somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

ল্যাতিন অ্যামেরিকার বিখ্যাততম কবি পাবলো নেরুদার ১১৮ তম জন্মদিনে, তার দুটো অনুবাদ কবিতা

১২ ই জুলাই, ২০২২ রাত ১১:০০
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



(আজ কবি পাবলো নেরুদার ১১৮তম জন্মদিন। তার স্মরণে ওনার দুটো কবিতা, আমার অনুবাদে। পেঙ্গুইন ক্লাসিকসের করা ইংরেজি অনুবাদ হতে বাংলা অনুবাদ। কবিতাদুটো ২০১৪ সালে অনুবাদ করা।)
.
কবিতা ১ঃ
নক্ষত্র পতনের রাত ( To Night I can write/puedo escribir los versos...)
.
আজরাতে, আমি লিখতে পারি তুমুল বেদনাবিধুর পংতিমালা।
.
লিখতে পারি, যেমন ধরো, ‘বিস্ফোরিত রাত্রি যখন চূর্ণবিচূর্ণ হয়ে ছিটকে ছড়িয়ে পড়লো,
নীলাভ তারাগুলো তখন দূরে দাঁড়িয়ে কাঁপছিল তিরতির করে’।
.
নিশুতি রাতের বাতাস আকাশ ঘিরে পাক খায় আর গান গায়।
.
আজ রাতে, আমি লিখতে পারি নীল নীল দুঃখের পংতিমালা।
তাকে ভালবাসতাম আমি, সেও বাসত ভালো, আমায়, হয়তোবা, কখনো।
.
গহীন রাতের মত আমি আঁকড়ে ধরতাম তার পেলব কোমল হাত
প্রশস্ত আকাশকে সাক্ষী রেখে চুমোয় চুমোয় ভরিয়ে দিতাম তার মুখ।
.
সে ভালবাসত আমায়, আমিও বাসতাম ভালো, তাকে, হয়তোবা, কখনো
সৃষ্টির আদিকাল থেকে, কেউ কি তার সমুদ্রের মত গভীর দৃষ্টিকে উপেক্ষা করতে পেরেছে?
.
আজ রাতে, আমি লিখতে পারি হৃদয় নিংড়ানো কষ্টের পংতিমালা।
এই ভেবে, যে সে আর আমার পাশে নেই। এই ভেবে, যে আমি তাকে হারিয়েছি।
.
নিস্তব্ধ রাতের প্রগাঢ় হুংকার, তার অনুপস্থিতিতে, বুকে চেপে বসেছে পাথরের মত।
হৃদয়ে শিশিরের মত টুপ টুপ করে ঝরে পড়ছে এক একটি দুঃখস্নাত শব্দ।
.
আমার প্রেমে সে শক্তি ছিল না যে তাকে ধরে রাখে
চোখের সামনে ভেঙ্গে চুরমার হয়ে যাচ্ছে এই রাত, অথচ সে আমার পাশে নেই।
.
এইতো, দূরে কেউ গান গাইছে, দূরে, বহুদূরে।
আর আমার আত্মা ধুঁকে মরছে, কারণ সে আমার পাশে নেই।
.
আমার দৃষ্টি তাকে উন্মত্তের মত খোঁজে দশদিকে,
অথচ আমার হৃদয় বেদনার রঙ্গে নীল, কারণ সে আমার পাশে নেই।
.
সেই রাতগুলির মত আজকের এ রাতও আকাশ নক্ষত্র ভরা
কিন্তু, আমরা, আগের মত নেই আর।
.
এখন আর তাকে ভালোবাসিনা, নিশ্চিত আমি, কিন্তু কি তীব্রভাবেই না ভালবাসতাম তাকে!
আমার কান্নাজড়িত কণ্ঠ, দখনে বাতাসে ভেসে যদি তার কাছে পৌঁছুতো!
.
আরেকজনার। সে এখন আরেকজনার। উষ্ণ চুম্বনের রাত্রিগুলোর মতই সে অতীত এখন-
তার কিন্নরী কণ্ঠ, সোনারঙ্গা শরীর, তার অতল গভীর দু’চোখ।
.
আমি তাকে বাসি না আর ভালো- নিশ্চিত জানি, নাকি বাসি এখনও?
ভালোবাসা যদি ক্ষণকালের হয়, ভুলে যাওয়াটা এত দীর্ঘ কেন?
.
কারণ, এই রাতের মতই আমি জড়িয়ে ছিলাম তার হাত
তাকে হারিয়ে, আমার আত্মা আজ মৃতপ্রায়।
.
যদিও এটাই শেষ যন্ত্রণা, যা সে আমায় দিয়ে যাচ্ছে,
এবং এই শেষ পংতি, যা আমি তাকে নিয়ে রচে চলেছি।
.
কবিতা ২ঃ
স্মৃতির খাতা অথবা কবিতার পাতা (Memories)
.

