somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

দ্যা ব্লাক তাজমহল, মসলিয়াম এবং ভালোবাসা

০৪ ঠা জুন, ২০১৪ দুপুর ১:৫৫
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

তাজমহলের পেছনে গিয়েছেন কখনো? তাজমহলের পেছনে দাঁড়িয়ে যমুনার দিকে তাকালে মনে হবে তাজমহল নির্মান অসম্পূর্ন। কোথায় যেন কি নেই। তাজমহলের পেছনে দাড়ালে যমুনা কিংবা আগ্রা ফোর্ট কে অসাধারন দেখায়। পানি, পাথর, সবুজের সন্মিলনে অসাধারন। আগ্রা ফোর্টের যে জায়গায় বসে শাজাহান নির্মিশেষে মমতাজের সমাধির দিকে তাকিয়ে থাকত তাজমহলের পেছন থেকে সে জায়গা পরিস্কার দেখা যায়।

ভরন্ত পূর্নিমা রাতে শাজাহান আগ্রা ফোর্টের জানালায় বসে তাজমহলের দিকে তাকিয়ে নিঃশব্দে চোখের পানি ফেলত আর শায়রী রচনা করত।

তাজমহলের পেছনে দাড়ালে আপনার একটা অবর্জাভেশান টাওয়ার চোখে পড়বে ওটিই আসলে কালো তাজমহলের বেইস। শাজাহানের ইচ্ছে ছিল সাদা তাজমহলের মত যমুনার অপর পারে আর একটা কালো পাথরের তাজমহল বানাবে যেখানে সে চির নিদ্রায় শায়িত হবে। এই দুই তাজমহলের মাঝে একটা সেতু থাকবে যেটা দুই তাজমহল কে এক করে রাখবে।



ঐতিহাসিকরা বলেন “Black Taj Mahal exist as soul without body”। কালো তাজমহলের আত্মা আছে কিন্তু দেহ নাই। সত্যিই তাই কালো তাজমহল ইতিহাসে আছে কিন্তু বাস্তবে নাই। যে জায়গায় সম্রাট কালো তাজমহল তৈরী করতে চেয়েছিল সে জায়গায় এখনো স্তুপীকৃত কালো পাথর পড়ে আছে অরক্ষিত অবস্থায় অনাদরে অবহেলায়।



এই কালো তাজমহলের ব্যাপারটা অনেক ঐতিহাসিক মিথ হিসাবে দেখেন। কেউ কেউ স্বীকার করেন কেউ করেন না। জিন ব্যাপ্টিষ্ট ট্যাভারিয়ান নামক একজন ইউরোপিয়ান সর্বপ্রথম তাজমহল দেখতে যান ১৬৬৫ সালে তার বর্ননায় কিন্তু ব্ল্যাক তাজমহল এর বর্ননা আছে। তিনি তাজমহলের অপরদিকে যমুনার পাড়ে কালো মার্বেল পাথরের স্তুপ দেখেছেন।



কিন্তু কালো তাজমহল গড়ার স্বপ্ন শাজাহানের আর বাস্তবে রূপ নেই নি কারন তার ছেলে আওরঙ্গজেব। শাজাহান আওরঙ্গজেব কর্তৃক বন্দী হবার পর পুত্র আওরঙ্গজেবের কাছে পিতা শাজাহানের এই ইচ্ছা বাড়াবাড়ি মনে হওয়ায় কালো তাজমহল আর কোন দিন বস্তবতার মুখ দেখেনি। সম্রট শাজাহান কে সাদা তাজমহলে কবর দেয়া হয়েছে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে খেয়াল করে দেখুন মমতাজের কবর কেন্দ্রে আর শাজাহানের সমাধিটি এক পাশে। এটাই প্রমান করে শাজাহান চান নি তার কবর এখানে দেয়া হোক।



এবার একটু ভিন্ন প্রসঙ্গে আসি অনেকেই বলেন পৃথিবীর শ্রেষ্টতম ভালোবাসার নিদর্শন তাজমহল। কথাটা ভীষন রোমান্টিক। শুনতেও ভালো লাগে। পুরুষদের নাকি শেখ উচিত কিভাবে স্ত্রীকে ভালোবাসা যায় তা তাজমহলে অন্তত একবার এসে দেখে যেতে। বাস্তবতা কিন্তু সম্পূর্ন ভিন্ন।

