somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

নতুন নকিব
আলহামদুলিল্লাহ। যা চাইনি তার চেয়ে বেশি দিয়েছেন প্রিয়তম রব। যা পাইনি তার জন্য আফসোস নেই। সিজদাবনত শুকরিয়া। প্রত্যাশার একটি ঘর এখনও ফাঁকা কি না জানা নেই, তাঁর কাছে নি:শর্ত ক্ষমা আশা করেছিলাম। তিনি দয়া করে যদি দিতেন, শুন্য সেই ঘরটিও পূর্নতা পেত!

প্রিয় নবীজীর প্রিয় প্রসঙ্গ; তাঁর ক্ষমাশীলতার কিছু অনুপম এবং অতুলনীয় দৃষ্টান্তঃ

১৮ ই জুন, ২০২০ সকাল ৯:৩৪
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



প্রিয় নবীজীর প্রিয় প্রসঙ্গ; তাঁর ক্ষমাশীলতার কিছু অনুপম এবং অতুলনীয় দৃষ্টান্তঃ

বাংলায় মানুষ আর আরবিতে বলা হয় ইনসান। আরবি এই ইনসান শব্দটির মূল ধাতু 'নাসইয়ুন'। নূন, সীন, ইয়া -এই তিন অক্ষরে গঠিত শব্দটির অর্থ- ভুলে যাওয়া, বিস্মৃত হওয়া বা ভ্রমে পতিত হওয়া। এটা আশ্চর্য্য বিষয় যে, মানুষ শব্দটির ভেতরেই লুকিয়ে রয়েছে ভুল কথাটি। এ থেকেই অনুমান করা সহজ যে, মানুষ মাত্রেরই ভুল হতে পারে। ছোট বড় সকলেরই ভুল হতে পারে। ইচ্ছায় অনিচ্ছায় ভুল হয়ে যায়। তবে কারো ভুল বা অপরাধ হয়ে গেলে তাকে ক্ষমা করে দেওয়া অনেক বড় একটি গুণ। মহত গুণ। এটা মহান আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআ'লার নিজের অন্যতম একটি গুণ বা বৈশিষ্ট্য। আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআ'লার এ গুণটি যেসব মানুষ ধারণ করেন আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআ'লার তাদের প্রতি সন্তুষ্ট হন। তাদের ভালোবাসেন। বলা বাহুল্য, আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ছিলেন এ গুণের সর্বাধিক অধিকারী। তাঁর গোটা জীবনই ভরপুর অসংখ্য ক্ষমার ঘটনায়।

বস্তুতঃ প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর জীবন ছিল স্নিগ্ধ, আলোকিত এবং সুন্দর। চন্দ্রকিরণ থেকেও জ্যোতির্ময় আভায় উদ্ভাসিত ছিলেন তিনি। সূর্য থেকেও উজ্জ্বল-প্রজ্জ্বল-দ্বীপ্তিময়। ফুল থেকেও সুরভিত-সুশোভিত-বিমোহিত। সুন্দর মানবীয় সকল গুণের তিনি ছিলেন আধার। উত্তম আদর্শ বলতে যা বোঝায়, সেসবে আলোকিত, সুসজ্জিত এবং পরিপূর্ণ ছিল তাঁর অনন্য জীবন! এজন্য পবিত্র কুরআনে মানবজীবনের 'উসওয়াতুন হাসানাহ' বা 'সর্বোত্তম আদর্শ' বলে অভিহিত করা হয়েছে তাকে। ইরশাদ হয়েছে-

لَقَدْ كَانَ لَكُمْ فِي رَسُولِ اللَّهِ أُسْوَةٌ حَسَنَةٌ لِّمَن كَانَ يَرْجُو اللَّهَ وَالْيَوْمَ الْآخِرَ وَذَكَرَ اللَّهَ كَثِيرًا

'যারা আল্লাহ ও শেষ দিবসের আশা রাখে এবং আল্লাহকে অধিক স্মরণ করে, তাদের জন্যে রসূলুল্লাহর মধ্যে উত্তম নমুনা রয়েছে।' -সূরাহ আল আহযাব, আয়াত-২১

Ye have indeed in the Messenger of Allah a beautiful pattern (of conduct) for any one whose hope is in Allah and the Final Day, and who engages much in the Praise of Allah

প্রিয় নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যে অতুলনীয় ধৈর্য্য-স্থৈর্য্যের প্রতিভূ ছিলেন তা নিম্নোক্ত আয়াত থেকে অনুমান করা যায়। ইরশাদ হয়েছে-

فَبِمَا رَحْمَةٍ مِّنَ اللّهِ لِنتَ لَهُمْ وَلَوْ كُنتَ فَظًّا غَلِيظَ الْقَلْبِ لاَنفَضُّواْ مِنْ حَوْلِكَ فَاعْفُ عَنْهُمْ وَاسْتَغْفِرْ لَهُمْ وَشَاوِرْهُمْ فِي الأَمْرِ فَإِذَا عَزَمْتَ فَتَوَكَّلْ عَلَى اللّهِ إِنَّ اللّهَ يُحِبُّ الْمُتَوَكِّلِينَ

'আল্লাহর রহমতেই আপনি তাদের জন্য কোমল হৃদয় হয়েছেন পক্ষান্তরে আপনি যদি রাগ ও কঠিন হৃদয় হতেন তাহলে তারা আপনার কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতো। কাজেই আপনি তাদের ক্ষমা করে দিন এবং তাদের জন্য মাগফেরাত কামনা করুন এবং কাজে কর্মে তাদের পরামর্শ করুন। অতঃপর যখন কোন কাজের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে ফেলেন, তখন আল্লাহ তা’আলার উপর ভরসা করুন, আল্লাহ তাওয়াক্কুল কারীদের ভালবাসেন।' -সূরাহ আলে ইমরান, আয়াত-১৫৯

It is part of the Mercy of Allah that thou dost deal gently with them Wert thou severe or harsh-hearted, they would have broken away from about thee: so pass over (Their faults), and ask for ((Allah)'s) forgiveness for them; and consult them in affairs (of moment). Then, when thou hast Taken a decision put thy trust in Allah. For Allah loves those who put their trust (in Him).

