somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

যে আগুন ছিলো ছাইয়ের নিচে ঢাকা

২০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৩৩
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



ছোটবেলা থেকে বড় হয়েছি বাংলাকে ভালবেসে। ধাপে ধাপে সে অনুভূতি এখন অনেকদূর গড়িয়ে গেছে, তীব্র হয়েছে। বিভক্ত হওয়াতে যারা ট্রমার শিকার হয়েছিলেন তাদের অনুভূতি পুরোপুরি অনুধাবন হয়তো করতে পারি না। কিন্তু বুকের বাম পাশে হাত দিলে ধক্ করে উঠে বলে, "না... না... ওটা তো শুধু মাঝখানে একটা বর্ডার। একটা বর্ডার কি আমাদের বিভক্ত করে দিবে! আলাদা করে দিবে!"
মানুষ কি তবে মূর্খ নয়! কোন জায়গা বগল বন্দি যে করতে পারবে সেটা তার হয়ে যাবে। আবার সেখান থেকেই রাজা-বাদশা, জমিদার বা শাসক গোষ্ঠীর জন্ম নিয়েছে। বিভক্তির বিবর্তনের বলিদানে আমরা কি একে অন্যের থেকে হারিয়ে যাবো? না কি শেলীর Ozymandias কবিতার দুটো লাইন একবার স্মরণ করবো,

"My name is Ozymandias, King of Kings;
Look on my Works, ye Mighty, and despair!
Nothing beside remains. Round the decay
Of that colossal Wreck, boundless and bare
The lone and level sands stretch far away."

বিভক্ত হয়ে যাওয়া ঐ বাঙালীদের আর্তনাদ আমি দেখিনি। সংশয় এইও যে, বিভক্তে তাঁদের আর্তনাদ ছিলো তো! সংশয় এই যে, তবে কি তারাও কি চাইতো এই বিভক্তি?

হয়তো দিবে, নয়তো সাম্প্রদায়িকতা সেটা এনে দিবে। অথবা রাজনীতি! কিন্তু এমন তো আমরা চাইনি। আবার মনে হয় আমি কোথাও হয়তো ভুল ভেবেছিলাম। আমি মনে হয় একটু বেশি-ই আমার অনুভূতিকে প্রাধান্য দিয়েছি। কারণ আজ যখন আমরা একে অন্যের সাথে কথা বলি তখন ভিনদেশি মানুষ হয়ে যেনো কথা বলতে হয়। সময় এগিয়েছে, আর আমরা একে অপরের কাছ থেকে দূরে চলে গিয়েছি হয়তো জানতে নয়তো অজান্তে। পৃথিবীতে একমাত্র যে জাতি মাতৃভাষার জন্য জীবন দিয়েছিলো আজ কি আবার তারাই পুনরায় ধর্মযুদ্ধের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে!

বাস্কে বন্ধি পুরনো ইতিহাসে তবে কি কোনো ভেজাল ছিলো! কই আমি তো এভাবে দেখিনি, কিন্তু অন্যরা দেখছে তো। আমরা মনে হয় পিছিয়ে গেলাম, টুয়েন্টি ফার্স্ট সেঞ্চুরির বাঙালী অস্তিত্ববাদ নিয়ে লড়বে। কিন্তু সেই বাঙালীর রুপ নেই, এখন তো মনে হচ্ছে থাকাটাও জরুরী নয়।

সাহিত্যের ছাত্র হবার দারুন ইতিহাসে এলার্জি আছে। তবুও সকাল-সকাল গালমন্দ খাবার ইচ্ছে মনে হয় কারোরই থাকে না। তাই পড়া শুরু করলাম। একাধিক সূত্র থেকে ফ্যাক্ট চেকিং(fact-checking) এই অনুচ্ছেদটি কতটুকু কাজের হলো সেটা আমি জানিনা। তবে আমার চেষ্টার কোনো ক্রুটি ছিলো না। বেশ লম্বা অনুচ্ছেদ, ধৈর্য্য নিয়ে পড়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

"বাংলা" শব্দের উৎপত্তি হয়েছে সংস্কৃত শব্দ "বঙ্গ" থেকে। আর্যরা "বঙ্গ" বলে এই অঞ্চলকে অভিহিত করতো বলে ইতিহাস থেকে জানা যায়। তবে বঙ্গে বসবাসকারী মুসলমানরা এই "বঙ্গ" শব্দটির সঙ্গে ফার্সি "আল" প্রত্যয় যোগ করে। এতে নাম দাঁড়ায় "বাঙাল" বা "বাঙ্গালাহ্"।

"আল" বলতে জমির বিভক্তি বা নদীর ওপর বাঁধ দেয়াকে বোঝাতো।

ইতিহাসবিদ আবুল ফজলের উদ্ধৃতি দিয়ে সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বলেন, "মুসলমান শাসনামলে বিশেষ করে ১৩৩৬ থেকে ১৫৭৬ সাল পর্যন্ত সুলতানি আমলে এবং ১৫৭৬ সালে মোঘলরা বাংলা দখল করার পরে এই অঞ্চলটি বাঙাল বা বাঙালাহ নামেই পরিচিতি পায়।"

তবে বাংলা, বাঙাল বা দেশ - এই তিনটি শব্দই ফার্সি ভাষা থেকে এসেছে। কোনটিই বাংলা শব্দ নয়।

এরপর বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন রাজারা দখলদারিত্বের সময় এই বাংলাকে বিভিন্ন নাম দেন।

শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজুদ্দৌলাও বাংলা, বিহার, উড়িষ্যা, আসামের মতো কয়েকটি প্রেসিডেন্সি নিয়ে নাম দিয়েছিলেন "বঙ্গ"।

মোঘল শাসকগণ ভারতবর্ষে প্রায় আট শত বছর শাসন করেছেন। তবে হিন্দুরা, মুসলিম শাসনকে কখনও অন্তর থেকে গ্রহণ করেনি, বরাবর অপরিত্যাজ্য অপ্রতিরোধ্য পাপ হিসাবে দেখেছে এ জন্য যতো দিন ‘অস্পৃশ্য বিদেশী ম্লেচ্ছের’ ক্ষাত্রশক্তি প্রবল ও নিরঙ্কুশ থেকেছে, ততদিন অবাঞ্ছিত পাপ হিসাবেই সহ্য করেছে।

