somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পরীমনিকে যারা “মক্কার খেজুর” মনে করেন, ছবি এবং কথাগুলো তাদের জন্য।

১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১২:৩৬
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


মাস দেড়েক আগে রোজার ভেতর সারাদেশে যখন করোনার দ্বিতীয় ঢেউটা আসলো, তখন পরীমনি দুবাই গিয়েছিলো অবকাশ যাপন করতে । সোশ্যাল মিডিয়ায় সে তখন এমন কিছু আয়েশী জীবনের ছবি পোস্ট করে, যেটা বাংলাদেশের সে সময়কার করোনা পরিস্থিতি এবং রমজানের ভাবগাম্ভীর্যের যাতে সম্পূর্ণ সাংঘর্ষিক। একটা ছবিতে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে, সে একটা বিলাসবহুল প্রমোদতরীর ড্রাইভিং সিটে বসে আছে এবং ক্যামেরার ঠিক সামনে একটা বোতল Blur করে তোলা। তার উদ্দেশ্যই ছিলো, তার এসব কার্যকলাপ নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হোক, মিডিয়াতে লেখালেখি হোক, এবং সমালোচনার মাধ্যমে হলেও কিছুদিন আলোচনায় থাকুক। এবং সে এ ব্যপারে সফল।

বিপত্তিটা ঘটলো কয়েকদিন আগে বোটক্লাবে গিয়ে। এটা নিয়ে মিডিয়ার সামনে কান্নাকাটি করে ঘটনার বিচার চাইলো, ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রীকে “মা” সম্বোধন করে জড়িয়ে ধরার খায়েশ প্রকাশ করলো ইত্যাদি ইত্যাদি । এরপর সঙ্গে সঙ্গেই দেশের অনেক বুদ্ধিজীবিরাই মায়াকান্না করে ঘটনার বিরুদ্ধে সোচ্চার হলো। কিন্তু এই ঘটনার জন্য যে পরীমনির অনিয়ন্ত্রিত জীবনও দায়ী , সেইসব মানুষ সেটা বলছেনা। এমনকি খোদ পরীমনিও তার দুবাই ট্যুরের ছবি থেকে এই ছবিটা ডিলিট করে দিয়েছে। তার ফেসবুক প্রোফাইলে হাজার খুজেও এই ছবিটা আর পেলাম না। কিন্তু মুখের কথা/ বন্দুকের গুলির মতো ফেসবুকে পোষ্ট করা ছবিও যে পরে আর ধামাচাপা দেওয়া যায়না, সেটা ওই সুন্দরী নারীর মাথায় একদমই নাই। শুধু তাই না, এই তথ্যপ্রযুক্তির যুগে মদের বোতলটার ছিপি দেখেই যে তার ব্র্যান্ড বের করা যাবে, এটাও সেই বোকা মেয়েটার মগজের আওতায় নাই । ব্র্যান্ডের নাম হলো Chivas Royal Salute. গুগলে সার্চ দিলেই এর বিস্তারিত পেয়ে যাবেন।

পরীমনির সাথে যা ঘটেছে তার নিন্দা আমিও জানাই। কিন্তু এটাও বলি, তার বেলেল্লাপনা জীবন, অশ্লীলতায় ভরপুর লাইফস্টাইল, সোশ্যাল মিডিয়ায় অর্ধনগ্ন ছবিগুলোও এর জন্য দায়ী। আর দায়ী হলো, সেইসব ছাগল মার্কা বুদ্ধিজীবি, যারা নারী স্বাধীনতার নামে ওয়েস্টার্ন কালচার এদেশে আমদানি করতে চায়, কুকুরের জীবনে তো বছরে একবার ভাদ্রমাস আসে, তারা চায় মানুষের জীবনে যাতে সারাবছর ভাদ্রমাস লেগে থাকে। তারই সম্মিলিত কর্মকাণ্ডের শেষ পরিনতি হলো সেদিনের সেইসব ঘটনা। একজন সুস্থ এবং বিবেকবান মানুষ অবশ্যই স্বীকার করবেন, একটা মেয়ের পক্ষে কোনভাবেই ওই সময়ে ওই জায়গায় থাকার কথা নয়। নিজের দেহটাকে ওইসব শকুনের মুখে তোলার সুযোগ সৃষ্টি করে দেওয়ার দায় পরীমনিকেই উপরেও একটু আকটু পড়বে বৈকি। এছাড়া তার মনে যদি সততা থাকতো তাহলে এই ঘটনার অভিযোগ তোলার আগে কিংবা পরে মদের বোতলের ওই ছবিটা সে ডিলিট করতোনা। নিশ্চই ঘটনার পেছনে আরও ঘটনা আছে জন্যই সে এই কাজটা করেছে। তবে আমাদের আল্ট্রা মর্ডান বুদ্ধিজীবি সমাজ এটা বেমালুম চেপে গেছে।

