somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

একুশে গ্রন্থমেলা এবং নজরবন্দী কথন!

১৯ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ সকাল ১১:০৯
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


নজরবন্দী বই মেলায় আসতে আসতে ফেব্রুয়ারীর তের তারিখ লেগে যায়! অবশ্য প্রকাশকেরও কিছু করবার ছিলনা কারন প্রেসে এত পরিমান চাপ চলছিল যে তিনিও রীতিমত হিমশিম খাচ্ছিলেন। যাই হোক তবু আমি তার প্রতি কৃতজ্ঞ কারন হয়তোবা তার কারনেই নজরবন্দী তার বন্দী অবস্থা হতে মুক্তি লাভ করেছে। আমি আরেকজন মানুষের প্রতি আমার কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে চাই, যিনি হলেন জাদিদ ভাই। নজরবন্দীর সাথে তার সম্পর্কটা হল প্রচ্ছদের! প্রচ্ছদ নিয়ে যে কথাটা আমি বারংবার বলতে চাই- আমি পুরো গল্পটি লিখেছি ১৩৪ পৃষ্ঠায় আর জাদিদ ভাই সেই পুরো ১৩৪ পৃষ্ঠার মহা বয়ানকে মাত্র একটা পৃষ্ঠায় বলে ফেলেছেন, কোন রকম আর্থিক লাভালাভ ছাড়াই!

নজরবন্দী তার ভার্চুয়াল অবস্থা থেকে একটা মলাটের ভেতরে আসবে এটাই আমার জন্য বেশ বড় একটা পাওনা ছিল কিন্তু আপনারা সহব্লগারগন এটিকে এমন একটা উচ্চতায় নিয়ে গেলেন যে আমি সত্যিই ধন্য, আমার কৃতজ্ঞতা জানাবার ভাষা নেই।

যাই হোক চলেন, নজরবন্দী সংশ্লিষ্ট বই মেলার ছবি দেখি!


মোড়ক উন্মোচনের মত ঝামেলায় যাই নাই! ছবিতে আছেন জাদিদ ভাই, ব্লগার নীল সাধু দাদা, ব্লগার হামিদ আহসান, এক রঙ্গা এক ঘুড়ি প্রকাশনীর প্রকাশক শিমুল আহমেদ, এক রঙ্গা এক ঘুড়ি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সভাপতি শ্রদ্ধেয় কিবরিয়া ভাই এবং অন্যান্য!


নজরবন্দী তুই একটা ভালোবাসা! এ ভালোবাসা প্রকাশযোগ্য নয়!


প্রচ্ছদ করবার পরেও নজরবন্দীর প্রথম কপিটি তিনি কিনে নিলেন! নির্বাক আমি হতবাক!


ব্লগার শিখা রহমানের সাথে


কামরুন নাহার লিলিয়ানের সাথে ঘুড়ি স্টলের সামনে


ঘুড়ি স্টলের সামনে আড্ডা!


ব্লগার নীল সাধু দাদা! যে মানুষটা প্রথম নজরবন্দী পড়বার পর আমাকে শক্তিমান লেখক হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন যদিও আমি সেটা নই বরং এটা আমার প্রতি তার স্নেহ-বাৎসল্যতা


বইয়ের মান চেক করবার সময়


কবি এবং পুলিশের এস পি ফারহাত ভাইয়ের সাথে


বই মেলায় এসে কেউ খাওয়াতে চাইলে আমরা অবশ্য না করি না


আমি, শিখা আপা, নীল দা আর কিবরিয়া ভাই


বই মেলায় নেটওয়ার্ক নাই!


এসেছিলেন বড় ভাই সমতুল্য নেক্সাস ভাই এবং বন্ধু প্রতিম সুমন কর দা


দুবাই থেকে উড়ে এসেছেন মনিরাপা! যদিও তিনি স্বীকার-ই করেন না যে তিনি শুধু নজরবন্দীর জন্য ছুটে এসেছেন।


তাসলিমা আপা! তিনিও ছুটে এসেছেন শুধু তার ছোট ভাই এবং ছোট ভাইয়ের সৃষ্টিকে উদ্দেশ্য করে।


শক্তিশালী লেখক মূলত তিনি-ই! বায়োস্কপের লেখক প্রিয় কাওসার ভাই!


