somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

বাঙাল মস্তিস্কের বি উপনিবেশায়ন, নোকতা ৬ঃ মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগোষ্ঠীর মাঝে ইসলামোফোবিয়ার চর্চা

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ দুপুর ১২:৪৭
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



১।
গত এক দশক ধরে ওয়েস্টার্ন সোসাইটিতে চর্চিত ইসলামোফোবিয়া নিয়ে বিস্তীর্ণ পরিসরে অ্যাকাডেমিক গবেষণা, এবং ইসলামোফোবিয়ার পক্ষে বিপক্ষে যুক্তিতর্ক হয়েছে। পাশ্চাত্যে ইসলামোফবিয়া থাকা স্বাভাবিক, কারণ সেখানে মুসলিমরা সংখ্যালঘু হলেও আত্মপরিচয়ের ব্যাপারে সচেতন। ওয়েস্টের মুসলিমদের চরিত্রের এ ব্যাপারটাই সেকুলার লিবারেল ডেমোক্রেটিক ওয়েস্টের জনগণের জন্য হজম করা মুশকিল। ফলে তাদের জন্যে দরকার হয়ে পড়ে হিজাব বা বুরখা বা নিকাব ব্যান করে দেয়া। দেশে ইসলামিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ব্যান করা। মসজিদে ইমামদের উপর নজরদারি বাড়ানো, এবং জিরো টলারেন্সে তাদের ভিসা বাতিল করে নিজ দেশে পাঠিয়ে দেয়া।

এ পর্যায়ে একটা প্রশ্ন প্রাসঙ্গিক হয়ে দাঁড়ায়, পৃথিবীর যে সমস্ত দেশে মুসলিমরাই সংখ্যাগুরু, সে সমস্ত দেশে বা সমাজেও ইসলামোফোবিয়া কাজ করে কিনা। প্রশ্নটা কিছুটা অ্যাবজার্ড লাগতে পারে, কারণ, মুসলিম মেজোরিটি সোসাইটিতে ইসলামোফোবিয়া থাকবেই বা কেন, আর থাকলে তা কাজ করবেই বা কীভাবে, বা এমন একটা সোসাইটিতে ইসলামোফোবিয়ার প্রয়োজনই বা কি, - এ সমস্ত প্রশ্নও এসে একই সঙ্গে হানা দেয় আমাদের মস্তিষ্কে, এবং মুসলিম মেজোরিটি সোসাইটিতে ইসলামোফোবিয়ার চর্চা এই আইডিয়াটাকে অপ্রাসঙ্গিক করে তোলে।

এক্ষেত্রে আরও একটি প্রশ্ন তাহলে প্রসঙ্গক্রমে এসে পড়ে - ইসলামোফোবিয়ার চর্চা, প্রয়োগ ও বিস্তারকে আলোচনার একমাত্র লেন্স কি কেবল জনসংখ্যার মেজরিটি - মাইনোরিটির বাইনারি - ই? নাকি আরও কিছু কিছু লেন্স রয়েছে, যার অধীনে ইসলামোফোবিয়া মুসলিম মেজোরিটি সোসাইটিতেও প্রাসঙ্গিক হয়ে ওঠে?

