somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

নববর্ষের রাশিয়ান শৈশব : ফার গাছ

০১ লা জানুয়ারি, ২০২০ দুপুর ২:৩৩
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



ছেলেরা ক্যালেন্ডার দেখলে ; কেবল শেষ পাতাটা বাকি।
তার মানে কাল নববর্ষ। কাল ফার গাছ সাজিয়ে উৎসব। তার সাজসজ্জা সবই তৈরী , কিন্তু গাছটি যে নেই। ছেলেমেয়েরা ঠিক করলে চিঠি পাঠাবে শীত দাদুর কাছে , বিজিবিজি বন থেকে ফার গাছ যেন পাতায় – সবচেয়ে ঝুমঝুমটি , সবচেয়ে সুন্দরটি।

“শীত দাদু, শীত দাদু,
নতুন বছরের জন্য
ফার গাছ পাঠিয়ো আমাদের জন্য
সাজাব গোছাব
আমরাই।
চিঠি তোমায় পৌঁছে দেবে এই বরফ পুতুলটি।’’

-- ছেলেমেয়েরা।



এই চিঠিটা লিখে ছেলেমেয়েরা আঙিনায় দৌড়ে গেল বরফ পুতুল বানাতে।

মিলেমিশে কাজ শুরু হয়ে গেল: কেউ বরফ
জোগাড় করে , কেউ গোলা পাকায়…
বরফ পুতুলের মাথায় পরানো হল পুরোনো বালতি ,
চোখ বানালে কয়লা দিয়ে , আর নাকের জায়গায় গুজে দিল লাল গাজর।
বেশ হল ডাক-হরকরা বরফ পুতুল।


চিঠি তাকে দিয়ে ছেলেমেয়েরা বললে:

‘বরফ পুতুল , বরফ পুতুল
ডাক-হরকরা গা তুল তুল ,
যা চলে যা গহন বনে
পত্রটা দিস যথাস্থানে।
শীত দাদুকে দিবি তারা,
বেছে দেবে ফারের চারা ,
সবুজ পাতার ঝালর ঘেরা,
বনের মধ্যে সবার সেরা।

ফার গাছটা আনিস বয়ে
ধন্যি দেবে ছেলেমেয়ে।’



সন্ধ্যে হলে, ঘরে চলে গেল ছেলেমেয়েরা। বরফ পুতুল মনে মনে ভাবে : কাজ তো চাপিয়ে গেল , কিন্তু যাই কোথায় ?
‘আমায় সঙ্গে নে , ’ হটাৎ বললে কুকুরছানা ববিক , ‘আমি রাস্তা দেখিয়ে দেব। '


‘ঠিক বলেছিস, দুয়ে মিলে যায় , ভয় ভাবনা নাই !’ খুশি হল বরফ পুতুল , ‘শত্রু তাড়াবি , পথ দেখাবে।'
বরফ পুতুল আর ববিক যায় যায় ,যেতে যেতে পৌঁছল এক মস্ত বড়ো গহীন বনে...



সামনে দেখে এক খরগোশ।
‘ বল তো , শীত দাদু থাকে কোথায় ?’ জিজ্ঞেস করলে বরফ পুতুল।
কিন্তু জবাব দেবার সময় কোথায় খরগোশের , পেছনে তার তাড়া করছে শেয়াল।


আর ববিকও 'ঘোঁৎঘোঁৎ' করে ছুটল খরগোশের পেছনে।
মন খারাপ হয়ে গেল বরফ পুতুলের।
‘দেখছি এবার একা একাই যেতে হবে। '


এমন সময় ফুঁসে উঠলো ঝড় , পাক দিয়ে ঝাপটা মারে কেবলি …
থরথরিয়ে কেঁপে উঠলো বরফ পুতুল.... সব বরফ তার খসে খসে পড়লো।
পড়ে রইল শুধু বালতিটা , চিঠিটা, আর গাজরটা।

