somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

রিজাইনা বিশ্ববিদ্যালয়ে (@University Of Regina) কিছুক্ষণঃ কানাডা জার্নাল-৮

২৩ শে জুলাই, ২০২৩ রাত ১০:০১
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


১৭ জুলাই ২০২৩, বিকেল ১৮-৪৪

গত সোমাবার, ১৭ জুলাই ২০২৩ তারিখ বিকেলে রিজাইনা বিশ্ববিদ্যালয়ে কিছুক্ষণ সুন্দর সময় কাটিয়ে এলাম। এ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আমার বড় বৌমা পাবলিক পলিসির উপর তার দ্বিতীয় মাস্টার'স ডিগ্রী অর্জন করেছেন করোনার আগের ও পরের বছরগুলো জুড়ে। করোনার কারণে তাকে রোগ প্রতিরোধক ব্যবস্থাদি সামলে অধ্যয়ন এবং সেই সাথে পরিবার লালন করতে বেশ বেগ পেতে হয়েছিল। বৌমার অধ্যয়নের কারণে রিজাইনা বিশ্ববিদ্যালয়টি ঘুরে দেখার প্রতি আমার বিশেষ আগ্রহ নিবদ্ধ ছিল। কিন্তু অপরাহ্নে গিয়েছিলাম বলে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক এবং প্রশাসনিক ভবন সমূহের অভ্যন্তরে প্রবেশ করিনি, তবে তার চারপাশের ফেসিলিটিজ, পরিবেশ ও প্রাকৃতিক ভূমিবিন্যাসের কিছুটা ঘুরে ফিরে দেখেছি এবং মুগ্ধ হয়েছি।

রিজাইনা'র ৩৭৩৭, ওয়াসকানা পার্কওয়েতে অবস্থিত এ বিশ্ববিদ্যালয়টি বিরাট এলাকা জুড়ে, ৯৩০ একর ভূমির উপর স্থাপিত। ২০২২ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী ফুলটাইম ও পার্টটাইম মিলে ১৫৬৩৯ জন শিক্ষার্থী এখানে অধ্যয়ন করে। এটি একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়। ১৯১১ সালে এটি রিজাইনা কলেজ নামে স্থাপিত হয়েছিল। পরবর্তীতে 'সাইজ এ্যান্ড সিগনিফিকেন্স' এর পরিসর বৃদ্ধি পায় এবং ১৯৭৪ সালে এটা 'রিজাইনা বিশ্ববিদ্যালয়' নাম পরিগ্রহ করে একটি স্বাধীনভাবে ডিগ্রী প্রদানকারী বিশ্ববিদ্যালয়ে উন্নীত হয়। বর্তমানে এখানে ১০টি ফ্যাকাল্টি, ২৫টি একাডেমিক ডিপার্টমেন্ট ও স্কুল, ১৮টি রিসার্চ সেন্টার ও ইন্সটিটিউট এবং তিনটি ফেডারেটেড কলেজ রয়েছে, যথাঃ Campion College, First Nations University of Canada এবং Luther College। অত্যন্ত সুখ্যাতির সাথে বিশ্ববিদ্যালয়টি ব্যাচেলর্স, মাস্টার্স এবং ডক্টোরাল প্রোগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছে।

