somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

দারাশিকো
পাল্টে দেবার স্বপ্ন আমার এখনো গেল না ... এই স্লোগান নিয়ে ব্লগিং শুরু করেছিলাম এই সামহোয়্যারইনব্লগেই, ২০০৮ সালে। এখন নানা ব্যস্ততায় লেখালিখি খুব কমই হয়। আমন্ত্রণ রইল আমার ওয়েবসাইট https://darashiko.com -এ।

বিশ্ব পর্যটন দিবসে ‘গ্রাম’ ভাবনা

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৯:৫১
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



আজ বিশ্ব পর্যটন দিবস। এ বছরের প্রতিপাদ্য হলো, ‘গ্রামীণ উন্নয়নে পর্যটন’। প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতি এ উপলক্ষে পৃথক বাণী দিয়েছেন।

করোনা মহামারির এই ক্রান্তিকালেও বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বে দিবসটি বিভিন্ন উপায়ে পালন করা হচ্ছে। এ কথা কে না জানে, করোনার কারণে বিশ্বের সবচেয়ে বিপর্যস্ত শিল্পগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো পর্যটন শিল্প। করোনাত্তোরকালে এই শিল্পকে কীভাবে দ্রুততম উপায়ে পুনরুজ্জীবিত করা সম্ভব সে বিষয়ে নানা রকম গবেষণা-চিন্তাভাবনা চলছে।

বিপর্যস্ত শিল্পকে পুনরুদ্ধার করার জন্য সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগ অপরিহার্য এবং এ বিষয়ে আমার ব্যক্তিগত কোন মতামত নেই। তবে, বিশ্ব পর্যটন দিবসে আমার কিছু ব্যক্তিগত চিন্তাভাবনা তুলে ধরা যেতে পারে।

২০২০ সালের বিশ্ব পর্যটন দিবসের প্রতিপাদ্য প্রসঙ্গে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, সরকারের উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় অদম্য বাংলাদেশের অন্যতম এজেন্ডা ‘গ্রাম হবে শহর’ এর সঙ্গে জাতিসংঘ বিশ্ব পর্যটন সংস্থা কর্তৃক ঘোষিত প্রতিপাদ্যের সঙ্গে অত্যন্ত সংগতিপূর্ণ। আওয়ামী লীগের ২০১৮ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে ‘গ্রাম হবে শহর’ মর্মে অঙ্গীকার করা হয়েছিল। এই অঙ্গীকারের সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা পাওয়া না গেলেও ধারণা করা যায়, গ্রামগুলোকে শহরের ন্যায় সুযোগ-সুবিধা পরিপূর্ণ করা হবে। গ্রামকে শহরে রূপান্তর করতে গিয়ে গ্রামের যে চিরাচরিত অপরূপ সৌন্দর্য, তা কি বজায় থাকবে? সারা দেশে বর্তমানে যে উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড চলছে তা কিন্তু আমাদের আশান্বিত করে না।

বাংলাদেশের প্রায় সবগুলো জেলা ঘুরতে গিয়ে গ্রামের নানা রূপ প্রত্যক্ষ করার সৌভাগ্য আমার হয়েছে। কিন্তু এই রূপের সঙ্গে আমার শৈশবের দেখা গ্রামের কোন মিল আমি আর খুঁজে পাই না। আমার নানাবাড়ি থেকে ২০০ মিটার দূরত্বে একটি খাল ছিল। আমরা নানাবাড়িতে যেতাম নৌকায় চড়ে। ঘণ্টা দুই-তিনেক লাগতো। মাঝি বৈঠা হাতে নৌকা বাইতো, আমরা নৌকার ছাউনির নিচে বসে খালের আশপাশের দৃশ্য দেখতে দেখতে যেতাম। আম্মা তার ব্যাগ থেকে ঘরে বানানো খাবার বের করে আমাদের খেতে দিতেন। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই নৌকার মাঝি হতো আম্মার পরিচিত কেউ। তখন আম্মা ছাউনির ভেতর থেকে মাঝির কাছে গ্রামের লোকদের খোঁজ-খবর নিতেন। বিকেল বেলা আমরা হাঁটতে হাঁটতে খালের পাড়ে এসে একটা তালগাছের গোড়ায় বসতাম। কিছুক্ষণ পরপর বৈঠায় চালিত নৌকা যেতো আমাদের সামনে দিয়ে।

