somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

আল্লামা শফির (দা. বা.) বিরোধিতায় Artifitial Intelligence এর ব্যবহার !!!!!!! নবম আশ্চর্য !!!!!

১৭ ই জানুয়ারি, ২০১৯ সকাল ১১:৩২
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



ব্লগ কেন জানি বিরক্তিকর মনে হইতেছে ! কোন এক বক্তৃতার পূর্বে শুনিয়াছিলাম শ্রোতার মনের যে ধরণের চাহিদা থাকে বক্তার বক্তৃতাতে তাহার প্রতিফলন হয় ! বিষয়টা উল্টো মনে হইলেও আমার কাছে অনেকখানিই বাস্তব মনে হয়। বোদ্ধা ব্লগাররা নাই বিধায় তাহাদের উপযোগী পোস্টের সংখ্যাও কমিয়া গিয়াছে ! তাহাদের উপস্থিতি বাড়িলে মানসম্পন্ন পোস্টও বাড়িত নিশ্চিত !

সে যাহাই হউক , আমিতো টারজান , ছাইপাশ কি লিখি, বোদ্ধা পাঠক খোঁজার প্রশ্নই আসে না ! তবে বিবর্তনের ধারায় বান্দরের দলেরও মানুষ হইয়া যাওয়ার কথা ! তাহা হইতেছে না বিধায় ডারউইনের তত্ব খালি চোখেই ভুল প্রমাণিত হইতেছে !(ইহার জন্য টারজান কি নো-বেল পাইবেক ! :D )

আচ্ছা আলোচনায় আসা যাক। আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স লইয়া আমার বিরাট কৌতূহল ! ইহা মূলত সাইন্স ফিকশনের প্রতি আগ্রহ হইতেই জন্মিয়াছে ! আমার কাছে ইহা খুবই আগ্রহদ্দীপক, কল্পনার লাগাম বহুদূর পর্যন্ত ছাড়িয়া দেওয়া যায় ! স্পিলবার্গের এআই দেখিয়া বহুক্ষণ তব্দা খাইয়া ছিলাম ! শালা সাইন্স ফিকশনকেও এমন মানবিক বানাইয়াছে যে আমার কল্পনার লাগাম থমকাইয়া গিয়াছিল। যাহা হউক ছেলেবেলার জাফর ইকবাল , হুমায়ুন, জুলস ভার্ন, ওয়েলস বড়বেলার আর্থার সি ক্লার্ক, আসিমভ পড়িয়া খুব মজা পাইয়াছি ! এমনকি বুড়োবেলাতেও পাই।

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের বাংলা হইলো কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা ! ভাবিতেই কেমন রোমাঞ্চ জাগে, মানুষের যেমন বুদ্ধিমত্তা আছে একটা যন্ত্রের বা বস্তুর যদি এমন ক্ষমতা থাকে তাহা হইলে দুনিয়ার চেহারা কেমন হইবে !!

কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা কি তৈরী করা সম্ভব ? বিজ্ঞান বলিতেছে সম্ভব ! ইতোমধ্যে ইহা লইয়া ব্যাপক গবেষণা হইতেছে, বিশ্বের সরকার গুলো, বড় বড় বিশ্ববিদ্যালয় , বিজ্ঞানাগার, ইন্ডাস্ট্রি ইহা লইয়া কাজ করিতেছে, কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা ঢালিতেছে , মোবাইল ফোন , ব্রাউজার, ড্রোন , বিমান , সামরিক অস্ত্র , জাহাজ প্রভৃতিতে অল্প-বিস্তর কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা কাজ করিতেছে !

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স খুব জটিল এক প্রক্রিয়া। অনেকগুলি বিষয়ের সমষ্টি হইলো এআই। এতো গভীরে যাওয়ার ইচ্ছা, সামর্থ বা প্রয়োজন নাই । সংক্ষেপে বলিতে হয় , কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা হইলো একটা সত্বা তৈরী করিয়া দেওয়া যা স্বাধীনভাবে চিন্তা করা, সিদ্ধান্তগ্রহণ ও কর্ম সম্পাদন করিতে পারে !