সাম্প্রতিক গবেষণায় আশংকাজনকভাবে উঠে এসেছে যে, এন্টি মুসলিম সেন্টিমেন্ট এবং রেসিজম - মুসলিম মেজোরিটি দেশগুলোতেও গভীরভাবে প্রোথিত হয়ে আছে দীর্ঘ দীর্ঘ কাল যাবত। শুধু যে কনসেপ্ট আকারে মানুষের মনে ইসলামোফোবিয়া সক্রিয় আছে তাই নয়, মুসলিম মেজরিটি দেশগুলোর পাবলিক পলিসি, ষ্টেট ইডিওলজি, এলিট সোসাইটির সঙ্গে জনসাধারণ সম্পর্ক, এবং মিডিয়ার অরিয়েন্টেশনের পেছনেও যে ইসলামোফোবিয়া, বা এন্টি মুসলিম রেসিজম সক্রিয় আছে, বা থাকতে পারে - সাম্প্রতিক কিছু গবেষণার আগে এ ছিল আমাদের ধারণার বাইরে। কাজেই ইসলামোফোবিয়ার চরিত্র কেবল সংখ্যালঘু - সংখ্যাগুরু (পাশ্চাত্যে যেমন) বাইনারিতে ফেলে দেখাটা বুদ্ধিমানের কাজ হবে না। ইসলামোফোবিয়ার আঁতুড়ঘর হিসেবে ক্ষমতাসীন - ক্ষমতাহীন জনগোষ্ঠীর বাইনারিকেও চিহ্নিত করতে হবে। সহজভাষায় যদি বলি, মুসলিম সংখ্যাগুরু দেশের ক্ষমতাসীন এলিট জনগোষ্ঠী, বা সামরিক জান্তা সক্রিয়ভাবে ইসলামোফোবিয়ার চর্চা করতে পারে, আদারিং করতে পারে - নিজের ধর্মীয় পরিচয়কে শক্ত করে আঁকড়ে ধরে রেখে ক্ষমতায় থাকা এলিট গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে রাজনৈতিক লড়াই চালিয়ে যাওয়া ক্ষমতাহীন জনগোষ্ঠীকে ডিহিউম্যানাইজ, এবং ডিমোরালাইজ করতে। মুসলিম সংখ্যাগুরু দেশ বা জাতির বিশ্ববীক্ষা যদি ইউরোসেন্ট্রিক (পাশ্চাত্য অভিমুখী) হয়, তাহলে সে সমস্ত জাতিগোষ্ঠীর মধ্যেও ইসলামোফোবিয়া এপিস্টেমিক রেসিজমের টুল হিসেবে সক্রিয় থাকে। সেক্ষেত্রে মুখোমুখি দাঁড়ায় ওয়েস্টার্নাইজ মুসলিম এলিটদের সঙ্গে কনজারভেটিভ মুসলিম ম্যাস / জনসাধারণের জীবনাদর্শ।

কাজেই, এটা বলা যায় যে মুসলিম পৃথিবীতে, এবং পাশ্চাত্যে - উভয়ক্ষেত্রে ইসলামোফোবিয়া একই ইডিওলজিক্যাল, এবং এপিস্টেমোলজিক্যাল ব্যাকগ্রাউন্ড থেকে উদ্ভূত। কারণ, ইসলামোফোবিয়া সংক্রান্ত আলোচনা, তর্কবিতর্ক (ডিসকোর্সেস অ্যান্ড ডিবেট) - উভয় সমাজব্যবস্থাতেই প্রায় একই প্যাটার্নে এগোয়। তবে পাশ্চাত্যে, এবং মুসলিম মেজরিটি সোসাইটিতে ইসলামোফবিয়ার চর্চা ও প্রয়োগে ভিন্নতা দেখা দেয় উক্ত দেশ ও জাতিসমূহের ঐতিহাসিক, সামাজিক, ডেমোগ্রাফিক (জন্ম - মৃত্যু - জনসঙ্খ্যা ইত্যাদি), এবং রাজনৈতিক পরিপ্রেক্ষিতের ভিন্নতার উপর ভিত্তি করে। সর্বোপরি, সমসাময়িক মুসলিম সোসাইটি, এবং মুসলিম মেজোরিটি নেশন ষ্টেটগুলো কীভাবে ফাংশান করছে - সেটা বোঝা সম্ভব হবে না, যদি না সেসমস্ত সোসাইটিতে সরাসরি, বা অন্তর্নিহিত উপায়ে ইসলামোফোবিয়া কীভাবে সক্রিয় আছে - সেটা বোঝার চেষ্টা না করা হয়। অন্যভাবে বললে, ইসলামোফোবিয়ার লেন্সকে সম্পূর্ণরূপে উপেক্ষা করে একবিংশ শতাব্দীর মুসলিম মেজরিটি সোসাইটির কার্যক্রম ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করলে সে ব্যাখ্যা কখনোই স্বয়ংসম্পূর্ণ হবে না। এবং এই বিশ্লেষণের জন্যে যে টাইমফ্রেম আমাদের বাছাই করা লাগবে, তা হতে হবে ইউরোপিয়ান ঔপনিবেশিক শক্তির অধীনে গোলামী করার সময়কাল থেকে শুরু করে, আজকের দিন পর্যন্ত।