শ্রী রতন লাল চক্রবর্তী তার “ফকীর সন্ন্যাসী বিদ্রোহ” নামক প্রবন্ধে লিখেছেন, “ফকিরদের সংগ্রাম ছিল ইংরেজদের বিরুদ্ধে তাদের লড়াইয়ের উদ্দেশ্য ছিল স্বাধীনতা পুনঃরুদ্ধার করা। সন্ন্যাসীরা কখনো ইংরেজদের বিরুদ্ধে লড়াই করেনি বা স্বাধীনতা পুনঃরুদ্ধারের কোন কল্পনা তাদের ছিল না । বরং তাদের সংগ্রাম ছিল মুসলমানদের বিরুদ্ধে মুসলমানদের শাসন যাতে আবার কায়েম না হয় সে জন্য তারা ইংরেজদের সহায়তা করেছিল।” (রতন লাল চক্রবর্তী- ফকীর ও সন্ন্যাসী বিদ্রোহ)

প্রমাণ হিসাবে উদাহরণ স্বরূপ ঈশ্বরচন্দ্রগুপ্ত কর্তৃক সম্পাদিত সংবাদ প্রভাকর পত্রিকার ২-৭-১৮৫৮ খ্রিঃ হিন্দুদের রাজভক্তি শিরোনামে সম্পাদিকীয়টির কিছু অংশ নিচে তুলে ধরা হল।

“শ্রীযুক্ত কেদার নাথবাবু বিদ্যোৎসাহী নব যুবক ব্যক্তি। তিনি ‘হিন্দু জাতির রাজভক্তি’ নামক এক খানি অভিনব গ্রন্থ প্রকাশ করিয়াছেন। আমরা উক্ত গ্রন্থ পাঠ করিয়া অতিশয় সন্তুষ্ট হইয়াছি। যেহেতু যথার্থ পক্ষে এই পুস্তক নিজ নামের অর্থ প্রকাশ করিতেছে। রাজভক্ত প্রজাগণ এই গ্রন্থ পাঠ করিলে পর তাহাদিগের অন্তরে স্বরূপ রাজভক্তি উদ্দীপিত হইবে সন্দেহ কি? অনুরোধ করি এই পুস্তক ক্রয় করতঃ আপনারা রাজভক্তি বিষয়ে সদুপদেশ গ্রহণ করুন এবং গ্রন্থ কর্তাকে সমুচিত উৎসাহ দিন। অধিকন্তু উক্ত গ্রন্থ সমগ্ররূপে প্রচারিত হইলে পর প্রজাগণের প্রতি ও সবিশেষ রাজানুগ্রহ প্রকাশ পাইবে তাহাতে সন্দেহ নাই।”

এতে আনন্দে উল্লাসিত হয়ে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর পঞ্চম জর্জের প্রশংসায় রচনা করেন “জনগণ মন অধিনায়ক হে ভারত ভাগ্য বিধাতা . . . .” গানটি।

চাকরির ক্ষেত্রে বাংলায় মুসলমানদের অবস্থা ছিল বড়ই করুণ। কয়েকটি বিভাগে ১৯৬৯ সালে চাকরির আনুপাতিক হার দেখলেই অনুভব করা সম্ভব কিভাবে মুসলমানদের সব জায়গায় কোনঠাসা করে রাখা হয়েছিল। এ্যাসিস্টান্ট গভর্নমেন্ট ইঞ্জিনিয়ারের তিনটি গ্রেডে হিন্দুর সংখ্যা ছিল ১৪ জন, মুসলমান একজনও নয়; শিক্ষানবিশী পর্যায়ে হিন্দু চার ও ইংরেজ দুই জন, কিন্তু মুসলমান একজনও নয়। সাব ইঞ্জিনিয়ার গণপূর্ত বিভাগের সুপার ভাইজার পদে হিন্দু ২৪ জন আর মুসলমান একজন; ওভারসিয়ার পদে মুসলমান দুই জন আর হিন্দু তেষট্টি জন। এ্যাকাউন্টস অফিসার পদে হিন্দু পঞ্চাশ জন কিন্তু মুসলমান এক জনও নয়; এবং আপার সাবর্ডিনেট ডিপার্টমেন্টে হিন্দু বাইশ জন; কিন্তু মুসলমানের সংখ্যা শুন্যের কোঠায়। (দি ইন্ডিয়ান মুসলমান)

১৮৮৭ সালের মাদ্রাজে যে কংগ্রেস অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয় সে সভাতে লালা লাজপত রায় বলেছিলেন, মুসলমানরা এখানে বহিরাগত । তারা যদি হিন্দুদের আচার বিধি পালন না করে তবে ভারতে তাদের বসবাস করতে দেয়া উচিত নয়।

আমরা দেখি ১৯৩৮ সালের ৪ঠা এপ্রিল যুক্ত প্রদেশের আইন সভায় প্রদত্ত ভাষণে প্রাদেশিক শিক্ষা মন্ত্রী মি. সম্পরনানন্দ বলেন, “হিন্দু কিংবা মুসলিম সভ্যতাকে কায়েম রাখা এবং তা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহে চালু করার জন্য যিনিই পীড়াপীড়ি করেন, তিনি নিশ্চত ভাবে ভারতের ক্ষতি সাধনে লিপ্ত। আমরা বলতে চাই যে, আজকের ভারতে এ উপসর্গটা না থাকাই বাঞ্ছনীয়। আমরা এমন একটা ভারতীয় সভ্যতা চাই, যা হিন্দু, মুসলমান, অন্য ধর্মাবলম্বী এবং যে কোন বহিরাগত - যে ভারতকে নিজের আবাস ভূমি করে ’ নিয়েছে, -এ সকলের জন্যই এক ও অভিন্ন।”

হিন্দুদের মনের কথা জ্ঞানেন্দ্র তাঁর বইতে তুলে ধরতে গিয়ে লিখলেন, “ .. যদি মুসলিমরা এই দেশে থাকতে চায়, তা হলে আমাদের মত করে থাকতে হবে। “.. হিন্দুস্তান মে র‌্যাহনে হায় তো হামসে মিল কর রাহনে হোগা। হিন্দুস্তানমে র‌্যাহনে হায় তো বন্দে মাতরম কাহনে হোগা।”

এ চিন্তা মুসলমানদের কাছে কখনই গ্রহণযোগ্য ছিল না। সে কারণে মুহম্মাদ আলী জিন্নাহ স্পষ্ট বলে ছিলেন,

“.. .. Our outlook is not only Fundamentally different but often radically antagonistic to the Hindus. We are differebt beings, There is nothing in life which links us together,”

১৯২৪ সালে চিত্তরঞ্জন দাশ বাংলাদেশের হিন্দু মুসলমানের মধ্যে সম্প্রীতি স্থাপনের লক্ষ্যে বেঙ্গলপ্যাক্ট সম্পাদনের চেষ্টা করেন। কিন্তু কংগ্রেসের অনমনীয় মনোভাবে এ চুক্তি ফলবতী হয়নি।

