায় পাঁচটি নিয়ম অনুসরণ করা হয়। প্রথমতঃ গজলের সূচনা শেরকে বলে ‘মাত্লা’। মাত্লায় গজলের মূল ‘টোন’ বা সুরটি ফুটিয়ে তোলা হয়। মাত্লার গঠনের সাথে অবশিষ্ট সব শের-এর গঠনগত ও ছন্দ-সঙ্গতি থাকতে হয়। দ্বিতীয়তঃ মাত্লার উভয় লাইনের রাদীফ বা ধুয়া পরবর্তী সকল শের-এর দ্বিতীয় লাইনের রাদীফ একই হতে হবে। তৃতীয়তঃ রাদীফের আগের শব্দাবলী বা বাগধারার যে ‘কাফিয়া’ বা মিলের ধরন তা পরবর্তী সকল শের-এ বজায় রাখতে হয়। চতুর্থতঃ গজলের শেষ শের-কে বলে ‘মাক্তা’। মাক্তায় সাধারণতঃ কবির তাখাল্লুস বা কবিনাম/ছদ্মনাম (যেমন, গালিব লিখতেন-আসাদ) ব্যবহার করে সমাপনী শেরকে নতুন ব্যঞ্জনায় ঋদ্ধ করা হয়। পঞ্চমতঃ সকল শের-এ বিষয়-বৈচিত্র্য বা স্বাতন্ত্র্য থাকলেও একই ছন্দ ও সমান মাত্রা ব্যবহার করতে হয়। একে বলা হয় বাহ’র বা বেহের। উর্দু ও ফারসি সাহিত্যের সব রথী মহারথীই গজল লেখক হিসাবেও খ্যাতিমান। বিখ্যাত গজল রচয়িতাদের মধ্যে রয়েছেন পারস্যের মাওলানা রুমী, হাফিজ সিরাজী, শেখ সাদী (রঃ), উর্দুতে মীর্জা গালিব, মীর তকী মীর, আল্লামা ইকবাল আর বাংলায় কাজী নজরুল ইসলাম। এখানে নজরুলের একটি বিখ্যাত গজল শেয়ার করলাম, যাতে নজরুল গজল রচনার সব সূত্র অনুসণ করেছেন-

আলগা করো গো খোঁপার বাঁধন দিল ওহি মেরা ফঁস্ গয়ি
বিনোদ বেণীর জরীন ফিতায় আন্ধা ইশক্ মেরা কস্ গয়ি
তোমার কেশের গন্ধে কখন
লুকায়ে আসিলো লোভী আমার মন
বেহুঁশ হো কর্ গির্ পড়ি হাথ মে বাজু বন্দ মে বস্ গয়ি
আলগা করো গো খোঁপার বাঁধন দিল ওহি মেরা ফঁস্ গয়ি
কানের দুলে প্রাণ রাখিলে বিঁধিয়া আঁখ্ ফিরা দিয়া চোরী কর্ নিন্দিয়া
দেহের দেউড়িতে বেড়াতে আসিয়া অর নেহিঁ উয়ো ওয়াপস্ গয়ি
আলগা করো গো খোঁপার বাঁধন দিল ওহি মেরা ফঁস্ গয়ি

শের

শের মূলতঃ গজলের অংশ। কিন্তু স্বতন্ত্র কবিতা হিসাবে শের রচনার প্রচলনও আছে। উর্দুতে এসব স্বতন্ত্র শেরকে বলে ফর্দ্। প্রতিটি শের দুটি মিসরা বা লাইনের সমন্বয়ে রচিত হয় (মিসরা-ই-উলা আর মিসরা-ই-সানি)। শের-এ অন্ত্যমিল থাকতে পারে আবার অন্ত্যমিল না-ও থাকতে পারে। গালিব অন্ত্যমিল ছাড়া শের রচনা করেছেন। শের বাংলা কবিতার আসরেও প্রায় শত বছর ধরে সমাদর পাওয়া অতিথি। বহু উমদা শের নানা গুণীর রত্নভাণ্ডার থেকে বাংলায় অনূদিত হয়েছে। আবার অনেক গুণী বাংলা ভাষাতেই শের এর আঙ্গিকে কবিতা লিখেছেন। কবি রফিক আজাদতো শেরভর্তি আস্ত একটি বই লিখেছেন, নাম 'দিওয়ান-ই-রফিক'। শের প্রাচ্য সাহিত্যের এক অসাধারণ কীর্তি। আবেগ, ভালোবাসা, দার্শনিকতা আর মিস্টিক চেতনা শেরকে ঋদ্ধ করেছে। বাকচাতুর্য আর রহস্যময়তাও শেরকে আকর্ষণীয় করে তুলেছে।

