somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

উড়ন্ত বাসনা
যুক্তির মাঝেই সমাধান খুঁজি।

ভ্যাটও রাখবেন আবার ভোটের চিন্তাও করবেন?

০৯ ই জুন, ২০১৭ রাত ৯:৫৭
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :






শিরনামটি আমার দেয়া নয়। এক ক্ষুব্ধ সাধারণ মানুষের মুখ থেকে শুনেছি, গচ্ছিত টাকায় ট্যাক্স শুনে তিনি বেশ কঠিন সুরেই এই বাক্যটি উচ্চারণ করেছেলিন। শুধু ঐ ব্যাক্তি কেন? বাজেটের পর এমন কথা পত্র পত্রিকায় অনেক এসেছে। মনে হচ্ছে দেশের নাগরিক বেশি একটা খুশি নন। অনেক ক্ষোভ প্রবীণ এই অর্থ মন্ত্রীর ওপর। অনেকে অনাকে ভ্যাট ম্যান বলে জানেন। এমন কার্টুনও ছাপা হয় সংবাদপত্রে।যদি পারতেন তাহলে আলু,পটল,পুইশাক,ডিম,কাঁকরোল,ঝিঙা, মিষ্টিকুমড়ার ফুলেও কর বসাতেন। যাই হোক এবার আসল কথায় আসি।

সীমিত আয়ের সাধারণ মানুষদের কথা চিন্তা মাথায় না রেখে এবারের বাজেট ঘোষণা করলেন অর্থমন্ত্রী। আয়করের কোন ছাড় নেই এবারের বাজেটে। পুরো ১৫ শতাংশ ভ্যাট থাকছেই। গণমানুষের দাবি উপেক্ষিত হয়েছে এই বাজেটে। যারা বেআইনিভাবে টাকা উপার্জন করলো, যারা দেশের থেকে টাকা বিদেশে নিয়ে গেল, যারা এখনও করের আওতার ভেতরে নেই বা যারা অনেক কম ট্যাক্স দেয় তাদেরকে ধরার ক্ষেত্রে কোনো উদ্যোগ বা উদ্ভাবনী কৌশল আমরা দেখলাম না। অনেকেই ভেবেছিলেন, জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে অর্থমন্ত্রী এমন একটা বাজেট দেবেন, যাতে জনগণের ওপর করের চাপ কম থাকে। বাজেট পেশের কিছুদিন আগে অর্থমন্ত্রী করমুক্ত আয়ের সীমা বাড়ানোর ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। আর ব্যবসায়ীদের একটা বড় দাবি ছিল, ভ্যাটের হার ও করপোরেট করহার কমানো। অর্থমন্ত্রী এ দুটি ক্ষেত্রে করহার কমবে বলেছিলেন। কিন্তু জাতীয় সংসদে আগামী অর্থবছরের (২০১৭-১৮) যে বাজেট পেশ করলেন, তাতে সে কথা রাখেননি অর্থমন্ত্রী ।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত যে বাজেট পেশ করলেন, তাতে তিনি ব্যয় করতে চান চার লাখ ২৬৬ কোটি টাকা। আয় করতে চান দুই লাখ ৮৭ হাজার ৯৯০ কোটি টাকা। বাকি এক লাখ ১২ হাজার ২৭৬ কোটি টাকার ঘাটতি তিনি ঋণ ও অনুদানের মাধ্যমে মেটাতে চান। এ বাজেটকে অবাস্তব ও অবাস্তবায়নযোগ্য বলেছেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম। তিনি বিভিন্ন গণমাধ্যমকে সাক্ষাৎকারে বলেছেন, এনবিআরের পক্ষে এত বড় অঙ্কের রাজস্ব আদায় সম্ভব নয়। এত বড় অঙ্ক ব্যয়ের সামর্থ্যও সরকারের নেই। অবশ্য অর্থমন্ত্রী নিজেও এ বাজেটকে উচ্চাভিলাষী বললেও বাস্তবায়ন সম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন –বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিসের লিড ইকোনমিস্ট ড. জাহিদ হোসেন এ বাজেটকে 'মিশ্র ঝুড়ি'র বাজেট বলে মন্তব্য করেছেন। তিনি একটি জাতীয় দৈনিককে সাক্ষাৎকারে বলেন, আগের মতোই উচ্চাভিলাষী লক্ষ্যমাত্রা এবারও রয়েছে। রাজস্ব আয়ে প্রায় ৩২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে। রাজস্ব আয়ে এ পর্যন্ত সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২৪ শতাংশ। বিদেশি ঋণের যে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে তা অর্জন করতে হলে পাইপলাইনে থাকা অর্থ ব্যবহারের হার ৩০ শতাংশে উন্নীত করতে হবে। বর্তমানে এ হার ১৫ শতাংশের মতো। শুধু সরকারি বিনিয়োগ বাড়িয়ে ৭ দশমিক ৪ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জনও প্রশ্নসাপেক্ষ মনে করেন এই অর্থনীতিবিদ।