আচ্ছা যন্ত্রের কৃত্তিম স্বত্বা, বুদ্ধিমত্তা তো তৈয়ার করা সম্ভব বলিয়া প্রতীয়মান হইতেছে, কিন্তু মানুষের মধ্যে কৃত্তিম সত্বা , বুদ্ধিমত্তা তৈরী করা কি সম্ভব ? তাহার অতুলনীয় বুদ্ধিমত্তা থাকা সত্ত্বেও ?

আমার প্রবল ধারণা সম্ভব ! আপনাদের কি হীরক রাজার দেশের কথা মনে আছে? ওই রাজ্যে একখানা মগজ ধোলাই যন্ত্র ছিল যাহার মধ্যে একজন শিক্ষককে ধোলাই করার পর সে বলিতে লাগিল, "জানার কোন শেষ নাই , জানার চেষ্টা বৃথা তাই" (এই 'জানা' , জানা আফা নহে :P ) !!!! শেষে নিজে যখন ধোলাই হইয়া গেল, তখন রাজার মূর্তি অপসারণের সময় নিজেই বলিতে লাগিল, ''দড়ি ধরে মার টান , রাজা হবে খান খান !'' এই মগজ ধোলাই কি আসলে কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা, সত্বা তৈরী করার কাজ নয় ? ৬০, ৭০,৮০ এর দশকে পশ্চিমা দেশগুলো, সোভিয়েত ইউনিয়ন ব্যাপকহারে স্কলারশিপ দিতো তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোকে ! জী না , শুধু খয়রাত হিসেবে নহে ! উহাদের অন্যতম উদ্দেশ্য ছিল মগজ ধোলাই করা , কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা তৈরী করা , তাহাদের রঙে চশমা রঙিন করা, তাহাদের চিন্তা-চেতনা , সংস্কৃতি রফতানি করা ! আমাদের দেশে যেসকল বুইড়া পাঁঠা দেহা যায় তাহাদের এক বিরাট অংশ এসব স্কলারশিপ প্রোগ্রামে মগজ ধোলাইকৃত ! সুতরাং কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা তৈরির চেষ্টা আজকের নহে !!

এক অর্থে নবী-রাসূল , দার্শনিক, শিক্ষক , মহামানবদের সকলেই কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তার জনক। তাহারা মানব মনে প্রভাব বিস্তার করিয়া তাহাদের মধ্যে আলাদা সত্বা তৈয়ার করিয়াছেন, তাহাদের দৃষ্টিভঙ্গি/চশমা বদলাইয়াছেন, তাহাদের এলগোরিদম শিখাইয়াছেন , বুদ্ধিমত্তা তৈরী করিয়াছেন !

আচ্ছা, বাস্তবে কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তার জনক কে ? গুগলাইয়া কুল পাইলাম না ! সেই গ্রিক আমল হইতেই নাকি কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তার চর্চা হইতেছে !! কেমতে কি ? আমি গুগল মিয়ার চাইতেও আউগাইয়া কইতে পারি মানুষ সৃষ্টির পর হইতেই কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা সৃষ্টির চেষ্টা করা হইতেছে ! ! জী, পাঁঠাকুলের প্রভু মিস্টার আজাজিলই কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা তৈরির চেষ্টা করিয়াছে !!! নিষ্পাপ মানব সত্ত্বার কানে ফুস মন্তর ঢালিয়া, স্বাভাবিক বুদ্ধিমত্তাকে পরিবর্তন করিয়া আল্লাহর হুকুম লঙ্ঘনে প্ররোচিত করা কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা তৈরির অপচেষ্টা বলিয়া মনে হয় ! ! (আল্লাহ ভালো জানেন !) ইবলিশ ব্যাটাই প্রথম হ্যাকারও আছিল ! হে হে হে !