২।
আলোচনার এ পর্যায়ে ইসলামোফোবিয়ার সংজ্ঞায়ন জরুরী।

যেকোনো ধরণের এন্টি - মুসলিম রেসিজমকেই আমরা মোটাদাগে ইসলামোফোবিয়া বলে অভিহিত করতে পারি। সহজ ভাষায় বললে, শুধুমাত্র নিজের মুসলিম আইডেন্টিটি, ইডিওলজি, এবং মুসলিম সাইন - সিম্বলস শরীরে ধারণ করবার জন্যে যদি কেউ ব্যক্তিগত, সামাজিক, বা রাষ্ট্রিক পরিসরে রেসিজমের শিকার হয়, তবে সেটা ইসলামোফোবিয়া। যদি কোন জনগোষ্ঠী ক্ষমতা দখল করতে চায়, দখলকৃত ক্ষমতা পোক্ত করতে চায়, পোক্তকৃত ক্ষমতার বিস্তৃতি আরও ছড়াতে চায় - দেশের মুসলিম জনগোষ্ঠীকে পশ্চাৎপদ, মধ্যযুগীয় বর্বর বলে আখ্যা দিয়ে, তাদের / তাদের জীবনাদর্শকে দমন পীড়নের মাধ্যমে, এবং মুসলিম জনগোষ্ঠীকে তাদের সামাজিক ও মানবিক অধিকার ও মর্যাদা থেকে বঞ্চিত করে, তবে সেটা ইসলামোফোবিয়া। যদি মুসলিম হবার কারণে কোন সমাজে আদারিং , বা 'আমরা - ওরা' করে জাজমেন্টের ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গী তৈরি বা ব্যবহার করা হয়, তবে সেটাও ইসলামোফোবিয়া।


ইসলামোফোবিয়ার কিছু চরিত্র সনাক্ত করা যাক, তাঁর সংজ্ঞায়নের পর।

প্রথমত, ইসলামোফোবিয়ার প্রাথমিক টার্গেট হচ্ছে নেতিবাচক অর্থে একটা স্ট্যাটিক বা অপরিবর্তনশীল মুসলিম আইডেন্টিটি তৈরি করা।
উদাহরণস্বরূপ - মুসলমান পুরুষ মাত্রই চার বিয়ে করতে চায়। মুসলমান পুরুষ মাত্রই যৌনলোলুপ, তাদের ধর্মকর্ম আসলে বেহেশতে গিয়ে ৭২ টা হুর আর অগণিত গেলমান লাভের আশায় পালন করা। মুসলমান পুরুষ মাত্রই নারী অধিকার বিরোধী। মুসলমান নারী মাত্রই দুর্বল। তাদের কোন এজেন্সি নাই। মুসলমান মাত্রই অশিক্ষিত, মধ্যযুগীয় বর্বর। ইত্যাদি। মুসলমানদের এই পরিচয় প্রাগৈতিহাসিক কাল থেকে নিয়ে আজ পর্যন্ত কখনো বদলায় নাই, ভবিষ্যতেও বদলাবে না।


দ্বিতীয়ত, একটা স্ট্যাটিক নেগেটিভ মুসলিম আইদেন্টিটি তৈরি করবার পর, পৃথিবীর সমস্ত অঞ্চলের সমস্ত মুসলিমদের সেই একই নেতিবাচক আইডেন্টিটির স্কেলে ফেলে জেনারালাইজড করা। ভিন্ন ভিন্ন ভু রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে মুসলিমদের আইডেন্টিটি বোঝার চেষ্টা না করা।