আল্লাহ রাব্বুল আলামীন মু হাম্মাদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে সৃষ্টিকুলের জন্য রহমত হিসেবে পাঠিয়েছেন। কুরআনে হাকিমে ইরশাদ হয়েছে,

وَمَا أَرْسَلْنَاكَ إِلَّا رَحْمَةً لِّلْعَالَمِينَ

'আমি তো আপনাকে সৃষ্টিকুলের প্রতি শুধু রহমত রূপেই প্রেরণ করেছি।' সূরাহ আল আমবিয়া, আয়াত-১

আসুন এবার, প্রিয় নবীজীর জীবন থেকে নেয়া ক্ষমাশীলতার অসাধারণ কিছু ঘটনা শুনি-

ঘটনা এক. লাবীদ ইবনে আ‘সামকে ক্ষমা করে দেয়া

তৎকালীন সময়ে মদিনার ইহুদি সম্প্রদায়ের কিছু লোক প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে খুব কষ্ট দিত। এরা ছিল সাংঘাতিক দুষ্ট প্রকৃতির। এরা সবসময় সত্য প্রচারে বিঘ্ন ঘটিয়েছে। ভালো কাজে বাধা দিয়েছে। ভালো মানুষদের রক্ত ঝরিয়েছে। এদের ষড়যন্ত্র থেমে থাকতো না একদমই। স্বভাবসুলভভাবে আমাদের প্রিয় নবীজীর ক্ষতি করার চেষ্টা চালায় এরা। সামনাসামনি এসে কিছু করার সাহস তাদের ছিল না। তো সে কারণেই তারা ফন্দি করলো যাদু দিয়ে নবীজীর ক্ষতি করবে। এ কাজে নিয়োগ করা হলো এক লোককে। সে জাদু করে বসল নবীজীকে। নবীজী তখন অনেক কষ্ট পেলেন। জাদু বলে কথা। বুঝতে পারছিলেন না কী হয়েছে। কেন এত কষ্ট হচ্ছে। কেন এমন এলোমেলো লাগছে। কিন্তু আমাদের প্রিয় নবী ছিলেন আল্লাহর প্রিয় বান্দা। তাই আল্লাহ তাআ'লা স্বপ্নের মাধ্যমে নবীজীকে সব জানিয়ে দিলেন।

কোনো এক দিনের ঘটনা। প্রিয় নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ঘুমুচ্ছিলেন। স্বপ্নে দেখলেন, দু'জন লোক এলেন তাঁর কাছে। একজন বসলেন মাথার কাছে। আরেকজন পায়ের কাছে। এরপর তারা বলতে শুরু করলেন-

প্রথম ব্যক্তি: এই ব্যক্তির কী হয়েছে?

দ্বিতীয় ব্যক্তি: তাঁকে জাদু করা হয়েছে।

প্রথম ব্যক্তি: কে জাদু করেছে?

দ্বিতীয় ব্যক্তি: বনী রুযাইকের লাবীদ ইবনে আ‘সাম নামে এক লোক।

প্রথম ব্যক্তি: কোথায় জাদু করেছে?

দ্বিতীয় ব্যক্তি: মাথা থেকে পড়ে যাওয়া চুল ও চিরুনির মাঝে।

প্রথম ব্যক্তি: এখন সেটা কোথায় আছে?

দ্বিতীয় ব্যক্তি: যারওয়ান কূপে।

প্রিয় নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ঘুম থেকে জাগ্রত হওয়ার পরে স্বপ্নে দেখা সেই স্থানে গেলেন। কূপটি দেখেই চিনতে পারলেন- এটাই স্বপ্নে আমাকে দেখানো হয়েছিল। কুপের নিচ থেকে বের করে আনা হল সেই চুল-চিরুনি। আর চুল-চিরুনির গিঁটগুলো খুলতেই নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে গেলেন।