আগামী অর্থবছরের বাজেটে ব্যয় ধরা হয়েছে চার লাখ ২৬৬ কোটি টাকা যা জিডিপির ১৮ শতাংশ। চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটে ব্যয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল তিন লাখ ৪০ হাজার ৬০৫ কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে তা কমে হয়েছে তিন লাখ ১৭ হাজার ১৭৪ কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটের তুলনায় নতুন বাজেটের ব্যয় লক্ষ্যমাত্রা ৮৩ হাজার কোটি টাকা বা ২৬ শতাংশ বেশি। নতুন বাজেটে অনুন্নয়নমূলক ব্যয় দুই লাখ ৩৪ হাজার ১৩ কোটি টাকা। আগের বাজেটে যা ছিল দুই লাখ ১৫ হাজার ৭৪৪ কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে তা কমে হয়েছে এক লাখ ৯২ হাজার ৯৩২ কোটি টাকা। নতুন বাজেটে অনুন্নয়ন রাজস্ব ব্যয় ধরা হয়েছে দুই লাখ সাত হাজার ১৩৮ কোটি টাকা। মোট উন্নয়ন ব্যয় ধরা হয়েছে এক লাখ ৫৯ হাজার ১৩ কোটি টাকা, যার মধ্যে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি বা এডিপি এক লাখ ৫৩ হাজার ৩৩১ কোটি টাকা। আগের বাজেটে এডিপির আকার ছিল এক লাখ ১০ হাজার ৭০০ কোটি টাকা।

নতুন বাজেটে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে দুই লাখ ৮৭ হাজার ৯৯১ কোটি টাকা। এর মধ্যে এনবিআরের মাধ্যমে আসবে দুই লাখ ৪৮ হাজার ১৯০ কোটি টাকা। রাজস্ব আয়ে প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে প্রায় ৩২ শতাংশ। শুধু এনবিআরের ক্ষেত্রে প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে প্রায় ৩৪ শতাংশ। এনবিআর-বহির্ভূত কর ধরা হয়েছে ৮ হাজার ৬২২ কোটি টাকা। কর ছাড়া আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ৩১ হাজার ১৭৯ কোটি টাকা। আয় ও মুনাফার ওপর কর থেকে আসবে ৮৬ হাজার ৮৬৭ কোটি টাকা, যা চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেট থেকে প্রায় ৩৬ শতাংশ বেশি। ভ্যাট থেকে আয় আসবে ৯১ হাজার ৩৪৪ কোটি টাকা যা আগের বাজেটের সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রা থেকে ২২ হাজার ৫৭৬ কোটি টাকা বা ৩৩ শতাংশ বেশি। আমদানি ও রফতানি শুল্ক থেকে ৩০ হাজার ১৫৩ কোটি টাকা এবং সম্পূরক শুল্ক থেকে আসবে ৩৮ হাজার ২১২ কোটি টাকা। রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করতে গিয়ে মুহিত বলেন, যুগোপযোগী করনীতি, দক্ষ কর ব্যবস্থাপনা এবং ব্যবসায়ীসহ সকল স্টেকহোল্ডারের মাধ্যমে এনবিআর এ রাজস্ব আদায় করতে পারবে। তিনি দাবি করেন, দুষ্টের দমন ও শিষ্টের পালনের মাধ্যমে রাজস্ব প্রশাসনে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা হয়েছে। কিন্তু বাস্তবে আমারা তার ফল পাচ্ছিনা। এই উচ্চ বিলাসী বাজেট কি মানুষের ভাগ্যে পরিবর্তন আনবে?

এদিকে ব্যবসায়ী, শিল্পোদ্যোক্তা, অর্থনীতিবিদসহ ভ্যাট বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, সর্বক্ষেত্রে ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট আরোপের পদক্ষেপ বাংলাদেশের বাস্তবতায় একেবারেই অবাস্তব।এই হার কার্যকর হলে পণ্যের ও সেবার খরচ বাড়বে। এতে করে ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন জিনিসের দাম বাড়িয়ে দেবেন। যার প্রভাব শেষ পর্যন্ত এসে পড়বে সাধারণ ভোক্তা বা জনগণের ওপর। তারা আরও বলেন, ভ্যাট ভোক্তারা দেন। এই কর জনগণের কাছ থেকে ব্যবসায়ীরা আদায় করে সরকারি কোষাগারে জমা দেন।