তৃতীয়ত, এই 'নারীলোলুপ অশিক্ষিত বর্বর' মুসলিম সমাজকে সরাসরি রাষ্ট্রক্ষমতার বিরুদ্ধে উপস্থাপন করবার চেষ্টা ক্রমাগতভাবে চালিয়ে যাওয়া। ইসলামোফোবিয়া এ ক্ষেত্রে একটা পলিটিকাল ফ্রেমওয়ার্ক হিসেবে কাজ করে। কারণ ইসলামোফোবিয়া মুসলিম জনগোষ্ঠীকে বরাবর ক্ষমতাসীনদের বিরুদ্ধবাদী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চায়। একই সঙ্গে কোন রাষ্ট্রের মুসলিম মেজোরিটি জনগোষ্ঠী যদি তাঁর সমাজের এপিস্টেমোলজিক্যাল ওয়েস্টার্ন হেজিমনির তল্পিবাহক এলিট জনগোষ্ঠীর ব্যাপারে ক্রিটিকাল দৃষ্টিভঙ্গী বজায় রাখে, ইসলামোফোবিয়া, রেসিয়াল গভর্নমেন্টালিটির ফর্ম হিসেবে সেই ক্রিটিকাল মুসলিম জনগোষ্ঠীকেও সমাজ ও রাষ্ট্রের শত্রু হিসেবে উপস্থাপন করে। তাদের রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় দমন পীড়নে সচেষ্ট হয়।

৩।
পূর্বের আলোচনা আবারো সারসংক্ষেপ করে সামনে এগোনো যাক।

এন্টি মুসলিম রেসিজম কেবলমাত্র সংখ্যালঘু - সংখ্যাগুরু বাইনারিতে দেখলে হবে না, ক্ষমতাসীন - ক্ষমতাহীন জনগোষ্ঠীর বাইনারিও এই সিস্টেমিক রেসিজমকে বোঝা ও লোকেট করবার জন্যে জরুরী। ওয়েস্টার্নাইজড সেকুলার মুসলিম এলিট আর মুসলিম কনজারভেটিভ জনসাধারণের সম্পর্কের পাওয়ার ডায়নামিকস বুঝলে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগোষ্ঠীর মধ্যেও কেন প্রবলভাবে নিজের ধর্মীয় আইডেনটিটির প্রতি ঘৃণা কাজ করে সম্ভব - সেটা বোঝা যাবে।

যা হোক, যেকোনো সমাজব্যবস্থায় ইসলামোফোবিয়ার জন্ম ও বিস্তৃতিকে বুঝতে হবে ওয়ার্ল্ড সিস্টেম থিয়োরি, এপিস্টেমিক রেসিজম, এবং সেকুলারিজমের লেন্স দিয়ে। মুসলিম সমাজের ওয়েস্টার্নাইজড এলিটদের নিজেদের ধর্মীয়, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক আইডেন্টিটিকে ঘৃণার চোখে দেখার বা বিচার করার দৃষ্টিভঙ্গী, এবং একটা এলিয়েন, ওয়েস্টার্নাইজড ওয়ার্ল্ডভিউর সাহায্য নিয়ে নিজেদের আইডেন্টিটি পুনঃনির্মাণ করার চেষ্টা করা - এ প্রক্রিয়াসমূহকে সেলফ অরিয়েন্টালাইজেশন, এবং সেলফ ওয়েস্টার্নাইজেশন আমব্রেলা টার্মের অধীনে আলোচনা করা যায়। প্রক্রিয়া যাই হোক, দিনের শেষে এই এলিট মুসলিম সোসাইটির জনগোষ্ঠী নিজেদের মুসলিম পরিচয়কে ঘৃণা করাই আরম্ভ করে, এবং যে কেউ তাকে তাঁর মুসলিম পরিচয়ের কথা, বা তাঁর প্রতি দায়বদ্ধতার কথা স্মরণ করিয়ে দেয়, সে তাকে বা তাদেরও নিজের শত্রু হিসেবে গণ্য করতে আরম্ভ করে। এটাকে শুধু কলোনিয়ালিজমের আফটারম্যাথ হিসেবে দেখলে হবে না, একই সঙ্গে বর্তমান সমাজ বাস্তবতায় দানবীয় শক্তিধারী, সর্বগ্রাসী মডার্ন সেকুলার ওয়েস্টের সঙ্গে যে সাংঘর্ষিক, দ্বান্দ্বিক সম্পর্ক বাকি পৃথিবীর, তাঁর আলোকেও বিচার করা লাগবে। এই ওয়েস্টার্ন সেকুলার আইডেন্টিটি তাঁর বিপরীতে দাঁড়ানো যেকোনো সমাজব্যবস্থা ও বিশ্ববীক্ষাকেই পশ্চাৎপদ, অনাধুনিক, অবৈজ্ঞানিক হিসেবে ক্যারেক্টার অ্যাসাসিনেট করবার চেষ্টা করে। ইসলামিক সোসাইটি এবং সিভিলাইজেশনও তাঁর একই মনোভাবের শিকার।