মেলবোর্নে যেমনটি দেখেছিলাম, রিজাইনার পার্কগুলোতেও তেমনটি দেখছি, কিছুদূর পর পর ক্লান্ত পথচারীদের বসে দু'দণ্ড বিশ্রাম নেয়ার জন্য কিছু দয়ালু ও দানশীল ব্যক্তি একটি বা একজোড়া (জায়গা অনুযায়ী) বেঞ্চ গড়ে দেন। শক্ত কাঠের সরু সরু তক্তা দিয়ে যুৎসইভাবে গড়া এসব বেঞ্চ তারা তাদের কোন ভালবাসার ব্যক্তির নামে উৎসর্গ করে থাকেন। রিজাইনা বিশ্ববিদ্যালয়ে আসার আগে আমরা সেদিন ভিক্টোরিয়া পার্কেও অনেকক্ষণ ধরে হাঁটাহাটি করেছিলাম, ফলে বাচ্চারা বাদে সবাই স্বভাবতঃ ক্লান্ত ছিলাম। বাচ্চারা (নাতনিরা) তখনও সোৎসাহে এদিক সেদিক ছুটোছুটি করে চলছিল। বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশ ঘেঁষে বহু শাখাবিশিষ্ট ওয়াসকানা লেকের একটি শাখা প্রবাহিত হয়েছে। কিন্তু মূল ওয়াসকানা লেকের জল যেমন টলমলে পরিষ্কার, এ শাখাটির জল তেমন নয়। কোথা থেকে যেন গাছের ছোট ছোট পাতা পড়ে জলের উপরাংশ ভরে দিয়ে যায়। পাতাগুলোর রঙ সবুজ নয়, কেমন যেন ধূসর প্রকৃতির। ফলে পুরো লেকটি পাতা দিয়ে ভরা থাকলে লেকের জল দেখা যায় না। তখন এটাকে একটি ধূসর সমতলভূমি বলে ভ্রম হতে পারে। যাহোক, হাঁটতে হাঁটতে তেমন একটি উৎসর্গিত বেঞ্চ দেখতে পেয়ে আমরা চারজন কিছুটা ক্লান্তি অবসানের লক্ষ্যে সেখানে বসে পড়লাম।

আমরা যে বেঞ্চটিতে বসেছিলাম, সেটা ক্রিস্টিন মন্টগোমারি (Christine Montgomery) নামের এক মহিয়সী মহিলার নামে তার কৃতজ্ঞ পরিবারের সদস্যগণ কর্তৃক একটি স্মারক হিসেবে নির্মিত এবং তার স্মৃতির প্রতি উৎসর্গকৃত। বেঞ্চের গায়ে একটি ছোট্ট কালো প্লেট সেঁটে সেখানে লেখা আছেঃ Christine Montgomery (Mum/ granny) 1953 to 2019. Mum was dearly loved by her family and her sisters. She had an infectious laugh and fits of giggles. A lover of nature mum loved this view. (কোন যতিচিহ্ন ছিল না, চিহ্নগুলো আমি বসিয়েছি)।
অর্থাৎ "ক্রিস্টিন মন্টগোমারি (মাতা/ মাতামহী) ১৯৫৩ থেকে ২০১৯। মা এর অনুপস্থিতি তার পরিবারের সদস্যরা এবং তার বোনেরা অত্যন্ত হৃদয়াবেগ দিয়ে অনুভব করে। তার হাসি ছিল সংক্রামক এবং তিনি কথায় কথায় হেসে ফেলতেন। প্রকৃতিপ্রেমিক মা এই জায়গাটিতে বসে লেকের দৃশ্যটি দেখতে ভালোবাসতেন" (ভাবানুবাদ)।
উৎসর্গবাণীটি পড়ে কল্পনায় যেন হাস্যম্যয়ী প্রকৃতিপ্রেমিকা ক্রিস্টিন মন্টগোমারিকে দেখতে পেলাম। উনি আমারই সমবয়সী ছিলেন, চার বছর আগে গতায়ু হয়েছেন। তার পারলৌকিক শান্তি ও কল্যাণ কামনা করছি।