শেয়াল ফিরে এল একেবারে রেগে কাঁই :
‘শিকারে আমায় বাধা দিয়েছিল কে ?’
দেখে কেউ নেই , শুধু বরফের ওপর পরে আছে চিঠিটা। চিঠিটা নিয়ে পালাল সে।


ফিরল ববিক :
‘কোথায় সে বরফ পুতুল?’
নেই সে।
এই সময় শেয়ালের সঙ্গে ধরল নেকড়ে।

‘কি নিয়ে চলেছিস রে ?’ গর্জন করলে নেকড়ে ,
‘ভাগ দে শিগগির!’
‘আমি পেয়েছি, আমার ! ভাগ নেই তোমার ,’ বলেই পালালো শেয়াল।
তার পেছনে নেকড়ে।
কী হচ্ছে দেখি বলে হাঁড়িচাঁচাও উড়ল পেছন পেছন।



ববিক কাঁদে , আর খরগোশরা বলে :
‘ ঠিকই হয়েছে তোর , কেন তারা করিস আমাদের , কেন ভয় দেখাস ?'

‘ভয় দেখাবেন , তাড়া করব না, ' বলে ববিক আরো জোরে কেঁদে উঠলো।

'কাঁদিস না , আমরা তোকে সাহায্য করব , বললে খরগোসরা।
‘ আর খরগোশদের সাহায্য করব আমরা , ‘ বললে কাঠবেড়ালীরা।


বরফ পুতুল তৈরি করতে লাগল খরগোসরা , কাঠবেড়ালীরা সাহায্য করে তাদের , ছোটো ছোটো থাবা দিয়ে থাবড়ায় , লেজ দিয়ে মুছে।
ফের তার মাথায় উঠল বালতি , চোখে জুটল কয়লা , আর নাকের জায়গায় গাজরটি।
‘ধন্যি তোরা , ‘ বললে বরফ পুতুল , ‘ আমায় ফের গড়ে তুললি , এবার শীত দাদুকে খুঁজে দে। '


তাকে তারা নিয়ে গেল ভালুকের কাছে। গুহার মধ্যে ঘুমিয়ে ছিল ভালুক , বহু কষ্টে জাগানো হল তাকে।
ছেলেরা তাকে শীত দাদুর কাছে চিঠি দিতে পাঠিয়েছে সে সব কথা তাকে বললে বরফ পুতুল।
‘চিঠি ?’ গর্জন করে উঠল ভালুক , ‘কোথায় চিঠি ?’
হাতড়িয়ে দেখে চিঠি নেই।

‘ চিঠি ছাড়া ফার গাছ দেবে না শীত দাদু , ‘ বললে ভালুক
‘ভালোয় ভালোয় বাড়ি ফিরে যাও , আমি বন পর্যন্ত পৌঁছে দেব। '
হঠাৎ কোথা থেকে যেন উড়ে এল হাঁড়িচাঁচা , কিচিরমিচির করে বলে :
‘এই নাও চিঠি !’
বললে কি করে সে চিঠি পেলে।



ব্যাপারটা হয়েছিল এই।




চিঠিটা নিয়ে সবাই গেল শীত দাদুর কাছে।
বরফ পুতুলের ভারি তাড়া , কখনো গড়িয়ে পড়ে ঢিবি থেকে কখনো উলটে পড়ে খানাখন্দে, কখনো হোঁচট খায় গাছের গুঁড়িতে।
ভাগ্যি ভালো ভালুক তাকে বাঁচায় , নয়তো ফের আবার গুঁড়ো গুঁড়ো হয়ে যেত ।
শেষ পর্যন্ত পৌছলো শীত দাদুর কাছে।


চিঠি পরে শীতদাদু বলল :
‘এত দেরী হল যে ? সময়মতো ফার গাছ নিয়ে তো তুই পৌঁছতে পারবো না।


সবাই তখন বরফ পুতুলের পক্ষ নিলে , বললে কি হয়েছিল। শীত দাদু তখন তার নিজের স্লেজগাড়িটা দিয়ে দিলে তাকে , বরফ পুতুলও ফার গাছ নিয়ে ফিরে চলল ছেলেমেয়েদের কাছে।