এই ঘটনায় আরেকজনের দায় আছে। এটা হচ্ছে তার অবিভাবকের । তারা যদি ছোট থেকে ধর্মীয় এবং এই দেশের সামাজিক শিক্ষাটা দিতো , তাহলে তাদের মেয়ে আজ এতোটা বখে যেতোনা এবং আজ এই দুর্ঘটনার দেখতে হতোনা।

যাইহোক, আমি পরীমনির সাথে ঘটা ঘটনার বিচার চাই, প্রকৃত দোষীদের সর্বোচ্চ শাস্তি চাই। এবং সেইসাথে দেশে এরকম ঘটনা যাতে না ঘটে সেজন্য সকল অবিভাবক এবং জনসাধারনের মাঝে সচেতনতা গজিয়ে উঠুক, এই কামনা করি। আর চাই, “বাংলাদেশ থাকুক বাংলাদেশের মতোই।“ এদেশকে যারা থাইল্যান্ডের পাতায়া কিংবা আমেরিকার লাস-ভেগাস বানাতে চান, তারা দয়াকরে সেসব জায়গাতেই চলে যান। এদেশ ষড়ঋতুর দেশ, সারাবছর ভাদ্রমাসের দেশ না ।

সর্বশেষ এডিট : ১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১২:৪৪
১৬টি মন্তব্য ১টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

সংখ্যালঘু মুসলিম !

লিখেছেন স্প্যানকড, ১৮ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১০:১০

ছবি নেট ।

তখন বয়স অত বেশী না ক্লাস তিন কি চার এর ছাত্র। দুনিয়ার অত কি আর বুঝি বলতে গেলে হালকার উপর ঝাপসা!

সে সময়কার ঘটনা মাঠে ক্রিকেট খেলছি।... ...বাকিটুকু পড়ুন

মায়াজাল

লিখেছেন রূপক বিধৌত সাধু, ১৮ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১০:৩৯


কর্মক্লান্তিতে যখন নুয়ে পড়ে মাথা,
ভালো লাগে না মোটেও আর হইচই;
কোলাহল ছেড়ে খুঁজেফিরি নীরবতা
কিন্তু এ শহরে নীরবতা পাব কই?
গাড়ির শব্দে দিনের আগমন হয়,
গাড়ির শব্দেই ফের রাত নেমে আসে;
গ্রামের স্নিগ্ধ... ...বাকিটুকু পড়ুন

এই যুক্তি মেনে নিলে বাংলাদেশের ৯০% জনতাই অমুসলিম, থার্ড পার্টি বা তোতাপাখি মুসলমান। আপনারা সেইটাই বা মানবেন?

লিখেছেন মঞ্জুর চৌধুরী, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২১ রাত ১:০১

নিউজিল্যান্ডে মসজিদে এক বন্দুকধারী জুম্মার নামাজের সময়ে ঢুকে গুলি করে অর্ধশত মুসলমান মেরে ফেলল। হোয়াইট সুপ্রিমিস্ট সেই ফ্যানাটিক সন্ত্রাসীর যুক্তি ছিল পরিষ্কার, "মুসলিমরা সবকিছু দখল করে ফেলছে।"
জেনোফোবিক, ইসলামোফোবিক, মহা... ...বাকিটুকু পড়ুন

ব্লগে লগ ইন করুন নয়তো সামু শূন্যতায় ভেসে যাবে

লিখেছেন মোঃ মাইদুল সরকার, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২১ সকাল ১১:০০



দিনকে দিন সামুতে ব্লগারের সংখ্যা কমছে। হাজার হাজার ব্লগার আছেন। কিন্তু লগ ইন হননা। কেন তারা ব্লগে আসেনা সেটা এক কথায় বলা কঠিন। বিভিন্ন জনের বিভিন্ন যুক্তি। পুরোনোরা কেউ... ...বাকিটুকু পড়ুন

অন্বিষ্ট

লিখেছেন শিখা রহমান, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২১ বিকাল ৪:৫৮


আজকাল কোন কিছুই আর অবাক করে না।
রাজপথে ফুটপাতে হেঁটে যাওয়া অগণিত মানুষের গল্প
খুব সাদামাটা মনে হয়;
কোন কবিতাই অবাক করে না আর,
উপমা-উৎপ্রেক্ষা শব্দের ব্যাঞ্জনা আশ্চর্য করে না আজকাল।

মহামারীতে উজাড় হয়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

×