সব মানুষের মনেই স্নেহ-ভালোবাসা, শ্রদ্ধা-সমীহের কিছু না কিছু অনুভূতি সুপ্তাবাস্থায় নিহিত থাকে। কিন্তু সবাই সেটা স্পষ্ট করে প্রকাশ করতে পারে না। মাত্র অল্প কয়েকটি কথায় ক্রিস্টিন মন্টগোমারি'র পরিবারের সদস্যরা কত সুন্দর করেই না তার প্রতি তাদের শ্রদ্ধা-ভালোবাসার নিবিড় অনুভূতিটুকু প্রকাশ করে গিয়েছেন, যা ক্ষণিকের তরে হলেও আমাকে স্পর্শ করেছে, অভিভূত করেছে, ভাবমগ্ন করেছে। নিশ্চয়ই আমার মত আরও অনেক পথচারীকেও কথাগুলো অতীতেও ভাবিয়েছে, ভবিষ্যতেও ভাবাবে। এখানেই জীবনের সার্থকতা; নিকটজন, আত্মীয় পরিজন এবং সাধারণ মানুষের মনে দৈনন্দিন আচরণের মাধ্যমে শ্রদ্ধার আসন গড়ে নিতে পারা। কাছাকাছি আরেকটা জায়গায় দেখলাম, একটা সাদা শিলাখণ্ডের উপর কালো প্লেট সেঁটে সেখানে "যাও, পাথরে গিয়ে বসো" শিরোনামে কিছু কথা লেখা আছে, যার ভাবার্থ নিম্নরূপঃ
"ডক্টর গার্থ পিকার্ডের স্মরণে-যাও, পাথরে গিয়ে বসো! রিজাইনা বিশ্ববিদ্যালয়ে গার্থ ৩৩ বছর কর্মরত ছিলেন, সেখানে তিনি শারীরিক শিক্ষা, বহিরাঙ্গণ পরিবেশ শিক্ষা এবং নেতৃত্বের উপর শিক্ষাদান করেছেন। পরিবেশের ধারণ ও লালন এবং বহিরাঙ্গণ সংরক্ষণ ছিল তার শিক্ষার মূল দর্শন। গার্থ 'সকলের প্রতি কৃতজ্ঞানুভূতি প্রসূত বিনয় প্রকাশ' - এই মনোভাবের পৃষ্ঠপোষক ও প্রবর্তক ছিলেন। তিনি বিশ্বাস করতেন, প্রত্যেকেরই উচিত, প্রকৃতি ও পরিবেশের সাথে তাদের নিজেদেরকে পুনসংযোগ করা এবং একটি অর্থবহ জীবন যাপন করার লক্ষ্যে 'পাথরে গিয়ে বসা'।"

সেখান থেকে উঠে আমরা একই ক্যাম্পাসে অবস্থিত First Nations University of Canada এর প্রাঙ্গণে উপস্থিত হ'লাম। এখানে অধ্যয়নের জন্য আদিবাসিরা প্রাধিকার পায় এবং অন্যান্য বিষয়াবলীর সাথে সাথে তাদের ইতিহাস, কৃষ্টি ও সংস্কৃতির বিষয়সমূহ সবিস্তারে পড়ানো হয়। সেখানকার ভবনগুলোর চমৎকার স্থাপত্য এবং দীর্ঘ বিস্তৃত উন্মুক্ত লন এবং অত্যন্ত মনোমুগ্ধকর পরিবেশ আমার ভালো লেগেছে। সেখানে কিছুক্ষণ হাঁটাহাটি করে ফেরার পথে 'ক্যান্ডি কেন' এর হিলসাইডে কিছু ছবি তুললাম। আমাদের ভাগ্নি তানিয়া, ভাগ্নি-জামাই সবুজ এবং তাদের দু'টি মেয়ে আমাদের সাথে সার্বক্ষণিকভাবে থেকে আমাদেরকে নিয়ে ঘুরে বেড়িয়েছে। সবার প্রাণবন্ত সাহচর্য খুব ভালো লেগেছে। হঠাৎ করেই সকালে তানিয়া আর ওর খালা মিলে আজকের দিনের এ কর্মসূচীটি নির্ধারণ করে। বাসা থেকে পাবলিক ট্রান্সপোর্টে শহরের কিয়দংশ ঘুরে বেড়িয়েছি। তানিয়ার কারণেই ঘুরে বেড়ানোর এ আকস্মিক কর্মসূচীটি সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করা সম্ভব হয়। পরে সবুজ আর আদনান গাড়ি নিয়ে আমাদের সাথে যোগ দেয়। আর্শী আর আয়রা, তানিয়ার এই দুই মেয়েরই খুব ইচ্ছে আমরা তাদের স্কুলটা একটু ঘুরে দেখি। তাই ফেরার আগে আমরা সেখানেও গেলাম, যদিও স্কুলে এখন দীর্ঘ বার্ষিক ছুটি চলছে। ওদের স্কুলটাও খুব সুন্দর, নিরিবিলি ও ছিমছাম পরিবেশে অবস্থিত। স্কুলটা আমার ভালো লেগেছে। সেখান থেকে তানিয়া আর সবুজ আমাদেরকে ওদের বাসায় নিয়ে উপস্থিত ডালে-চালে খিচুড়ি রেঁধে ডিনার করায়। দিনশেষে গরম গরম খিচুড়ি খেয়ে একটি সুন্দর, আনন্দঘন দিনের স্মৃতি নিয়ে আমরা বাড়ি ফিরে এলাম।