মূল আরবিসহ হাদিসখানা তুলে ধরছি-

حَدَّثَنَا إِبْرَاهِيمُ بْنُ مُوسَى، أَخْبَرَنَا عِيسَى بْنُ يُونُسَ، عَنْ هِشَامٍ، عَنْ أَبِيهِ، عَنْ عَائِشَةَ ـ رضى الله عنها ـ قَالَتْ سَحَرَ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم رَجُلٌ مِنْ بَنِي زُرَيْقٍ يُقَالُ لَهُ لَبِيدُ بْنُ الأَعْصَمِ، حَتَّى كَانَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم يُخَيَّلُ إِلَيْهِ أَنَّهُ يَفْعَلُ الشَّىْءَ وَمَا فَعَلَهُ، حَتَّى إِذَا كَانَ ذَاتَ يَوْمٍ أَوْ ذَاتَ لَيْلَةٍ وَهْوَ عِنْدِي لَكِنَّهُ دَعَا وَدَعَا ثُمَّ قَالَ ‏"‏ يَا عَائِشَةُ، أَشَعَرْتِ أَنَّ اللَّهَ أَفْتَانِي فِيمَا اسْتَفْتَيْتُهُ فِيهِ، أَتَانِي رَجُلاَنِ فَقَعَدَ أَحَدُهُمَا عِنْدَ رَأْسِي، وَالآخَرُ عِنْدَ رِجْلَىَّ، فَقَالَ أَحَدُهُمَا لِصَاحِبِهِ مَا وَجَعُ الرَّجُلِ فَقَالَ مَطْبُوبٌ‏.‏ قَالَ مَنْ طَبَّهُ قَالَ لَبِيدُ بْنُ الأَعْصَمِ‏.‏ قَالَ فِي أَىِّ شَىْءٍ قَالَ فِي مُشْطٍ وَمُشَاطَةٍ، وَجُفِّ طَلْعِ نَخْلَةٍ ذَكَرٍ‏.‏ قَالَ وَأَيْنَ هُوَ قَالَ فِي بِئْرِ ذَرْوَانَ ‏"‏‏.‏ فَأَتَاهَا رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم فِي نَاسٍ مِنْ أَصْحَابِهِ فَجَاءَ فَقَالَ ‏"‏ يَا عَائِشَةُ كَأَنَّ مَاءَهَا نُقَاعَةُ الْحِنَّاءِ، أَوْ كَأَنَّ رُءُوسَ نَخْلِهَا رُءُوسُ الشَّيَاطِينِ ‏"‏‏.‏ قُلْتُ يَا رَسُولَ اللَّهِ أَفَلاَ أَسْتَخْرِجُهُ قَالَ ‏"‏ قَدْ عَافَانِي اللَّهُ، فَكَرِهْتُ أَنْ أُثَوِّرَ عَلَى النَّاسِ فِيهِ شَرًّا ‏"‏‏.‏ فَأَمَرَ بِهَا فَدُفِنَتْ‏.‏ تَابَعَهُ أَبُو أُسَامَةَ وَأَبُو ضَمْرَةَ وَابْنُ أَبِي الزِّنَادِ عَنْ هِشَامٍ‏.‏ وَقَالَ اللَّيْثُ وَابْنُ عُيَيْنَةَ عَنْ هِشَامٍ فِي مُشْطٍ وَمُشَاقَةٍ‏.‏ يُقَالُ الْمُشَاطَةُ مَا يَخْرُجُ مِنَ الشَّعَرِ إِذَا مُشِطَ، وَالْمُشَاقَةُ مِنْ مُشَاقَةِ الْكَتَّانِ‏.‏ -

A man called Labid bin al-A'sam from the tribe of Bani Zaraiq worked magic on Allah's Messenger (ﷺ) till Allah's Messenger (ﷺ) started imagining that he had done a thing that he had not really done. One day or one night he was with us, he invoked Allah and invoked for a long period, and then said, "O `Aisha! Do you know that Allah has instructed me concerning the matter I have asked him about? Two men came to me and one of them sat near my head and the other near my feet. One of them said to his companion, "What is the disease of this man?" The other replied, "He is under the effect of magic.' The first one asked, 'Who has worked the magic on him?' The other replied, "Labid bin Al-A'sam.' The first one asked, 'What material did he use?' The other replied, 'A comb and the hairs stuck to it and the skin of pollen of a male date palm.' The first one asked, 'Where is that?' The other replied, '(That is) in the well of Dharwan;' " So Allah's Messenger (ﷺ) along with some of his companions went there and came back saying, "O `Aisha, the color of its water is like the infusion of Henna leaves. The tops of the date-palm trees near it are like the heads of the devils." I asked. "O Allah's Messenger (ﷺ)? Why did you not show it (to the people)?" He said, "Since Allah cured me, I disliked to let evil spread among the people." Then he ordered that the well be filled up with earth. -সহীহ বুখারী, হাদীস ৫৭৬৩

বর্ণিত যাদুর ঘটনায় প্রিয় নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দীর্ঘ প্রায় ছয় মাস যাবত কষ্ট করেছিলেন। পরবর্তীতে তিনি যখন সুস্থ হলেন তখন দুষ্ট ইহুদি লাবীদ ইবনে আ‘সামকে চেনার পরেও তাকে কিছু বললেন না। বরং ক্ষমা করে দিলেন। কতই না উদার আর মহান ছিলেন প্রিয় নবীজী! যারা তাঁকে কষ্ট দিত, তাদের তিনি ক্ষমা করতেন। শত্রু মিত্র নির্বিশেষে সকলের প্রতি তাঁর ক্ষমার হাত ছিল সুপ্রসারিত। কেউ তাঁর কাছে এসে কষ্ট পাবে- এমনটা ভাবা যায় না।

ঘটনা দুই. তায়েফের নির্মম নির্যাতন সহ্য করেও তাদের জন্য বদ দোআ পর্যন্ত করলেন নাঃ

নবীজীর অনন্য ক্ষমাশীলতার আরেকটি ঘটনা। ঘটনাটি অনেক কষ্টের, অনেক বেদনার, অনেক শোক এবং দুঃখের। স্মরণ করলেই চোখে পানি এসে যায়। ভেবে অবাক হতে হয় যে, নবীজী আমাদের জন্য কত কষ্ট করেছেন! কত যন্ত্রণা সহ্য করেছেন! কত অত্যাচার-নির্যাতন নিরবে চোখের অশ্রু ফেলে হজম করেছেন!

