somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

আমাদের বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীরা কেন বিজ্ঞানমনস্ক নন

২১ শে জুন, ২০২০ রাত ১০:০৬
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিদ্যার এক শিক্ষিকার সাথে কিছুটা ঘণিষ্ঠতা হল। আমরা একই বিষয়ে পড়েছি। একদিন হাঁটতে হাঁটতে তাকে এগিয়ে দিতে গিয়ে দেখলাম তিনি একটি কালি মন্দিরে যাবেন। কদিন পরে তিনি জানালেন, তিনি কালি সাধনা করেন। সাভারে তাদের প্রধান সাধনালয়। সেখানে আমাকে নিমন্ত্রণ করছেন। আমি অবাক হয়ে তাকে বলেছিলাম, পদার্থবিজ্ঞানের শিক্ষক হয়ে কালি সাধনা কি যায়! তিনি আরো অবাক হয়ে বলেছিলেন, কালিও শক্তি, পদার্থও শক্তি তাহলে দুটো এক হল না! তাঁর আরেক সহকর্মী তাবলীগ জামাত করেন। অনেকেই পদার্থবিদ্যার অধ্যাপক আল্লামা ড. এম. শমসের আলীর কথাও বলেন। জনাব আলী কোয়ান্টাম মেথড নিয়েও কাজ করেন। পদার্থবিদ্যার কোয়ান্টাম মেকানিক্স থেকে ধার করে কোয়ান্টাম শব্দটি ব্যবহার করছেন তারা। পদার্থবিদ্যার শিক্ষক আল্লামা শমসের আলীরা যখন কোয়ান্টাম মেথড নিয়ে কাজ করেন তখন মানুষ বিভ্রান্ত হয়ে ভেবে নেয়, কোয়ান্টাম মেথডও হয়তো পদার্থবিদ্যারই অংশ। আসলে কোয়ান্টাম মেথড একটি অবৈজ্ঞানিক আধ্যাত্মিক ধ্যান চর্চা ছাড়া কিছুই নয়। এর সাথে পদার্থবিদ্যার কোন সম্পর্কই নেই। কেন বাংলাদেশের অনেক পদার্থবিদ্যার শিক্ষকই তাদের বিষয় ছেড়ে জড়িয়ে যাচ্ছে বিজ্ঞানের সাথে সম্পর্কহীন বিষয়ের সাথে। কিভাবে ও কেন তাদের এমন মতাদর্শ গঠিত হল?


কেন একজন রসায়নের অধ্যাপক বলেন, পানি পড়াতেও রাসায়নিক বিক্রিয়া তৈরি হয়ে রোগমুক্তি দিতে পারে। একজন প্রাণিবিজ্ঞানের শিক্ষক (নটরজেম কলেজের মিজান স্যার) বিবর্তনবাদ পড়াতে এসে বলেন, বিবর্তনবাদ সত্যি হলে পৃথিবীতে কোন বানর থাকতো না। বানর আছে দেখেই প্রমাণ হয় বিবর্তনবাদ ভুল।’পদার্থবিদ্যা পড়তে এসেছিলেন আমার হুজুর টাইপের দুই সহপাঠী। দুটি ছেলেরই এসএসসি ও এইচএসসিতে প্রথম বিভাগ। পদার্থবিদ্যার সাথে ওরা এডজাস্ট করতে পারলো না। সর্বদা অমনযোগী থাকায় ও পড়া না বুঝতে পারায় আমাদের এক শিক্ষক ওদের জিজ্ঞাসা করলেন, তোমরা হুজুর হয়ে পদার্থবিদ্যা পড়তে আসলা কেন? টুটুল দাঁড়িয়ে বলল, স্যার আমরা পদার্থবিদ্যা বিশ্বাস করি না। ভুলে না বুঝে নিয়ে ফেলছি এখন মুখস্থ করি পাশ করার জন্যই। শেষ পর্যন্ত ওরা আর পাশ করতে পারেনি। টুটুল পরবর্তীতে পাস কোর্স থেকে বি.এ পাশ করে কোন মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করছে।