আগামী বছরের শেষে অথবা ২০১৯ সালের শুরুতে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ২০১৭-১৮ অর্থবছরের যে বাজেট প্রস্তাব করেছেন, তা নির্বাচনের আগে তার পূর্ণাঙ্গ বাজেট। আগামী বছর যে বাজেট প্রস্তাব করবেন, তা এই সরকার বাস্তবায়ন করে যেতে পারবে না। তাই এ বাজেট কিছুটা রাজনৈতিক বিবেচনায় করা হয়েছে বলে মনে হয়। আকারে ঊর্ধ্বগতি আছে। ব্যয় বৃদ্ধির দিক থেকে অনেক বড় বাজেট। ব্যয় বৃদ্ধিকে খারাপ মনে করি না। নির্বাচনকে সামনে রেখে বাজেট বিধায় স্থানীয় সরকার পর্যায়ে উন্নয়ন বাজেট, বিশেষত এলজিইডির মাধ্যমে যেসব প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে তার আকার অনেক বাড়বে। তবে তাতে গুণগত মান বজায় থাকবে কি-না, তা নিয়ে সংশয় আছে।

অর্থমন্ত্রী আগামী অর্থবছরের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৪০ শতাংশ হবে বলে আশা করেছেন। প্রবৃদ্ধি নিয়ে অনেক বিতর্ক আছে। অনেকে মনে করেন, এ লক্ষ্যমাত্রা রাজনৈতিক বিবেচনায় করা হয়েছে। এটা বাস্তবভিত্তিক হওয়া উচিত। এখন বিদায়ী অর্থবছরে ৭ দশমিক ২০ শতাংশ প্রবৃদ্ধি যদি সত্যি সত্যি অর্জিত হয়, সে ক্ষেত্রে ৭ দশমিক ৪০ শতাংশের লক্ষ্যমাত্রা বেশি নয়। এডিপি বাস্তবায়ন হলে, বেসরকারি পর্যায় থেকে পর্যাপ্ত বিনিয়োগ বাড়ানো গেলে, মূল্যস্ফীতি সহনীয় পর্যায়ে থাকলে এবং রফতানিতে যে শ্লথগতি আছে তা দূর করা গেলে প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা অর্জন কঠিন হবে না।অর্থমন্ত্রী প্রস্তাবিত বাজেটে মূল্যস্ফীতি সাড়ে ৫ শতাংশে সীমিত রাখার প্রস্তাব করেছেন। এটা অর্জন করতে পারলে খুবই ভালো হবে। যদিও চালসহ অন্য কিছু নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যমূল্য বৃদ্ধির কারণে বর্তমান মূল্যস্ফীতি অনেকটা চড়া। এটাকে সহনীয় পর্যায়ে রাখতে অনেক বাধা আছে। শেষ পর্যন্ত এ লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সরকারের জন্য একটা চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

এদিকে রাজস্ব আদায় বাড়াতে গিয়ে সরকার ছোট ছোট কিছু খাত থেকে আয় বাড়ানোর চেষ্টা করেছে। এর মধ্যে একটা বড় ভুল পদক্ষেপ আছে। তা হলো ব্যাংকের সঞ্চয়ের ওপর আবগারি শুল্ক বৃদ্ধি। এটা খুবই খারাপ হয়েছে। এটা মানুষকে বৈধ পন্থায় সঞ্চয় ও লেনদেনে নিরুৎসাহিত করবে। অবৈধ পথে লেনদেন বাড়বে, যা সরকারই নিরুৎসাহিত করে। কো-অপারেটিভসহ ডেসটিনি, যুবকের মতো ভুঁইফোড় কোম্পানির দিকে ঝুঁকে পড়বে মানুষ। অনেকে ব্যাংক থেকে টাকা সরিয়ে নেবে। অবৈধ অর্থনীতির আকার বড় হবে। যাকে আমরা মাটির নিচের অর্থনীতি বলি। বাজেটের বড় লক্ষ্য হওয়া উচিত মানুষের কর্মসংস্থান বৃদ্ধি ও জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন। এ জন্য সরকারকে সামাজিক অবকাঠামো খাতে ব্যয় বাড়াতে আরও মনোযোগী হতে হবে। এ জন্য শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও দারিদ্র্যবিমোচনে সরকারকে বর্তমানের তুলনায় অনেকগুণ ব্যয় বরাদ্দ রাখতে হবে। দুঃখজনক হলেও সত্য, শিক্ষায় জিডিপির আকারের ৬-৭ শতাংশ ব্যয় করার প্রয়োজন থাকলেও সরকার করছে মাত্র ২ শতাংশ। যেটা অনেক কম ও নিতান্তই সল্প।