তখন নবীজী ছিলেন মক্কায়। মানুষদের আল্লাহর দিকে দাওয়াত দিতেন। ভালো হতে বলতেন। আলোর দিকে ডাকতেন। কেউ তার কথা শুনত, কেউ শুনত না। কেউ বুঝত, কেউ বুঝত না। কেউ আবার বুঝে-শুনেও না বোঝার ভান করতো। কেউ কেউ আবার নবীজীকে কষ্ট দিত। খারাপ খারাপ কথা বলত। তবুও আমাদের নবীজী তাদের কিছু বলতেন না। নীরবে সব সহ্য করতেন।

এই বিপদে নবীজীর চাচা আবু তালেব পাশে ছিলেন। তিনি মক্কার গুণী মানুষ। সবাই তাকে শ্রদ্ধা করে। মান্য করে। তাই ভাতিজাকে কেউ কষ্ট দিতে এলে বাধা দিতেন। তিনি সামনে এসে দাঁড়ালে কেউ আর কিছু বলার সাহস পেত না। একদিন তার ছায়াও উঠে গেল। পৃথিবী ছেড়ে চলে গেলেন তিনি। সাথে সাথে কাফেরদের অত্যাচারও বেড়ে গেল। এভাবে আর কয়দিন থাকা যায়। মক্কাবাসীরা সত্য কথা শুনতে চায় না। ন্যায়ের পথে চলতে চায় না। তাই ভাবলেন, অন্য কোথাও যাই। সেখানকার মানুষদের আল্লাহর পথে ডাকি। তাই তায়েফ গেলেন। মনে অনেক স্বপ্ন। তারা হয়ত শুনবে আল্লাহর কথা। সত্যের বাণী। অন্ধকার ছেড়ে আলোর পথে আসবে। সত্যের পথে চলবে। তিনি তায়েফের সাকীফ গোত্রে গেলেন। প্রথমে কথা বললেন আবদে ইয়ালীলসহ আরো কয়েকজন নেতৃস্থানীয় লোকের সাথে। কিন্তু তাদের কপাল ছিল মন্দ। আলোর ডাক পেয়েও ডুবে রইল অন্ধকারে। নবীজীর কথা শুনল না। নবীজীকে নিয়ে বিদ্রূপ করা শুরু করল। দুষ্টদের লেলিয়ে দিল নবীজীর পিছে। তারা খুব কষ্ট দিল নবীজীকে। পাথর মারল। ইঁট ছুড়ল, গালি দিল। নবীজীর রক্ত ঝরল। নবীজী অনেক কষ্ট পেলেন। ভিন্ন দেশে ভিন্ন পরিবেশে অপরিচিত মানুষের এমন আচরণ!

নবীজী ফিরে এলেন তায়েফ থেকে। রক্তাক্ত দেহে জখমের কষ্ট। মনে স্বপ্নভঙ্গের বেদনা। তিনি তো তাদের কল্যাণের জন্যই তাদের কাছে গিয়েছেন। তাদেরকে আল্লাহর দিকে ডেকেছেন, ভালো পথে ডেকেছেন। কী অন্যায় ছিল তাঁর, যার কারণে তারা তাঁকে কষ্ট দিল, রক্ত ঝরালো?

নবীজী ঐ এলাকা থেকে দূরে এসে বিশ্রামের জন্য একটু বসলেন। হঠাৎ দেখলেন, নীল আকাশে একটি মেঘ কোমলভাবে নবীজীকে ছায়া দিচ্ছে। তপ্তরোদে শীতলতার স্পর্শ। প্রাণটা জুড়িয়ে গেল। নবীজী চোখ তুলে তাকালেন উপরে। দেখেন মেঘ থেকে জিবরাঈল আলাইহিস সালাম ডেকে বলছেন- জিবরীল বললেন-

إِنّ اللهَ عَزّ وَجَلّ قَدْ سَمِعَ قَوْلَ قَوْمِكَ لَكَ، وَمَا رَدّوا عَلَيْكَ، وَقَدْ بَعَثَ إِلَيْكَ مَلَكَ الْجِبَالِ لِتَأْمُرَهُ بِمَا شِئْتَ فِيهِمْ، قَالَ: فَنَادَانِي مَلَكُ الْجِبَالِ وَسَلّمَ عَلَيّ، ثُمّ قَالَ: يَا مُحَمّدُ، إِنّ اللهَ قَدْ سَمِعَ قَوْلَ قَوْمِكَ لَكَ، وَأَنَا مَلَكُ الْجِبَالِ وَقَدْ بَعَثَنِي رَبّكَ إِلَيْكَ لِتَأْمُرَنِي بِأَمْرِكَ، فَمَا شِئْتَ، إِنْ شِئْتَ أَنْ أُطْبِقَ عَلَيْهِمُ الْأَخْشَبَيْنِ

আপনার কওম আপনার উদ্দেশে যা বলেছে এবং আপনার সাথে যে আচরণ করেছে আল্লাহ তা দেখেছেন। আপনার আদেশ পালনে পাহাড়ের দায়িত্বে নিয়োজিত ফিরিশতাকে পাঠিয়েছেন। তখন পাহাড়ের ফিরিশতা আমাকে সম্বোধন করে সালাম দিল এবং বলল, আমি পাহাড়ের দায়িত্বে নিয়োজিত ফিরিশতা। হে মুহাম্মাদ! আপনার কওমের বক্তব্য আল্লাহ শুনেছেন। আমাকে পাঠিয়েছেন আপনার আদেশ পালন করতে। আপনি আমাকে কী আদেশ করবেন করুন। আপনি যদি আদেশ করেন তাহলে আমি দুই পাহাড়ের মাঝে এদেরকে পিষে ফেলব।

কিন্তু দয়ার সাগর নবীজী জবাব দিলেন-

بَلْ أَرْجُو أَنْ يُخْرِجَ اللهُ مِنْ أَصْلَابِهِمْ مَنْ يَعْبُدُ اللهَ وَحْدَهُ لَا يُشْرِكُ بِهِ شَيْئًا.

