somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

রিকশা: সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

২১ শে জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৭:২৭
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



বাংলাদেশের মানুষকে রিকশা সর্ম্পকে কিছু বলা আর এসকিমোদের বরফ চেনানো একই কথা। অথচ, পূর্ব বাংলায় রিকশা কোথা থেকে এল-কত সাল থেকে এতদ্বঞ্চলে রিকশা চলতে শুরু করল, বা ১৯৪১ সালে ঢাকায় কতটি রিকশা ছিল- এসব প্রশ্নের উত্তরে ‘ইয়ে’ ‘ইয়ে’ করবেন অনেকেই। সে কারণেই রিকশার কাহিনীমূলক এ পোষ্ট ...


পালকি থেকে রিকশা

আগে ছিল কাহার-টানা পালকি; তারপর রিকশা। রিকশার উদ্ভব জাপানে । ১৮৬৮ খ্রিষ্টাব্দের দিকে। সেই জাপান দেশেও আগে ছিল মানুষ-টানা পালকি। তারপর রিকশা। ১৮৭০ সালের পর রিকশা সে দেশে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। কারণ একটাই। পালকির চেয়ে রিকশা দ্রুত দৌড়ায়। আর ঘোড়ার চেয়ে মানবশ্রম ছিল সস্তা। ঘোড়ারগাড়ি বড়লোকের বাহন।

নাম

মানবশক্তির শকট বা man-power carriage এর জাপানি হল nj jin-riki-sha.
কাজেই-


কে প্রথম বানাল ত্রিচক্রযান?


ঠিক কে প্রথম রিকশা বানাল আজও জানা যায়নি। মার্কিনিরা এই দাবী করে যে অ্যালবার্ট টোলম্যান নামে এক মার্কিন কামার নাকি মিশনারীদের জন্য ১৮৪৮ সালে প্রথম রিকশা তৈরি করে। কোথায়? ম্যাসাচুসেটস-এ। জায়গাটা আমেরিকার বোস্টনে।
অন্যরা বলে জোনাথন স্কোবি নামে একজন মার্কিন মিশনারী ১৮৬৯ খ্রিস্টাবের দিকে রিকশার উদ্ ভাবন করেন। জাপানে । স্কোবি থাকতেন জাপানের ইয়াকোহামায় । স্কোবির স্ত্রী ছিলেন চলৎশক্তিহীন, মানে ইনভ্যালিড। ইয়াকোহামায় রাস্তায় স্ত্রীর চলাচলের সুবিদাথেই নাকি স্কোবি রিকশা বানিয়ে ফেলেন! ...অন্যরা আবার বলে যে ইজুমি ইয়োসুকি রিকশার আবিস্কারক । সালটা ১৮৬৯। ইজুমি ইয়োসুকি নাকি রেস্তোঁরা মালিক ছিলেন । আবার এও শোনা যায় যে ১৮৮৮ সালে একজন মার্কিন বাপ্তিস্ত মিনিষ্টার রিকশার উদ্ ভাবন করেন।
বোঝা গেল ত্রিচক্রযান তৈরির ক্রেডিট সবাই নিতে চায়।

জাপান

জাপানিরা অবশ্য তিনজন ব্যাক্তিকে রিকশা আবিস্কারের কৃতিত্ব দেয়।
এরা হলেন- ইজুমি ইয়োসুকি, সুজুকি টোকুজিরো এবং তাকায়ামা কোসুকি। বলা হয় যে এরা সেই ১৮৬৮ সালেই রিকশা আবিস্কার করেছেন। এর কিছুকাল আগে জাপানের টোকিয়ো শহরের রাস্তায় অশ্ব শকট মানে ঘোড়াগাড়ি চলতে শুরু করে। ১৮৭০ খ্রিষ্টাব্দে টোকিও সরকার এই তিনজনকে রিকশা তৈরি ও বিক্রির অনুমতি দেয়। রিকশা চালানোর লাইসেন্স হিসেবে এই তিনজনের একজনের সীল লাগত অনুমতিপত্রে।



১৮৭২ খিষ্টাব্দে টোকিয়ো শহরে সর্বমোট রিকশার সংখ্যা ছিল ৪০,০০০ । তখন থেকেই এটি জাপানি জনগনের গমনাগমনের প্রধান বাহন হয়ে ওঠে।




এরপর আরম্ভ হয় রিকশার বৈদেশিক যাত্রা।
১৮৮০ সালের দিকে রিকশা পৌঁছয় ইন্ডিয়া । প্রথমে সিমলায়; এরপর কুড়ি বছর পর কলকাতায়। অর্থাৎ, ১৯০০ সালের দিকে রিকশা পৌঁছয় কলকাতায় । কলকাতায় সে সময় প্রচুর সংখ্যক চিনে বাস করত চায়নাটাউনে। চিনেরই প্রধানত রিকশা ব্যবহার করত। তবে মালামাল টানার জন্য যাত্রী বাওয়ার জন্য না ।



কোলকাতার রিকশা

এর ১৪ বছর পর তারা কলকাতার পৌরসভায় রিকশায় প্যাসেঞ্জার নেওয়ার জন্য অনুমতি চাইল। অনুমতি মিলল। কেননা, শীঘ্রই ভূমি থেকে উৎখাত হয়ে শহরে আসা কৃষকের প্রথম পেশা হয়ে উঠছিল রিকশা বাওয়া।