দিনে দু-তিনবার নানাবাড়িতে বসেই আমরা শুনতে পেতাম গ্রামের নিস্তব্ধতা ছিন্নভিন্ন করে ভটভট শব্দে কোন ট্রলার যাচ্ছে। অনেকক্ষণ ধরে শোনা যেতো সেই শব্দ, একসময় মিলিয়ে যেতো দূর-দুরান্তে।

নানাবাড়িসহ বেশির ভাগ বাড়িতেই ছিল মাটির ঘর। মানে, দেয়ালগুলো মাটিতে তৈরি, ছাঁট টিনের। অপেক্ষাকৃত দরিদ্রদের ঘরগুলোর ছাদ অবশ্য গোলপাতা, ছন ইত্যাদির তৈরি। মাটির তৈরি ঘর হওয়ার কারণে ঘরের মধ্যে একটা অপরিচিত অদ্ভুত সোঁদা গন্ধ পাওয়া যেতো। নানিসহ বাড়ির অন্যান্য মহিলাদের গোবর দিয়ে মাটির ঘরের দেয়াল, মেঝে লেপতে দেখেছি। আশপাশে প্রচুর গাছ। আর ছিল পুকুর। বৃষ্টির দিনে সেই ঘরের মাদকতাপূর্ণ অভিজ্ঞতা কখনই ভোলা সম্ভব নয়।

রাতের বেলা পুরো গ্রামটা তলিয়ে যেতো নিশ্ছিদ্র অন্ধকারে। আকাশে চাঁদ থাকলে তার আলোতেই পথ চলা যেতো, তবে সবার হাতে থাকতো টর্চ লাইট, অনেকের হাতে কেরোসিনের বাতি বা হারিকেন। ঘরে জ্বলতো হারিকেন, কুপি। সেই আলোতেই খাওয়া-দাওয়াসহ নৈমিত্তিক সকল কাজ সারতে হতো। ঝিঁঝি পোকার চিৎকারে কান ঝালাপালা হয়ে যায়।

গ্রামের বাড়ির অভিজ্ঞতা বলতে গেলে শেষ করা সম্ভব হবে না। আজ থেকে ত্রিশ বছর আগে যারা বাংলাদেশের গ্রামে গিয়েছেন, থেকেছেন— তাদের সবার অভিজ্ঞতা এ রকমই হবে। এখন নানাবাড়ির সেই রূপ আর নেই। গাছপালা কমে গেছে অনেক, খালটি শুকিয়ে ড্রেনে পরিণত হয়েছে, সেখানে কোন নৌকাই চলে না। গ্রামে বিদ্যুৎ আছে, সবার হাতে মোবাইল। কেরোসিনের বাতি হারিয়ে গেছে, এখনকার বাচ্চারা হারিকেনই চিনে না।

আমি একটা অদ্ভুত ইচ্ছা আছে। একটা গ্রামের পরিবর্তনকে ইচ্ছাকৃতভাবে আটকে দেওয়া। সেখানে মাটির-টিনের-ছনের ঘরগুলোকে কোন ইট-পাথরের দালানকোঠায় বদলে দেওয়া হবে না। সেখানে নারীরা সকালবেলা পুকুর ঘাটে হাঁড়ি-পাতিল, থালা-বাসন নিয়ে ঘষামাজা করে ধুবে। সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে গ্রামের শক্ত-সমর্থ পুরুষেরা গরু-লাঙল নিয়ে মাঠে যাবে, গরুকে উদ্দেশ্য করে তাদের ‘হট-হট, হেই-হট’ চিৎকার নির্দেশনা বাড়ি থেকেই শোনা যাবে। রাত্রি সেখানে আসবে গাঢ়-কালো অন্ধকার নিয়ে, জোনাকি উড়ে বেড়াবে মিটিমিটি আলো নিয়ে, আর শোনা যাবে ঝিঁঝি পোকার চিৎকার। ভরা জোছনায় নদী বা খালের তীরে বানানো বাঁশের বেঞ্চিতে বসে শোনা যাবে নদীর কুলকুল শব্দ। শহরের মানুষেরা গ্রামের এই অপরূপ সৌন্দর্য উপভোগ করতে আসবে পরিবার নিয়ে, বাচ্চাদের ধরে ধরে চিনিয়ে দেবে গাছ, পাখি, নৌকা, হারিকেন ইত্যাদি।