(আমি এটা চাই না,) বরং আমি আশা রাখি, আল্লাহ তাআলা এদের বংশধরদের মাঝে এমন মানুষ বের করবেন, যারা এক আল্লাহ্র ইবাদত করবে, তাঁর সাথে কাউকে শরীক করবে না। -সহীহ মুসলিম, হাদীস ১৭৯৫; সহীহ বুখারী, হাদীস ৩২৩১

কত সুন্দর উত্তর! কত মমতাভরা মন! কত উজ্জ্বল আশার প্রদীপ! উম্মতের জন্য কত দরদ নবীজীর। যারা তাঁকে কষ্ট দিল তাদের জন্য কত দরদমাখা উত্তর- এরা ধ্বংস হয়ে গেলে তো ভবিষ্যত বংশধরের কেউ আল্লাহর ইবাদত করতে পারবে না। তারা আমায় কষ্ট দিয়েছে; তবুও বেঁচে থাকুক। হয়ত তাদের বংশধর, পরবর্তী প্রজন্ম ঈমান আনবে।

তিনি উত্তম চরিত্রের শ্রেষ্ঠতম নমুনাঃ

আল্লাহ রাব্বুল আলামীন তাঁর রাসূলকে উত্তম চরিত্রের সর্বোচ্চ চূড়ায় অধিষ্ঠিত করেছেন। সকল দিক থেকে তাকে করেছেন শ্রেষ্ঠ। তার নান্দনিক চরিত্রমাধুরি দেখে কত মানুষই না ইসলামে দীক্ষিত হয়েছে তা গণনা করে শেষ করা যাবে না। সুন্দর চরিত্রের এমন কোন দিক নেই যা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ব্যক্তিত্বে পূর্ণতা পায়নি। পৃথিবীতে তিনিই একমাত্র ও অদ্বিতীয় ব্যক্তি যাকে ঘিরে সুশোভিত হয়েছে সকল প্রকার নান্দনিক গুণাবলি। দান, বদান্যতা, ভদ্রতা, ক্ষমা, মহানুভবতা, ধৈর্য, সহনশীলতা, নম্রতা, সবর, বন্ধুত্বসুলভ আচরণ, বিনয়, ন্যায়পরায়ণতা, দয়া-করুণা, অনুগ্রহ, সাহসিকতা, বীরত্বসহ সকল দিক থেকে তিনি ছিলেন পরিপূর্ণতার অনন্য দৃষ্টান্ত।

সীরাত পাঠকারী ব্যক্তিমাত্রই লক্ষ্য করবেন যে, সকল অবস্থায় নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ছিলেন সর্বোত্তম চরিত্রের ধারক, বাহক। দলে দলে মানুষের ইসলাম গ্রহণের পশ্চাৎগত কারণ হল, প্রথমত আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের ফজল ও করম, তারপর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর চরিত্র মাধুর্যের আকর্ষণ। কত মানুষ যে তার চরিত্র দেখে ইসলাম গ্রহণ করেছেন তার হিসাব মেলানো দুষ্কর বৈকি।

ঘটনা তিন. সুমামা বিন উসালের ইসলাম গ্রহণ পরবর্তী সংক্ষিপ্ত বক্তব্যঃ

দেখুন, সুমামা বিন উসাল, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর ক্ষমার চরিত্রে মুগ্ধ হয়ে ইসলাম গ্রহণ করেছেন। ইসলাম গ্রহণ করে তিনি যে বক্তব্য দিলেন তা ছিল বেশ চমকপ্রদ। তিনি ইসলাম কবুল করার পরপরই বলেন-

‘হে আল্লাহর রাসূল! আল্লাহর শপথ! ভূ-পৃষ্ঠে আপনার চেহারার চেয়ে অপছন্দনীয় চেহারা আমার কাছে অন্য আরেকটি ছিল না। আর এখন আপনার চেহারা আমার কাছে সমধিক প্রিয়। আপনার ধর্মের চেয়ে অপছন্দনীয় ধর্ম আমার নজরে ছিল না। আর এখন আপনার ধর্মই আমার কাছে সকল ধর্মের চেয়ে প্রিয়তম। ভূ-পৃষ্ঠে আপনার দেশ ছিল আমার কাছে সবচেয়ে ঘৃণিত। আর এখন সকল দেশের চেয়ে আপনার দেশ আমার কাছে অধিক প্রিয়।’ -সহীহ বুখারী হাদিস নং-৪৩৭২, সহীহ মুসলিম হাদিস নং-১৭৬৪