সবকিছু টুকে রাখি মাথার খাতায়,
ঘাসের ডগায় আলোর নাচন, দরকারি-বেদরকারি ঘটন–অঘটন,
রাস্তার দু’পাশ, বাড়িঘর – যেখানে যেমন,
লাফ দিয়ে টানটান শুয়ে পড়া সর্পিল রেলপথ থেকে নিয়ে
কষ্টের কারুকার্যমণ্ডিত মুখ,
বেদনার বেদনভরা মুখোশ –
সবকিছু!
.
যদি বাদ পড়ে একটি লাল গোলাপের ঝাড়, কবিতায়,
যদি নিশির মতন নিকষ কিছুকে কাব্যিকতায়-
গুলিয়ে ফেলি, বলি খরগোসের মতন সাদা!
যদি বর্ণনের সময় বাদ পড়ে যায় একটি দেয়ালও,
কেঁচে গণ্ডূষে শুরু করি সবকিছু পুনরায়-
জলকণা, সোঁদা গন্ধওয়ালা মাটি, মাটির বুকে ঘাস, পাতা,
রমণী, কেশ, অথবা একেকটি ইট- দেয়ালের বুকে গাঁথা,
অথবা আমায় বিদ্ধ করেছিল যে ফুলের কাঁটা,
অথবা খুব গতিময় কিছু!
.
সৌখিন লেবাস চাপিয়ে
ধান খেয়ে গান গেয়ে পৃথিবীতে চড়ে ফেরা দু’ঠেঙে প্রাণীসকল-
সদয় হও কবির প্রতি!
(কেননা কবির কবিতা তোমার গল্পও বলে)
.
এই মনে রাখা-রাখির ব্যাপারে কি অপটুই না ছিলাম আমি!
দিনরাত্রি ছেনেছুনে দিনমান,
হাতে থাকতো কেবল ধোঁয়াশার তেলেভাজা নুড়িপাথর।
অথবা একদমই অপ্রয়োজনীয় কিছু খণ্ডচিত্র।
যেমন ধরো-
কুয়াশায় আচ্ছন্ন কিছু সুঘ্রাণ,
অথবা সুঘ্রাণ মাখা কুয়াশা!
কিংবা কোন মানবীর দেহ,
যার পেলব ত্বক আমার অধরস্পর্শে
কেঁপে কেঁপে উঠেছিল ঘুমকুমারীর মত-
এসব!
.
কখন? কোথায়? কিভাবে?
দিনক্ষণের ঠিকুজী কুলুজী জানতে চেয়ে বিব্রত কোরোনাকো বাপু!
হয়তো এমন কোন পথের কথা বলবো- যার কোন পথিক নেই,
হয়তো বলবো এমন কোন দেশের কথা- যাতে কেউ বাস করেনি কখনো,
হয়তো এমন কিছু সত্য বলবো- যা তোমাদের অভিধানে অসত্য নয়, বরং মিথ্যা!
তোমাদের ঠিকবেঠিকের বেরসিক দাঁড়িপাল্লার প্রেষণে
আমার কবিতার খাতায় ভোরের ছবি আঁকার সুযোগ হয় নি কোনদিন।
এখানে কেবল রাতের রাজত্ব,
যেখানে আমার স্বপ্নেরা
জোনাকের মত ওড়ে,
আর আঁধারের বুকে আলো দেয়!