হাদিসের মাউফুম, মনের মধ্যে কিছু ভাবনা ফেরেস্তাদের পক্ষ হইতে তৈরী হয় , কিছু ভাবনা শয়তানের পক্ষ হইতে তৈরী হয় !

পাঁঠাকুলের প্রভুর কথা আর ফেরেস্তাদের কথাতো গেল ! কিন্তু মানুষের মধ্যে কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তার জনক কে ? সাহিত্যে মেরি শেলী বোধহয়। ফ্রাঙ্কেনস্টাইন তো কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন প্রথম রোবট আছিল। ইহার পরে আরো অনেকেই লিখিয়াছে ! বিজ্ঞানী মহলে আল্যান ট্যুরিং যদিও এআই এর জনক হিসেবে অভিহিত হয়, তবে আমার কাছে এলগরিদমের আবিষ্কর্তা খাওয়ারিজমিকেও এআইএর জনকদের অন্যতম বলিয়া মনে হয় ! ব্লগে বিজ্ঞানীকূলের কেহ থাকিলে আওয়াজ দিয়েন !

সাহিত্য আর বিজ্ঞানের কথাও গেল । ইহার বাহিরে আর কেহ আছে কি ? বিশেষ করিয়া আমাদের উপমহাদেশে ? আছে !! আছে !! লর্ড মেকলে তাহার প্রকৃষ্ট উদাহরণ ! তাহার স্পিচ পড়িলে অনুভূত হয় ব্যাটা কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তার জনকদের মধ্যে একজন ! "We must at present do our best to form a class who may be interpreters between us and the millions whom we govern, – a class of persons Indian in blood and colour, but English in tastes, in opinions, in morals and in intellect." (আমার অনুবাদ গুগলের চেয়েও খ্রাফ ! তাই সেই চেষ্টা করিলাম না ! ইংরেজিই পড়িয়া লন !) ইংরেজ সরকার তাহার যথাযথ মূল্যায়নই করিয়াছে ! তাহার নীতি বাস্তবায়ন করিয়া উপমহাদেশ জুড়িয়া সত্যি এমন এক ক্লাস তৈরী করিয়াছে যাহাদের রক্ত আমাদের হইলেও চিন্তা-চেতনা, মতামত, উপলব্ধি , বুদ্ধিমত্তা, নৈতিকতা আমাদের নহে , তাহাদেরই ! ইহারা এমনই এক ক্লাস যাহারা পশ্চিমাদের হইয়া আমাদেরই প্রতিনিয়ত বিরোধিতা করে , লাঞ্ছিত করে, অসম্মান করে ! তাহাদেরই গুনগান গায় ! পশ্চিমাদের চশমা দিয়া দুনিয়া দেখে, দেখিতে বলে ! ব্রাভো !!! না হইলে , একজন সর্বজন শ্রদ্ধেয় আলেমের বক্তব্য লইয়া তাহাকে গালাগালি , অসম্মান, হেয় করার অপচেষ্টা কোন মুসলমানের করার কথা নহে যদি না ওই ক্লাসের কেহ হয় !

যেসমস্ত ম্যাংগোপিপল তাহার বিরোধিতা করিতেছে, তাহাকে হেয় করিতেছে , কটুবাক্য বলিতেছে আমার প্রবল ধারণা তাহারা তাহাকে প্রত্যক্ষ দেখে নাই , তাহার বয়ান শোনে নাই , তাহার সাথে মেশে নাই , তাহার সম্পর্কে বিশদ জানেই না।