কখনো কখনো ইসলামোফোবিয়ার প্রবক্তারা স্যামুয়েল হান্টিংটনের ক্ল্যাশ অফ সিভিলাইজেশন থেকে 'ইসলামোফ্যাসিজম' টার্মটা ধার করে ইসলামিক আইডেন্টিটি এবং রীতিনীতিকে আঁকড়ে থাকা মুসলিম জনগোষ্ঠীর উপর কাউন্টার ফ্যাসিস্ট অ্যাক্ট পরিচালনা করে এবং সেক্ষেত্রে তারা তাদের ন্যারেটিভ তৈরি করে ইউরোপিয়ান জুডিও ক্রিশ্চিয়ান ইডিওলজির উপর বেইজ করে।

৪।
যে কোন সিস্টেমিক রেসিজম ভায়লেন্স এবং তাঁর বিপরীতমুখী রেসিজমকে ত্বরান্বিত করে, এটা বোঝার এক প্রকৃষ্ট উদাহরণ তুরস্ক।

তুরস্কের ইস্তাম্বুলের ইবন হালদুন ইউনিভার্সিটির পলিটিকাল সায়েন্স অ্যান্ড থিওরিজের গবেষক আলি আসলান 'আধুনিক' তুরস্কের গড়নে ইসলামোফোবিয়াকে একটি প্রধানতম অনুঘটক হিসেবে চিহ্নিত করেন (২০১৯)। কামাল আতাতুর্কের সেকুলার টার্কিতে ইসলাম, এবং ইসলামিক আইডেন্টিটিকে নবনির্মিত তুরস্ক নেশন ষ্টেটের চরমতম শত্রু হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছিল। গবেষক আসলানের মতে, ইসলামোফোবিয়াকে ব্যবহার করে প্রথমে অটোম্যান এম্পায়ার উৎখাত করে সেকুলার টার্কিশ রিপাবলিক তৈরি করা হয়, এবং পরবর্তীতে পুরো তুরস্কের জনগণকে বাধ্য করা হয় সেই সেকুলার ন্যাশনালিস্ট রিয়্যালিটি গিলতে। এই গেলানোর কাজটি করতে গিয়ে তুরস্কে জন্ম নেয় এক অগণতান্ত্রিক স্বৈরাচারী সরকারের, যাদের সঙ্গে জনসাধারণের তেমন কোন যোগাযোগ ছিল না। ফলশ্রুতিতে, কিছুটা সময় লাগলেও, এক পর্যায়ে এসে দেশের অভ্যন্তরে সমস্ত গণতান্ত্রিক মানসিকতার ধারকবাহক জনগোষ্ঠী ধীরে ধীরে এই ফ্যাসিস্ট সেকুলার ডিক্টেটরিয়াল আতাতুর্ক রেজিমের বিরুদ্ধে একাট্টা হয়ে দাঁড়ায়। সেই ডেমোক্রেটিক ব্লকের সর্ববৃহৎ অংশ ছিল ১৯৪০ সালের পর থেকে তুরস্কে নিষ্ক্রিয় করে রাখা রিলেজিয়াস - কনজারভেটিভ ম্যাস পপুলেশন। তারই ফলশ্রুতিতে ২০০০ সালের পরে কামালিস্ট ব্যুরোক্রেটিক পন্থায় ধ্বস নামে, এবং তারা তুরস্কের রাজনীতি থেকে ঝাড়ে বংশে উধাও হয়ে যায়। সেকুলারিজমের নামেও যদি অগণতান্ত্রিক মনোভাবের চর্চা করা হয়, এবং দেশের সংখ্যাগুরু জনগোষ্ঠীর ধর্মীয় - সামাজিক পরিচয়ের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস ছড়ানো হয়, তবে তাঁর ফলাফল কি হতে পারে, সে ব্যাপারে শিক্ষা নেয়ার জন্যে, আলি আসলানের মতে, তুরস্ক এক বৈশ্বিক হটস্পট।

