somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

আমার পরিচয়

লিখতে ভালো লাগে তাই লিখি।

আমার পরিসংখ্যান

সুদীপ কুমার
quote icon
ধূসর পথের যাত্রী
আমার সকল পোস্ট (ক্রমানুসারে)

যেখানে সবই সত্য

লিখেছেন সুদীপ কুমার, ২১ শে এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ১০:১৪


এক
চম্বাবতীর কাছে বিষয়টি বেশ বিরক্তিকর।কমলেশ ওকে অন্য ছেলেদের সাথে মিশতে দিতে চায়না।আরে বাবা, চাকুরী সূত্রে ওকে সবার সাথেই মিশতে হয়।কিন্তু কমলেশ বাড়ি ফিরেই বিষয়টি নিয়ে নানা কথার অবতারনা করবে।এই নিয়ে আবার ফেসবুকে কত জ্ঞানগর্ভ স্ট্যাটাস যে দেয় কমলেশ তার কোন হিসাব নেই।আর কমলেশের ফলোয়াররাও সেই রকম।স্ট্যাটাস পড়ার সাথে সাথে ছাগলের... বাকিটুকু পড়ুন

৮ টি মন্তব্য      ৯০ বার পঠিত     like!

কাজল রেখা

লিখেছেন সুদীপ কুমার, ১৯ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ১২:৪৯


এক
বিভা গভীর মনযোগ দিয়ে পড়ছিল।আফরোজা কখন পাশে এসে বসেছে খেয়াল করেনি।আফরোজা কিছুক্ষণ চুপ করে থাকে।বিভা পড়েই চলেছে।
-কি,বাড়ি যাবিনা?
আফরোজা জানতে চায়।
বিভা ট্যাব থেকে চোখ ফেরায়।
-গাড়ি আসেনি এখনও।
বিভা জানায়।
-আমি নামিয়ে দেবো।আমার সাথে চল।
-ড্রাইভার ফোন দিয়েছিল।আর কিছুক্ষণ লাগবে।
-কি পড়ছিস এতো মনযোগ দিয়ে?
-কাজল রেখা।
-ধুস এখন এগুলি কেউ পড়ে।ও তো বাচ্চাদের জন্যে।রুপকথার... বাকিটুকু পড়ুন

৬ টি মন্তব্য      ৯৪ বার পঠিত     like!

বিপরীতে ছায়া

লিখেছেন সুদীপ কুমার, ১৫ ই এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ১০:১০


এক

মাঝরাতে সফিকের ঘুম ভেঙ্গে যায়।জানালা দিয়ে বৃস্টির ছাঁট আসছে ঘরে।ঝড়-বৃস্টি শুরু হয়েছে।উঠে গিয়ে জানালা বন্ধ করে বিছানায় ফিরে আসতে গিয়ে কি মনে করে আয়নার সামনে দাঁড়ায়।আয়নায় স্পষ্ট হয়ে উঠে ওর সুঠাম শরীর।বাইসেপ ফুলিয়ে নিজেকে আয়নায় দেখে।আচমকা কু-বুদ্ধি মাথায় খেলা করে।টান দিয়ে লুঙ্গি খুলে ফেলে আয়নায় নিজেকে দেখে।প্রচন্ড রকম ধাক্কা... বাকিটুকু পড়ুন

৮ টি মন্তব্য      ৭৯ বার পঠিত     like!

অসমাপ্ত বৃত্ত

লিখেছেন সুদীপ কুমার, ০৮ ই এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ১০:৪৩


এক
বান্ধবীদের সাথে স্কুলে যাচ্ছিল শুক্লা।পথে সুব্রতর সাথে দেখা।সুব্রত নীল রঙের টি-শার্ট পড়েছিল।রৌদ্রোজ্জল দিন।সুব্রত বেশ লম্বা।আর দেখতেও সুন্দর।শুক্লাদের কাছে চলে আসে।শুক্লা সুব্রতর চোখে চোখ ফেলার চেষ্টা করে।কিন্তু পারেনা।
-দাদা কোথায় যাচ্ছ?
শুক্লা প্রশ্ন করে
-তোদের বাড়িতে।
সুব্রত উত্তর দিয়েই হন হন করে হেঁটে চলে যায়।বিষয়টা হজম করা শুক্লার জন্যে একটু কঠিনই হয়।রিমি আবার বিষয়টা নিয়ে... বাকিটুকু পড়ুন

৪ টি মন্তব্য      ৭৬ বার পঠিত     like!

ইন্দুপ্রভা

লিখেছেন সুদীপ কুমার, ০৬ ই এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ৯:৩৭


ইন্দুপ্রভা কবিতা লিখতে বসে।কি লিখবে বুঝে উঠতে পারেনা।জানালা দিয়ে বাহিরের বাগান দেখা যায়।গন্ধরাজ ফুলের অদ্ভুত সুন্দর গন্ধ টের পায় ইন্দুপ্রভা।টেবিল ছেড়ে উঠে আসে।জানালার পাশে দাঁড়ায়।জ্যোৎস্নায় আলোকিত চারপাশ।বাগানের শ্বেতশুভ্র নারী মূর্তিটিকে সেই আলোয় জীবন্ত মনে হচ্ছে।ইন্দুপ্রভার এই বিরহ আর সহ্য হয়না।তার স্বামী প্রবরটি কলকাতায় গেলে আর ফেরার নাম নেয়না।এই নিঃসঙ্গ,জ্যোৎস্না আলোকিত... বাকিটুকু পড়ুন

৪ টি মন্তব্য      ৬৪ বার পঠিত     like!

