somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

কারাগার হবে বন্দী অপরাধীদের সংশোধনাগার

১১ ই এপ্রিল, ২০১৬ সকাল ৮:৪৭
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

কারাগারে বন্দী অপরাধীদের বিভিন্ন বৃত্তি ও প্রশিক্ষণমূলক কার্যক্রম গ্রহণের মাধ্যমে সংশোধন করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে কারাগারগুলোকে সংশোধনাগারে পরিণত করতে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কারাগারকে শুধু শাস্তি কার্যকরের স্থানই নয়, সংশোধনাগার হিসেবে সমাজে প্রতিষ্ঠা করতে কারাগারে কর্মরতদের বন্দীদের সেবা প্রদানের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। একই সঙ্গে কারাগারের দায়িত্বরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিভিন্ন সুবিধা প্রদানের বিষয়টি তিনি দেখবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন। রবিবার রাজধানীর উপকণ্ঠে কেরানীগঞ্জের তেঘরিয়া ইউনিয়নের রাজেন্দ্রপুরে স্থাপিত নতুন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে প্রধানমন্ত্রী নতুন কেন্দ্রীয় কারাগার প্রাঙ্গণে পৌঁছলে তাকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়। পরে সাড়ে চার হাজার বন্দী ধারণক্ষমতার নতুন এ কারাগারের সুইচ টিপে ও ফিতা কেটে উদ্বোধনী ফলক উন্মোচন করেন। এ সময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, স্থানীয় এমপি বিদ্যুত প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মোজাম্মেল হক খান, কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দীন উপস্থিত ছিলেন। এরপর তিনি নতুন এ কারাগারটির বিভিন্ন অংশের অবস্থান সম্পর্কে সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে জানতে চান ও এ সম্পর্কে সংশ্লিষ্টদের বিভিন্ন নির্দেশনা দেন। এরপর কারাগারে একটি গাছের চারা রোপণ করেন। এরপর গাড়িতে করে ৩১ একর জমির উপর পুরুষ বন্দীদের জন্য নির্মিত এ কারাগারের বিভিন্ন অংশ ঘুরে দেখেন প্রধানমন্ত্রী।

উদ্বোধনী বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, কারাগারগুলোকে শোধনাগার হিসেবে গড়ে তুলতে হবে, যাতে প্রত্যেকে সুস্থ জীবনে ফিরে যেতে পারেন। অপরাধীদের সংশোধন করতে হবে। সুস্থ জীবনে ফিরিয়ে আনতে হবে। তারা না থাকলে পরিবারের কী অবস্থা হয়, তা বন্দীদের জানা দরকার। শুধু অপরাধের পর গ্রেফতারের চিন্তা না করে অপরাধপ্রবণতা থেকে মানুষকে কিভাবে বের করে আনা যায় সেদিকে চিন্তা-ভাবনা করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, অপরাধ করলে শাস্তি দিলাম- এতেই শেষ না। একজন ছিঁচকে চোর যদি জেলখানায় গিয়ে আরও বড় চোরদের সংস্পর্শে আসে, তাহলে জেলখানা থেকে বেরিয়ে সে পাকা চোর হয়ে ওঠে। ট্রেনিংটা সেখানেই পেয়ে যায়।