ছবিসুত্রঃ [link|https://l.facebook.com/l.php?u=https://mymodernmet.com/george-digalakis-surreal-nature-photography/?fbclid=IwAR08LDk8PC0CE6F0KW1anGo2tVK6UuOliGHTYeFXJ1wGPZbaoK1lcWADG3c&h=AT00gerBFUVV9YfbQfY-gmVUtb1OXooCmhksL9YOQ9jvfN4uMZrDYgwnjKMF-kssC9YxIcV0g0UB6hW1_5i-oXzf4DZK8rAB__suCjAawRl-PtHPGnOf-_cIo6BBGtw2SBY&__tn__=R]-R&c[0]=AT3V985hc8Kfcy9Q_hswZQ6sgbZ8sgadjN6jjbg6x7AUNEzQGHM696KWqIciqRQ45ukpcGmTzSwWvX9hsRpyEaAhZ0RBygxgBMRDB2Pr0et4HKRdtbt1DXCIK9CsZ4jdHjZDq4F8rKsPXflV1nryBdNsCp0jjofIOGk8C4h-bhlUp-CWU58|view this link]
সর্বশেষ এডিট : ১২ ই জুলাই, ২০২২ রাত ১১:০০
১টি মন্তব্য ১টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

কষ্ট থেকে আত্মরক্ষা করতে চাই

লিখেছেন মহাজাগতিক চিন্তা, ২৩ শে এপ্রিল, ২০২৪ দুপুর ১২:৩৯



দেহটা মনের সাথে দৌড়ে পারে না
মন উড়ে চলে যায় বহু দূর স্থানে
ক্লান্ত দেহ পড়ে থাকে বিশ্রামে
একরাশ হতাশায় মন দেহে ফিরে।

সময়ের চাকা ঘুরতে থাকে অবিরত
কি অর্জন হলো হিসাব... ...বাকিটুকু পড়ুন

রম্য : মদ্যপান !

লিখেছেন গেছো দাদা, ২৩ শে এপ্রিল, ২০২৪ দুপুর ১২:৫৩

প্রখ্যাত শায়র মীর্জা গালিব একদিন তাঁর বোতল নিয়ে মসজিদে বসে মদ্যপান করছিলেন। বেশ মৌতাতে রয়েছেন তিনি। এদিকে মুসল্লিদের নজরে পড়েছে এই ঘটনা। তখন মুসল্লীরা রে রে করে এসে তাকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

মেঘ ভাসে - বৃষ্টি নামে

লিখেছেন লাইলী আরজুমান খানম লায়লা, ২৩ শে এপ্রিল, ২০২৪ বিকাল ৪:৩১

সেই ছোট বেলার কথা। চৈত্রের দাবানলে আমাদের বিরাট পুকুর প্রায় শুকিয়ে যায় যায় অবস্থা। আশেপাশের জমিজমা শুকিয়ে ফেটে চৌচির। গরমে আমাদের শীতল কুয়া হঠাৎই অশীতল হয়ে উঠলো। আম, জাম, কাঁঠাল,... ...বাকিটুকু পড়ুন

= নিরস জীবনের প্রতিচ্ছবি=

লিখেছেন কাজী ফাতেমা ছবি, ২৩ শে এপ্রিল, ২০২৪ বিকাল ৪:৪১



এখন সময় নেই আর ভালোবাসার
ব্যস্ততার ঘাড়ে পা ঝুলিয়ে নিথর বসেছি,
চাইলেও ফেরত আসা যাবে না এখানে
সময় অল্প, গুছাতে হবে জমে যাওয়া কাজ।

বাতাসে সময় কুঁড়িয়েছি মুঠো ভরে
অবসরের বুকে শুয়ে বসে... ...বাকিটুকু পড়ুন

Instrumentation & Control (INC) সাবজেক্ট বাংলাদেশে নেই

লিখেছেন মায়াস্পর্শ, ২৩ শে এপ্রিল, ২০২৪ বিকাল ৪:৫৫




শিক্ষা ব্যবস্থার মান যে বাংলাদেশে এক্কেবারেই খারাপ তা বলার কোনো সুযোগ নেই। সারাদিন শিক্ষার মান নিয়ে চেঁচামেচি করলেও বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরাই বিশ্বের অনেক উন্নত দেশে সার্ভিস দিয়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

×