একটি আলিয়া মাদ্রাসায় খন্ডকালীন শিক্ষকতার সুযোগ পাই, অনার্স পরীক্ষার পরেই। মাদ্রাসাটিতে প্রথম শ্রেণি থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যন্ত পড়ানো হয়। শিক্ষকদের কক্ষে সবসময় গল্প গুজব এবং ওয়াজ অনুশীলনে সরগরম থাকে। ক্লাশগুলোও সরগরম থাকে ছাত্রদের হইচইয়ে। শিক্ষকরা ক্লাসে যেতেই চায় না। ছাত্রদের মান খুবই খারাপ। একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থীরাও ঠিকমতো বাংলা-ইংরেজি রিডিং পড়তে পারে না। সবচেয়ে অসুবিধায় পড়ি অস্টম শ্রেণীর গণিত খাতা দিতে গিয়ে। আমি যোগদানের আগেই পরীক্ষা শেষ হয়েছিল। সেই খাতা দেখার দায়িত্ব পড়েছিল আমার উপর। আগের দিন এক ছাত্র বলেছে, স্যার প্রথম সাময়িকী পরিক্ষায় স্যারে ৯৯ দিছে; আপনি কিন্তু কম দিতে পারবেন না। আকাশ থেকে পড়ি। সর্বোচ্চ পেয়েছে ২৭! (সম্ভবত ১৭) ছেলে বলে ৯৯ দিতে পারবো না, ১শ দিতে হবে। সিদ্ধান্ত নেই, সবাইকে বুঝাবো কেন এবং কোথায় তারা ভুল করেছে। সবাই অংক মুখস্ত করেছে। যে প্রশ্ন ঘুরিয়ে এসেছে সেগুলো ভুল করেছেই। প্রশ্নে এসেছে এক অংক উত্তর দিয়েছে অন্য অংক যা পরীক্ষায় আসেনি। তারা প্রশ্নের আজগুবি ও বিস্ময়কর উত্তর দিয়েছে। জ্যামিতির ক্ষেত্রেও তাই। দুএকজন বাদে সবাই খুব কম প্রশ্নের উত্তরই দিয়েছে, অধিকাংশই পেয়েছে ১০ এর নিচে। আগের শিক্ষক এদের ম্যানেজ করতো বেশি নম্বর দিয়ে, খুশি করে। ওরা ওদের ভুল বুঝতে পারে। সবাই খুশি হয়, ফেল করেও।


দুর্বল শিক্ষকরাই দুর্বল ছাত্র তৈরি করে। আমরা স্কুল জীবনে এটা টের পেয়েছি। টেনে পড়ার সময় আমাদের গণিতের এক শিক্ষক আমাকে ধরলেন, তুমিতো অংক বুঝ! আমাকে অংক শিখাও কদিন। তিনি রাত দশটার দিকে আসতেন। এভাবে মাস দুয়েক আমার এক শিক্ষককে অংক শেখালাম। আমাদের শিক্ষকদের অনেকেই ক্লাসে আসতেন অংক মুখস্ত করে। তাদের বুঝানোর সামর্থ্যও ছিল না, নিজেরাইতো বুঝে না। কেউ যদি বলতো, স্যার এইডা কেমনে অইল? সর্বনাশ! তারা রেগে যেতেন- যাতে বুঝাতে পারেন না; সেটা যেন ফাঁস না হয়ে যায়। দেশের সবচেয়ে মেধাবী শিক্ষার্থীদের কজন হাইস্কুলে শিক্ষকতা করেন? আমার এক বন্ধু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমকম করে আসলো স্কুলে শিক্ষকতা করবে। নিয়োগ পরীক্ষার পরে ঘোষণা দেয়া হল সে ৬ পেয়েছে আর মেট্রিক-ইন্টার-বিকমে তৃতীয় বিভাগ পাওয়া একজন পেয়ে গেল ৯৬ এবং তারই চাকরি হল। আমার স্ত্রীও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গণিতে এমএসসি করে ওই স্কুলে ঢুকতে পারেনি। তার পরিবর্তে ঢুকলে মাদ্রাসা থেকে বিএ পাশ করা একজন। এখানে দুটো বিষয় কাজ করতো- ১) কোন শিক্ষকই চাইতো না মেধাবী কেউ শিক্ষকতা করতে এসে তাদের অজ্ঞতার গোমর ফাঁস করে দিক, ২) কর্তৃপক্ষের নিয়োগ বাণিজ্যও থাকতো।


গত বছর একজন সচিবের সাথে কথা বললাম। তিনি দুঃখ করে বললেন, বৃত্তি দিবো তবে পৃথিবীর সেরা ১০০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনটিতে ভর্তি হতে হবে। দেখা গেল কেউ পারলো না। পরে করলাম সেরা ৩০০টিতে তাও কেউ পারলো না। এরপরে সেরা ৪০০টি করার পরে কজন পাওয়া গেল। মাঝে মধ্যে দুএকজন সেরা ১০০ বিশ্ববিদ্যালয়েও পড়ার সুযোগ পাচ্ছেন তবে কতজন সে প্রশ্নও উঠবে। ওয়ার্ল্ড র্যাংকিং এ ১০০০ টি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিরিয়াল করা হয়। সেখানে বাংলাদেশের কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম নেই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন আন্তর্জাতিক কোন ছাত্রও নেই। মেডিক্যাল কলেজগুলোতে অল্প কিছু শিক্ষার্থী রয়েছে সম্ভবত নেপাল, ভূটানের মতো দেশের। কেন এই দুরবস্থা?


