somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

প্রয়োজনীয় শয়তান বনাম অসহনীয় শয়তান

১২ ই মার্চ, ২০২২ দুপুর ১২:৫৬
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

১.
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের লিথিয়ামের নিদারুণ প্রয়োজন। চীনের বাইরে ইউক্রেইন-ই একমাত্র জায়গা যেখানে এই জিনিসের নির্ভরযোগ্য আমানত রয়েছে।

বর্তমান পরিস্থিতিটি কেবলমাত্র বিদ্যমান কারণ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ২০১৪ সালে যে 'অভ্যুত্থান' সংগঠিত করেছিল তৎকালীন গণতান্ত্রিক সরকারকে এক নব্য-নাৎসি-মার্কিনের-ইশারায়-নাঁচা-পুতুল-সরকার দ্বারা প্রতিস্থাপিত করার জন্য, তাতে বেশিরভাগ রাশিয়ান জাতিগত সম্প্রদায়ের উপর গণহত্যামূলক আক্রমণ চালানোর জন্য ক্রমাগতভাবে সিআইএ দ্বারা প্রশিক্ষিত এক সেনাবাহিনী ব্যবহার করা হয়েছে। এই রাশিয়ান জাতিসত্তারা অভিবাসী নয়। ইউক্রেইন এসব রাশিয়ান জনগণের ভিটেবাড়ি। ইউক্রেইন তাদের জেরুজালেম; ভাবেন, রাশিয়া এখন ইজরায়েল। ধরেন, ইউক্রেইনীয় নাগরিকদের উপর ইউক্রেইনের পুতুল সরকারের এই আক্রমণগুলি এখন এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে রাশিয়ান জাতিসত্তারা তাদের নিজেদের বেঁচে থাকার জন্য, রাশিয়ার কাছ থেকে সহায়তা এবং সুরক্ষার অনুরোধ জানাতে বাধ্য হয়েছে। মার্কিনরা বা ন্যাটো যখন অনুরূপ অনুরোধে সাড়া দেয় তখন তারা এটিকে আক্রমণের পরিবর্তে 'শান্তি রক্ষা মিশন' নামে অবিহিত করার প্রবণতা দেখায়।

এখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ন্যাটোর রাশিয়ার সীমান্তে যে অবিশ্বাস্য সংখ্যক ক্ষেপণাস্ত্র সরাসরি রাশিয়ার দিকে তাক করা রয়েছে তা যে বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক চুক্তি লঙ্ঘন করে সেটা আর নতুন তথ্য নয়। যাহোক, এইযুদ্ধে আমেরিকাই একমাত্র বিজয়ী।

সবই ইতিহাস বইয়ের বিষয়, কি ঘটছে তা নিয়ে কোনো ধরনের ভারসাম্যপূর্ণ আলোচনা করার আগে যেসব জিনিসগুলি জানা উচিত। ইতিহাস থেকে শেখার ক্ষেত্রে বস্তুনিষ্ঠভাবে ঘটনাসমগ্রকে দেখা শিখতে হবে। যদি সর্বদা নিজের রাজনৈতিক পক্ষপাতযুক্ত ছাঁকনির মাধ্যমে সেগুলোকে দেখা হয় তবে সত্যের আনুমানিক রূপটাও শেখা সম্ভব না। অবশ্যই, সবাই তো আর সত্য বা বাস্তব ঘটনা সম্পর্কে আগ্রহী নয়... তারচে' আসেন, ফিলিস্তিন নিয়ে গালগল্প করি...