ভারত শাসন আইন অনুযায়ী ১৯৩৭ সালে প্রাদেশিক আইন সভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ১৯৩৭ সালের নির্বাচন বাংলার ইতিহাসে একটি স্মরণীয় ঘটনা। বাহ্যতঃ এই নির্বাচন যুদ্ধে মুসলিম লীগ ৩৮টি আসন পায় এবং ফজলুল হকের কৃষক প্রজা পার্টি পায় ৩৯ টি আসন। পাঞ্জাব, সিন্ধু ও সীমান্ত প্রদেশে বাংলার মতো মুসলিম লীগের সাফল্য সম্ভব হয়নি। এই নির্বাচনের ফলে পরিষদে কংগ্রেসের সদস্য সংখ্যা দাঁড়ায় ৬০ এবং মুসলিম লীগ ও কৃষক প্রজা পার্টির সদস্য সংখ্যা যথাক্রমে ৫৯ ও ৫৫ জন।

১৯৩৭ সালের সাধারণ নির্বাচনে ২৯৫ মিলিয়ন ভারতীয় নাগরিকদের মধ্যে ৩০ মিলিয়ন নাগরিক ভোটাধিকার প্রয়োগ করে যাদের মধ্যে শতকরা ৩০ ভাগ ছিল মুসলমানের ভোট। কিন্তু দুর্ভাগ্যক্রমে মুসলিম লীগের প্রার্থীরা মুসলিম ভোটের মাত্র শতকরা ৫ ভাগ ভোট পায়। এমন বিরাট বিজয় অর্জনের পরে ১৯৩৭ সালের মার্চের গোড়ার দিকে মি. নেহেরু বললেন,

There were only two parties in the country- Congress and the British প্রতি উত্তরে মি. জিন্নাহ বললেন, There is a third party... the Muslims.

১৯৩৯ সাল থেকে হিন্দু – মুসলিম বিরোধ ক্রমাগত বৃদ্ধি পেতে থাকে। হিন্দু প্রধান কংগ্রেস ভারতে বসবাসকারী হিন্দু, মুসলমান, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান প্রভৃতি এক জাতি এ ধূয়া তুলে সমগ্র বৃটিশ ভারতে বর্ণ হিন্দুদের প্রভুত্ব স্থাপনের জন্য আপ্রাণ চেষ্টা চালাতে থাকে। এমন এক প্রেক্ষাপটে মুহম্মদ আলী জিন্নাহ ১৯৩৯ সালে তাঁর দ্বি-জাতি তত্ত ঘোষণা করেন। তিনি বলেন,

We maintain that Muslims and Hindus are two major nations by any definition or test as a nation. . . By all the canons of international law, We are a nation.-

ইতিহাস সত্যিই বিচিত্র। যে হিন্দুরা লর্ড কার্জনের বঙ্গ ভঙ্গের বিরোধিতা করেছিল তারাই আবার নিজ স্বার্থে বাংলা বিভক্তি সম্পন্ন করল।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ অপেক্ষাকৃত তরুণরা মি. সোহরাওয়ার্দীর কাছে জানতে চাইতেন, কী হবে? সে সময় মি. সোহরাওয়ার্দী শান্তভাবে উত্তর দিতেন, "ভয়ের কোন কারণ নাই, পাকিস্তান দাবী ওদের মানতেই হবে।"

শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর 'অসমাপ্ত আত্মজীবনী' বইতে বিষয়টি এভাবেই বর্ণনা করেছেন।

মি. জিন্নাহ ব্রিটিশ সরকার ও কেবিনেট মিশনকে দেখাতে চেয়েছিলেন যে ভারতবর্ষের ১০ কোটি মুসলমান পাকিস্তান দাবি আদায় করতে বদ্ধপরিকর।

কংগ্রেস ও হিন্দু মহাসভার নেতারা এই 'প্রত্যক্ষ সংগ্রাম দিবস' তাদের বিরুদ্ধে ঘোষণা করা হয়েছে বলে বিবৃতি দিতে শুরু করলেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর আত্মজীবনীতে সেটি বর্ণনা করেছেন এভাবে,

"হাশিম সাহেব আমাদের নিয়ে সভা করলেন। আমাদের বললেন, তোমাদের মহল্লায় যেতে হবে, হিন্দু মহল্লায়ও তোমরা যাবে। তোমরা বলবে, আমাদের এই সংগ্রাম হিন্দুদের বিরুদ্ধে নয়, ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে, আসুন আমরা জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে দিনটা পালন করি।

"আমরা গাড়িতে মাইক লাগিয়ে বের হয়ে পড়লাম। হিন্দু মহল্লায় ও মুসলমান মহল্লার সামনে প্রোপাগান্ডা শুরু করলাম। অন্য কোন কথা নাই, 'পাকিস্তান' আমাদের দাবী। এই দাবী হিন্দুর বিরুদ্ধে নয়, ব্রিটিশের বিরুদ্ধে।"

কলকাতার দাঙ্গা বন্ধ না হতেই আবার দাঙ্গা শুরু হলো নোয়াখালীতে। মুসলমানরা সেখানে হিন্দুদের বাড়িঘর লুট করলো এবং আগুন ধরিয়ে দিল। ঢাকায় তো দাঙ্গা লেগেই আছে।

এর প্রতিক্রিয়ায় বিহারে শুরু হলো ভয়াবহ দাঙ্গা। বিহার প্রদেশের বিভিন্ন জেলায় 'মুসলমানদের উপর প্লান করে' আক্রমণ হয়েছিল।

নানা অস্থিরতা, চড়াই-উতরাই ও আলোচনার পর ১৯৪৭ সালের জুন মাসে ভারতবর্ষ ভাগ করার ঘোষণা এলো। কংগ্রেস ভারত ভাগ করতে রাজি হয়েছে এই জন্য যে বাংলা ও পাঞ্জাব ভাগ হবে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব লিখেছেন,

"কংগ্রেস ও হিন্দু মহাসভার নেতারা বাংলাদেশ ভাগ করতে হবে বলে জনমত সৃষ্টি করতে শুরু করলো। আমরাও বাংলাদেশ ভাগ হতে দেব না, এর জন্য সভা করতে শুরু করলাম। আমরা কর্মীরা কি জানতাম যে কেন্দ্রীয় কংগ্রেস ও কেন্দ্রীয় মুসলিম লীগ মেনে নিয়েছে এ ভাগের ফর্মুলা? বাংলাদেশ যে ভাগ হবে, বাংলাদেশের নেতারা তা জানতেন না।"

লর্ড মাউন্টব্যাটেনের বই 'মিশন উইথ মাউন্টব্যাটেন' উদ্ধৃত করে ববঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান লিখেছেন,

