somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

** বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ স্থাপত্য ও ভাস্কর্য এর অন্তনিহিত ইতিহাস : পর্ব - ০১ **

২৯ শে জানুয়ারি, ২০১০ দুপুর ১২:৩২
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


** ১. অপরাজেয় বাংলা :
বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের স্মরণে নিবেদিত, এবং তিনজন মুক্তিযোদ্ধাকে চিত্রায়িত করা এই ভাস্কর্যটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনের সামনে অবস্হিত। এটি নির্মাণ করেন মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ আব্দুল্লাহ খালিদ। ১৯৭৩ সালে ভাস্কর্যটি তৈরি করা শুরু হয়। এর কাজ শেষ হয় ১৯৭৯ সালে। ৬ ফুট বেদীর উপর নির্মিত এর উচচতা ১২ ফুট, প্রস্থ ৮ ফুট ও ব্যাস ৬ ফুট।


১৯৭৩ এ নির্মীত অপরাজেয় বাংলার মডেল ভাস্কর্যের ছবি এটি। এর উচ্চতা ছিল তিনফুট। পরবর্তীতে এই ভাস্কর্যটি অবলম্বনে চারগুন বড় একটি ভাস্কর্য তৈরী করেন শিল্পী ও তার দল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কলা ভবন চত্তরে।

১৯৭৩ তে যখন স্বাধীনতা ভাষ্কর্যের প্রাথমিক কাজটি শেষ হয় তখন সেকাজটির ওপর ২২ জুলাই ১৯৭৩ এ একটি উপসম্পাদকীয় লিখেন সাংবাদিক সালেহ চৌধুরী দৈনিক বাংলায়। শিরোনাম, 'অপরাজয় বাংলা'। মজার ব্যাপর হলো সেই থেকে লোকমুখে মুখে শ্রুত হতে হতে স্বাধীনতার এই ভাষ্কর্যটির নাম অপরাজেয় বাংলা হয়ে যায়।



নারী মূর্তিটির মডেল হাসিনা আকতার।


অপরাজেয় বাংলার রাইফেল হাতে মূর্তির মডেল সৈয়দ হামিদ মকসুদ। তিনি ১৯৭৩ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন।


অপরাজেয় বাংলার মাঝের মূর্তিটির মডেল বদরুল আলম বেনু। তিনি শুধু একজন মডেলই ছিলেন না ছিলেন সৈয়দ আবদুল্লাহ খালিদের একান্ত সহযোদ্ধা। ১৯৭৩ থেকে ১৯৭৯পর্যন্ত সকল চড়াই উৎরাইতে শিল্পী আবদুল্লাহ খালিদের সাথে যে দুইজন সর্বান্ত ভাবে জড়িত ছিলেন তার এক জন হলেন তৎকালিন চারুকলার ছাত্র বদরুল আলম বেনু আর অন্যজন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ঢাকসু'র সাংস্কৃতিক সম্পাদকম. হামিদ।



১৯৭৯ এ অপরাজেয় বাংলার নির্মান কাজ করছেন ভাষ্কর সৈয়দ আবদুল্লাহ খালিদ ও বদরুল আলম বেনু।


সৈয়দ আব্দুল্লাহ খালিদ

১৯৮৪ সালের একটি ছবি



** ২. শহীদ মিনার :
ঢাকা মেডিকেল প্রাঙ্গনে অবস্থিত কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারটি ১৯৫২ সালের ২১ শে ফেব্রুয়ারী ভাষা আন্দোলনে শহীদদের স্মরণে নির্মিত।

ইতিহাস

১ম শহীদ মিনার

>>১৯৫২ সালের ২৩ শে ফেব্রুয়ারী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও আরো কিছু স্কুল কলেজের ছাত্রদের সহায়তায় ১ম শহীদ মিনারটি নির্মিত হয়।
>>সাঈদ হায়দার এর মূল পরিকল্পনা ও নকশাকারী।
>>কার্ফু চলাকালে ২২ শে ফেব্রুয়ারী মাঝরাতে মিনারটি তৈরির প্লান করা হয়, ছাত্রদের অনুরোধে পারূ সরদার সমস্ত খরচ ও সরঞ্জাম সরবরাহ করেন।
>>২৩ শে ফেব্রুয়ারী বিকালে কাজ শুরু হয় এবং মধ্যরাতে সম্পন্ন হয়।
>>মিনারটির নাম দেয়া হয় 'শহীদ স্মৃতিস্তম্ভ'। এটি লম্বায় ছিল ১০ ফুট, চওরায় ৬ ফুট।