শের-এর চলনের সাথে বাংলা অক্ষরবৃত্ত ছন্দের চলনের মিলই বেশী। আমার বিবেচনায় বাংলায় শের-চর্চার জন্য অক্ষরবৃত্তই সবচেয়ে মোক্ষম ছন্দ। তবে শের চর্চার সময় মাত্রাবৃত্ত আর স্বরবৃত্ত ছন্দকেও শের-এর বাহন করে তোলা হয়েছে। এটা কবিপ্রতিভার ঐশ্বর্যের ওপর নির্ভরশীল। শের অন্ত্যমিল ছাড়া লেখা হয় আবার অন্ত্যমিল রেখেও লেখা হয়। অন্ত্যমিলসহ আর অন্ত্যমিল ছাড়া দু'টি শে পেশ করছি-

খসরু দরিয়া প্রেম কা উল্টি ওয়া কি ধার
যো উতরা সো ডুব গ্যায়া জো ডুবা সো পার - আমির খসরু
খসরু প্রেমের নদীর ধারাই উল্টো রকম
যে পার হলো সে ডুবে গেলো যে ডুবলো সে-ই পার হলো

সর্দ মেহরি পর জাফর তুম ইশক কি মাত যাইও
রাখতা ইস সরদি মে আতিশ কা শারারা ইশক হ্যায় - বাহাদুর শাহ জাফর
প্রেমের নির্দয়তায় তুমি ধোঁকা খেও না জাফর
এই শীতলতার আড়ালে ফুলকি রাখে প্রেম

সর্বশেষ এডিট : ২২ শে জুন, ২০২৩ সকাল ১১:৩৮
৬টি মন্তব্য ৪টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

বইমেলার কবিতার বই: পাঁচ বছরে বাজারে এসেছে প্রায় ছয় হাজার, মান নিয়ে বিতর্ক

লিখেছেন এম ডি মুসা, ০৩ রা মার্চ, ২০২৪ সকাল ১১:৫২

তবে কবিতার মান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন গবেষণারাও। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক বায়তুল্লাহ কাদেরী বলেন,হ্যাঁ, কবিতার মান ঠিক নেই। কিন্তু এখন মান দেখার তো লোক নেই। যার যেমন... ...বাকিটুকু পড়ুন

কোরআনের যে দ্বন্দ্বগুলোর সমাধান নেই।

লিখেছেন কবি হাফেজ আহমেদ, ০৩ রা মার্চ, ২০২৪ দুপুর ১২:০১

এসবের উত্তরে গোজামিল দিয়েছেন খোদ খলিফা আলী নিজে।


কোরআনের সূরা আল-নিসার ১১-১২ নাম্বার আয়াত অনুসারে কেনো সম্পত্তির সুষ্ঠু বন্টন করা সম্ভব হয় না? [যখন একজন ব্যাক্তি শুধুমাত্র ৩ বা ততোধিক কন্যা... ...বাকিটুকু পড়ুন

পবিত্র মাহে রমজানের প্রস্তুতি -ঈষৎ সংশোধিত পুনঃপোস্ট

লিখেছেন নতুন নকিব, ০৩ রা মার্চ, ২০২৪ দুপুর ১২:৫৩

পবিত্র মাহে রমজানের প্রস্তুতি

ছবিঃ অন্তর্জাল হতে সংগৃহিত।

প্রাককথনঃ

দেখতে দেখতে পবিত্র মাহে রমজান-২০২৪ আমাদের দোড়গোড়ায় এসে উপস্থিত। রমজান, মুমিনের জীবনের শ্রেষ্ঠতম আনন্দের ক্ষণ, অফুরন্ত প্রাপ্তির মাস, অকল্পনীয় রহমতলাভের নৈস্বর্গিক মুহূর্তরাজি। রমজান... ...বাকিটুকু পড়ুন

বাপ-মেয়ের দ্বৈরথ

লিখেছেন রূপক বিধৌত সাধু, ০৩ রা মার্চ, ২০২৪ সন্ধ্যা ৬:৫৩


আমার দাদির ঝগড়াঝাঁটির স্বভাব কিংবদন্তিতুল্য ছিল। মা-চাচীদের কাছ থেকে শোনা কষ্ট করে রান্নাবান্না করলেও তারা নাকি নিজে থেকে কখনও মাছ-মাংস পাতে তুলে খেতে পারতেন না। দাদি বেছে বেছে দিতেন... ...বাকিটুকু পড়ুন

বৃষ্টি খাতুনই অভিশ্রুতি, এনআইডিতে নাম সংশোধনের আবেদন করেছিল। ধর্মান্তরিত হওয়ার পিছনে দায়ী কে?

লিখেছেন এম ডি মুসা, ০৩ রা মার্চ, ২০২৪ রাত ৮:৩৩





বেইলি রোডের সেইদিনের অগ্নিকাণ্ডে নিহত অভিশ্রুতি শাস্ত্রীর প্রকৃত নাম বৃষ্টি খাতুন। অভিশ্রুতি ও বৃষ্টি খাতুন নামে দুইজন একই ব্যক্তি বলে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগ সূত্রে নিশ্চিত... ...বাকিটুকু পড়ুন

×