ঘটনা চার. যে বেদুইন প্রসাব করেছিল মসজিদে নববীর ভেতরেঃ

শুনুন সেই বেদুইনের বক্তব্য, যে কি না মসজিদে নববীতে প্রস্রাব করছিল। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর ক্ষমায় মুগ্ধ হয়ে সে বলল, ‘হে আল্লাহ! আমাকে ও মুহাম্মাদকে অনুগ্রহ করুন, আমাদের ব্যতীত অন্য কারোর প্রতি আপনি অনুগ্রহ করবেন না।’ তার এ বক্তব্য শুনেও রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাকে কোন ধমক দিলেন না, কটু কথা বললেন না। একজন স্নেহময়ী কল্যাণকামী শিক্ষক হিসেবে তিনি তাকে বললেন, ‘তুমি ব্যাপক-বিস্তৃত বিষয়কে সংকীর্ণ করে দিলে।’ -সহীহ বুখারী হাদিস নং-৬০১০

অর্থাৎ আল্লাহ পাকের রহমত হল ব্যাপক-বিস্তৃত। যা সকল মানুষ তো বটেই, সকল সৃষ্টি জীবের উপর বর্ষিত হয়। আর তুমি প্রার্থনায় তা শুধু আমার ও তোমার মধ্যে সীমিত করে দিলে।

ঘটনা পাঁচ. মুআবিয়া ইবনুল হাকামের উদ্ধৃতিঃ

মুআবিয়া ইবনুল হাকামের বিষয়টি দেখুন। তাকে শিক্ষাদানের ক্ষেত্রে আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কি বে-নজীর ভালবাসার দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন। মুআবিয়া নিজেই বলেন, ‘আমার পিতা-মাতা তাঁর জন্য উৎসর্গ হোক, আমি শিক্ষাদানের ক্ষেত্রে তাঁর মত শিক্ষক কখনো দেখিনি। আল্লাহর কসম! (আমি অন্যায় করা সত্ত্বেও) তিনি আমাকে ধমক দিলেন না, প্রহার করলেন না, গালি দিলেন না।’ -সহীহ মুসলিম হাদিস নং-৫৩৭

ঘটনা ছয়. তিনি এমনভাবেই দান করেন যে, দানপ্রাপ্ত ব্যক্তি জীবনে কখনো দারিদ্রতাকে ভয় করবে নাঃ

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এক ব্যক্তিকে বকরির বিশাল এক পাল দান করে দিলেন। সে তার সম্প্রদায়ের কাছে গিয়ে বলল, ‘হে আমার সম্প্রদায়! তোমরা ইসলাম গ্রহণ করো। কারণ মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এমনভাবে দান করেন যে, দানপ্রাপ্ত ব্যক্তি জীবনে কখনো দারিদ্রতাকে ভয় করবে না।’ -সহীহ মুসলিম হাদিস নং-২৩১২

ঘটনা সাত. সাফওয়ান ইবনে উমাইয়ার ঘটনাঃ

সাফওয়ান ইবনে উমাইয়ার প্রতি তাকিয়ে দেখুন, সে ছিল কুরাইশ বংশীয় কাফেরদের শীর্ষ স্থানীয় নেতা। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাকে এক’শ বকরী দান করলেন। এরপর আবার এক’শ বকরী দিলেন। এরপরে আবারো এক’শ। তখন সাফওয়ান বললেন, ‘আল্লাহর শপথ! রাসূলুল্লাহ আমাকে যা দিলেন কেউ আমাকে এত পরিমাণ কখনো দান করেনি। তিনি ছিলেন আমার কাছে সবচেয়ে ঘৃণিত। তিনি আমাকে দান করতেই থাকলেন। ফলে তিনি আমার কাছে সবচেয়ে প্রিয় ব্যক্তিতে পরিণত হলেন।’ সাফওয়ানের ইসলাম গ্রহণের কারণ ছিল রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর এই বদান্যতা। -সহীহ মুসলিম হাদিস নং-২৩১৩

ঘটনা আট. সেই মুশরিক ব্যক্তি যিনি তরবারি উত্তোলন করেছিলেন....

আরেকজন মুশরিক ব্যক্তির কথা উল্লেখ করা যেতে পারে। এ ব্যক্তি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে হত্যা করার জন্য তরবারি উত্তোলন করেছিল। কিন্তু হত্যা করতে পারেনি। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাকে ক্ষমা করে দিলেন। -সহীহ বুখারী হাদিস নং-২৯১০, সহীহ মুসলিম হাদিস নং-৮৪৩

পরবর্তীতে সে তার সম্প্রদায়ের কাছে ফিরে গেল, ইসলাম গ্রহণ করার ঘোষণা দিল। তার দাওয়াতে তার গোত্রের বহু লোক ইসলামে প্রবেশ করল। সূত্র-ফাতহুল বারী

ঘটনা নয়. ইহুদী পণ্ডিত আব্দুল্লাহ ইবনে সালামের প্রতি লক্ষ করুনঃ

বিশিষ্ট ইহুদী পণ্ডিত আব্দুল্লাহ ইবনে সালামের প্রতি লক্ষ করুন, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মদীনায় আগমন করলে তিনি তার সাথে দেখা করলেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি তাকে দেখার জন্য লোকদের সাথে এলাম। যখন আমি তার চেহারার দিকে তাকালাম, আমার কাছে স্পষ্ট হয়ে গেল, এটা কোন মিথ্যাবাদীর চেহারা হতে পারে না। প্রথম যে কথাটি আমি তার মুখ থেকে শুনলাম তা হল, ‘হে মানবমণ্ডলী! সালামের প্রচলন করো, মানুষকে খাবার দাও, আত্মীয়তার সম্পর্ক অটুট রাখো, আর রাতে যখন মানুষ ঘুমিয়ে
থাকে তখন সালাত আদায় কর। তাহলে শান্তির সাথে জান্নাতে প্রবেশ করবে ।’ -জামে' তিরমীজি হাদিস নং-২৫৮৫, ইবনে মাজা হাদিস নং-৩২৫১