বারকেলে ইউনিভার্সিটির গবেষক মে কসবা ২০১১ সালের ইজিপ্ট রেভলিউশনের ব্যাপারে লেখেন - মুরসি গভর্নমেন্ট ছিল মডার্ন ইজিপ্টের ইতিহাসের প্রথম গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকার (২০১৯)। তাদের উৎখাত করে সামরিক বাহিনীর প্রাক্তন প্রধান জেনারেল সি সি ক্ষমতায় এসে বসবার পরই - ওয়েস্টার্ন ন্যারেটিভ ফলো করে মুরসি গভর্নমেন্টকে পত্রপত্রিকায়, এবং টিভি চ্যানেলগুলিতে ডেমোনাইজ - ডিহিউম্যানাইজ করে উপস্থাপন করা শুরু করে। মে কসবা আরও উল্লেখ করেন, মুরসি এবং তাঁর ফলোয়ারদের পলিটিকালি সাইডলাইনড এবং এলিয়েনেটেড করবার জন্যে জার্মান বা ফ্রেঞ্চ রাইট উইং পলিটিশিয়ানদের মতোই ইসলামোফবিক বক্তব্য রাখা হয়, এবং সর্বোপরি মুরসির সরকারকে উৎখাত করতে গিয়ে সামরিক সি সি সরকার আলটিমেটলি মিশরে ইসলামোফোবিয়ার চর্চাই এখন পর্যন্ত করে যাচ্ছে। হাভার্ড ইউনিভার্সিটির গবেষক ডায়ানা আবদেল কাদের তাঁর পৃথক গবেশনায় উল্লেখ করেন, কলোনিয়াল ব্রিটিশ এম্পায়ারের চাপিয়ে দেয়া এই সেকুলার - মুসলিম সম্পর্কের টানাপোড়েনেই ১৯২৮ সালে মুসলিম ব্রাদারহুডের জন্ম হয়(২০১৯)। কলোনিয়াল, বা এম্পিরিয়ালিস্টিক এই ইসলামোফোবিক এজেন্ডাগুলি যদি এখনো কোন মুসলিম মেজোরিটি কমিউনিটির এলিট বা মিলিটারি ক্লাস নিজেদের ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রাখতে ব্যবহার করে, তবে তাঁর বিপরীতে রিলেজিয়াস এক্সট্রিমিজম দানা বাঁধতে থাকবে ধীরে ধীরে। আর এই অবস্থা এড়ানোর জন্যে যেকোনো ধরণের ফোবিয়া, বা পরিচয়সন্ত্রাস এবং সে সূত্রে জন্ম নেয়া সিস্টেমিক রেসিজমকে গোড়াতেই থামিয়ে দেয়া হবে বুদ্ধিমানের কাজ।