শাজাহান মমতাজ কে ভালোবাসত কোন সন্দেহ নাই। কিন্তু শাজাহান এর মমতাজের মত বউ থাকার পরো সুন্দরী নারী দেখলেই তাকে বিয়ে করে অথবা রক্ষিতা হিসাবে ঘরে নিতেন। মমতাজ আবার এ ব্যাপারে ছিলেন ভীষন উদার। শাজাহানের শেষ জীবনের রাষ্ট্রনীতি উনি পরিচালনা করলেও অনেক বিধি নিষেধ আরোপ করলেও শাজাহানের এই পর নারী গমন কে উনি কখনো বাধা দেন নি।

মমতাজের আসল নাম ছিল আর্জুমান্দ বানু বেগম। সব থেকে আজব করা ব্যাপার হল এই তাজমহলের পূর্ব পাশে সম্রাট শাজাহানের আর এক স্ত্রীর কবর আছে। শিরহিনডি বেগম নামে পরিচিত এই রানীর সমাধিতে শুধু একটি গম্বুজ আছে।

মমতাজের সমাধিতে শাজাহান তাজমহল বানিয়ে প্রেমের অমর স্মৃতিসৌধ রচনা করেছেন এটাই সর্বজন স্বীকৃত, কিন্তু ইতিহাসের যে ব্যাপারটা আলোচনা হয় না সেটা হল শাজাহান সব সময় পর নারীতে আসক্ত ছিলেন। Nicocolao Mouncci (১৬৩৭-১৭১৭) তার ভ্রমন কাহিনীতে লিখেছেন “It would seems as if the only thing Shajahan cared for was the search for women to serve his pleasure”।

আমাকে যদি জিজ্ঞাস করেন আমি বলব শেষ জীবনে এসে শাজাহান উপলদ্ধি করে গেছেন সারা জীবন পরনারী আসক্ত থাকলেও মমতাজ কোন দিন এ নিয়ে অভিযোগ না করে ভালোবাসার চুড়ান্ত দিখিয়ে গেছেন। তার প্রতিদান দেবার জন্য এই সামান্য ইট পাথরের তাজমহল। তাই তাজমহল শাজাহানের ভালোবাসার নিদর্শন না মমতাজের অমর ভালোবাসার সামান্য প্রতিদান তার স্বামী কর্তৃক সেটা নিয়ে বিতর্ক থাকতেই পারে, আমি সেদিকে গেলাম না।

ভালোবাসার নিদর্শন কিভাবে দিতে হয় তার প্রমান রেখে গেছেন আর্টিমিসিয়া। তাজমহল মুলত একটি সমাধি স্তম্ভ। ইংরেজীতে “সমাধিস্তম্ভ” কে বলা হয় “Mausoleum”। এই মসলিয়াম কথাটিও এসেছে আর একটি ভালোবাসার নিদর্শন থেকে। খ্রিষ্টপূর্ব ৩৭৭ সালে এশিয়া মাইনরে “হালিকারনাসাস” নামে একটা ছোট্ট রাজ্য ছিল।

এই রাজ্যর রাজার নাম ছিল হেকটামেনাস। হেকটামেনাসের ছেলের নাম ছিল মসুলাস (Mausolus) আর মেয়ের নাম ছিল আর্টিমিসিয়া। রাজা হেকটামেনাস তার ছেলে মেয়েকে বিয়ে দেন মানে ভাই বোন বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। সে যুগে ভাই বোনের মাঝে বিয়ে প্রথা সিদ্ধ ছিল। মিশরের ফারাওদের মাঝে এটা দেখা যায়। খ্রিষ্টপূর্ব ৩৫৩ সালে মসুলাস নিহত হন। প্রিয় ভাই স্বামীর মৃত্যুতে আর্টিমিসিয়া মানসিক ভাবে ভেঙ্গে পড়েন।



