somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

আলকাশ- পর্ব ১১

০৬ ই আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২৩
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


আগের পর্বের জন্যঃ Click This Link
আলকাশ প্রথম পর্বঃ Click This Link
লিয়েনাকে নিয়ে আমি পড়লাম মহা বিপদে! ওরাতো দু-দশ ইঞ্চি ফাকে দাঁড়িয়ে নাচে না। ছেলে বেষ্ঠন করে রমণীর কোমড় আলতো করে, আর নারী রাখে কাধে হাত। প্রিয়জন হলে দুটো হাত দিয়েই গলা জড়িয়ে ধরে।
আর সল্প পরিচিত-অপরিচিত হলে দু’জনের একটা করে হাত প্রলম্বিত হয়ে দুরে ছড়িতে জড়াজড়ি করে ধরে থাকে! সে আমার কাধে হাত রাখল অবলীলায়- অন্য হাত দিয়ে আমার হাতখানা বেষ্টন করে দূরে ছড়িয়ে দিল। কিন্তু আমি ওর কোমরে হাত রেখেই নিজের পরিবর্তনে চমকে উঠলাম! সারা শরির যেন কাঁপছে আমার!
ভারোনিকা’র(আমার বহু পূর্বতন -মানে মাস ছয়েক আগের এক বান্ধবী) মায়া আর যত্ন করে শেখানো বল নাচের মুদ্রাগুলো আমি ভুলে গেলাম!
কোন নারী আমাকে এতটা মোহাবিষ্ট করতে পারে – এর আগে আমার কল্পনাতেও আসেনি! কোমর খানি বেষ্টন করতেই সারা শরিরে যেন বিদ্যুৎ খেলে গেল। ওর শার্টের দু’খানা বোতাম খোলা। প্লাটিনামের সুক্ষ একখানা চেইনের মাথায় ছোট্ট একটা হিরের লকেট- অতি আলতো ভঙ্গীতে আয়েশ করছে তার ভরাট বুকের নিটোল খাঁজে। ঘরের অনুজ্জ্বল মায়াবী আলোয় সেদিকে দৃষ্টি যেতেই আমি যেন শিউলি ফুলের মত টুপ করে ঝরে পড়লাম! সে দৃষ্টি ফেরানোর নেই- আমার সাধ্যি। তার খানিক আনত ভরাট বক্ষের তীব্র ছোবলে দিশেহারা হয়ে দিক হারালাম! উষ্ণ নিঃশ্বাসে যেন দাবানলের আভাস! আমি যেন বিস্তীর্ণ জঙ্গল জুড়ে ছড়িয়ে থাকা শুকনো পাতার কোন গ্রীষ্মের বনভুমি।একটু স্ফুলিঙ্গে প্রজ্বলিত হবার অপেক্ষায় ছিলাম।
ক্রিস ডি বার্গের ‘লেডি ইন রেড’ এর লেডি যেন আমার হাতের মুঠোয়। এই গানের সুর আমাকে নিয়ে গেল এক অন্য ভুবনে;

The lady in red
Is dancing with me
Cheek to cheek
There's nobody here
It's just you and me
It's where I want to be
And I hardly know
this beauty by my side
I'll never forget
the way you look tonight…
…It took my breath away
I have never had such a feeling
Such a feeling of complete and utter love as I do tonight


রাত তখন এগারোটা বাজে প্রায়! মলদোভিয়ায় গভীর রাত্রি-ই বলা চলে- যদিও গ্রীষ্ম বলে বাইরে কিছুটা ফ্যাকাশে আলো।
আমার সব আবেগ আর আগুনে মহাবিশ্বের সব জল এক লহমায় ঢেলে দিয়ে ‘লিয়েনা বলল,এবার যেতে হবে।
আমার অনুরোধ, মইনের অনুনয়, লারিসার আন্তরিক আবেদন, লারিসার বাবা মায়ের মৃদু ধমক তাকে আটকাতে পারল না। সে যখন বলে- মানে সে যাবে।