ঘটনা দশ. ইহুদী পণ্ডিত যায়েদ ইবনে সাইয়াঃ

যায়েদ ইবনে সাইয়া নামক এক ইহুদী পণ্ডিতের ঘটনা উল্লেখ করা যেতে পারে। সে নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে পরীক্ষা করার জন্য এল। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর ধৈর্য্য পরীক্ষা করার অভিপ্রায়ে সে প্রিয় নবীজীর গলায় জড়ানো চাদর ধরে এমন জোরে টান দেয় যে, তাতে নবীজী অনেক কষট পান। সেই সাথে সে প্রিয় নবীজীকে ধমকের স্বরে অত্যন্ত মন্দ ভাষায় তার পাওনা পরিশোধ করে দিতে বলে। উপস্থিত সাহাবীদের গায়ের পশম শিউরে ওঠে এ ঘটনায়। উমর রাদিআল্লাহু তাআ'লা আনহুর চক্ষু রক্তবর্ণ ধারণ করে। তিনি প্রতিবাদ করলেন। ইহুদী পন্ডিতকে তার এমন হীনতর কাজের জন্য ধমক দিলেন।

কিন্তু প্রিয় নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর অবস্থা ছিল ভিন্ন। এই অবস্থায়ও তিনি তাকে ক্ষমা করে দিলেন। আর উমর রা. কে নির্দেশ দিলেন তাকে তার পাওনা পরিশোধের সাথে সাথে বাড়তি কিছু উপহার দেয়ার জন্য।

ইহুদী যায়েদ বিন সাইয়া বললেন, ‘আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর চেহারার দিকে তাকিয়েই নবুওয়াতের আলামতসমূহ দেখতে পেলাম। হে উমার! তোমাকে সাক্ষী রেখে বলছি, ‘আমি প্রতিপালক হিসেবে আল্লাহর প্রতি, ধর্ম হিসাবে ইসলামের প্রতি ও নবী হিসাবে মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর প্রতি রাজী হয়ে গেলাম।’ সূত্র- আল-ইসাবা ফি তামীযিস সাহাবা

অন্য এক ইহুদীর কথা শুনুন, যে মৃত্যুকালে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে সম্বোধন করে বলেছিল, যিনি তাওরাত অবতীর্ণ করেছেন তার কসম, আমরা আমাদের গ্রন্থে আপনার গুণাবলি পেয়েছি। দেখেছি আপনার বৈশিষ্ট্যসমূহ। তাই আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি, আল্লাহ ব্যতীত কোন মাবুদ নেই, আর আপনি আল্লাহর রাসূল।’ -মুসনাদ আহমাদ হাদিস নং-৪১১/৫

ঘটনা এগারো. ইথিওপিয়ার সে সময়ের খ্রিস্টান সম্রাট নাজ্জাশীর সত্যের প্রতি অনুরাগঃ

ইথিওপিয়ার সে সময়ের খ্রিস্টান সম্রাট নাজ্জাশীর কথা এ ক্ষেত্রে উল্লেখ করতেই হয়। যখন সে নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর প্রতিনিধির কাছে তার দাওয়াত ও ঈসা আ. সম্পর্কে তার মন্তব্য শুনলেন, যে তিনি বলেছেন, ‘ঈসা আল্লাহর বান্দা ও তার রাসূল’, তখন নাজ্জাশী বলে উঠল, তোমাদের স্বাগত জানাচ্ছি, আর অভিবাদন জানাচ্ছি তাকেও যার পক্ষ থেকে তোমরা এসেছ। শুনে রাখ! আমরা সাক্ষ্য দিচ্ছি, মুহাম্মাদ অবশ্যই আল্লাহর রাসূল, যার সম্পর্কে ঈসা আ. আমাদের সুসংবাদ দিয়েছিলেন। আমার যদি বাদশাহীর দায়িত্ব না থাকতো তাহলে আমি তার কাছে যেয়ে তার জুতা চুম্বন করতাম।’

ঘটনা বারো. রোমান সম্রাট হেরাক্লিয়াসের বিশ্ব নবীর প্রতি অনন্য ভালোবাসাঃ

রোমান সাম্রাজ্যের খ্রিস্টান সম্রাট হেরাক্লিয়াসের কথা উল্লেখ করা যেতে পারে। আবু সুফিয়ান যখন তার দরবারে নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সম্পর্কে বললেন, ‘তিনি বিশ্বাস ভঙ্গ করেন না। তিনি এক আল্লাহর ইবাদত করতে নির্দেশ দেন। তাঁর সাথে শিরক করতে নিষেধ করেন। প্রতিমা পূজা করতে নিষেধ করেন। সালাত আদায় করতে বলেন। সততা অবলম্বন করতে বলেন। শালীনতার নির্দেশ দেন।’