আছেন মাহবুবুল আজাদ এবং জাহিদ অনিক


ব্লগার তারেক_মাহমুদের সাথে


আছেন কবি রেজওয়ান তানিম ভাই!


ব্লগার ছাড়াও প্রতিদিন আরো অনেকে আসছেন।

প্রিয় সহব্লগারগন,
নজরবন্দীর প্রতি আপনাদের এমন রেসপন্সে আমি সত্যিই ধন্য এবং আমি আশা করছি অনেকের হাতেই নজরবন্দী পৌছে গিয়েছে। অনেকের সাথে ছবি তোলার সৌভাগ্য আমার হয় নাই কিন্তু তারা নিয়ে গিয়েছেন। তাদের প্রতিও আমার কৃতজ্ঞতা।

প্রিয় বন্ধু! আমি এখন শুনতে চাই। নজরবন্দী পড়তে গিয়ে আপনাদের ভালো লাগা এবং খারাপ লাগার জায়গাগুলো! নির্দ্বিধায় আপনারা শেয়ার করতে পারেন। আমি অধীর আগ্রহে আপনাদের শোনার অপেক্ষায় রয়েছি।

আর যারা এখনো নজরবন্দী সংগ্রহ করেন নাই কিন্তু করতে চান তবে চলে আসুন একুশে গ্রন্থ মেলায়, এক রঙ্গা এক ঘুড়ির ৪৩৪ নম্বর স্টলে। সেখানে আমরা আছি, সহ-ব্লগারগন আছেন।
সর্বশেষ এডিট : ১৯ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ১:১০
১৯টি মন্তব্য ১৭টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

আত্মজৈবনিক উপন্যাসঃ স্বপ্ন বাসর (পর্ব-১৮)

লিখেছেন আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম, ২১ শে নভেম্বর, ২০১৯ ভোর ৫:৪১



আত্মজৈবনিক উপন্যাসঃ স্বপ্ন বাসর (পর্ব-১৭)

বসন্ত নাহি এ ধরায় আর আগের মতো
জ্যোৎস্নাযামিনী যৌবনহারা জীবনহত
আর বুঝি কেহ বাজায়না বীণা
কে জানে কাননে ফুল ফোটে কিনা

দেশ স্বাধীন হলো।... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমার স্বপ্ন

লিখেছেন রাজীব নুর, ২১ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ৯:৩৪




১। সোমাবার রাতের ঘটনা।
রাত ১১ টায় বিছানায় গেলাম। ঠিক করলাম আজ ঘুম না এলেও চোখ বন্ধ করে পড়ে থাকব। ঘুমের দরকার আছে- সুন্দর এবং সুস্থভাবে বেঁচে থাকার জন্য।... ...বাকিটুকু পড়ুন

আসসালামু আলাইকুম। কারও বিরক্তি উদ্রেক করলে ক্ষমা প্রার্থী

লিখেছেন শের শায়রী, ২১ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:০৫



ম্যায় আপনে ঘর মে হী আজনবী হো গয়্যা হু আকর
মুঝে ইয়া দেখকর, মেরি রুহ ডর গয়্যি হ্যায়
সহমকে সব আরজু কোনে মে যা ছুপী হ্যায়
লবে বুঝা দি আপনে চেহেরো কি হসরতোনে
কি... ...বাকিটুকু পড়ুন

শ্রাউড অভ তুরিন অথবা যীশুর কাফন (প্রথম পর্ব)

লিখেছেন শের শায়রী, ২১ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:৫৩



সন্ধ্যা তখন ঘনিয়ে এসেছে, সেদিন ছিল প্রস্ততির দিন অর্থ্যাৎ সাব্বাথের দিনের আগের দিন। সে জন্য আরিম্যাথিয়া নিবাসী জোসেফ সেখানে এলেন। ইনি ছিলেন ধর্ম সভার একজন সন্মানিত সদস্য। তিনি ঐশী... ...বাকিটুকু পড়ুন

ব্লগ ডে- ২০১৯

লিখেছেন শায়মা, ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:০৮


"ব্লগ ডে" এ দু'টি শব্দ মনে পড়লে আমার চোখে ভাসে কৌশিকভাইয়ার অসাধারণ কন্ঠে উপস্থাপনার ছবিটি। চোখে ভাসে জানা আপুর ছিপছিপে শাড়ি পরা চেহারাটা। চোখে ভাসে প্রায় তুষার কন্যা টাইপ ধপধপে... ...বাকিটুকু পড়ুন

×