"ইংরেজরা তখনো ঠিক করে নাই কলকাতা পাকিস্তানে আসবে, না হিন্দুস্তানে থাকবে। আর যদি কোন উপায় না থাকে তবে একে 'ফ্রি শহর' করা যায় কি-না? কারণ, কলকাতার হিন্দু মুসলমান লড়বার জন্য প্রস্তুত। যে কোন সময় দাঙ্গাহাঙ্গামা ভীষণ রূপ নিতে পারে। কলকাতা হিন্দুস্তানে পড়লেও শিয়ালদহ স্টেশন পর্যন্ত পাকিস্তানে আসার সম্ভাবনা ছিল। হিন্দুরা কলকাতা পাবার জন্য আরো অনেক কিছু ছেড়ে দিতে বাধ্য হত।"

তিনি আরও লিখেছেন, মুর্শিদাবাদে মুসলমান বেশি হলেও সেটা ভারতের অংশে দেয়া হলো। মালদহ জেলায় মুসলমান ও হিন্দু সমান হওয়ায় তার আধা অংশ কেটে দেয়া হলো। দিনাজপুরে মুসলমান বেশি ছিল। বালুরঘাট মহকুমা কেটে দেয়া হলো, যাতে জলপাইগুড়ি ও দার্জিলিং ভারতের অংশ হয়।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মনে করেন, এ জায়গাগুলো কিছুতেই পাকিস্তানে না এসে পারতো না। কলকাতা 'হাতছাড়া' হওয়ার কারণে শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর আত্মজীবনীতে লিখেছেন,

"নেতারা যদি নেতৃত্ব দিতে ভুল করে, জনগণকে তার খেসারত দিতে হয়।"

ভাবুন, সত্তর বছর আগে একজন ব্রিটিশ আইনজীবীকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছিলো ব্রিটিশ শাসিত ভারতকে ভাগ করে দুটি স্বাধীন রাষ্ট্র ভারত ও পাকিস্তানের সীমানা ঠিক করার জন্য।

কাগজে কলমে ব্রিটিশ শাসিত ভারতকে ভাগ করতে মাত্র পাঁচ সপ্তাহ সময় দেয়া হয়েছিলো তাঁকে।

কিন্তু যে সীমানা তিনি এঁকেছিলেন ভারত ও পাকিস্তানের, তা আজো উপমহাদেশে বড় উত্তেজনার মূল কারণ।

এই ব্রিটিশ আইনজীবীর নাম ছিলো সিরিল র‍্যাডক্লিফ।

অন্যদিকে ব্রিটিশ শাসিত ভারতে ছিলো দুটি বড় প্রদেশ, যেখানে মুসলিম ও অমুসলিমরা ছিলো প্রায় সমান সংখ্যক।

শত বছর ধরে পাশাপাশি বসবাস করে আসছে এমন কোন সম্প্রদায়কে সোজা লাইন টেনে বিভক্ত করার সুযোগ ছিলোনা। ১ কোটি ২০ লাখ মানুষ র‍্যাডক্লিফের আঁকা বিভক্তি লাইন যেটি পরে র‍্যাডক্লিফ লাইন নামে পরিচিতি পায় সেই লাইন অতিক্রম করতে হয় নিজের বসবাসের জন্য।

শুরু হয় ধর্মীয় সহিংসতা, আর তাতে প্রাণ হারায় প্রায় ৫ থেকে ১০ লাখ মানুষ।

তবে সিরিল র‍্যাডক্লিফ দেশভাগ শেষ করে ভারত ছাড়ার আগেই পুড়িয়ে ফেলেন তার সব নোট। তিনি নিজেই বলেছেন,

"অন্তত ৮ কোটি মানুষ আমাকে দেখবে ক্ষোভ নিয়ে"

১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ শাসন থেকে স্বাধীনতা লাভ করে ভারত ও পাকিস্তান৷ কিন্তু এখনও দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে রয়েছে রয়ে গেছে সীমানা বিরোধ ও পারস্পরিক অবিশ্বাস৷ এখনও শুকায়নি ৭০ বছর আগের দেশভাগের ক্ষত৷

স্বাধীনতার কয়েক মাসের মধ্যেই বোঝা গিয়েছিল, কোন দিকে এগোচ্ছে ভারত-পাকিস্তান সম্পর্ক৷ কাশ্মীর কার? এ নিয়ে দ্বন্দ্বে জড়ায় দুই দেশ৷ হিন্দু মহারাজার অধীন থেকে ‘মুক্ত' করতে মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর সহযোগীরা স্থানীয় যোদ্ধাদের পাঠান কাশ্মীরে৷ ফলশ্রুতিতে সৈন্য পাঠিয়ে কাশ্মীরের বেশিরভাগ দখলে নেয় ভারত, বাকিটা দখল করে পাকিস্তান৷ দুই দেশের মধ্যে কাশ্মীর নিয়ে এখন পর্যন্ত তিনটি যুদ্ধ হয়েছে, এবং দুই দেশের সম্পর্কোন্নয়নের প্রধান বাধা এই কাশ্মীর বিরোধ৷ ইসলামি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের মদদ দিয়ে একসময়কার সেক্যুলার এবং জাতিগত বিরোধকে ধর্মীয় বিরোধে রূপ দিয়েছে পাকিস্তান৷

পূর্ব পাকিস্তানে (বর্তমানে বাংলাদেশ) বাঙালিরা যখন নিজেদের অধিকার ও স্বায়ত্তশাসনের দাবিতে সোচ্চার হয়, পশ্চিম পাকিস্তান কর্তৃপক্ষ শুরুতেই তাদের ‘ভারতের দালাল' আখ্যা দেয়৷ মুসলিম অধ্যুষিত অঞ্চল হলেও ভারতের সীমান্তে অবস্থান, ভারত অংশের বাংলার এবং বাঙালি হিন্দুদের সাথে ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক সম্পর্ক পশ্চিম পাকিস্তানিদের মনে এই সন্দেহ আরো গভীর করে তোলে৷

মজার ব্যাপার হলো, সর্ব ভারতীয় মুসলিম লীগের প্রতিষ্ঠা হয়েছিল এই বাংলাতেই৷ কিন্তু ভারতের সংখ্যালঘুদের আইনি ও রাজনৈতিক অধিকার আদায়ের যে স্বপ্ন জিন্নাহ দেখেছিলেন, তার উত্তরসূরিরা হাঁটলেন ঠিক তাঁর উলটো পথে৷ পশ্চিম পাকিস্তানের কর্তৃপক্ষ বাঙালিদের দাবি তো মানতে অস্বীকৃতি জানালেনই, বলপ্রয়োগ করে তাদের দমনও করতে চাইলেন৷ ফলশ্রুতিতে পূর্ব পাকিস্তানে শুরু হয় স্বাধীনতাযুদ্ধ, ১৯৭১ সালে স্বাধীন হয় বাংলাদেশ৷

