somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

নয়ন তোলে দাও বিদায়,বিদায়ী বার্তায়।

২৭ শে জুলাই, ২০১৯ রাত ৮:৪৭
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


বিদায় বেলায় সন্ধ্যালগ্নে ভারাক্রান্ত মনে,
কোন বার্তায় জানাব বিদায় ভাবছি সপ্তাহজুড়ে।
ব্লগে আমার পথচলা হুট করেই বলতে পারেন,আমার এক বন্ধু আমার কিছু লিখা পড়ে আমাকে ব্লগে নিবন্ধন করার পরামর্শ দেয়,আমিও তার কথা অনুযায়ী ব্লগে প্রবেশ করি। গুনি লেখকদের কথা-বার্তা পড়ি, পোস্টে মন্তব্যও প্রদান করি। আস্তে আস্তে আমিও ব্লগে আমার কিছু লিখা প্রকাশ করি। মনে মনে একটু ভয় থাকতো,জানিনা আমার লিখা সবার কাছে কেমন লাগবে? সবাই কিভাবে আমার লিখা গ্রহন করবে? ইত্যাদি ভাবনা।
নতুন লেখক হিসেবে তখন কিছুই জানতাম না। তবে লিখা আমি যেমনি লিখতাম,মন্তব্যগুলো পড়ে লিখার আগ্রহ দিন দিন বাড়তে থাকলো। আমার এখনও মনে আছে আমি ব্লগে নিক নেওয়ার কিছুদিন পরেই ব্লগে সমস্যা শুরু হয়। লেখায় পাঠক কম,মন্তব্য ৩/৪ টি। তারপরেও লিখেই চলছিলাম চিরকুট,দৃশ্যপট,কবিতা,বাস্তব ঘটে যাওয়া নিজের কিছু বেদনাময় ঘটনা।

এই ব্লগে পথচালার পথে অনেক ভালো ভালো লেখক ও ভালো মনের মানুষদের সাথে পরিচিত হই।
ব্লগে আমার লিখায় তাদের সুন্দর সুন্দর মন্তব্য ও সমর্থন পেয়ে একটা নেশায় পড়ে গেলাম। এই ব্লগে লিখতে গিয়ে,মন্তব্য করতে গিয়ে, পোস্ট করতে গিয়ে নিজ কর্মস্হলে নানারকম কথা শুনতে হয়েছে হসপিটাল ব্যবস্হা পরিচালকের কাছ থেকে। একদিন তো হসপিটাল ব্যবস্হা পরিচালক বলেই ফেলেছেন অফিসে ব্লগিং করতে আসো? নাকি মন দিয়ে কাজ করতে আসো? টেবিলের উপর ফাইল পড়ে আছে,সেদিকে আপনার মন নেই,মন দিয়ে ব্লগে ডুবে আছেন! ব্লগ চালাবেন তো গিয়ে বাসায় বসে চালান

অফিসে কাজ করতে এসে এই ব্লগের জন্য নানাকথা শুনতে হয়েছে। ব্লগে লেখা দেওয়ার জন্য রোজ রাতে লেট ঘুমিয়েছি,ভালো লিখা পড়ার জন্য অফিসের গাড়ি মিস করেছি সকালে। ঘুম থেকে লেট উঠেছি, পায়ে হেঁটে অফিসে গিয়েছি। বন্ধুবান্ধব থেকে বকাঝকাও শুনেছি এই ব্লগের কারনে। এত কিছুর মাঝেও আমার লিখা থেমে থাকেনি। থেমে গিয়েছে তখন,যখন দেখলাম আমার বিশ্বাসে শব্দ দিয়ে আঘাত করা হচ্ছে,আমাকে নানারকম বাজে উপাধি দেওয়া হচ্ছে, এমনকি যুক্তি তর্ক না করে আমাকে গালি-গালাজ করা হয়েছে। কারা করেছে আমি তাদের নাম বলবোনা। কারন এদেরকে নিয়ে আমিও প্রতিবাদী পোস্ট দিয়েছিলাম,বিভিন্ন মাল্টি নিক থেকে বাজে গালিগালাজ শুনতে হয়েছে। প্রতিটি কদমে কদমে আমি অপমান হয়েছি,আমাকে ধর্মান্ধ বলা হয়েছে,ধর্মান্ধ বলতে কি বুঝায় আমি জানিনা। আমি জানি ধর্ম একটি স্পর্শকাতর বিষয়,ধর্মকে আঘাত করা মানে কারো বিশ্বাসে আঘাত করা।
এদিকে আর কথা বাড়াবোনা।

এখন সামুর সুদিন,এই ভার্চুয়াল লাইফে কিছু সুন্দর মনের মানুষের সাথে পরিচয় হওয়াতে নিজেকে আসলেই অনেক বেশি সৌভাগ্যবান মনে হয়।এই মানুষজনদের বিপদে আপদে অনেক বেশি কাছে পেয়েছি।এবং ভালোবাসাও পেয়েছি যত টূকু আশা ছিলো তার চেয়েও বেশি।কারও কারও সাথে কথা বলতে গিয়ে হাসতে হাসতে মরে গিয়েছিলাম কিংবা কারও সাথে তুমুল ঝগড়া দেন কথা বলা বন্ধ,আবার কারও কারও সাথে মান অভিমান হয়ে পরে আবার সব ঠিক !! আসলেই পৃথিবীর সব মানুষের মন বরই বিচিত্র!!!