প্রথম শহীদ মিনার

২য় পর্যায়ে নির্মাণ

>>১৯৫৬ সালে হামিদুর রহমান নকশা প্রস্তুত করেন।
>>'দুপাশে দুই পতিত সন্তানকে নিয়ে মা দন্ডায়মান'।
>>১৯৫৭ সালের নভেম্বরে হামিদুর রহমান ও নভেরা আহমেদ এর তত্ত্বাবধানে নির্মাণ কাজ শুরু হয়। ১৯৬৩ সালে কাজ মুটামুটিভাবে সম্পন্ন হয়।
>>১৯৬৩ সালের ২১ শে ফেব্রুয়ারিতে এটি উদ্বোধন করেন শহীদ আবুল বরকতের মা হাসিনা বেগম।
>>১৯৭১ সালে পাকিস্থানি বর্বররা এটি আবারো ধ্বংস করে ফেলেন।

বর্তমান শহীদ মিনার

>>হামিদুর রহমানের মূল নকশা একটু সংশধন করে ১৯৭৩ সালের ৫ ই মে কাজ শুরু করা হয়।
>>এরশাদ সরকারের সময় থেকে বর্তমান শহীদ মিনারের যাত্রা শুরু হয়।





তথ্যসূএ ইন্টারনেট থেকে।
চ ল বে ......(পর্ব - ০২ তে থাকসে জাতীয় স্মৃতিসৌধ এবং জাতীয় সংসদ ভবন)
সর্বশেষ এডিট : ২৯ শে জানুয়ারি, ২০১০ দুপুর ১২:৫১
১১টি মন্তব্য ৩টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

প্যালেষ্টাইনিয়ান অথরিটির ক্যাবিনেট পদত্যাগ করেছে।

লিখেছেন সোনাগাজী, ২৬ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ রাত ৮:০৬



মনে হয়, আমেরিকা চাপ দিচ্ছে প্যালেষ্টাইনিয়ান অথরিটির নতুন ক্যাবিনেট গঠন করতে। আমেরিকা কি করার চেষ্টা করছে, তা পরিস্কার নয়; পুরো ফিলিস্তিনে কেহ এখন আর প্যালেষ্টাইনিয়ান অথরিটিকে বিশ্বাস... ...বাকিটুকু পড়ুন

কার্ড

লিখেছেন হাসান মাহবুব, ২৬ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ রাত ৯:১৫


তার সাথে আমার যখন দেখা হয়েছিল, তখনও এই শহরে মেট্রোরেল আসে নি। লোকাল বাসে করে যাতায়াত করি মিরপুর-মতিঝিল-মিরপুর। ক্লান্তিকর। সেদিন অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকেও সরাসরি মতিঝিলের বাস পাই নি ।... ...বাকিটুকু পড়ুন

সহজ ভাষায় লিখলে হয় সস্তা-দরের লেখক!

লিখেছেন শেরজা তপন, ২৬ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ রাত ১১:২৭


ওপার বাংলার কথাশিল্পী সমরেশ মজুমজারের সাথে হুমায়ূন আহমেদের বেশ খাতির ছিল।তিনি ব্যক্তিগতভাবে মনে করেন, রবীন্দ্রনাথ ও শরতচন্দ্রের পরে বাংলা ভাষার সবচেয়ে জনপ্রিয় লেখক ‘হুমায়ূন আহমেদ’।
তবে আমার মত ভিন্ন; আমি মনে... ...বাকিটুকু পড়ুন

ঘৃন্য মৌলবাদীরা জয়াদের ঘৃণা করলেও সৃষ্টিকর্তা তাদের ভালোবাসেন।

লিখেছেন মোহাম্মদ গোফরান, ২৭ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ রাত ১২:১৪


ছবি - ব্যক্তিগত।
ব্লগে এক পাগল আমার পোস্টে ব্যবহৃত ছবির প্রাইভেসি নিয়ে হাউকাউ করছে। একটা আস্ত পোস্টও প্রসব করছিল। অথচ এই পর্যন্ত যতো ছবি আমি ইউজ করছি... ...বাকিটুকু পড়ুন

জনতার উচিৎ মেয়েটির কাছে ক্ষমা চাওয়া

লিখেছেন জ্যাক স্মিথ, ২৭ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ রাত ১২:৪৭



কিছু হলেই অনুভূতিতে আঘাত, পান থেকে চুন খসলেই ধর্ম গেলো গেলো; মেরে ফেলো, কেটে ফেলো, পুতে ফেলো এসবই হচ্ছে ধর্মান্ধ জনগোষ্ঠীর মনোভাব। সময় এসেছে এসব সেন্টিমেন্টাল জনগোষ্ঠীর অনুভূতি... ...বাকিটুকু পড়ুন

×