somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

শীতার্তদের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরন ( ফেইস বুকে ইভেন্ট খোলার মত সহজ কাজ না)

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৪ বিকাল ৩:১৯
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

ঋতুচক্রের আবর্তনে এক এক ঋতুতে মানুষের জীবনযাত্রায় যুক্ত হয় পরিবর্তনের ধারায় ভিন্ন ভিন্ন মাত্রা,শীত নামার সময় এসে গেছে।ধীরে ধীরে শৈত্য প্রবাহের তীব্রতায় আচ্ছন্ন হয়ে যাবে। এক একটি শৈত্য প্রবাহ ধেয়ে আসবে,আর জনজীবন হয়ে পড়বে স্থবির ও বিপর্যস্ত।নেমে আসবে কুয়াশার ঘন আস্তরণ,ঢাকা পড়ে যাবে সূর্যের মুখ,রৌদ্রের তেজ থাকবে না। হাড়কাঁপানো শীতে আত্মরক্ষার সঙ্গত উপায়-উপকরণ নেই এদেশের দারিদ্র্য-আচ্ছন্ন বিশাল জনগোষ্ঠীর।এক খণ্ড গরম কাপড়ের আশায় জেলার গরীব দুস্থ পরিবারেরসদস্যরা বিত্তবানদের দিকে তাকিয়ে থাকবে। এক টুকরো গরম পোশাকই পারে ছিন্নমূল মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে। প্রতি বছর এই সব মানুষের জন্য কেউ কেউ তাদের সাধ্য মত বাড়িয়ে দেন সাহায্যের হাত।



সেচ্চাসেবী সংগঠন সময় এর আয়োজন আমরা এবার দক্ষিন অঞ্চলের জেলা বরগুনার তালতলীতে শীতার্তদের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরন করলাম।তার কিছু অভিজ্ঞতা নিয়ে লিখলাম যারা এই ধরনের সেবামূলক আয়োজন করতে আগ্রহী তাদের জন্য।


কিভাবে আপনি দরিদ্র এসব শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়াবেনঃ

যে কেউ চাইলেই পারবেন। শুধু আপনার প্রবল ইচ্ছা শক্তি থাকাটাই যথেষ্ট। সবার আগে দরকার একটা সুন্দর পরিকল্পনা।
প্রথমে একটা তালিকা করুন কত জন কাজ কাজ করতে আগ্রহী।

কথা বলুন সবার সাথে লিষ্ট অনুযায়ী।
ছোট বড় সবার মতামতের গুরুত্ব দিন অনেক সমস্যার সহজ সমাধান পাবেন। কাপড় সংগ্রহ করার জন্য নির্দিষ্ট তারিখ ঠিক করুন।
কে কোন কোন এলাকার কাপড় সংগ্রহ করবে ঠিক করুন।

কাপড় সংগ্রহঃ



কোন ধরনের কাপড় বিতরন করবেন নতুন, পুরাতন, নতুন-পুরাতন এক সাথে নাকি আর্থিক সাহায্য? আমার মতে নতুন-পুরাতন অপশনটাই ভাল। এতে কাপড়ের পরিমান বেশি হবে। আর্থিক বিষয় না টানাই ভাল তবে যদি আর্থিক সাহায্য পান তা যোগ করে দিতে পারেন নতুন বস্ত্র ক্রয় করার কাজে।

কে কোন এলাকায় কাপড় সংগ্রহ করবেন তা আগেই যেহেতু ঠিক করা এবার নেমে যান কাজে। নিজ বাসা থেকেই আগে শুরু করুন। নিজ এলাকা, পারা মহল্লা ভার্সিটি হল ইত্যাদি জায়গা থেকে কাপড় সংগ্রহ করতে পারেন। এলাকার গলির মোরের চায়ের দোকান, খেলার মাঠ, মসজিদের সামনে একটা বক্স রাখতে পারেন যাতে লোকজন আপনার আয়োজন সম্পর্কে জানতে পারে অপরকে জানাতে পারে। কার বাসায় গিয়ে তাকে পেলেন না পরে সে ঐ বক্সে কাপড় জমা দিতে পারে। আপনার পরিচিত কেউ এক জন হয়ত দেশের বাহিরে আছে কিন্তু এই ব্যাপারে তার হাত প্রসারিত সমস্যা নেই মোবাইল ব্যাংকের মাধ্যমে পেতে পারেন আর্থিক সাহায্য। এভাবে সবাই মিলে যথা সম্ভব দ্রুত কাপড় সংগ্রহ করে ফেলুন কাজ এখন অনেক বাকি।