রিজাইনা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফিরে
১৭ জুলাই ২০২৩
শব্দ সংখ্যাঃ ৯১২


ওয়াসকানা লেকের পাশ ধরে সরু ওয়াকওয়ে, পড়াশুনার ফাঁকে ফাঁকে প্রকৃতির সাথে মানবমনের মেলবন্ধনের সুযোগ করে দেয়।
১৭ জুলাই ২০২৩, বিকেল ১৭-২৮


পাতাভরা লেকটিকে একটি ধূসর সমতলভূমি বলে ভ্রম হতে পারে।
১৭ জুলাই ২০২৩, বিকেল ১৭-৩১


Joseph Farard এর ভাস্কর্য- Mind's Garden
১৭ জুলাই ২০২৩


ক্রিস্টিন মন্টগোমারি (Christine Montgomery) এর নামে উৎসর্গকৃত বেঞ্চ
১৭ জুলাই ২০২৩, বিকেল ১৭-৪৩


ক্রিস্টিন মন্টগোমারি (Christine Montgomery) এর নামে উৎসর্গকৃত বেঞ্চ
১৭ জুলাই ২০২৩, বিকেল ১৭-৪৩


"যাও, পাথরে গিয়ে বসো" - ডক্টর গার্থ পিকার্ডের স্মরণে স্মারক শিলাখণ্ড
১৭ জুলাই ২০২৩, বিকেল ১৮-০৭


ক্রিস্টিন মন্টগোমারি (Christine Montgomery) তার নামে উৎসর্গকৃত বেঞ্চটিতে বসে যে দৃশ্যটি দেখতে ভালোবাসতেন....
১৭ জুলাই ২০২৩, বিকেল ১৮-১৩


সবুজ ঘাসে থাকা বিস্তীর্ণ প্রান্তর, মনকে উদার হতে সাহায্য করে।
১৭ জুলাই ২০২৩, বিকেল ১৮-২৯


সবুজ ঘাসে থাকা বিস্তীর্ণ প্রান্তর, মনকে উদার হতে সাহায্য করে।
১৭ জুলাই ২০২৩, বিকেল ১৮-৩০


ফার্স্ট নেশন্স ইউনিভার্সিটি অফ কানাডার প্রাঙ্গণে আদিবাসীদের প্রতীকি আবাস। পশুর চামড়া দিয়ে তৈরি এই বহনযোগ্য কোণাকৃতির আবাসগুলিকে 'টিপি' (Tipi) বলা হয়।
১৭ জুলাই ২০২৩, বিকেল ১৮-৩১


ফার্স্ট নেশনস ইউনিভার্সিটি অভ কানাডা ভবন
১৭ জুলাই ২০২৩, বিকেল ১৮-৩৬


মেরিয়ন ম্যাগভিটি স্কুল প্রাঙ্গণ
১৭ জুলাই ২০২৩, বিকেল ১৯-২২


মেরিয়ন ম্যাগভিটি স্কুল
১৭ জুলাই ২০২৩, বিকেল ১৯-২২


মেরিয়ন ম্যাগভিটি স্কুল
১৭ জুলাই ২০২৩, বিকেল ১৯-২৩


মেরিয়ন ম্যাগভিটি স্কুল প্রাঙ্গণে দাঁড়িয়ে সুন্দর আকাশটার ছবি তুললাম।
১৭ জুলাই ২০২৩, বিকেল ১৯-২৭