তখন রোমান সম্রাট আবু সুফিয়ানকে বললেন, ‘আপনি যা বলেছেন তা যদি সত্যি হয়, তাহলে তিনি তো আমার রাজ্যের মালিক হয়ে যাবেন। আমি জানতাম, তাঁর আবির্ভাব হবে, কিন্তু তিনি যে আপনাদের জাতি থেকে হবেন, তা আমার ধারণা ছিল না। আমি যদি তার কাছে যেতে পারতাম, তবে কষ্ট করে হলেও তার সাথে সাক্ষাৎ করতাম। আমি যদি তার কাছে থাকতাম তাহলে তার দু'পা ধৌত করে দিতাম।’ -সহীহ বুখারী হাদিস নং-৭

মহান আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআলা কতই না সুন্দর বলেছেন:

'নিশ্চয়ই আপনি মহান চরিত্রের অধিকারী'। সূরাহ আল ক্কলাম, আয়াত-৪

নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যথার্থ বলেছেন, ‘সুন্দর চরিত্রের পূর্ণতা সাধনের জন্য আমাকে প্রেরণ করা হয়েছে।’ বাইহাক্কী হাদিস নং-১৯২/১০, মুসনাদ আহমাদ ৩৮১/২

আয়েশা রা. কে নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর চরিত্র সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বললেন, ‘তার চরিত্র হল আল-কুরআন। সহীহ মুসলিম হাদিস নং-৭৪৬

ধৈর্য্য নিয়ে পাঠ করার জন্য মোবারকবাদ। শুভকামনা সকলের জন্য। অাল্লাহ পাক জগতের সকল প্রানীর প্রতি তাঁর রহমত, বরকত এবং দয়াকে অবারিত করে দিন।

দেখেছেন! প্রিয় নবীজীর চিন্তা কত সুন্দর, কত মহান! মন কত উদার। আমরা সৌভাগ্যবান একারণে যে, আমরা এমনই মহান একজন নবীর উম্মত। আমাদেরও এমন উদার হতে হবে। সবাইকে ক্ষমা করা শিখতে হবে। মন হতে হবে স্বচ্ছ-শুভ্র। গোলাপের মত সুন্দর-সুরভিত। আমরা যদি নবীজীর সুন্দর সুন্দর গুণগুলো নিজেদের জীবনে গ্রহণ করি তাহলে আমাদের জীবনও হবে সুন্দর, মহান ও আলোকিত। আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআ'লা আমাদের তাওফিক দান করুন।

প্রশংসা মহামহিয়ান প্রিয়তম মালিকের প্রতি। দরুদ ও সালাম শাফিউল উমাম, সাইয়্যিদুল কাওনাইন ওয়াসসাকালাইন প্রিয় নবীজী সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের প্রতি। শুরু এবং শেষে।

ছবি কৃতজ্ঞতাঃ অন্তর্জাল।
সর্বশেষ এডিট : ১৮ ই জুন, ২০২০ সকাল ৯:৫২
১১টি মন্তব্য ১১টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

সদ্য প্রেমে পরা বর্হিমূখি প্রেমিকা'কে বশীকরণের অব্যর্থ কৌশলঃ-

লিখেছেন নীল আকাশ, ১৩ ই আগস্ট, ২০২০ সকাল ১০:২৫



নতুন প্রেমে পড়েছেন কিন্তু সদ্য প্রেমে পরা প্রেমিকার মতিগতি ঠিক আন্দাজ করতে পারছেন না?
.
মোবাইলে যখন তখন প্রেমিকা'কে ফোন করলে লাইন বিজি দেখায়, ধরেও না! আবার কারণ জিজ্ঞেস করলে উল্টা... ...বাকিটুকু পড়ুন

ঈশ্বের অপেক্ষায় বসে থেকো না, তুমি তোমার কাজ করে যাও

লিখেছেন রাজীব নুর, ১৩ ই আগস্ট, ২০২০ দুপুর ১:৫৪




আমি খুব ফুর্তিবাজ মানুষ।
যতদিন বেঁচে থাকব হাসি আনন্দ নিয়েই বেঁচে থাকতে চাই। আচ্ছা, আমি যদি হুট করে মরে যাই? তখন মানুষ আমার বিচার করবে- লোকটা ভালো ছিল, কেউ বলবে লোকটা... ...বাকিটুকু পড়ুন

নভোনীল (পর্ব-১২)

লিখেছেন মোঃ মাইদুল সরকার, ১৩ ই আগস্ট, ২০২০ দুপুর ২:৩৮

আমেরিকায় স্কুল, ইউনিভার্সিটি খোলা নিয়ে রাজনৈতিক যুদ্ধ চলছে!

লিখেছেন চাঁদগাজী, ১৩ ই আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৩:৫১



বাংলাদেশে স্কুল, কলেজ ও ইউনিভারসিটি খোলা নিয়ে সরকারী কোন নির্দেশ দেয়া হয়েছে? আমি মিডিয়ায় কিছু দেখিনি, আপনারা এই ব্যাপারে কি জানেন? পড়ালেখা নিয়ে সরকার বা মা-বাবা, কারো মাথা... ...বাকিটুকু পড়ুন

কবিতাঃ গোধূলির গান

লিখেছেন খায়রুল আহসান, ১৩ ই আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৫:৫১

সকল গোধূলিই কি বিষণ্ণতার প্রতিচ্ছবি?
সকল গোধূলিতেই কি মূক হয়ে যান কবি?
ক্লান্ত সূর্য অস্ত যায় আবির ছড়িয়ে চারিদিকে
সেখানেও কি বিষণ্ণতার বর্ণ ছড়িয়ে থাকে?

পাখিরা ফিরে এসে গান করে আপন নীড়ে
সে গানও... ...বাকিটুকু পড়ুন

×