এই দ্বিতীয় দেশভাগও ছিল পারস্পরিক ভীতির ফল৷ জিন্নাহ এবং ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল কংগ্রেসের নেতারা ১৯৪৭ সালে যে ‘শত্রু' তত্ত্বের অবতারণা করেছিলেন, ১৯৭১ সাল তারই ফল৷

তথাকথিত ‘দ্বিজাতি তত্ত্বের' ভিত্তিতে গড়ে ওঠা দেশে এখনও ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন চলছে৷ পাকিস্তানজুড়ে কেন ইসলামি জঙ্গিবাদ ছড়িয়ে পড়েছে এবং কেনই বা বিদেশ নীতি ও নিরাপত্তা নীতির ভিত্তি হিসেবে ইসলামকেই বেছে নিল, বুঝতে হলে জরুরি দেশভাগের আলোচনা৷ যখন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী হিন্দুত্ববাদের পুনর্জাগরণের কথা বলছেন, তখন এই আলোচনা আরো জরুরি হয়ে পড়েছে৷

স্বাধীনতার ৭০ বছর নয়, বরং একে বলা উচিত শত্রুতার ৭০ বছর৷ দেশভাগের ইতিহাস পালটানো যাবে না, কিন্তু ঘৃণার এই দেয়ালটা ভাঙা যাবে৷

১৭৫৭ খ্রিস্টাব্দের ২৩ই জুন ভগিরতি নদীর তীরে পলাশীর আম বাগানে বাংলা, বিহার ও উডিষ্যার শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজুদ্দৌলার পরাজয়ের মাধ্যমে এ ভারতীয় মহাদেশে ইংরেজদের শাষনের গোডাপত্তন হয়। তৎকালীন বাংলা, বিহার, উডিষ্যা, আসাম ও আরো কিছু অঞ্চল নিয়ে গঠিত হয়েছিল বাংলা প্রেসিডেন্সি। এর আয়তন বিশাল হওয়াই পুরো বাংলা প্রেসিডেন্সিকে একসাথে শাষন বআ শোষণ করা ব্রিটিশদের পক্ষে প্রায় অসম্ভব ছিল।

১৯০৩ সালে লর্ড কার্জন (যার নামে বর্তমান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হল) এ অঞ্চলের বড় লাট সাহেব হয়ে আসলে তিনি বাংলাকে বিভাজন করার সিদ্ধান্ত নেন।

রাষ্ট্রবিজ্ঞানিগণ মনে করেন বঙ্গভঙ্গের প্রধান কারণ হল প্রশাসনিক কারণ। বাংলা ছিল বিশাল প্রদেশ যার আয়তন ছিল ১ লক্ষ ৮৯ হাজার বর্গমাইল। ফলে শাসনভার ছিল কষ্টসাধ্য। লর্ড কার্জন প্রথম থেকেই একে প্রশাসনিক সংস্কার নামে অভিহিত করেন।

১৮৮৫ সালে ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল কংগ্রেস প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে ভারতীয় জনগনের সচেতনতা বৃদ্ধি পায়। শুরু থেকেই ব্রিটিস বিরোধীভাবাপন্ন হলেও বঙ্গভঙ্গ যখন প্রস্তাব হয় কংগ্রেস তখন থেকেই এর বিরোধিতা করেন।

ব্রিটিশ সরকারের যতো উন্নয়ন সব হতো ভারতের রাজধানী কেন্দ্রীক। তুলনামূলকভাবে পূর্ব বংলার জনগণ অবহেলিত হতো। যেহেতু এ অঞ্চলের বেশিরভাগ মানুষ মুসলিম তাই মুসলিমরা হিন্দুদের তুলনায় সুযোগ সুবিধা কম পেত। তাই দুই বাংলার মানুষ বিশেষকরে মুসলিমরাও যাতে তাদের প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা পায় সেজন্যই মূলত বঙ্গভঙ্গের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বঙ্গভঙ্গ যে লক্ষ্যে করা হয় তার পুরোপুরি বাস্তবায়তি হয় নি বা হতে দেইনি তৎকালীন হিন্দু শ্রেণি বা হিন্দু নেত্রীবর্গ। বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনের শুরুতে এর বিরুদ্ধে হিন্দু জাতীয়তাবাদী নেতৃবৃন্দ, বাংলা পত্রপত্রিকা, ভারত ও ইংল্যান্ডের ইংরেজি পত্রিকাগুলো প্রতিবাদ করে।

১৯০৫ সালের ১৭ই জুলাই খুলনাতে এই আইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ স্বরূপ ব্রিটিশ পণ্য বয়কটের প্রস্তাব গৃহীত হয়। ক্রমান্বয়ে এই আন্দোলন ব্রিটিশ-বিরোধী জাতীয়তাবাদী অন্দোলনে রূপ লাভ করে। এই সময় ভারতের অন্যান্য প্রদেশে এর প্রভাব ছড়িয়ে পড়ে। এক্ষেত্রে ব্রিটিশ বিভেদ নীতি দিয়ে মুসলমানদেরকে এই আন্দোলন থেকে সরিয়ে রাখার চেষ্টা করে, ব্রিটিশরা ব্যর্থ হয়।

১৮৭২ সালে ভারতের প্রথম আদমশুমারি অনুষ্ঠিত হয়। সে আদমশুমারি অনুসারে বাংলা প্রেসিডেন্সির জনসংখ্যা ছিল ৬ কোটি ৭০ লক্ষ। বর্তমান সময়ের হিসেবে এ জনসংখ্যা তেমন গুরুত্ব বহন না করলেও প্রায় দেড়শ বছর আগে এই বিশাল এলাকার প্রশাসনিক কাজ চালানোর জন্য এ জনসংখ্যা বেশ বড়ই ছিল। ফলে তখনকার ছোট লাট ক্যাম্বেল আবারো প্রশাসনিক অসুবিধার কথা তুলে বাংলাকে ভাগ করার সুপারিশ করেন। তার সুপারিশেই ১৮৭৪ সালে আসামকে বাংলা থেকে আলাদা করা হয়। আসামের সাথে বাংলা ভাষী তিনটি জেলা- সিলেট, কাছাড় ও গোয়ালপাড়াও বাংলা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। বিচ্ছিন্ন এ অংশের দায়িত্ব দেয়া হয় একজন চিফ কমিশনারের উপর।

সরকারের এ সিদ্ধান্ত বাংলার মুসলিম ও হিন্দু উভয় ধর্মের লোকেরাই বিরোধিতা করে শুরুতে। নবাব সলিমুল্লাহ এর মতো প্রভাবশালী নেতা বঙ্গভঙ্গের বিরোধিতা করেন। কিন্তু ব্রিটিশ সরকার এ পরিকল্পনাকে বাস্তবায়নে পুরোদমে নিজেদের নিয়োজিত করে। পূর্ব বাংলার জনগণকে নিজেদের পক্ষে টানতে বড় লাট ১৯০৪ সালে ঢাকা, ময়মনসিংহ ও চট্টগ্রাম সফর করেন।

মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ পূর্ব বাংলাকে নিজের পক্ষে টানতে লর্ড কার্জন ঢাকাকে রাজধানী করে মুসলিমদের সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধির ঘোষণা দেন। সেই সাথে একজন লেফটেন্যান্ট গভর্নর, পৃথক আইন পরিষদ ও রাজস্ব বোর্ডের ঘোষণাও দেন কার্জন। প্রথমদিকে পূর্ব বাংলার মুসলিমরা বঙ্গভঙ্গের বিরুদ্ধে থাকলেও বিভিন্ন সুবিধার কথা চিন্তা করে বেশিরভাগই পক্ষে চলে যায়। নবাব সলিমুল্লাহও বঙ্গভঙ্গের পক্ষে অবস্থান নিয়ে জনমত গঠনে ভূমিকা রাখেন। জমিদার, আইনজীবী ও কিছু ব্যবসায়ী ছাড়া।

মুর্শিদকুলী খান সম্রাট আওরঙ্গজেবের সময়ে ১৭০০ সালে বাংলার দেওয়ান হিসেবে বাংলায় নিয়োগ পান। সে সময় বাংলার রাজধানী ছিল ঢাকা। কিন্তু ১৭০৪ সালে মুর্শিদকুলী খান রাজধানী ঢাকা থেকে পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদে নিয়ে যান। সঠিকভাবে বলতে গেলে তিনিই নিজের নামে মুর্শিদাবাদের গোড়াপত্তন করেন। ঢাকায় নিরাপত্তার অভাবে ও কেন্দ্রের সাথে দূরত্বের অজুহাতে তিনি রাজধানী পরিবর্তন করেন। আর মুর্শিদকুলী খানের এই রাজধানী পরিবর্তন পরবর্তীতে দুই বাংলার মাঝে এক অসম অর্থনৈতিক ও সামাজিক অবস্থার সৃষ্টি করে। চাইলে বঙ্গভঙ্গের ‘বাটারফ্লাই ইফেক্ট’ হিসেবে মুর্শিদকুলী খানের এই রাজধানী পরিবর্তনকেও বলা যায়।

একইসাথে দুই বাংলায় অর্থনৈতিক বৈষম্য ছিল অনেক বেশি। কলকাতা ছিল অবিভক্ত বাংলার মূল কেন্দ্র। কলকাতা শুধু বাংলা প্রদেশ নয়, বরং পুরো ভারতে ব্রিটিশ শাসনের রাজধানী ছিল। ফলে ব্যবসা-বাণিজ্য, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড ছিল কলকাতা কেন্দ্রিক আর পূর্ব বাংলা পর্যন্ত সেগুলো খুব কমই পৌঁছাতে পারত। পূর্ব বাংলার কাঁচামাল দিয়ে শিল্প কারখানা গড়ে উঠতে থাকা কলকাতা ও এর আশেপাশের অঞ্চলে, লাভের বেশিরভাগই যেত কলকাতার বণিক শ্রেনীর পকেটে। আর অর্থনৈতিক দীনতায় দিন কাটাত পূর্ব বাংলার কৃষকরা। পূর্ব বাংলার পাট দিয়ে বেশিরভাগ পাটকল গড়ে ওঠে হুগলি নদীর তীরে। ব্যাপারটা অনেকটা পাকিস্তান আমলে পূর্ব পাকিস্তানের পাট দিয়ে পশ্চিম পাকিস্তানের উন্নয়নের মতো ছিল। কষ্ট করত পূর্ব বাংলার কৃষকরা আর ফল ভোগ করত কলকাতার জমিদাররা। অর্থনৈতিক সংকটের কারণে পূর্ব বাংলার লোকেরা শিক্ষাতেও এগোতে পারত না।

১৯০৫ সালের ১৬ অক্টোবর বঙ্গভঙ্গ বাস্তবায়িত হয়।

লর্ড কার্জনের পরিকল্পনা অনুযায়ী আসাম, চট্টগ্রাম, ঢাকা, রাজশাহী, ত্রিপুরা, মালদহ ‘পূর্ব বাংলা ও আসাম’ প্রদেশ গঠিত হয়। এ প্রদেশের রাজধানী হয় ঢাকা।

অন্যদিকে পশ্চিমবঙ্গ, বিহার ও উড়িষ্যা নিয়ে গঠিত হয় বাংলা প্রদেশ, যার রাজধানী কলকাতাতেই থেকে যায়। মজার ব্যাপার পূর্ব বাংলার ৩ কোটি ১০ লক্ষ মানুষের মাঝে মুসলমান ছিল ১ কোটি ৮০ লক্ষ আর হিন্দু ছিল ১ কোটি ২০ লক্ষ। অন্যদিকে বাংলা প্রদেশের ৫ কোটি ৪০ লক্ষ লোকের মাঝে হিন্দু ছিল ৪ কোটি ২০ লক্ষ আর মুসলমান ছিল ৯০ লক্ষ। বাংলা প্রদেশ হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠ হলেও পূর্ব বাংলায় হিন্দু-মুসলিম প্রায় সমানই ছিল। ফলে শুধু মুসলমানদের সুবিধার জন্যই বঙ্গভঙ্গ হয়েছিল সেটি ভাবা নিতান্তই বোকামি হবে হয়তো।

বঙ্গভঙ্গের পর দুই প্রদেশে সম্পূর্ণ ভিন্ন প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। পূর্ব বাংলার জনগণ স্বাগত জানালেও অপর বাংলা মোটেও মেনে নিতে পারেনি ব্রিটিশ সরকারের এই সিদ্ধান্ত।

(ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম পুরোধা ব্যক্তি এবং কংগ্রেস নেতা মৌলানা আবুল কালাম আজাদের 'ইন্ডিয়া উইনস ফ্রিডম' থেকে) মৌলানা আজাদ মনে করেন, ভারতবর্ষ ভাগ করার পেছনে ভারতীয়দের স্বার্থের চেয়ে ব্রিটিশদের স্বার্থ বেশি প্রাধান্য পেয়েছে। এজন্য শেষ পর্যন্ত বিচার বিশ্লেষণ করে তারা ভারত ভাগ করার দিকেই এগিয়ে গেল।

মুসলিম লীগ যা চেয়েছিল, সেটা হলো মুসলমানদের অন্য একটি স্বতন্ত্র আবাসভূমি, তার জন্য যে দেশভাগ প্রয়োজন হবে, এটা তারা ভাবেনি।