২.
ভ্লাদিমির পুতিনের মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ বর্ণনা করার জন্য সবচেয়ে শক্তিশালী এবং বলিষ্ঠ ভাষা সঠিকভাবে ব্যবহার করতে পেরে আমরা সবাই অত্যন্ত খুশি। কিন্তু ফিলিস্তিনিদের প্রতি ইসরায়েলের আচরণের বর্ণনা দেওয়ার ক্ষেত্রে আমরা একইধরনের শক্তিশালী ভাষা ব্যবহার করি না, যদিও না বিশ্বের সবচেয়ে সম্মানিত দুই মানবাধিকার সংস্থা সেই অন্যায়ের অধ্যায় নথিভুক্ত এবং বিশদভাবে বর্ণনা করেছে। আমরা কয়েক দিনের মধ্যেই পুতিনের আগ্রাসীশাসনব্যবাস্থাকে নিন্দা করতে এবং জরুরী পদক্ষেপ নিতে এবং তাতে ভাষার যে শক্তি ব্যবহার করা হয়েছে বর্বর, ঠগ, খুনি, যুদ্ধবাজ (যার সবই সত্য) পুতিনের বিরুদ্ধে সঠিকভাবে সমালোচনা করতে, তা আসলে একতরফা । এই সমস্ত বিশেষণ, এই সমস্ত জিনিসগুলি রাষ্ট্র হিসাবে ইসরায়েল ফিলিস্তিনিদের সাথে যে আচরণ করে তার ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। এবং তবুও, এই বিশ্ব ভাষার ব্যবহার নিয়ে উদ্বিগ্ন এবং 'বর্ণবাদ' শব্দটি ব্যবহার করাও যেন উপযুক্ত বলে মনে করে না যখন খুব অল্প সময়ের মধ্যেই অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এবং হিউম্যান রাইটস ওয়াচ তাদের প্রতিবেদনগুলিতে ইসরায়েল-এর জঘন্যতা প্রকাশ করে বলেছে যে, এর জন্ম থেকেই, ইসরায়েল এমন একটি রাষ্ট্রকাঠামো যা নিপীড়ন এবং আধিপত্য এবং বর্ণবাদ এবং বৈষম্যের উপর ভিত্তি করে নির্মিত হয়েছে, যা নিয়মতিভাবে নিরস্ত্র নিরপরাধ বেসামরিকদের হত্যা, নির্বিচারে আটক এবং কারাদান, ভূমি দখল ও সংযুক্তি, মানুষের স্থানচ্যুতি ইত্যাদি অপরাধ দ্বারা সংগঠিত। ইসরায়েল ফিলিস্তিনের অধিকৃত অঞ্চল ও তার বাইরে বাস্তুচ্যুত হওয়া ৬০ লা্খ ফিলিস্তিনিদের মৌলিক অধিকার এবং তাদের ঘরে ফিরে যাওয়ার অধিকারকে অস্বীকার করে যাচ্ছে। ইজরায়েল কর্তৃক গাজার অবৈধ অবরোধ, যা প্রতিবেদনগুলোতে বলা হয়েছে, গাজায় এক চিরস্থায়ী মানবিক সংকটের সৃষ্টি করেছে, যেখানে মানুষের খাদ্য ও পানির মত মৌলিক চাহিদাকেও অস্বীকার করা হয় এবং ফিলিস্তিনি জনসংখ্যার সমষ্টিকে সামগ্রিকভাবে একটি নিকৃষ্ট জাতি হিসাবে বিবেচনা করা হয়। এর চেয়ে শক্তিশালী ও কঠোর আর কিছু হয় না। এমনকি 'বর্ণবৈষম্য' শব্দটাও অনেকে ব্যবহার করতে চায় না, অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার কথা না হয় বাদই দিলাম। পুতিন ও তার গুন্ডাদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করতে লাগলো মাত্র কয়দিন, আর এদিকে ৭০ বছরের নিপীড়ন আর তারপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করাটা পৃথিবীর জন্য 'লাভজনক' হবে না। মানবতাবিরোধী অপরাধের জন্য ইসরায়েলকে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে পাঠানোর আহ্বান জানিয়েছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। আমরা কি এটা সমর্থন করবো না? ইসরায়েলি কর্মকর্তাদের, যারা বর্ণবাদের ব্যবস্থাকে এতদিনে স্থায়ী করেছে, লক্ষ্যবস্তু বানিয়ে তাদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার আহ্বান জানাচ্ছে মানবাধিকার সংস্থাগুলো । ঠিক ঠিক একই ধরনের নিষেধাজ্ঞা ভ্লাদিমির পুতিনের বিরুদ্ধেও তো শুরু হলো । আমরা কেন তাহলে অন্যটাও সমর্থন করবো না?
সর্বশেষ এডিট : ১২ ই মার্চ, ২০২২ দুপুর ১:৫৬
২টি মন্তব্য ১টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

স্মৃতি গুলো মনে পড়ে যায় ছোট বেলার হাসি ভরা দিনে, মনে পড়ে যায় মন হারায়, হারানো দিন স্মৃতির পটে

লিখেছেন সাড়ে চুয়াত্তর, ২৪ শে জুন, ২০২২ দুপুর ২:১৪


ছোটবেলায় রাজু ভাইয়ের কাছে কাগজ দিয়ে খেলনা বানানো শিখেছিলাম। ১৯৭৯ সালে রাজু ভাই পড়েন তখন চতুর্থ শ্রেণীতে আর আমি পড়ি প্রথম শ্রেণীতে। ওনাদের পরিবার আমাদের প্রতিবেশী ছিলেন। উনি নিজেও... ...বাকিটুকু পড়ুন

লীগের জন্মদিনে শেষ হাসিনা তারেককে নিয়ে এত কথা কেন বললেন?

লিখেছেন সোনাগাজী, ২৪ শে জুন, ২০২২ বিকাল ৪:০১



আওয়ামী লীগের ৭৩'তম জন্মবার্ষিকীর সভায় দলীয় নেতাদের সামনে, শেখ হাসিনা তাঁর বক্তব্যে জিয়াদের নিয়ে অনেক কথা বলেছেন! ব্যাপার কি, তিনি কি তারেক জিয়ার ভয়ে আছেন? তিনি কি ভাবছেন... ...বাকিটুকু পড়ুন

বর্ষপূর্তিতে তুমি আমার ব্লগে এসো !:#P

লিখেছেন মোহাম্মদ গোফরান, ২৪ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:০৪


ভেতরে যা যা আছে:
১) সামুর বর্তমান একটিভ ব্লগার দের কাদের আমার ভালো লাগে।
২) প্রিয় ব্লগারদের সম্পর্কে কটা কথা,
৩) কিছু ছবি
৪) নিজের ব্লগ জীবন ও... ...বাকিটুকু পড়ুন

পদ্মাসেতু যাদের ভিটেমাটিতে, তাদের টোলের লভ্যাংশ দেয়া উচিত?

লিখেছেন শূন্য সারমর্ম, ২৪ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:৩৪





টোলের ভাগ উহারা চায়, উহারা জেনেছে টোল আদায়ের পর সরকারের লাভ হবে ; সরকার লাভ করার পরেই তাদের কিছু অংশ যেন দেয়া হয়।তবেতিন জেলা(মুন্সীগন্জ,মাদারীপুর,শরীয়তপুর) ২২ হাজার ৫০০ পরিবার সবাই... ...বাকিটুকু পড়ুন

ড: ইউনুস সাহেব পদ্মার উদ্বোধনে যোগদান করবেন তো?

লিখেছেন সোনাগাজী, ২৪ শে জুন, ২০২২ রাত ১০:৪৭



পদ্মার উদ্বোধনে ড: ইউনুস সাহেবকে নিমন্ত্রণ করা হয়েছে; আশাকরি, উনি যোগদান করবেন; যদি উনি কোন কারণে যোগদান না করেন, ইহা হবে মারাত্মক ভুল।... ...বাকিটুকু পড়ুন

×