কারাবন্দীদের বৃত্তিমূলক বিভিন্ন প্রশিক্ষণের ওপর জোর দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের লক্ষ্য তাদের উৎপাদনমুখী কার্যক্রমের আওতায় নিয়ে আসা। একটি মানুষের জীবনে প্রয়োজনীয় অনেক কিছুই কারাবন্দীরা তৈরি করতে পারে। কারাবন্দীরা যেসব পণ্য তৈরি করবে সেজন্য তারা নির্দিষ্ট পরিমাণ মজুরি পাবে এবং সেটা জমা থাকবে। যখন সে মুক্তি পেয়ে বাড়ি ফিরবে, তখন এ টাকা দিয়ে একটা ছোটখাটো ব্যবসা বা দোকান দিয়ে সমাজে স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারবে। সে কারাগারে বন্দী থাকা অবস্থায় তার মজুরির একটা অংশ পরিবারকেও দেয়া হবে। কারণ অপরাধ করে একজন কিন্তু তার জন্য ভুক্তভোগী হয় গোটা পরিবার। কাজের মধ্যে দিয়ে বন্দী অবস্থায় তার কাজের প্রবণতা বৃদ্ধি পাবে। নিজেকে সংশোধন করে বন্দীদের জীবন কর্মমুখর করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী গত ওয়ান ইলেভেনের সময় নিজের কারাবরণ সম্পর্কে বলেন, আমাকেও জেলে আসতে হয়েছে। তবে তা সরাসরি ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নয়। জাতীয় সংসদ ভবনের একটি বাড়িকে সাবজেল তৈরি করে আমাকে আটক রাখা হয়। কেন আমাকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নেয়া হয়নিÑ এ বিষয়ে আমি কারা সংশ্লিষ্টদের কাছে জেনেছি। তারা বলেছেন, আমাকে আটক করে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে আনা হলে কারাগারে আটক বন্দীরা আমাকে দেখার জন্য অতি উৎসাহী হয়ে পড়বে। এর ফলে কারাগারে এক বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে, যা তারা সামলাতে পারবে না। তাই আমাকে কারাগারে নেয়া হয়নি। আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে রাজনীতি করি। বঙ্গবন্ধু স্বাধীন দেশ দিয়েছেন কিন্তু সোনার বাংলা গড়ে যেতে পারেননি। তাই আমরা উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশ গড়তে যা যা করা প্রয়োজন তাই করছি। ফলে দেশ সমৃদ্ধির দিকে দ্রুত এগোচ্ছে।

পুরান ঢাকার কারাগারটি সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মোগল আমলে এ কারাগারটি একটি দুর্গ হিসেবে ব্যবহৃত হতো। পরবর্তীতে পাকিস্তান আমলেও এটি পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় কারাগার হিসেবে ব্যবহারিত হয়। আড়াই হাজারের কিছু বেশি বন্দীকে রাখার জন্য তৈরি করা কারাগারটিতে অমানবিকভাবে হাজার হাজার বন্দীকে মানবেতর জীবনযাপন করতে হতো। এ কারাগারটি তৈরির মাধ্যমে এ কষ্ট অনেকটা লাঘব হবে। এমন কিছু বন্দী আছে যাদের অভাবে স্বভাব নষ্ট হয়ে যায়। এসব অপরাধীদের অপরাধ প্রবণতা কমিয়ে আনতে কাজ হবে। আবার কিছু দুর্ধর্ষ বন্দী রয়েছে তাদের কোনক্রমেই ভাল করা যাবে না। তাই তাদের শাস্তি দিতে হবে।

এ সময় কারান্তরীণ অবস্থায় বন্দীর পরিবারের কী অবস্থা হয় তার জলন্ত উদাহরণ তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমার পিতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জীবনের এক উল্লেখযোগ্য সময় কারাগারেই কাটিয়েছেন। জীবনের দুটি বছর কোন সময়ই কারাগারের বাইরে কাটাতে পারেননি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাকে ভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠার জন্য প্রথমবারের মতো কারাগারে যান বঙ্গবন্ধু। এরপর কিছুদিন পরপর কয়েকবার কারাগারে যান। এরপর ১৯৫২ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি কারাগার থেকে মুক্তি পান তিনি। এরপর ’৫৪ সাল, ’৫৬ সাল, ’৬২ সাল, ’৬৬ সাল, ’৬৯ সাল, ’৭১ সালসহ অসংখ্যবার দেশের জন্য গ্রেফতার হয়ে কারাগারে কাটাতে হয়েছে।

পিতার কারাগারের জীবন নিয়ে স্মৃতিচারণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, একসময় কারাগার থেকে বঙ্গবন্ধুকে ক্যান্টনমেন্টে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর দীর্ঘদিন আমরা বঙ্গবন্ধু বেঁচে আছেন নাকি মারা গেছেন তার কোন খোঁজ পাইনি। এরপর যখন তাকে আদালতে আনা হলো তখন কেবল আমরা জানতে পারলাম যে বঙ্গবন্ধু জীবিত। এমনকি তার সাথে পরিবারের সবাইকে দেখা পর্যন্ত করতে দেয়া হতো না। আমি পরিবারের বড় ছিলাম বলে দেখা করতাম। ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করে পাকিস্তান নিয়ে যাওয়ার পর আমরা তিনি জীবিত নাকি মারা গেছেন তাও একবার পর্যন্ত জানতে পারিনি। এরপর ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি পাকিস্তান কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে লন্ডনে পৌঁছার পরই কেবল জানলাম যে তিনি জীবিত রয়েছেন।