এই বিরোধিতার সাথে রাজনীতি মিশিয়া আছে সত্যি, তবে বেশিরভাগই শিয়ালদের সাথে হুক্কা মিলাইতেছে না জানিয়া , না বুঝিয়াই !! ধজঃভঙ্গ , ধর্ষিত বিম্পির ততোধিক আবাল , ছাগলের তিন নম্বর বাচ্চা মহা সচিব, রাজনৈতিক সার্কাসের ক্লাউন ডক্টর মশায় , খাউজানিযুক্ত নারীবাদী, বিচিওয়ালা বামাতী পাঁঠা, ক্ষমতাবান আর টাকাওয়ালাদের কোলে চড়া মিডিয়া, ছাম্বাদিক --- সকলে পুটুর বেদনায় , বিচির ভারে, খদ্দেরের মনরোঞ্জনে বিরোধিতায় নামিয়াছে। ইস্যু না পাইয়া ইহাকেই ইস্যু বানাইয়া হিস্যু করিতেছে ! ধিক শতধিক !!

যাহারা ধর্মীয় সম্প্রদায়ের খোঁজ-খবর রাখে বা তাহাদের সাথে মেশে তাহারা জানে, ইস্কুল-কলেজে নারীশিক্ষায় অনীহা ধর্মীয় সম্প্রদায়ের নতুন নহে ! বহুকাল আগে হইতেই। এই অনীহার কারণ নারীশিক্ষার বিরোধিতা হইতে নহে , বরং তথাকার পর্দাবিহীন পরিবেশ, নৈতিকতাহীন শিক্ষাব্যবস্থা , সহশিক্ষা ব্যবস্থা , অনিরাপত্তা, ইত্যাদি। যে শিক্ষাব্যবস্থায় এখন বয়ফ্রেন্ড-গার্ল ফ্রেন্ড , ভ্যালেন্টাইন, লিটনের ফ্লাট, পরিমল , মানিকের কালচার শুরু হইয়াছে তাহার সমর্থন আমাদের আকাবেরীনগন কিভাবে করিতে পারেন ? আর তাহা হইতে কেন উম্মতকে সতর্ক করিবেন না , বিরত থাকিতে বলিবেন না? নারীশিক্ষার বিরোধিতা তাহারা কখনো করেন নি , স্কুল-কলেজের শিক্ষার বিরোধিতা নারী শিক্ষার বিরোধিতা নহে , নারীশিক্ষার বিরোধিতা তাহারা করিতেও পারেন না , কারণ ইলম অর্জনকে ইসলামে ফরজ করা হইয়াছে ! তাহারা কিভাবে ফরজের বিরোধিতা করিবেন ? ইহা কি সম্ভব ?

আর নারীদের নাজুক স্বভাব, কোমলতা ইস্কুল-কলেজের শিক্ষা ব্যবস্থার সাথে কতটুকু সামঞ্জস্যপূর্ণ তা বিবেচনার দাবি রাখে !! তাহাদের জন্য পৃথক শিক্ষাব্যাবস্থা, নিরাপত্তা , পর্দার সাথে শিক্ষায় তো কোন আপত্তি করা হয়নি। ম্যাংগোপিপল কেন দাবি তোলেন না নারীদের যথাযথ নিরাপত্তা , নৈতিকতা , পর্দার সাথে শিক্ষাব্যাবস্থা গড়িয়া তোলা হউক ?

তাহলে ম্যাংগোপিপলদের এই বিরোধিতার কারণ কি ? সাইবর্গদের বিরোধিতার কারণ তো পাওয়া গেল , তাহাদের মগজ ধোলাইকৃত , তবে কি ম্যাংগোপিপলদের মগজও ধোলাই হইতেছে ? কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা তৈরী হইতেছে ? সাধারণের মনে পৃথক সত্তা তৈরী হইতেছে যাহা পশ্চিমা , পাঁঠা বা ইসলামের শত্রুদের প্রোগ্রাম করা ? নচেৎ আমাদেরই সন্তানেরা আমাদেরই আকাবেরিনদের বিরোধিতা, অসম্মান কেমনে করে ?