৫।

বিশ্ববিক্ষা শিক্ষাদানের নামে নিজেদের প্রাক্তন ঔপনিবেশিক ভুরাজনৈতিক ডোমেইনে এখনো সক্রিয় সাম্রাজ্যবাদী পরাশক্তিসমূহ। মুসলিম সংখ্যালঘু দেশগুলিতে রাজনৈতিক শক্তি হিসেবে মুসলিমরা তেমন প্রাসঙ্গিক নয়। কিন্তু যে সমস্ত মুসলিমপ্রধান দেশগুলি তাদের এককালের ঔপনিবেশিক ক্লায়েন্ট ছিল, তাদের উপর নিজেদের হেজিমনিক প্রভাব বজায় রাখার সহজ এক উপায় হচ্ছে, তাদের ধর্মীয় - সামাজিক - সংস্ক্রিতিক আত্মপরিচয়কে ডেমোনাইজড, ডিহিউমেনাইজড রূপে উপস্থাপন, এবং পাশ্চাত্যের সেকুলার মতাদর্শকে কোনরকমের প্রশ্ন - প্রাসঙ্গিকিকরন ছাড়াই মানবতার মুক্তির বারোটা (বার্তা) হিসেবে রিপ্রেজেন্টেশন, এবং গিলিয়ে খাওয়ানো। এটা সেই একই মিশনারি জিল, যা নিয়ে ষোড়শ শতকে ইউরোপিয়ানরা সারা পৃথিবীতে আলো জ্বালানোর নাম করে জাহাজে চেপে বেরিয়েছিল একদিন। তাদের ঔপনিবেশিক আমলের লুটপাট, রক্তক্ষরণের ফসল আজকে তাদের ওয়েলফেয়ার সোসাইটি, জ্ঞানবিজ্ঞানে প্রভুত উন্নতি। কাজেই পাশ্চাত্যের কাছ থেকে আজ না নিয়ে আমাদের উপায় নেই, কিন্তু তারা সেধে আমাদের যা কিছু দিতে আসে, তা অর্থ সাহায্য হোক, বা ইডিওলজি - আমাদের সতর্ক চোখেই তা বিবেচনা করতে হবে।

(পুরো প্রবন্ধটি আমার নিজের মতো করে সাজানো। তবে তথ্যগুলো সব Islamophobia In Muslim Majority Societies by Enes bayrajkli, and Farid Hafez (eds.), Routledge Advances in Sociology বইটি থেকে গৃহীত।)



(ছবিসুত্রঃ view this link )
সর্বশেষ এডিট : ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ দুপুর ১২:৫২
৬টি মন্তব্য ৫টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

নতুন বই

লিখেছেন ফাহমিদা বারী, ২৪ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ৯:১১



আবার নতুন বইয়ের প্রচ্ছদ নিয়ে চলে এলাম।

করোনার অনিশ্চয়তা অনেক কিছুই বদলে দিয়েছে জীবন থেকে। বইমেলাকে উপলক্ষ করে বই প্রকাশ করতে হবে, এই ধারণাও গত দেড় বছরে বেমালুম গায়েব। এখন... ...বাকিটুকু পড়ুন

বাটার বন

লিখেছেন শাহ আজিজ, ২৪ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১০:২৮





সম্ভবত ৭৮ সালে বেকারিতে বাটার বন পেয়ে ১২ আনা দিয়ে কিনে খেয়ে দেখলাম অসাধারন । স্কুল , কলেজ , ভার্সিটি গুলোতে এই সাশ্রয়ী খাবার পেয়ে সবাই খুশী ।... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্রিয় কন্যা আমার- ২০

লিখেছেন রাজীব নুর, ২৪ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:৩৮



প্রিয় কন্যা আমার-
আজ তোমাকে তোমার জন্মের আগের কথা গুলো বলব। সে সবও তোমার জানা দরকার। হঠাত একদিন সুরভি আমাকে তোমার কথা বলল। শুনে আমি খুবই খুশি... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমার সাইকেলরা এবং তাদের নিয়ে গল্প

লিখেছেন অপু তানভীর, ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ দুপুর ১২:০৭



সাইকেল জিনিসটা আমার বরাবরই পছন্দের । ছোটবেলা থেকেই এই সাইকেল ব্যাপারটা পছন্দ । এখনও পর্যন্ত আমার এই পছন্দের ব্যাপারটা রয়েছে । যখন খুব একা লাগে কিংবা মন... ...বাকিটুকু পড়ুন

দেখা-দেখি

লিখেছেন মরুভূমির জলদস্যু, ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ দুপুর ১২:১৪

একটি লেখা তৈরি করার জন্য দর্শন শব্দটির সঠিক বাবানটা জানা দরকার ছিলো।



এক দর্শন হচ্ছে ইংরেজিতে ফিলোসফি, আমার এই দর্শনের দকার ছিলো না, আমি চাইছিলাম দেখা শব্দের প্রতি শব্দ দর্শন... ...বাকিটুকু পড়ুন

×