পূর্ব বাংলায়

আরও দশ পনেরো বছর কাটল। উনিশ শ তিরিশ ও চল্লিশের দশকে ইন্দোনেশিয়া, সিঙ্গাপুর ও দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশে রিকশা হয়ে ওঠে জনপ্রিয়। ১৯১৯। বার্মা থেকে রিকশা প্রথম ঢোকে পূর্ব বাংলায়। চট্টগ্রামে। মজার কথা হল- ঢাকায় কিন্তু রিকশা চট্টগ্রাম থেকে আসেনি। এসেছে কলকাতা থেকে। নারায়নগঞ্জের ও ময়মনসিংহের নেত্রকোনার ইউরোপীয় পাট ব্যবসায়ীরা নিজস্ব ব্যবহারের জন্য কলকাতা থেকে সাইকেল রিকশা আনে। ঢাকায় চলত ঘোড়াগাড়ি, পালকি আর ধোলাই (ও অন্যান্য) খালের নৌকা। কাজেই নতুন ত্রিচক্রযানটি ব্যাপক কৌতূহল সৃষ্টি করেছিল।
প্রথম প্রথম ঢাকাবাসীরা সাইকেল রিকশা চাপতে চায়নি।
যাক। ১৯৪১ সালে ঢাকায় কতটি রিকশা ছিলো বলেন তো?
৩৭ টি।
আর ১৯৪৭ সালে ১৮১টি।
১৮৪৭ সালের আগে ঢাকা ছিল জেলাশহর। ১৯৫১ সালের আদমশুমারী অনুযায়ী জনসংখ্যা ছিল মাত্র ৬২,৪৬৯ জন!!! ১৯৯৮ সালে ৮০ লক্ষ। এবং রেজি রিকশা ১১২,৫৭২ টি!
আসলে তো আরও বেশি।
এই হল রিকশাকাহিনী।



ভবিষ্যতের রিকশা?

আধুনিক রিকশা নিয়ে চমৎকার একটি পোষ্ট

Click This Link
সর্বশেষ এডিট : ০২ রা জুন, ২০১২ ভোর ৬:৪৫
২৮টি মন্তব্য ২৮টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

মাংস পোলাও

লিখেছেন ঠাকুরমাহমুদ, ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:০১



সেন্ট্রাল ঢাকার কথা মনে হলেই সামার সাহেবের মনে ও শরীরে শত সহস্র ক্লান্তি এসে ভর করে। রাজধানী ঢাকার সড়কে এতো এতো জ্যাম পেড়িয়ে সেন্ট্রাল ঢাকাতে যাওয়া সত্যি সত্যি এক... ...বাকিটুকু পড়ুন

যে চিঠির কারণে ভারতীয় উপমহাদেশের ট্রেনগুলোতে টয়লেট বানানো হয়েছিলো

লিখেছেন সত্যপথিক শাইয়্যান, ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:২১

অখিল বাবু অখণ্ড ভারতের আহমেদপুর স্টেশনে প্রাকৃতিক কাজ সারার জন্যে ট্রেন থেকে নেমেছেন। হঠাৎ করেই গাড়ি ছেড়ে দিলো। এতে তিনি খুব অপদস্থ হোন। অখিল বাবু এরপরে রেল বিভাগের উচ্চ কর্মকর্তার... ...বাকিটুকু পড়ুন

বাবনিক-৩য় পর্ব (দ্বিতীয় খন্ড)

লিখেছেন শেরজা তপন, ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:৪৪


আগের পর্বের জন্যঃ Click This Link
লিনার সাথে এর মাঝে কয়েকবার দেখা সাক্ষাৎ হয়েছে। দু-য়েকবার পার্কে আর বাকি সময় বাসাতেই। ওর মায়ের সাথে গল্প হয়েছে- তিনি একদিন আমাকে ঐতিহ্যবাহী বোরিশ স্যুপ রান্না করে... ...বাকিটুকু পড়ুন

ওয়েলস রাজ্যে গমন, ভ্রমন এবং একটা ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতা

লিখেছেন ভুয়া মফিজ, ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ দুপুর ১২:০৩



গত ১৭ তারিখ শুক্রবার সকালে অফিসে গিয়েই একাধারে দুঃসংবাদ এবং সুসংবাদ শুনলাম। আগে সুসংবাদটা বলি। সেটা হলো, সোমবার সকালে তিনদিনের জন্য আমাকে ওয়েলস যেতে হবে। আর দুঃসংবাদটা এক কথায়... ...বাকিটুকু পড়ুন

এর মধ্যে থেকে সেরা তিনটি ছবি নির্বাচন করুন

লিখেছেন অর্ক, ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ দুপুর ১২:১৫

আপনার দৃষ্টিতে এই ছবিগুলোর মধ্যে সেরা তিনটি ছবি কোন তিনটি? ক্রমিক দিয়ে জানান। অল্প কথায় নির্বাচনের কারণ জানালে তো আরও দারুণ হবে। সবাইকে অনেক ধন্যবাদ। শুভকামনা সবসময়।

১.


Sharmishtha Bera

... ...বাকিটুকু পড়ুন

×