ঝর্ণার মত জীবন

লিখেছেন সুদীপ কুমার, ০৪ ঠা এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ১:২২


সৌমেনের সাথে পথেই দেখা হয়ে যাবে,এইটা রিনার ভাবনায় ছিলনা।ভয়ে রিনার গলা শুকিয়ে যায়।সৌমেন ব্যপারটা আঁচ করেছে কিনা সে বুঝতে পারেনা।রিনা পাশ কাটিয়ে প্রায় চলেই যাচ্ছিল।সৌমেনই কথা বলে উঠে।জানতে চায় কখন এসেছে।সাথে আর কে এসেছে?রিনা জানায় যে আজ সকালেই এসেছে।বর আর ননদ এসেছে।সৌমেন হেসে চলে যায়।রিনা হাঁফ ছেড়ে বাঁচে।তবে একটা ভয়ের... বাকিটুকু পড়ুন

৪ টি মন্তব্য      ৭৭ বার পঠিত     like!

শর্মিষ্ঠারা চলে যায়

লিখেছেন সুদীপ কুমার, ০২ রা এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ১০:১৩


খবরটা যখন প্রথম কানে আসে মাথা ঘুরে পড়ে যাবার অবস্থা হয়েছিল দেবব্রতর।বিশ্বাসই হচ্ছিলনা তার।ভবতোষ কর্মকার সপরিবারে ইণ্ডিয়া চলে গিয়েছে।সে খেলা বাদ দিয়ে পুকুর পারে চলে আসে।ছোট পুকুর পারে তখন কেউ ছিলনা।পুকুরের সিঁড়ি ঘাটে চুপ করে বসে থাকে।বুকে একটা চাপা কষ্ট দলা পাকাতে থাকে।কিছুক্ষণ পর খেলার মাঠের অন্যেরাও চলে আসে।পুকুর... বাকিটুকু পড়ুন

৮ টি মন্তব্য      ১১৬ বার পঠিত     like!

স্বপ্নচুরি

লিখেছেন সুদীপ কুমার, ৩১ শে মার্চ, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:০৪


আজ দুইদিন হলো সোহেল বাসা থেকে চলে এসেছে।থাকছে বড় ভাইয়ের বাসায়।অথচ আফরোজা একটা ফোনও দেয়নি ওকে।ভাবি বারবার জানতে চাইছে কি নিয়ে অশান্তি,সোহেল বলতে পারছেনা।কোন সমস্যার কথা বলবে।সমস্যা তো আর একটা নয়।আফরোজার হরদম ছেলেবন্ধুর সাথে মেলামেশা,শ্বশুর বাড়ির কাউকে সহ্য করতে না পারা,ওর শারীরিক সক্ষমতাকে চ্যালেঞ্জ করা-কোন সমস্যার কথা বলবে?শেষ পর্যন্ত ভাবিকে... বাকিটুকু পড়ুন

৪ টি মন্তব্য      ৯৭ বার পঠিত     like!

বৃতান্ত হলো এই

লিখেছেন সুদীপ কুমার, ৩০ শে মার্চ, ২০১৯ দুপুর ১:১৪


জয়কে যখন উদ্ধার করা হয় তখন জয়ের জ্ঞান ছিলোনা।নৌবাহিনীর একটি পেট্রোল জাহাজ বঙ্গোপসাগরে জয়কে খুঁজে পায়।দুইদিন পর জ্ঞান ফিরে আসে জয়ের।ডাক্তার যারা ছিল জয়ের চিকিৎসায়,তারা কোন কারণ খুঁজে পাচ্ছিলনা।কেন জয় অজ্ঞান হয়ে আছে।কেন জ্ঞান ফিরছেনা তার কোন কিছুর উত্তর তাদের কাছে নেই।ডাক্তার মারুফ রাউন্ডে এসে জয়কে পরীক্ষা করেন।সবকিছু নরমাল।বাওয়েল মুভমেন্ট... বাকিটুকু পড়ুন

১০ টি মন্তব্য      ১১৬ বার পঠিত     like!

নিঃশব্দ দূরত্বে (৮)

লিখেছেন সুদীপ কুমার, ০৩ রা মার্চ, ২০১৯ রাত ১২:৩৩


গভীর রাতে আভার ঘুম ভেঙ্গে যায়।পাশে ডলি আর ইতি ঘুমাচ্ছে।ইতির শোওয়া খুব খারাপ।শাড়ি একদম ঠিক থাকেনা।বাহিরে কুহুক ডাকছে।আভা কান পেতে শুনে।স্বপ্নের রেশটুকু এখনও মনে আছে।যখন মুখ ঘুরিয়ে আভার দিকে চায়,আভা বিস্ময়ের সাথে লক্ষ্য করে উনি মাধাবদা নয়।এরপরই তার ঘুম ভেঙ্গে যায়।আভার খুব মন খারাপ হয়ে যায়।কান্না পায় খুব।ইতিকে ডাক দেয়।
-কি... বাকিটুকু পড়ুন

১ টি মন্তব্য      ৬৮ বার পঠিত     like!