আমার দৃষ্টিতে সেটাই হবে গ্রামীণ পর্যটন।

ছবি: ওয়াহিদ সুজন

আজকের দেশ রূপান্তর অনলাইনে প্রকাশিত
সর্বশেষ এডিট : ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৯:৫১
৬টি মন্তব্য ৬টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

পুলিশও মানুষ, তাদেরকে সাহায্যের জন্য আমাদেরও এগিয়ে আসা জরুরী

লিখেছেন মাহমুদুল হাসান কায়রো, ২৫ শে নভেম্বর, ২০২০ রাত ১:৪৩

রাত বারোটা বেজে ১০ মিনিট। কাকরাইল চৌরাস্তায় একটা “বিআরটিসি এসি বাস” রঙ রুটে ঢুকে টান দিচ্ছিলো। কর্তব্যরত ট্রাফিক অফিসার দৌড় গিয়ে বাসের সামনে দাড়ালেন। বাস থেমে গেল। অফিসার হাতের লেজার... ...বাকিটুকু পড়ুন

অবশেষে দৈত্যের পতন

লিখেছেন চাঁদগাজী, ২৫ শে নভেম্বর, ২০২০ রাত ২:৩১



ট্রাম্প দেশের ক্ষমতা হস্তান্তরকারী সংস্হাকে কাজ শুরু করার অর্ডার দিয়েছে; আজ সকাল থেকে সংস্হাটি ( জেনারেল সার্ভিস এজনসীর ) কাজ শুরু করেছে, নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের লোকেরা... ...বাকিটুকু পড়ুন

একটার তো বাহাদুরি মমিনরা নিল, বাকি ভ্যাকসিন গুলোর বাহাদুরি তাহারা নেয় না কেন?

লিখেছেন এ আর ১৫, ২৫ শে নভেম্বর, ২০২০ সকাল ৮:৫২



বাহাদুরির বিষয় হলে যারা ধর্মীয় পরিচয় নিয়ে বাড়াবাড়ি শুরু করেন, তারা জবাব দিবেন কি?
কার্দিয়ানিরা মুসলমান নহে কিন্তু যেহেতু বাহাদুরির বিষয় তাই ডঃ সালাম হয়ে গেলেন মুসলমান... ...বাকিটুকু পড়ুন

নভোনীল পর্ব-১৪ (রিম সাবরিনা জাহান সরকারের অসম্পূর্ণ গল্পের ধারাবাহিকতায়)

লিখেছেন ফয়সাল রকি, ২৫ শে নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৪:৫১



- ময়ী, ময়ী! আর কত ঘুমাবি? এবার ওঠ।
দিদার ডাকতে ডাকতে মৃনের রুমে ঢুকলো। মৃন তখনো বিছানা ছাড়েনি। সারারাত ঘুমাতে পারেনি। ঘুমাবে কী করে? রাজ্যের দুঃশ্চিন্তা ভর করেছিল ওর... ...বাকিটুকু পড়ুন

পৌষের চাদর – মাঘের ওভারকোট

লিখেছেন শাহ আজিজ, ২৫ শে নভেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩৬




চাদর ম্যানেজ করতে পারতাম না বলে কায়দা করে প্যাচ দিয়ে একটা গিটঠু মেরে দিলে আমি দৌড়ানোর উপযুক্ত হতাম । লম্বা বারান্দা দিয়ে ছুটতাম । অবাক চোখে পৌষের কুয়াশা... ...বাকিটুকু পড়ুন

×