কোথায় কাপড় বিতরন করবেনঃ

অনেকেই ভাবছেন দূরে গিয়ে লাভ কি! শহরের কোন বস্তি বা দরিদ্রদের মাঝে কাপড় দিয়ে আসলেই হল। একটু ডিপলি ভাবুন শহরের দরিদ্র মানুষেরা হয়তো ৫০টাকা ১০০টাকায় একটা কাপড় ঠিকই জুটাতে পারে আর কাছাকাছি সমার্থবানদের সহায়তা তারা পেয়েই থাকবেন।কিন্তু গ্রামের দিকের দরীদ্রদের জন্য একটা কম্বল বা সোয়েটার কেনা অনেক কঠিন ব্যাপার। অনেক কস্ট করে কাপড় সংগ্রহ করলেন এবার আরেকটু কস্ট করে চলুন না দূরে কোথাও যেখানে সুর্য মামাও তার আলো আর উষ্ণতা পৌছাতে কৃপণাতাবোধ ।


কিভাবে কাপড় বিতরন করবেনঃ



এলাকা ঠিক। আপনার সিলেক্ট করা জায়গা যদি গ্রাম হয় তাহলে চলে যান ইউনিয়ন পরিষদে। সেখানে গ্রামের ইউপি সদস্যের সাথে কথা বলুন তার এলাকায় আপনার কাপড় বিতরন করবেন। এতে সুবিধা হবে আপনি ঐ এলাকায় বস্ত্রহীন কত জন মানুষ আছে তার মধ্যে বৃদ্ধ,নারী বা শিশু কত জন! ইউপি সদস্যদের কাছে নিজ নিজ এলাকার তালিকাও থাকে অনেক সময়। এতে সুবিধা হবে আপনার সংগ্রহীত কাপড়ের সুষম বন্টন হবে।আর একটা বাড়তি সুবিধা ইউপি কর্তৃপক্ষ আগে থেকেই এলাকায় জানিয়ে দিতে পারবে আপনাদের আয়োজনের খবর।


কাপড় বিতরনের পদ্ধতিঃ






আপনার সংগ্রহ করা কাপড় হিসেব করে সহজেই ঠিক করে ফেলুন আপনি কত জনকে কাপড় দিতে পারবেন এবং তার মধ্যে নারী, পুরুষ বা শিশু কত জন সেই হিসেবে ইউপি সদস্যদের বলুন।( আমরা ২০০ মানুষের তালিকা করেছিলাম) কাপড় বিতরনের দিন এলাকার কোন ভাল জন প্রতিনিধি রাখতে পারেন।

পরিবহনঃ



আপনার এত কস্টের সংগ্রহ করা কাপড় এবার নিয়ে যেতে হবে গন্তব্যে সাথে থাকবেন আপনি।সবথেকে ভাল হয় লোক বুঝে একটা পিকাআপ ভাড়া করলে। পিকআপের ভাড়া কিরকম হবে আগেই জেনে নিন। আর পরিচিত কার যদি পিকাআপ ভ্যান থেকে থাকে তাহলে একদিনের জন্য নিয়ে নিন। তাহলে কেবল তৈল খরচ দিয়েই বাকিটা সেইভ হবে।যদিও আপনি পিকনিক খেতে যাচ্ছেন না তবুও ছোট একটা সাউন্ড সিস্টেম ও দুপুরের খাবার সাথে নিয়ে নিন।এ ক্ষেত্রে সবাই এক সাথে নিলে ঝামেলা ও খরচ দুইটাই সেইভ হবে।

এত কিছু বলার আসলে কারন নি????