নিঃশব্দ দূরত্বে (৭)

লিখেছেন সুদীপ কুমার, ০২ রা মার্চ, ২০১৯ রাত ১২:৩৯


শুভ বাড়িতে এলে উৎসব শুরু হয়।রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ে এই নিয়ে ধীরেন্দ্রর অনেক গর্ব।আর গর্ব করবেনা কেন?এমন মেধাবী ছেলে কয়জনের আছে?শুভ এলেই মাধবের পাখা গজায়।দুই বন্ধু মিলে টো টো করে নাটোরের পথে পথে ঘুরে বেড়ায়। এমনই একদিন দুই জন ঘুরে ঘুরে ক্লান্ত হয়ে কানাইখালির মাঠে গিয়ে বসে।ছোট ছোট ছেলেরা ফুটবল খেলছে।শুভ... বাকিটুকু পড়ুন

৬ টি মন্তব্য      ৭৩ বার পঠিত     like!

নিঃশব্দ দূরত্বে (৬)

লিখেছেন সুদীপ কুমার, ২৩ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ রাত ১:২০



(তিন)
মাধবীলতাদের উপর ক্রমাগত অত্যাচার বাড়তে থাকে।বাধা দেবার কেউ নেই।এই আজকে গাছ কাটছে তো কাল ঝারের... বাকিটুকু পড়ুন

১ টি মন্তব্য      ৩৯ বার পঠিত     like!

নিঃশব্দ দূরত্বে (৫)

লিখেছেন সুদীপ কুমার, ২২ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৩৪



সন্ধ্যার সময় বড় বাড়ির খোলায় দুলাল গিয়ে উপস্থিত হয়।হারান জ্যাঠা চেয়ারে হেলান দিয়ে বসে হুঁকো ফুঁকছেন।তার ছেলে আশুতোষ পাশের চেয়ারে বসে আছে।জেলে পাড়ার কালু জেলে,পালপাড়ার বিরেনসহ আরও কয়েকজন গল্প করছিল।দুলালকে দেখে কালু নমস্কার জানায়।
-দুলাল আসলে? বস আমার পাশে।
হারান জ্যাঠা হুঁকো টানতে টানতে বলে।
দুলাল পাশের চেয়ারে গিয়ে বসে।
বিরেন পাল কথা... বাকিটুকু পড়ুন

৪ টি মন্তব্য      ৪৯ বার পঠিত     like!

নিঃশব্দ দূরত্বে (৪)

লিখেছেন সুদীপ কুমার, ২১ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ রাত ৯:৪৯



দুলালের ছানা ঝরানো শেষ হলে ছানা নিয়ে গুটি বানানোর কাজ শুরু করে।বড় ছেলে দুর্জয় সন্দেশের কাজ করছিল বারান্দায়।রিমি ভাত খাওয়া শেষ করে বারান্দায় এসে বসে।
-রিমি দেখতো তোর মালো দিদি পাড়া বেড়াতে কোথায় গিয়েছে?
মায়ের কথা শুনে রিমি তার মেজদি মালবিকাকে খুঁজতে যায়।
-তোমার মেজ মেয়েটি কিন্তু টো টো কোম্পানীর ম্যানেজার।
-একটু... বাকিটুকু পড়ুন

৬ টি মন্তব্য      ৫১ বার পঠিত     like!

নিঃশব্দ দূরত্বে (৩)

লিখেছেন সুদীপ কুমার, ১৯ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ রাত ১১:২৫


-শুভর মা বাড়ি আছো?
-কে গেন্দা দিদি নাকি?
ঠাকুর ঘর হতে কুন্তলা বেরিয়ে আসে।গেন্দাকে দেখে কুন্তলা এক গাল হাসে।কেন্দা বুড়ি বারান্দায় উঠে আসে।কুন্তলা পিড়ি দেয় বসতে।
-পান খাবে দিদি?
-দাও একটা।জর্দা একটু বেশী দিও।
কুন্তলা পান সাজায়।একটা পান গেন্দাকে দেয়।আর একটি নিজে খায়।ঠিক এমন সময় বাড়ির ছোট মেয়ে প্রীতি কাঁদতে কাঁদতে মায়ের কাছে আসে।প্রীতি পায়খানা... বাকিটুকু পড়ুন

৪ টি মন্তব্য      ৪৬ বার পঠিত     like!
আরো পোস্ট লোড করুন
ব্লগটি ৫৮৬৬৫ বার দেখা হয়েছে

আমার পোস্টে সাম্প্রতিক মন্তব্য

আমার করা সাম্প্রতিক মন্তব্য

আমার প্রিয় পোস্ট

আমার পোস্ট আর্কাইভ