জওহরলাল নেহরু ও মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ কেউই প্রাদেশিক নেতা হতে চাননি, চেয়েছেন সর্বভারতীয় কর্তা হবেন।

আসলে ভারতবর্ষ তো কখনোই এক জাতির দেশ ছিল না, ছিল বহু জাতির দেশ; আর সে জাতীয়তার ভিত্তি ধর্ম নয়, ভাষা। সে হিসাবে ১৯৪৭-এ ভারতবর্ষে একটি-দুটিও নয়, সতেরোটি জাতি ছিল। ভারতবর্ষের মানুষের জন্য প্রধান সমস্যাটা ছিল শ্রেণির। কিন্তু কংগ্রেস ও লীগ কেউই শ্রেণি সমস্যার সমাধান চায়নি। দুই দলই ছিল বিত্তবানদের সংগঠন। তারা চেয়েছে ইংরেজ শাসকেরা তাদের কাছে শাসনক্ষমতা হস্তান্তর করে চলে যাবে, এবং তারা গদিতে বসে পড়ে ঠিক সেভাবেই দেশ শাসন করবে, যেভাবে ইংরেজরা করেছে।

জিন্নাহ ও নেহরুর সঙ্গে বড়লাট মাউন্টব্যাটেনের সম্পর্ক দাঁড়িয়েছিল সৌহার্দ্যপূর্ণ। নেহরুর সঙ্গে তো সম্পর্কটা বন্ধুত্বের পর্যায়েই চলে গিয়েছিল। এই বন্ধুত্ব বড়লাটের স্ত্রী পর্যন্ত গড়িয়েছিল।

অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়, ভারতবর্ষ ভাগ করার জন্য সরদার প্যাটেল আগে থেকেই মানসিকভাবে অর্ধেক তৈরি ছিলেন। সরদার প্যাটেল এক পর্যায়ে জনসম্মুখে বলেই ফেললেন, মুসলিম লীগের হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য তিনি ভারতবর্ষ ভাগ করতেও রাজী আছেন। এ কথা বলা অত্যুক্তি হবে না যে সরদার প্যাটেলই ছিলেন ভারতবর্ষ ভাগের স্থপতি।

ক্ষতি হয়েছে সাধারণ মানুষের। ঠিক হিসাব পাওয়া যায়নি, তবে ধারণা করা হয়, ১ কোটি ২০ লাখ মানুষ শরণার্থী হয়েছে। দাঙ্গায় প্রাণ হারিয়েছে কমপক্ষে ৫ লাখ। এত বিপুলসংখ্যক মানুষের দেশত্যাগের ঘটনা এর আগে কখনো ঘটেনি। অর্থনৈতিক অবকাঠামোর ক্ষতিটা অপূরণীয়।

কংগ্রেস যতই নিজেকে ধর্মনিরপেক্ষ বলে দাবি করুক, তাদের ‘বন্দে মাতরম’ রণধ্বনি মুসলমানদের কাছে টানেনি, বরং ‘আল্লাহু আকবর’ আওয়াজ তুলতে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে। ধর্মকে সামনে নিয়ে আসাতে আরও একটি সুবিধা হয়েছে। তা হলো মেহনতিদের শ্রেণি সচেতনতাকে ভোঁতা করে দেওয়া।

প্রশ্ন ওঠে, এর দায়-দায়িত্ব কার কতটা? দৃশ্যমান দায়িত্ব কংগ্রেস ও লীগের। কংগ্রেসেরই অধিক, কারণ তাদের এক জাতিতত্ত্বের কারণেই দ্বিজাতিতত্ত্বের উদ্ভব সম্ভব হয়েছে; কংগ্রেস অবশ্য বলবে যে স্বতন্ত্র বাসভূমির দাবি লীগই তুলেছিল। আসলে লীগের দাবিটা ক্রিয়া নয়, প্রতিক্রিয়া বটে। তবে কাজের আসল কাজি কংগ্রেস নয়, লীগও নয়; সে হচ্ছে ইংরেজ শাসক।

কথা ছিল ভারত হবে একটি ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র, কিন্তু হিন্দুত্ববাদের বর্তমান তৎপরতা ধর্মনিরপেক্ষতাকে একেবারে কোণঠাসা করে ফেলেছে। পাকিস্তান তো এখনো ধর্মের দোহাই পাড়ছে।

বাংলায় তো গৃহস্থের রান্নাঘর চলে গেছে হিন্দুস্থানে, শোয়ার ঘর পড়েছে পাকিস্তানে। বাংলা হচ্ছে নদীর দেশ। প্রায় সব নদী ওপর থেকে নিচে নেমেছে। নদীকে তো কাটা যায় না, তবু কাটা হয়েছে, এবং তাতেই বোঝা গেছে কেমন অবাস্তব ছিল ঘটনাটা। ভাটি তো শুকিয়ে মরে উজানকে না পেলে, উজান তো প্লাবিত হবে ভাটিতে নামতে না পারলে; দশা হয়েছে সেই রকম। ভাটিরই কষ্ট বেশি, কারণ উজান পানি ছেড়ে দেয়, প্লাবনের কালে।

সাম্রাজ্যবাদবিরোধী লড়াইটার নেতৃত্ব যদি সমাজতন্ত্রীদের হাতে থাকত। সেটা ঘটেনি। অবিশ্বাস্য দেশভাগে লাভ যে হয়নি, তা নয়। হয়েছে। তবে সেটা সুবিধাভোগীদের, মেহনতিদের ভাগ্যে বাঞ্চনাই সত্য হয়ে রয়েছে। এপারে যেমন, ওপারেও তেমনই।

কিন্তু ভারত ভাগ করার বিষয়ে জওহরলাল নেহেরু শেষ পর্যন্ত কিভাবে রাজী হলেন?

মৌলানা আজাদ মনে করেন, এর দুটি কারণ আছে।
প্রথমত; জওহরলাল নেহেরুকে রাজী করানোর বিষয়ে লর্ড মাউন্টব্যাটেনের স্ত্রীর একটি বড় প্রভাব ছিল। লেডি মাউন্টব্যাটেন ছিলেন খুবই বুদ্ধিমতী। এছাড়া তাঁর মধ্যে আকর্ষণীয় এবং বন্ধুত্বপূর্ণ কিছু বিষয় ছিল যার মাধ্যমে সে অন্যদের আকৃষ্ট করতে পারতো।
ভারত ভাগ করার পেছনে নেহেরুর রাজী হবার আরেকটি কারণ ছিলেন কৃষ্ণ মেনন।

মৌলানা আজাদ মনে করতেন, ভারত বিভক্ত হলে সেটি শুধু মুসলমানদের জন্যই নয়, পুরো ভারতের জন্যই সেটি খারাপ হবে।