ভালুকও ফিরল তার গুহায় --- বসন্ত পর্যন্ত ঘুমিয়ে থাকবে।


আর সকালবেলায় দেখা গেল একই জায়গায় দাঁড়িয়ে আছে বরফ পুতুল। হাতে তার চিঠির বদলে ফার গাছ।

---------------------------------
শুভ নববর্ষ। খুব ছোটবেলায় আব্বা একদিন হলুদ খাম এনে দিয়েছিলেন। ফার গাছ চেয়ে শীত দাদুর কাছে চিঠিও লিখেছিলাম। কিন্তু চিঠি পৌঁছে দেয়ার জন্য আমার কোন ডাক-হরকরা বরফ পুতুল ছিল না। ছোটবেলায় ভাবতাম , কোনোদিন যদি সোভিয়েতের দেশে যাই তবে এমন একটা বরফ পুতুল বানাবো।
ছোটবেলার ভাবনায় ভালো ছিল।

সর্বশেষ এডিট : ০১ লা জানুয়ারি, ২০২০ দুপুর ২:৪৩
২০টি মন্তব্য ২০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

করোনা

লিখেছেন ম্যাড ফর সামু, ২৭ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:২২




বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে এবার ভর্তি হলেন কোন একজন মন্ত্রী মহোদয়, যিনি সিঙ্গাপুর থেকে আক্রান্ত হয়ে দেশে এসে ভর্তি হয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়-এ।

তাঁকে আপাতত কোন... ...বাকিটুকু পড়ুন

সময় এসেছে ঘরে ঘরে মুসলিম,হিন্দু ঐক্যবদ্ধ সংঘঠন গড়ে তুলতে হবে

লিখেছেন :):):)(:(:(:হাসু মামা, ২৭ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২০

ভ্স্মীভূত কোরআন এভাবেই মাটিতে পুঁতে রাখছেন স্থানীয়রা। ছবি: এএফপি[/sb
আজকাল কথায় কথায় ব্লগ সহ প্রায় সকল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে নানান ধরনের কমেন্টে দেখা যায়,এক পক্ষ আছেন
যারা বিভিন্ন সংঘাত বা ঝামেলার... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্লিজ

লিখেছেন ইসিয়াক, ২৭ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৩৫


কিছু কথা আছে,
ফোনটা রেখোনা …………প্লিজ।

একা বসে আছি তোমারই অপেক্ষায়,
আর নিজেকে সামলাতে পারছিনা কিছুতেই
জানো কিনা জানিনা.
বোঝ কিনা বুঝিনা।
আমি সত্যি আর পারছিনা প্রিয়তমা।
আমার ঘেটে যাওয়া জীবনটাতে তোমাকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

এনআরসি প্রতিবাদে মুসলমানদের রাস্তায় নামা কি ঠিক?

লিখেছেন চাঁদগাজী, ২৭ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:০৮



প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যেইদিন দিল্লী এলো, সেইদিনটি কি রাস্তায় এনআরসি প্রতিবাদের জন্য "উপযুক্ত দিন" ছিলো? ট্রাম্পের ভিজিট মাত্র ১ দিন, এই দিন সম্পর্কে মোদীর সরকার ও বিজেপি খুবই সেন্সসেটিভ;... ...বাকিটুকু পড়ুন

ভারতের মুসলিমদের উপর অত্যাচার এবং বাংলাদেশে মুজিব বর্ষে মোদির প্রাসঙ্গিকতা।

লিখেছেন রাজজাকুর, ২৭ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:১৫

ভারতের Citizenship Amendment Act (CAA) এর উদ্দেশ্য আফগানিস্তান, বাংলাদেশ এবং পাকিস্তান থেকে আগত হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, জৈন, পারসি এবং খ্রিষ্টান এই ছয় ধর্মাবলম্বী অভিবাসীদের ভারতীয় নাগরকিত্ব দেয়া। কিন্তু প্রশ্ন হলো-... ...বাকিটুকু পড়ুন

×