একাদশীর চাঁদ যেন ‘ফ্লোলিওর’ কে স্বপ্নিল এক স্বর্গোদ্যানের রূপ দিয়েছে। প্রকৃতি যেন তার সব সেরা সাঁজ নিয়ে আজ আমার পাশে বসেছে।
সেই স্বর্গোদ্যানের যেন মর্মর বিছানো রাস্তা দিয়ে প্রথম সারিতে হেটে যাচ্ছি আমরা দু’জন। লিয়েনার হাত আমার বাহু বেষ্টন করে আছে। রোল্‌দা এখন আর বাঁধা নেই- সে নিঃশব্দে হেটে আসছে আমাদের পিছু পিছু। এর খানিকটা পেছনে লারিসা আর মইন। ওরাও হাত ধরাধরি করে কোন এক অদ্ভুত ভাষায় গল্প করতে করতে আসছে।
ঢাউস এক ট্যক্সিতে করে লিয়েনা বিদায় নিল। যাবার আগে বিদায়, ফের দেখা হবে বলে, আমার কপোলে এঁকে দিল একটা গাঢ় চুম্বন!
আর আমি মদে মাতাল হইনি- কিন্তু চুম্বনে মাতাল হলাম!

সে রাতেই ফেরার পথে আমার উপস্থিতিকে থোড়াই কেয়ার করে মইন আর লারিসা প্রথমবার চুমু খেল।
পরের পর্বের জন্যঃ Click This Link

সর্বশেষ এডিট : ১৯ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ১০:৫১
১১টি মন্তব্য ১২টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

যে ছবি গুলো আপনি আগে দেখেন নি (ছবি ব্লগ)

লিখেছেন রাজীব নুর, ২৩ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৫:৩০


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সদলবলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনের সামনে।

যখনই আমাদের সামনে বিস্ময়কর কিছু ঘটে, আমরা সবসময়ই চেষ্টা করি সেই দুষ্প্রাপ্য মুহূর্তের একটা ছবি তুলে রাখতে। মাঝেমধ্যেই আমাদের চোখের সামনে... ...বাকিটুকু পড়ুন

মা-বাবাকে ভালো বাসুনঃ একটি শিক্ষনীয় গল্প যা বদলে দিতে পারে আপনার জীবন

লিখেছেন নূর মোহাম্মদ নূরু, ২৩ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৩৫


অনেক অনেক দিন আগের কথা। এক দেশে সুন্দর এক নদীর পাড়ে ছিলো একটি বড় আপেল গাছ। একটি বালককে গাছটি খুব পছন্দ করতো। বালকটিও প্রতিদিন এসে গাছের চারপাশে খেলতো। গাছের... ...বাকিটুকু পড়ুন

কে সবচেয়ে বড় ছিল ? (একটি কিরিগিজ রুপকথা)

লিখেছেন শেরজা তপন, ২৩ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩৭


কিরগিজের এক গ্রামে বাস করত তিন ভাই। ওদের সম্পত্তি বলতে ছিল শুধু একটা সাড়। জীবিত অবস্থায় এটাকে কিভাবে তিনভাগে ভাগ করে নেয়া যায় এর কোন যুক্তিসম্মত উপায় বের... ...বাকিটুকু পড়ুন

শিক্ষনীয় গল্প বলা যেতে পারে

লিখেছেন রাজীব নুর, ২৩ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:২৪



আমেরিকায় এক বরফশীতল রাতে একজন কোটিপতি তার ঘরের সামনে এক বৃদ্ধ দরিদ্র মানুষকে দেখতে পেলেন। তিনি বৃদ্ধ মানুষটিকে জিজ্ঞাসা করলেন- বাইরে এত ঠান্ডা আর আপনার গায়ে কোন উষ্ণ... ...বাকিটুকু পড়ুন

পেঁয়াজের অপকারিতা ও ক্ষতিকর প্রভাব

লিখেছেন ঠাকুরমাহমুদ, ২৩ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:২৫



অত্যন্ত আশ্চর্য হয়ে লক্ষ্য করেছি আমি গুগল সার্চ করে পেঁয়াজের কোনো প্রকার অপকারিতা খুঁজে পাচ্ছি না! এমন একটি পণ্য যার শুধু গুণ আর গুণ! - এমনটি তো হবার কথা... ...বাকিটুকু পড়ুন

×