ওলামায়ে হক নবী-রাসূলদের ওয়ারিস। নবীরা সম্পদের ওয়ারিস বানান না , ইলমের ওয়ারিস বানান। একজন আলেমের মৃত্যুতে যে ক্ষতি হয় দুনিয়া কখনো সে ক্ষতি পূরণ করিতে পারে না। ওলামায়ে হকের অসম্মান তো প্রকারান্তরে দ্বীনের ক্ষতি, নিজের ঈমানের , দুনিয়া-আখিরাতের ক্ষতি ! আফসোস ! আফসোস ! জানিয়া , না জানিয়া কতবড় ক্ষতিই হইতেছে !! আহা ! আল্লাহ সবাইকে হেদায়েত নসিব করুন , বুঝ দিন। আমিন !

(অষ্টম আশ্চর্য হইলো বনের রাজা টারজানের ব্লগ লেখা ! হে হে হে !!) =p~


সর্বশেষ এডিট : ১৭ ই জানুয়ারি, ২০১৯ সকাল ১১:৪১
২৪টি মন্তব্য ২৪টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

আহা প্রেম!

লিখেছেন কাজী ফাতেমা ছবি, ১৯ শে জুন, ২০১৯ বিকাল ৫:৪০



ইনবক্সের প্রেমের আর কী বিশ্বাস বলো
এসব ধুচ্ছাই বলে উড়িয়ে দেই হরহামেশা
অথচ
সারাদিন ডেকে যাও প্রিয় প্রিয় বলে.....
একাকিত্বের পাল তুলে যে একলা নদীতে কাটো সাঁতার
সঙ্গী হতে ডাকো প্রাণখুলে।

এসব ছাইফাঁস আবেগী... ...বাকিটুকু পড়ুন

ট্রলিং, বাঙালি জাতি ও খাদ্যে ভেজাল।

লিখেছেন মঞ্জুর চৌধুরী, ১৯ শে জুন, ২০১৯ রাত ১০:১৬

ট্রলিং বিষয়টা আমার অসহ্য লাগে। এমন না যে আমার সেন্স অফ হিউমার নেই, বা খারাপ। কিন্তু বাঙালি ট্রলিংয়ের সীমা পরিসীমা সম্পর্কে কোনই ধারণা রাখে না। ফাজলামি করতে করতে আমরা এমন... ...বাকিটুকু পড়ুন

কাছাকাছি থেকেও চির-অচেনা

লিখেছেন চাঁদগাজী, ১৯ শে জুন, ২০১৯ রাত ১১:২৪



স্ত্রীর জন্য স্যান্ডেল কিনতে বের হয়েছি; আমি ট্রেনে যাবার পক্ষে ছিলাম, গাড়ীর পার্কিং পাওয়া মোটামুটি অসম্ভব ব্যাপার; আরো ২/১ যায়গায় যেতে হবে, শেষমেষ গাড়ী নিয়ে বের হতে হলো; রেসিডেন্সিয়েল... ...বাকিটুকু পড়ুন

রাস্তায় পাওয়া ডায়েরী থেকে- ৯৮

লিখেছেন রাজীব নুর, ২০ শে জুন, ২০১৯ রাত ১২:২১


বাংলাদেশের জয় উদযাপন।

১। ভালো লেখক হতে হলে সর্বাগ্রে ভালো পাঠক হতে হবে। পাঠক হবার আগেই যদি সমালোচক হতে চাও, তবে তা হবে বোকামী। বিচারক হতে যেও না,... ...বাকিটুকু পড়ুন

আগে শিক্ষা তারপর সমালোচনা।

লিখেছেন মাহমুদুর রহমান, ২০ শে জুন, ২০১৯ দুপুর ২:৪১



পাঠকেরা সুন্দর সুন্দর মন্তব্য করবেন, ভালো না লাগলে চুপ করে কেটে পড়বেন, লেখার সমালোচনা করা যাবে না, লেখার উপর বিরূপ মন্তব্য করা যাবে না; তা'হলে, ব্লগ আপনার জন্য... ...বাকিটুকু পড়ুন

×