বর্তমান সরকারের প্রস্তাবিত বাজেটকে নিজেদের পকেট ভর্তি করার বাজেট বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।বিএনপির মতে সাধারণ মানুষের পকেট কেটে নিজেদের পকেট ভর্তি করতে সরকার জনগণের ওপর বাজেট চাপিয়ে দিয়েছে।এবারের ঘোষিত বাজেট এটা উচ্চ দরের পকেট কাটার বাজেট। বাজেটে জনগণের ওপর করের বোঝা চাপিয়ে দেয়া হয়।আসলে বর্তমানে জনগণের কাছে কোনো জবাবদিহিতা নেই সরকারের। সংসদে কোনো বিরোধী দল নেই। সংসদেও তাদের জবাবদিহিতা নেই।

আওয়ামী সরকার উন্নয়নের মহাসড়কের শ্লোগান দিলেও মানুষের বাস্তব অবস্থাকে উপলব্ধি করতে বরাবরই ব্যর্থ, জনগণের কথা ভেবে একটি জনবান্ধব বাজেট পেশ করার কথা ছিল। কিন্তু সেটা আর হয়ে ওঠেনি।করের মধ্যেই থাকতে হচ্ছে দেশের জনগণকে।মানুষের মনের ক্ষোভ প্রকট বেশিই বটে।সন্তুষ্টি হতে পারেননি এবার। বাজেট পেশের দিন ইফতারের আগ মুহূর্তে এক ভদ্রলোকের মুখে শুনতে পেলাম বেশ আক্ষেপ নিয়ে বলছেন ভ্যাটও রাখবেন আবার ভোটের চিন্তাও করবেন?



লেখাটি দৈনিক দিকাল, প্রতিদিনের সংবাদ, আমাদের অর্থনীতি, সকালের খবর পত্রিকায় ছাপা হয়েছে
সর্বশেষ এডিট : ০৯ ই জুন, ২০১৭ রাত ৯:৫৭
১টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

শীত শুরু হয়েছে, দেখা যাক, কে টিকে থাকে?

লিখেছেন চাঁদগাজী, ২০ শে অক্টোবর, ২০২১ রাত ১০:০৩



**** কেহ ১ জন আমার পোষ্টটাকে রিফ্রেশ করছে; এসব লোকজন কেন যে ব্লগে আসে কে জানে! ****

সেপ্টেম্বর মাসে একটি টিমের সাথে ফুটবল খেলেছি; এই মাসের শেষেদিকে হয়তো... ...বাকিটুকু পড়ুন

বাতাস বুঝে ছুইটেন !

লিখেছেন স্প্যানকড, ২১ শে অক্টোবর, ২০২১ রাত ১:৪১

ছবি নেট।

হুমায়ুন আজাদ বলেছিলেনঃ "মানুষের ওপর বিশ্বাস হারানো পাপ, তবে বাঙালির ওপর বিশ্বাস রাখা বিপদজনক! " 

আসলেই তাই! খবরে দেখলাম ইকবাল নামের একজন ব্যক্তি পবিত্র কুরআন মুর্তির কাছে রেখে চলে... ...বাকিটুকু পড়ুন

একজন ভবঘুরে ইকবাল হোসেন জন্য সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ল

লিখেছেন মোঃ মাইদুল সরকার, ২১ শে অক্টোবর, ২০২১ সকাল ১০:৩৫



গত বুধবার ভোরে শারদীয় দুর্গাপূজার মহা অষ্টমীর দিন কুমিল্লা শহরের নানুয়া দীঘির উত্তর পাড়ে দর্পণ সংঘের উদ্যোগে আয়োজিত পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন দেখা যায়। ব্যস আর যায় কোথায়... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমি ও আমার পৃথিবী......

লিখেছেন জুল ভার্ন, ২১ শে অক্টোবর, ২০২১ সকাল ১০:৫১

আমি ও আমার পৃথিবী......

আজও খুব ভোরে উঠেছি প্রতিদিনের মতো। আকাশে তখনও আলগোছে লেগে রয়েছে রাত্রির মিহি প্রলেপ। আমার চেনা পাখিরা জেগে ওঠেনি তখনও। মনটা কেমন যেন একটু বিস্বাদে ভরে আছে।... ...বাকিটুকু পড়ুন

পেডাগোজিকাল ট্রানজিশন- শিশু শিক্ষনে শিক্ষকদের দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য কি ধরনের উদ্যোগ নেয়া যায়

লিখেছেন শায়মা, ২১ শে অক্টোবর, ২০২১ বিকাল ৩:৪৪


করোনাকালীন চার দেওয়ালে বন্দী জীবন ও অনলাইনের ক্লাসরুমের মাঝে গত বছর নভেম্বরে BEN Virtual Discussion "শিশুদের নিয়ে সব কথা" একটি টক শো প্রোগ্রাম থেকে ইনভিটেশন এলো।... ...বাকিটুকু পড়ুন

×