তাঁর দৃষ্টিতে ভারতবর্ষের মূল সমস্যা ছিল অর্থনৈতিক। সাম্প্রদায়িক সমস্যা কোন বড় সমস্যা ছিল না।

সরদার প্যাটেলের দৃষ্টিভঙ্গি সম্পর্কে মৌলানা আজাদ তাঁর 'ইন্ডিয়া উইনস ফ্রিডম' বইতে লিখেছেন,

"আমরা পছন্দ করি কিংবা না করি, ভারতবর্ষে দুটো জাতি আছে। হিন্দু এবং মুসলমানরা একজাতি হিসেবে ঐক্যবদ্ধ হতে পারে না। যখন দুই ভাই একসাথে থাকতে পারে না, তখন তারা আলাদা হয়ে যায়। তাদের পাওনা নিয়ে আলাদা হয়ে যাবার পরে তারা আবার বন্ধু হয়ে যায়। কিন্তু তাদের যদি একসাথে থাকতে বাধ্য করা হয় তাহলে তারা প্রতিদিন ঝগড়া করবে। প্রতিদিন মারামারি করার চেয়ে একবার বড় ঝগড়া করে আলাদা হয়ে যাওয়াটাই ভালো।"

জওহরলাল নেহেরুকে সতর্ক করে মৌলানা আজাদ বলেছিলেন,

"আমরা যদি ভারত ভাগ করার বিষয়ে একমত হই তাহলে ইতিহাস কোনদিনও আমাদের ক্ষমা করবে না।"

আচার্য প্রফুল্ল চন্দ্র রায় বলেছিলেন,

"আমি রাজনীতি বুঝিনে। ওসব দিয়ে আমি ফজলুল হককে বিচার করিনে। আমি তাঁকে বিচার করি গোঁটা দেশ ও জাতির স্বার্থ দিয়ে। একমাত্র ফজলুল হকই বাংলাদেশ ও বাঙালি জাতিকে বাঁচাতে পারে। সে মাথার চুল থেকে পায়ের নখ পর্যন্ত সাচ্চা মুসলমান। খাঁটি বাঙালিত্ব ও সাচ্চা মুসলমানিত্বের এমন সমন্বয় আমি আর দেখিনি।"

মৌলানা আজাদ লিখেছেন, লর্ড মাউন্টব্যাটেন উভয়পক্ষকে খুশি রাখতে চেয়েছিলেন এবং উভয়পক্ষকে বুঝিয়েছিলেন যে পাকিস্তানের সৃষ্টি না হয়ে উপায় নেই। মি. মাউন্টব্যাটেন কংগ্রেসের সিনিয়র নেতাদের মনে পাকিস্তান সৃষ্টির বীজ বপন করেছিলেন।

আর ভারতীয় নেতাদের মধ্যে সরদার প্যাটেল মাউন্টব্যাটেনের এ ধারণা সবার আগে গ্রহণ করেছিলেন।

মোটামুটি ডেস্ক নিউজ হয়ে গেছে। তবুও দুটো লাইন পড়ে তারপর বেশকিছু রেফারেন্স সংযুক্ত পূর্বক এই অনুচ্ছেদটি লিখেছি। যদি কোনো তথ্যে ভুল থাকে তাহলে পূর্বেই ক্ষমাপ্রার্থী। পাশাপাশি প্রয়োজনীয় তথ্যের উৎসের জন্য আমার পড়া রেফারেন্স দিয়ে দিচ্ছি।

ধন্যবাদ


References:

1. Click This Link
2. Click This Link
3. Click This Link
4. Click This Link
5. Click This Link
6. Click This Link
7. Click This Link
8. Click This Link
9. Click This Link
10. Click This Link
সর্বশেষ এডিট : ২০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৩৬
১২টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

আতর, সেন্ট কিংবা বডি স্প্রে ব্যবহার করা, ইলেক্ট্রিক ব্যাট দিয়ে মশা নিধনসহ কয়েকটি বিষয়ে জ্ঞাতব্য...

লিখেছেন নতুন নকিব, ২০ শে অক্টোবর, ২০২০ সকাল ১০:২৬

আল-হারামাইন, বিশ্বের নাম করা সুগন্ধি উৎপাদনকারী আরবীয় কোম্পানি যার প্রতিষ্ঠাতা বাংলাদেশী মরহুম কাজী আবদুল হক

আতর, সেন্ট কিংবা বডি স্প্রে ব্যবহার করার বিধানঃ

উত্তর :অনেকের ভেতরে একটি ভুল ধারণা প্রচলিত... ...বাকিটুকু পড়ুন

শিশু নির্যাতনঃ ঘরের ভেতরের নির্যাতনের একটা চিত্র!!!

লিখেছেন ভুয়া মফিজ, ২০ শে অক্টোবর, ২০২০ সকাল ১১:৪২



আমাদের ব্লগের একজন অন্যতম জনপ্রিয় ব্লগার, জনাব রাজীব নুর। উনি সব পোষ্টেই কিছু না কিছু মন্তব্য করেন। অভ্যাস খুবই ভালো। তবে মন্তব্যের কোয়ান্টিটি বজায় রাখতে গেলে যা হয়,... ...বাকিটুকু পড়ুন

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে আপনার কুল বাঁচান।

লিখেছেন নেওয়াজ আলি, ২০ শে অক্টোবর, ২০২০ দুপুর ২:১৯



বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৪ কোটি ছাড়িয়ে গেছে গত সোমবার। শীতকাল আসন্ন ফলে এই ভাইরাস আবার দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়ার একটা বড় ঝুঁকি... ...বাকিটুকু পড়ুন

হাবাধনের মা

লিখেছেন চাঁদগাজী, ২০ শে অক্টোবর, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৪২



এইটি আমাদের গ্রামের একজন অতি দরিদ্র মাতার কাহিনী।

আমার ছেলেবেলায়, আমাদের গ্রামর বেশীরভাগ পরিবারই ছিলো দরিদ্র; এরমাঝে ২টি পরিবার ছিলো একেবারেই হত-দরিদ্র; তাদের বাড়ীটি ছিলো গ্রামের ঠিক মাঝখানে;... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমি বেঁচে আছি সুবোধ! দেখে যাও -

লিখেছেন বিদ্রোহী ভৃগু, ২০ শে অক্টোবর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:০৮

আমি বেঁচে আছি সুবোধ, দেখে যাও
বেশ আছি ছানা-পোনা নিয়ে
শেয়ালের ভয়ে ডানায় আকড়ে রাখি
তবু ছিড়ে খুড়ে ছোঁ মেরে নিয়ে যায় বাজপাখি!

তবুও আমি বেঁচে আছি সুবোধ, দেখে যাও
বেশ আছি-প্রতিবাদহীন। বোবার শত্রু নাই... ...বাকিটুকু পড়ুন

×