শেখ হাসিনা বলেন, বন্দীদের জন্য পাবলিক টেলিফোনের ব্যবস্থা করা হবে। কারাগারের আটক বন্দীদের চুরি করে মোবাইল টেলিফোনে কথা বলা বন্ধ করতে পাবলিক টেলিফোনে মাসে হয়ত একবার পরিবারের সাথে কথা বলার ব্যবস্থা করা যেতে পারে। পরিবারের সদস্যদের সাথে বন্দীরা যোগাযোগ করতে পারলে মনটা ভাল থাকবে ও অপরাধ প্রবণতা অনেকাংশে কমবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বন্দীদের অপরাধ প্রবণতা থেকে বের করে আনা একান্ত প্রয়োজন। অপরাধীদের কিভাবে অপরাধ প্রবণতা থেকে সরিয়ে আনা যায়, সে বিষয়ে চিন্তা করতে ও ব্যবস্থা নিতে হবে। যারা জঘন্য অপরাধ করেছে তাদের কথা বলব না, যাদের সুযোগ আছে, তাদের সংশোধনের মাধ্যমে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে হবে। অপরাধীদের অপরাধ প্রবণতা থেকে সরিয়ে আনতে বহুমুখী কর্মসূচী নেয়ার কথাও বলেন শেখ হাসিনা। কারাগার থেকে যেন বড় অপরাধী তৈরি না হয়, সেদিকে সর্তক থাকার নির্দেশ দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, অনেক সময় ছিঁচকে চোর কারাগারে ঢুকে। কারাগারে বড়-বড় চোর, অপরাধীদের সঙ্গে মিশে আরও বড় চোর হয়ে বের হয়। সেটা যেন না হতে পারে, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। কারাবন্দীদের প্রশিক্ষণ ও উৎপাদনমুখী কাজের মধ্য দিয়ে অপরাধ প্রবণতা থেকে বের করে সুস্থ-স্বাভাবিক জীবনে নিয়ে আসার পরামর্শ দেন তিনি।

আধুনিক প্রযুক্তির এ বিশ্বে নতুন-নতুন অপরাধের ধরন ও প্রতিকারের বিষয়টি মাথায় রেখে পদক্ষেপ নেয়ার পরামর্শ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সমাজে নতুন-নতুন অপরাধ প্রবণতা বাড়ছে। এসব অপরাধ থেকে অপরাধীদের সরিয়ে আনার জন্য কাজ করতে হবে। অপরাধীদের সুস্থ জীবনে ফিরিয়ে আনা আমাদের সবার দায়িত্ব।

কারাগারের নিরাপত্তায় নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুত সংযোগ প্রয়োজন প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকারের উন্নয়নে ‘বাধা সৃষ্টি’ করতে ‘উদ্ভট’ কারণ দেখিয়ে বর্তমানে বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মাণের বিরোধিতা করা হচ্ছে। আজকাল বিদ্যুত উৎপাদন করতে গেলেই আবার একদল আন্দোলনে নামে পরিবেশ রক্ষার নামে। কিছু কিছু উদ্ভট চিন্তাভাবনা এ দেশের মানুষের আছে। আমি জানি না- কিভাবে আসে! প্রধানমন্ত্রী বাঁশখালীর সাম্প্রতিক ঘটনাপ্রবাহ নিয়েও প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে। তিনি বলেন, এ ধরনের উদ্ভট কথা বলে অযথা কিছু মানুষের জীবন পর্যন্ত নিয়ে নেয়া হলো। আমি জানি না, উদ্দেশ্যটা কী আমি বলতে পারব না। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা যত দ্রুত বিদ্যুত উৎপাদন করে সবাইকে একটু স্বস্তি দিয়েছিলাম, এখন সেই উৎপাদনে বাধা দেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। অথচ এটা আমাদের উন্নয়নের জন্য দরকার।