ছাত্র পড়াতে গিয়ে- ধর্ম পড়ানোর সময় আদম হাওয়ার কথোপকথনের কথা বললাম। হাওয়া কিভাবে আদমকে প্ররোচিত করে কি বলছে। একটু পড়েই সমাজ পড়াতে গিয়ে বললাম, আদিম মানুষ কথা বলতে পারতো না। শিক্ষার্থী প্রশ্ন করলো, স্যার আপনি আগে পড়ালেন, আদম হাওয়ার কথা বললো, এখন বলছেন, আদিম মানুষ কথা বলতে পারতো না। তাহলে আদম-হাওয়া কি আদিম মানুষ নয়? বললাম, ধর্ম পড়ানোর সময় শুধু ধর্মের প্রশ্ন আর সমাজ পড়ানোর সময় শুধু সমাজের প্রশ্ন করতে হবে। বাস্তবিক কি ঘটেছিল? ওই ছাত্রের মধ্যে পড়াশোনাকে বিশ্বাসযোগ্য মনে হয়নি আর, হওয়ার কথা নয়। আমাদের শিক্ষার্থীরা কি বিশ্বাস করবে? একই বিষয়ে যখন বিজ্ঞান একরকম বলছে, বাংলা আরেক রকম বলছে, ধর্ম আরেক রকম বলছে তখন সে কোনটা মানবে? স্বাভাবিক সে ধর্মই মানবে। শিক্ষার্থীরা তাদের পরিবার, সমাজ, রাষ্ট্র, মিডিয়া থেকেও শিক্ষা গ্রহণ করে। সেখান থেকেই তাদের মধ্যে সামাজিক দর্শন তৈরি হয়। সেই দর্শনে বিজ্ঞানের কোন স্থান ছিল না। ফলে সে বিজ্ঞান পড়লেও বিজ্ঞানের দর্শনটা গ্রহণ করতে পারে না। তার গহীনে রয়ে যায় অলৌকিক বিশ্বাস। সেই বিশ্বাস থেকে বিজ্ঞানের শিক্ষকরাও বের হতে পারেন না, তাদের ছাত্ররাও পারেন না। ফলে বিজ্ঞানের ছাত্ররা হয়ে থাকে বিজ্ঞানবিমুখ, বিজ্ঞানমনস্কতাহীন।
সর্বশেষ এডিট : ২১ শে জুন, ২০২০ রাত ১০:০৬
৯টি মন্তব্য ৯টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

মাটির চুলা

লিখেছেন সোহানাজোহা, ০৫ ই জুলাই, ২০২০ বিকাল ৩:৩১


ছবি কথা বলে: আজ হাটবার আপনে দেড়ি না করে বাজারে যান গা, নাতি নাতনি ছেলে বউ শহরের বাসায় নদীর মাছ খায় কিনা আল্লাহ মাবুদ জানে! (মাটিরে চুলাতে দাদীজান পিঠা ভাজছেন,... ...বাকিটুকু পড়ুন

উত্তর মেরুতে নিশি রাতে সূর্য দর্শন - পর্ব ৪

লিখেছেন জোবাইর, ০৫ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০১

বিভিন্ন ঋতুতে ল্যাপল্যান্ড: শীত, বসন্ত, গ্রীষ্ম ও শরৎ

রেন্ট-এ-কার' কোম্পানীর সেই মেয়েটি কুশলাদি জিজ্ঞাসা করে আগে থেকেই পূরন করা একটা ফরমে আমার দস্তখত নিয়ে কিরুনা স্টেশনের পাশের পার্কিং এরিয়াতে নিয়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

নন্দের নন্দদুলাল : স্বপ্ন রথে

লিখেছেন বিদ্রোহী ভৃগু, ০৫ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০৬

স্বপ্নের অশ্বারোহী
দূরন্ত ইচ্ছেতে ঘুরে বেড়াই, নন্দ কাননে
তাম্রলিপি থেকে অহিছত্র
পুন্ড্রবর্ধন থেকে উজ্জয়িনী, স্বপ্ন সময়ের নন্দদুলাল।

আমাদের শেকড়
বাংলার আদি সাম্রাজ্যে যেন
পতপত ওড়ে পতাকা সবুজ-লাল,
মিলেনিয়াম নন্দ ডাইনাস্টির স্বপ্ন সারথীর স্বপ্নরথে

মানচিত্র: নন্দ... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্রিয় শিল্পীর কিছু গজল

লিখেছেন মিরোরডডল , ০৫ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৪০

যদিও জগজিৎ সিং আমার সবচেয়ে প্রিয়, পাশাপাশি অনুপের গজলও খুব শোনা হয় ।
প্রিয় শিল্পী অনুপ জলোটার সেরা পাঁচ । গভীর অনুভূতির কিছু গজল ।


Dil hi nahin to dil ke, saharon... ...বাকিটুকু পড়ুন

ট্রাম্প শুধুমাত্র বর্ণবাদকে কাজে লাগিয়ে জয়ী হতে চায়।

লিখেছেন চাঁদগাজী, ০৫ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১০:০৩



সভ্যতার এই যুগে, আমেরিকা হচ্ছে সবচেয়ে কম বর্ণবাদের দেশ; অষ্ট্রেলিয়া এই মহুর্তে সবচেয়ে বেশী বর্ণবাদের দেশ। আমেরিকার গত ভোটে বর্ণবাদীরা ট্রাম্পের পক্ষে ছিলো, ওরাই ট্রাম্পের হয়ে মানুষের... ...বাকিটুকু পড়ুন

×