স্বামীর স্মৃতিকে চির জাগরুক রাখতে দিকে দিকে লোক পাঠান ভালো স্থপতি খুজে আনতে যে একটি সমাধি সৌধ বানাবে। সে কালের বিখ্যাত গ্রীক স্থপতি স্কোপাস কে আনা হয় সমাধির ডিজাইনার হিসাবে। রানী আর্টিমিসিয়ার তত্ত্বাবাধানে স্কোপাস পাহাড়ের চুড়ায় নির্মান করেন মসুলাসের সমাধিস্তম্ভ। যেহেতু সম্রাট মসুলাসের দেহভস্ম এখানে সমাধিস্থ করা হয় তাই এর নাম হয়ে যায় “মসলিয়াম” (Mausoleum)। সেই থেকে আজ পর্যন্ত পৃথিবীর যে কোন স্থানে সমাধিস্তম্ভ তৈরী হলে তাকে মসলিয়াম বলে। “লেলিন মসলিয়াম” “মাও মসলিয়াম”। ১৪০৪ সালে এক ভুমিকম্পে প্রেমের এই অমর সৌধ ধ্বংস হয়ে যায়।



কথিত আছে প্রেমিক মসলিয়ামের দেহভস্ম র অর্ধেক আর্টিমিসিয়া মসলিয়ামে সমাধিস্থ করেছেন বাকী অর্ধেক নিজের কাছে রেখে দেন আর প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে স্বামীর দেহভস্মের এক চামচ পানিতে মিশেয়ে পান করে রাজ দরবারে যেতেন।

১৬৩৪ সালে ডাচ মাষ্টার রেমব্রান্ট Artemisia শিরোনামে একটা মাষ্টার পিস আকেন যেটা এখনো বিশ্ব চিত্রকর্মের এক অমূল্য সম্পদ।



ভালোবাসা কাকে বলে? বুকের কোন গহীনে এই ভালোবাসা বাস করে?
সর্বশেষ এডিট : ০৪ ঠা জুন, ২০১৪ বিকাল ৩:৩৭
৩৬টি মন্তব্য ৩৬টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

কক্সবাজার ভ্রমণ ২০২০ : যাত্রা শুরু

লিখেছেন পগলা জগাই, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২০ দুপুর ১২:৫১




দীর্ঘ্য ৬ বছর পরে পরিবার নিয়ে বেরাতে যাওয়ার সুযোগ হলো আবার। এর মধ্যে ওদের নিয়ে বেরাতে গেলেও তা ছিলো ডে ট্রিপ, যেখানেই গেছি রাতের মধ্যে বাড়িতে ফিরতেই হয়েছে। স্ত্রী-কন্যকে নিয়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

নারী পাচার

লিখেছেন রাজীব নুর, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২০ দুপুর ১:৫৯



এশিয়ার এক নম্বর নারী ও শিশু পাচার রুট বাংলাদেশ।
প্রতিদিন দেশ থেকে প্রচুর নারী ও শিশু বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত দিয়ে অথবা বিমান যোগে পাচার হয়ে যাচ্ছে। পাচারকৃত নারী ও... ...বাকিটুকু পড়ুন

চিলেকোঠার প্রেম- ১২

লিখেছেন কবিতা পড়ার প্রহর, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২০ বিকাল ৪:২৩

প্রায় দেড় বছর! না না এক ফাল্গুন থেকে আরেক ফাল্গুন পেরিয়ে চৈত্রের শেষ। নাহ ঠিক দেড় বছর না, এক বছরের একটু বেশি সময় পর পা দিলাম আমার চিরচেনা... ...বাকিটুকু পড়ুন

মানুষের প্রতি দয়ামায়া না থাকলে দেশে কি কি ঘটতে পারে?

লিখেছেন চাঁদগাজী, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:১০



ভারত খাদ্য রপ্তানী করে, বাংলাদেশের মতো ভারতে সকাল-বিকেল খাদ্যদ্রব্যের দাম বাড়ে না, আয়ের তুলনায় খাবারের দাম কম; খাবারে কেমিক্যাল, ফরমালিন মিশায় না; অনেক বছর এত বেশী খাদ্য উৎপাদন... ...বাকিটুকু পড়ুন

হিরু আলুমের সিনেমা বাহিরে চলিচ্ছে , ভিতরে খালি ক্যারে

লিখেছেন শাহ আজিজ, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩৮


প্রাডো গাড়ি নিয়ে ঘুরছেন হিরো আলম। ছুটছেন এক প্রেক্ষাগৃহ থেকে আরেক প্রেক্ষাগৃহে। তাঁকে ঘিরে প্রেক্ষাগৃহের বাইরে আবার উৎসুক জনতার ভিড় লক্ষ করা গেলেও প্রেক্ষাগৃহের ভেতরে আসন ফাঁকা। নেই... ...বাকিটুকু পড়ুন

×