ভাই বলার কারন একটা অবশ্যই আছে। দুঃখজনক হলেও সত্য এই মহৎ আয়োজনে ঘটে নানা দূর্ঘটনা। শীত বস্ত্র নিতে গিয়ে পদদলিত হয়ে বৃদ্ধের মৃত্যু অথবা বস্ত্র পরিবহনের গাড়ি উল্টে আরোহীদের মৃত্যু। আপনার সংগ্রহ করা কাপড়ের থেকে লোক বেশি তখন তারা কাপড়ের জন্য ঝামেলে সৃষ্টি করবে এতে মারামারি হানাহানির ঘটনা ঘটার ইতিহাস আছে। আপনার আমার সাথে হয়ত দু এক জন নারী সদস্য থাকবে তার নিরাপত্তার ব্যাপার আছে। আবার দেখে যায় পরিবন করা গাড়ি উলটে ঘটতে পারে দূর্ঘটনা। তাই একটু সাবধান থাকা ভাল নয় কি!!! সবার আগে নিজে সুন্দার মত বাচুন, অপরকে বাচতে সাহায্য করুন।


৭টি মন্তব্য ৫টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

বাঙলা সাহিত্যের বহুমুখী অনন্য প্রতিভাধর সাহিত্যিক ' আবদুশ শাকুর'

লিখেছেন শেরজা তপন, ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ রাত ৮:৩৬


আবদুশ শাকুর
প্রথমে ইংরেজী সাহিত্যে মাস্টার্স করে বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজী সাহিত্যের( প্রথমে ঢাকা কলেজ ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়েঃ ১৯৬৫-৬৭) শিক্ষকতা দিয়ে শুরু পরে পরে সিভিল সার্ভিসে যোগ দিয়ে সচিব হিসেবে অবসর নেন।... ...বাকিটুকু পড়ুন

'যৌন কর্মীর ছেলে'

লিখেছেন মোহাম্মদ গোফরান, ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ রাত ১১:১০


আমার বয়সে যারা আছেন তারা এই বাক্যটির সাথে পরিচিত। বর্তমান তরুণ প্রজন্ম যে আসলেই প্রশ্নফাঁস জেনারেশন তা পোস্টটি পড়লে আরেকটু নিশ্চিত হওয়া যাবে সম্ভবত। স্টুডেন্ট লাইফে 'ব্যাচেরল' নামক একটি... ...বাকিটুকু পড়ুন

অহনাকে যে গানটি অহরহ শোনাতাম

লিখেছেন সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই, ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ রাত ১১:৩৯

আমার ল্যাপটপ অন থাকা মানে অবিরাম গান বাজতে থাকা। গান বাজে ল্যাপটপে, গান ঝরে কণ্ঠে, একটা কনসার্টেড সুর-মূর্ছনার তালে তালে ল্যাপটপের বাটনগুলোর উপর অনবরত আমার আঙুলগুলো খেলতে থাকে।

অহনার সাথে যখন... ...বাকিটুকু পড়ুন

ইরানে হিজাব আন্দোলন এবং আমাদের হিজাবী সমাজ

লিখেছেন সোহানী, ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ ভোর ৬:৫২




পুলিশী হেফাজতে মাহসা আমিনির মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ইরানে চলছে হিজাব প্রটেস্ট, রাস্তায় নেমেছে হাজার হাজার নারী পুরুষ। জোর পূর্বক চাপিয়ে দেয়া হিজাব রাস্তায় রাস্তায় পুড়ছে নারীরা। ক'দিনের... ...বাকিটুকু পড়ুন

দুঃসময় টিকটিকিও আমাকে ছাড় দিচ্ছেনা!

লিখেছেন জুল ভার্ন, ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ সকাল ১১:৩৫

আমাদের ঘরে বেশ কয়েকটা টিকটিকি এসেছে। লাইটের পিছনে লুকিয়ে থাকে। সুযোগ মতো বেরিয়ে শিকার ধরে খায়। ওদের থাকা খাওয়ায় আমার কোনো সমস্যা নাই। কিন্তু ইদানিং টিকটিকিও আমাকে ছাড় দিচ্ছেনা.......... ...বাকিটুকু পড়ুন

×