মাত্র ১২ বৎসর বয়সে প্রয়াত মেরিয়ন ম্যাগভিটি স্কুল এর ছাত্র ইথান জন্য ওয়েন্ডেলের পারলৌকিক শান্তি ও কল্যাণ কামনা করছি।
১৭ জুলাই ২০২৩, বিকেল ১৯-৩৫
সর্বশেষ এডিট : ২৫ শে জুলাই, ২০২৩ ভোর ৪:০৭
৬টি মন্তব্য ৬টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

আবারও রাফসান দা ছোট ভাই প্রসঙ্গ।

লিখেছেন মঞ্জুর চৌধুরী, ১৮ ই মে, ২০২৪ ভোর ৬:২৬

আবারও রাফসান দা ছোট ভাই প্রসঙ্গ।
প্রথমত বলে দেই, না আমি তার ভক্ত, না ফলোয়ার, না মুরিদ, না হেটার। দেশি ফুড রিভিউয়ারদের ঘোড়ার আন্ডা রিভিউ দেখতে ভাল লাগেনা। তারপরে যখন... ...বাকিটুকু পড়ুন

মসজিদ না কী মার্কেট!

লিখেছেন সায়েমুজজ্জামান, ১৮ ই মে, ২০২৪ সকাল ১০:৩৯

চলুন প্রথমেই মেশকাত শরীফের একটা হাদীস শুনি৷

আবু উমামাহ্ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, ইহুদীদের একজন বুদ্ধিজীবী রাসুল দ. -কে জিজ্ঞেস করলেন, কোন জায়গা সবচেয়ে উত্তম? রাসুল দ. নীরব রইলেন। বললেন,... ...বাকিটুকু পড়ুন

আকুতি

লিখেছেন অধীতি, ১৮ ই মে, ২০২৪ বিকাল ৪:৩০

দেবোলীনা!
হাত রাখো হাতে।
আঙ্গুলে আঙ্গুল ছুঁয়ে বিষাদ নেমে আসুক।
ঝড়াপাতার গন্ধে বসন্ত পাখি ডেকে উঠুক।
বিকেলের কমলা রঙের রোদ তুলে নাও আঁচল জুড়ে।
সন্ধেবেলা শুকতারার সাথে কথা বলো,
অকৃত্রিম আলোয় মেশাও দেহ,
উষ্ণতা ছড়াও কোমল শরীরে,
বহুদিন... ...বাকিটুকু পড়ুন

ক- এর নুডুলস

লিখেছেন করুণাধারা, ১৮ ই মে, ২০২৪ রাত ৮:৫২



অনেকেই জানেন, তবু ক এর গল্পটা দিয়ে শুরু করলাম, কারণ আমার আজকের পোস্ট পুরোটাই ক বিষয়ক।


একজন পরীক্ষক এসএসসি পরীক্ষার অংক খাতা দেখতে গিয়ে একটা মোটাসোটা খাতা পেলেন । খুলে দেখলেন,... ...বাকিটুকু পড়ুন

স্প্রিং মোল্লার কোরআন পাঠ : সূরা নং - ২ : আল-বাকারা : আয়াত নং - ১

লিখেছেন মরুভূমির জলদস্যু, ১৮ ই মে, ২০২৪ রাত ১০:১৬

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম
আল্লাহর নামের সাথে যিনি একমাত্র দাতা একমাত্র দয়ালু

২-১ : আলিফ-লাম-মীম


আল-বাকারা (গাভী) সূরাটি কোরআনের দ্বিতীয় এবং বৃহত্তম সূরা। সূরাটি শুরু হয়েছে আলিফ, লাম, মীম হরফ তিনটি দিয়ে।
... ...বাকিটুকু পড়ুন

×