বিদ্যুত কেন্দ্রের বিরোধিতার প্রসঙ্গ টেনে শেখ হাসিনা বলেন, সেটা আপনারা নিশ্চয়ই দেখেছেন। কয়লাভিত্তিক বিদ্যুত কেন্দ্র করতেই নাকি দেবে না। বিশেষজ্ঞদের একটি দল বলছেন, সুন্দরবনের এত কাছে তাপবিদ্যুত কেন্দ্র নির্মাণ করা হলে সমুদ্র, সংলগ্ন ভূমি এবং ওই এলাকার আবহাওয়া গরম হয়ে জীববৈচিত্র্যে দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব পড়তে পারে। বিশেষজ্ঞদের ওই আশঙ্কা উড়িয়ে দেয় দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুত কেন্দ্রের উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, দিনাজপুরের আগের সরকারের আমলে যখন কয়লাভিত্তিক বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মাণ করেছিলামÑ কই ওই এলাকার কোন ক্ষতি হয়নি। সেখানে বরং জমির উর্বরতা বৃদ্ধি পেয়েছে। ধান হচ্ছে, গাছপালা হচ্ছে, সব হচ্ছেÑ মানুষ বসবাস করছে। যারা পরিবেশ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন তাদেরও সমালোচনা করে তিনি বলেন, কয়লার একটা কার্গো ডুবে গেল নদীতে, আর কিছু লোক চিৎকার করল, পানি নাকি সব দূষিত হয়ে গেছে। শৈশবে কয়লার ওয়াটার ফিল্টার ব্যবহারের কথা স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি জানি না, এটা সায়েন্টিফিক্যালি কতটা সত্য। কারণ আমরা ছোটবেলা থেকে দেখেছি, আমাদের বাড়িতে পানির ফিল্টার ছিল। সেই ফিল্টারের ওপরের স্তরে কয়লা থাকত। কয়লা পানিকে দূষণমুক্ত করে। এখনও গ্রামেগঞ্জে এই ফিল্টার দিয়ে পানি দূষণমুক্ত করে। তাহলে এটা কী করে দূষিত হলো? প্রশ্ন করেন প্রধানমন্ত্রী। তাপ বিদ্যুত কেন্দ্রের ছাই সিমেন্ট কারখানায় চলে যায় জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, পৃথিবীর সব দেশেই কয়লাভিত্তিক বিদ্যুত কেন্দ্র আছে। অক্সফোর্ডেও আছে। কয়লাভিত্তিক বিদ্যুত কেন্দ্র হলে ‘এ্যাসিড বৃষ্টি হবে’Ñ এ ধরনের ‘উদ্ভট প্রচারও’ চালানো হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। এ থেকে সবাইকে বেরিয়ে আসার আহ্বান জানান। প্রধানমন্ত্রী অপরাধীদের কারাগার থেকে বের হয়ে মানুষের মতো মানুষ হিসেবে বসবাস করতে সুযোগ প্রদানের জন্য সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, সরকারের উন্নয়নের অংশ হিসেবে বিভিন্ন স্থানে নতুন নতুন কারাগার নির্মাণ করে গত ৮ বছরে ৭ হাজার ৫১২ জন বন্দী ধারণক্ষমতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। বন্দীদের কল্যাণে কাশিমপুরে বন্দী পুনর্বাসন স্কুল প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। বন্দীর সকল তথ্য সংরক্ষণের জন্য র‌্যাব প্রিজন্স ইনমেইড ডাটাবেজ তৈরি করা হচ্ছে। এছাড়া বন্দীদের আধুনিক সুবিধা প্রদান করতেই ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারটি তৈরি করা হয়েছে। বন্দীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে লাগেজ স্ক্যানার ও বডি স্ক্যানার কেনা হচ্ছে। তাছাড়া কারাগারকে আইসিটিভুক্ত করার প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখা হয়েছে। তিনি বন্দীর কল্যাণে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রসচিব বলেন, কারাগারকে শাস্তি প্রদান নয় সংশোধনাগার হিসেবে প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ চলমান রয়েছে। এসব কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা সম্ভব হলে একসময় কারাগার হবে সমাজসেবামূলক কর্মকা-ের জন্য মূল কেন্দ্র হবে। বর্তমান সরকার কারা উন্নয়নে এ পর্যন্ত ১১ শত কোটি টাকা ব্যয়ে ৭টি বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এছাড়া আরও ১০টি প্রকল্পের কাজ শেষ করেছে।