এই ব্লগীয় লাইফে আসার পর কম উপাধি পাইনি।উপাধিগুলা না হয় নাই বা বললাম। আগে খারাপ লাগলেও এখন অবশ্য পুরোটাই ডোন্ট কেয়ার টাইপ হয়ে গেছি।যেই উলটা পালটা করে সোজা ব্লক মেরে সেইখানেই স্টপ করে দেই।কিন্তু কয়েকজনকে হাজার বার ব্লক করার কথা মনে আসলেও আজ পর্যন্ত ব্লক মারতে পারিনি।আর হয়ত কোনদিন পারবোও না।এর কারনটা অজানা।
কখনই ভাবিনি ব্লগটাকে বিদায় দিতে হবে। হাজারও ব্যস্ততা পরীক্ষা কিংবা শত কাজের পরও ব্লগে একবার হলেও ঢূ মেরে যেতাম। দিনে একবার ব্লগে না আসলে দিনটাই অসহ্য মনে হত। না কারও উপর রাগ বা অভিমান না নিজেই খুশী মনে চলে যাচ্ছি।
আমার এ চলে যাওয়াকে সাধুবাদ জানাবেন সবাই,কোন খারাপ বা বাজে মন্তব্য দিয়ে আমাকে আঘাত করবেন না।
ধন্যবাদ সবাইকে ।
আমার চিরকুট পাঠকদের অনেক মিস করবো।
:যে লিখতে জানে সে দশ বছর পরেও লিখতে পারবে:
ভালবাসা জানিবেন সবসময়।
সর্বশেষ এডিট : ২৭ শে জুলাই, ২০১৯ রাত ৮:৫৬
১৮টি মন্তব্য ৮টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

নদাই আর গদাই এর গল্প! একটি মারমা উপকথা।

লিখেছেন অগ্নি সারথি, ০৭ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ৮:৪৫

পরবর্তী উপন্যাসের জন্য মারমা সমাজ-সংস্কৃতি নিয়ে কাজ করতে গিয়ে অনেক রুপকথা-উপকথা সামনে আসছে, সংগ্রহ করছি, অনুবাদ করছি। আজকে যেটা শেয়ার করবো সেটা হলো একটা মারমা রুপকথা; নদাই আর গদাইয়ের গল্প... ...বাকিটুকু পড়ুন

জায়গা কখনো বদলায় না

লিখেছেন জিএম হারুন -অর -রশিদ, ০৭ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ১১:১১


ত্রিশ বছর পর আমি যখন আমার শৈশবের পুরোনো দোতালা বাড়িটির পাশে দাঁড়ালাম
-আশপাশ দিয়ে যারা যাচ্ছেন
কেউই আমাকে চিনল না,
আমিও চিনলাম না কাউকে।
শুধু আমাদের ভাড়া বাড়িটাকে অনেক বয়স্ক ও ক্লান্ত... ...বাকিটুকু পড়ুন

করোনা ভ্যাকসিন না ও লাগতে পারে

লিখেছেন কলাবাগান১, ০৭ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ১১:৩০


করোনা ভাইরাস এর আক্রমন থেকে পরিত্রান পাওয়ার জন্য পুরো পৃথিবী অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে ইফেক্টিভ ভ্যাকসিন এর জন্য। এখন পর্যন্ত্য জানামতে প্রায় ১১৫ টা ভ্যাকসিন পাইপ লাইনে আছে- প্রাথমিক... ...বাকিটুকু পড়ুন

সমকামিতার স্বরূপ অন্বেষনঃ সমকামি এজেন্ডার গোপন ব্লু-প্রিন্ট - আলফ্রেড চার্লস কিনসে [পর্ব দুই]

লিখেছেন নীল আকাশ, ০৭ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ১১:৪৮

অনেকদিন পরে আবার এই সিরিজ লিখতে বসলাম। লেখার এই পর্ব সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এখানে থেকে এর ব্যাপক বিস্তার ঘটানো হয়েছে খুব সুপরিকল্পিতভাবে। সারা বিশ্বের মতো আমাদের দেশেও এই জঘন্য আচরণের... ...বাকিটুকু পড়ুন

কমলাকান্তের কৃষ্ণ কন্যা (শব্দের ব্যবহার ও বাক্য গঠন চর্চার উপর পোস্ট)

লিখেছেন সাড়ে চুয়াত্তর, ০৭ ই জুলাই, ২০২০ বিকাল ৪:৫৯


শুধুমাত্র নির্দিষ্ট কোনও অক্ষর দিয়ে শুরু শব্দাবলি ব্যবহার করেও ছোট কাহিনী তৈরি করা যায় তার একটা উদাহরণ নীচে দেয়া হোল। এটা একই সাথে শিক্ষণীয় এবং আনন্দদায়ক।

কাঠুরিয়া... ...বাকিটুকু পড়ুন

×