অনুষ্ঠানে কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দীন বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী কারাগারের উন্নয়নে বিশেষ নজর রাখছেন। তিনি শুধু অপরাধ নিয়ে চিন্তিত নন, সাথে সাথে বন্দীদের নিয়েও চিন্তিত ও ব্যথিত। নতুন এ কারাগারটির মাধ্যমে সারাদেশে ১৯শ’ বন্দী থাকার ব্যবস্থা হয়েছে। আইজি প্রিজন্স কারা কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবদার করেন। কারাবন্দীদের পাশাপাশি কারা কর্মকর্তা কর্মচারীদের একই বেতনে চাকরি করে নিম্ন গ্রেডে বেতন প্রাপ্তি ও উপযুক্ত সম্মান না পাওয়ার কথা তুলে ধরেন। এছাড়া কারা কর্মচারীদের সপ্তাহে সাত দিনই ডিউটি করা, অর্জিত ছুটি ভোগ করতে না পারা, জনবলের প্রবল সঙ্কট, পর্যাপ্ত সংখ্যক প্রথম শ্রেণীর কর্মকর্তা না থাকাসহ বিভিন্ন অসুবিধার কথা তুলে ধরেন।
সর্বশেষ এডিট : ১১ ই এপ্রিল, ২০১৬ সকাল ৮:৪৭
২টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

আমার 'কাকতাড়ুয়ার ভাস্কর্য'; বইমেলার বেস্ট সেলার বই এবং অন্যান্য প্রসঙ্গ

লিখেছেন কাওসার চৌধুরী, ১৭ ই এপ্রিল, ২০২১ রাত ১২:৩৭


'অমর একুশে বইমেলা' প্রতি বছর ফেব্রুয়ারির প্রথম তারিখ থেকে শুরু হলেও এবার করোনা মহামারির জন্য তা মার্চের মাঝামাঝি থেকে শুরু হয়েছে। বাংলা একাডেমি আয়োজনটা যাতে সফল হয় সে চেষ্টার কোন... ...বাকিটুকু পড়ুন

লুকানো জব মার্কেট: করোনা কালে চাকরী খোঁজার একটি ক্ষেত্র

লিখেছেন শাইয়্যানের টিউশন (Shaiyan\'s Tuition), ১৭ ই এপ্রিল, ২০২১ সকাল ১০:১৭



আপনি যদি ইন্টারনেট ঘাটেন, তাহলে দেখতে পারবেন, সেখানে লুকানো কাজের বাজার সম্পর্কে হাজার হাজার আর্টিকেল আছে। এই আর্টিকেলগুলো থেকে বুঝা যায়- এই কাজের বাজারে থেকেই ৭০-৮০% চাকুরী প্রার্থী... ...বাকিটুকু পড়ুন

কর্তৃপক্ষ কোনও রেকর্ড খুঁজে পায়নি - একটি অশরীরী অভিজ্ঞতা

লিখেছেন ডাব্বা, ১৭ ই এপ্রিল, ২০২১ দুপুর ১:০২



ম্যানিটোবা বিশ্ববিদ্যালয়ে সিনিয়র কারিকুলাম ডিভালাপারদের তিনদিনের সম্মেলনে যোগ দেয়ার ইনভিটেয়শ্যন(invitation) যখন পাই তখন হাতে দু সপ্তাহ সময় আছে। প্ল্যান করার জন্য সময়টা একটু টাইট। তবে চিঠিতে বলে দিয়েছে যাওয়া... ...বাকিটুকু পড়ুন

করোনায় শেখ হাসিনার ঘনিষ্ঠ কিছু মানুষের মৃত্যু হয়েছে

লিখেছেন চাঁদগাজী, ১৭ ই এপ্রিল, ২০২১ বিকাল ৩:৫১



করোনায় শেখ হাসিনার বেশ কিছু ঘনিষ্ঠ মানুষের মৃত্যু হয়েছে; আমার ধারণা, এই মানুষগুলো শেখ হাসিনার সাথে ঘনিষ্ঠতার কারণে অনেক প্রিভিলীজ ভোগ করেছেন; ফলে, এদের পক্ষে করোনা থেকে দুরে... ...বাকিটুকু পড়ুন

অ্যাপয়েন্টমেন্ট আপু আর গারবেজ কাকু

লিখেছেন মা.হাসান, ১৭ ই এপ্রিল, ২০২১ রাত ৮:০৭




অফিস থেকে বাসায় ফিরছি, ১৮ নম্বর বাড়ির সামনে একটা জটলা, কিছু হইচই, দেখে থমকে দাঁড়ালাম। তেতলার ব্যালকনিতে অ্যাপোয়েন্টমেন্ট আপুর অগ্নিমূর্তি, দোতলায় মাখন ভাবির ঝাড়ু... ...বাকিটুকু পড়ুন

×