somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

যে কথা বলতে চাইনি .....................

২৬ শে মার্চ, ২০১৮ দুপুর ১:১২
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে অনেক পোস্ট এসেছে , হয়তো আরও আসবে । কেউ মুক্তিযুদ্ধের পক্ষ নিয়ে কেউ মুক্তিযুদ্ধকে প্রশ্নবিদ্ধ করে লিখেছেন। বাদানুবাদও হচ্ছে । এরা মনে হয় মুক্তিযুদ্ধকে না দেখে , সেই সময়কালের সব মানুষের ( ২% লোক বাদে) একমাত্র চাওয়াটাকে না বুঝে কেবল ধারনাভিত্তিক ধারনা থেকেই পক্ষে বিপক্ষে বলে যাচ্ছেন ।

সবাইকে বলি , মুক্তিযুদ্ধের সঠিক চেতনা কিম্বা মুক্তির আকাঙ্খা যা-ই বলুন ; আপনাকে মুক্তিযুদ্ধের সময়কালের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট , আপামর জনগণের একমাত্র আকাঙ্খা ঠিকঠাক ভাবে বুঝতে হলে, ধারন করতে হলে , অনুভব করতে হলে সেই সত্তরের উত্তাল সময়ে ফিরে যেতে হবে । ফিরে যেতে হবে আরও পেছনে এমনকি আসতে হবে একাত্তর পরবর্তি সময় গুলোতেও । যেহেতু অনেকের বয়স এর ভেতর পড়েনা , তাই মুক্তিযুদ্ধের মূল সুরটি তাদের কাছে বেসুরো মনে হয় , মনে হয় অচেনা । আর তাতেই বিভ্রান্তি বাড়ে ।

মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস অনেকেই জানেননা এমনটা মনে করেন । ইতিহাস একটাই হয় । বিজয়ীরা তাকে একভাবে লেখেন , বিজিতরা লেখেন অন্যভাবে । কিন্তু বুদ্ধিমান ও বিবেচক মানুষের কাছে ইতিহাস অনেক ঘটনা , ঘটনার পেছনের ঘটনা , ঘটনার সময়কাল , ঘটনার বিশ্লেষণ, ইতিহাসে সম্পৃক্ত মানুষদের মনন - চেতনা নিয়ে ধরা দেবে । তখন বিবেচক মানুষই ইতিহাসের সত্যাসত্য নির্ণয়ে সক্ষম হবেন ।
আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সত্যটুকু এবং পরবর্তী সত্যটুকু বুঝতে হলে বিভিন্ন বই , রেফারেন্স পড়তে হবে, তা যতো রকমের মতবাদের লেখকেরই লেখাই হোক না কেন । জেনে নিতে হবে কমপক্ষে ষাটের উপরের বয়সের মানুষের কাছ থেকে তখনকার মানুষের চাওয়াটাকে । তখনকার দেশের রাজনৈতিক , অর্থনৈতিক এমনকি সামাজিক, ব্যক্তিগত আবহাওয়াটাকেও । তারপরে নিজের বুদ্ধি দিয়ে, বিবেচনা দিয়ে বুঝে নিতে হবে মুক্তিযুদ্ধের সত্যটাকে । তাহলে দেখবেন মুক্তিযুদ্ধের সত্য একটাই “ শোষন থেকে মুক্তির প্রেরনা ” , “সব বাঙালীর এক হয়ে যাওয়া ”। তার জন্যে নেতার অবদানই একমাত্র অবদান নয় , অবদান সত্তর- একাত্তরের ৯৮% জনমানুষের । নেতা কখনই “জনগণ’কে তৈরী করেনা বরং জনগনই একজন “নেতা”কে তৈরী করে । নেতা তাঁর কাজটি করেছেন জনগণকে একটা লক্ষ্যে একত্রিত করে , লক্ষ্যের বাকী সব কাজটুকু করেছেন দলমত নির্বিশেষে এই জনগণই ।
হ্যা, মুক্তিযুদ্ধের পরবর্তী সময়ে অনেক কিছু পাল্টেছে খুব দ্রুততার সাথে যাতে সব জনগনের ঐ সময়ের আকাঙ্খার প্রতিফলন হয়নি মোটেও। সেটা মুক্তিযুদ্ধের দোষ নয় , বেশ কিছু মানুষের দোষ , তাদের ক্ষমতা কুক্ষিগত করনের নেশা ।
জেনে রাখবেন , কোনও সাধারন মুক্তিযোদ্ধাই দেশের কাছে কিছু প্রাপ্তির আশা নিয়ে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষে যোগ দেয়নি । আজও দেয় না । দেবেনা কোনওদিন ।

এখন যাদের যাদের জন্যে মুক্তিযুদ্ধকে আপনারা প্রশ্নবিদ্ধ করছেন তারা কেউ-ই প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা নয় । একটু হিসেব করে দেখুন, সত্তরে আপনার বয়স যদি হয়ে থাকে ১৫ বছর তবে আপনি এখোন ৬০ এর উপরের বয়সের । ১৫ বছরে একমাত্র “ বিচ্ছু বাহিনীর” যোদ্ধা হওয়া ছাড়া আপনার সক্রিয় ভাবে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করা সম্ভব ছিলোনা । আপনারা কতোজন ষাটোর্দ্ধ মানুষ এমনটা ছিলেন ? আপনার ভূমিকা ছিলো মুক্তিযুদ্ধকে মনেপ্রানে সমর্থন করা, সহায়তা করা । যোদ্ধা ছিলেন হাযার হাযার কিন্তু ঐ যোদ্ধাদের সহযোগী ছিলেন বাংলার কোটি কোটি আপামর জনগণ যাদের বয়েস এখন কমপক্ষে ৬০ বছর । এর নীচের বয়সের কারো পক্ষে মুক্তিযুদ্ধকে বোঝার কথা নয় । যারা এই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নিয়ে লাফাচ্ছেন , তারা মনে হয় ৬০ বছর বা তদুর্দ্ধ কেউ নন । ব্লগেও যারা পক্ষে-বিপক্ষে লিখছেন তারাও সম্ভবত ৬০ বছরের উপরে নন । আপনাদের কারো পক্ষেই “মুক্তিযুদ্ধ” এর চেতনা, প্রেরনা, অহংকার, গরিমা, চাওয়া , পাওয়াকে ঠিক ঠিক বুঝে ওঠা সম্ভব নয় কিছুতেই ।

তাই , আপনাদের সকলের প্রতি অনুরোধ ; আপনার আংশিক সত্য , আংশিক বিভ্রান্তি, আংশিক দলভক্তি দিয়ে মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের ( ৬০ বছর বয়স হওয়া ব্যতীত মুক্তিযোদ্ধা হওয়া সম্ভব নয় ) সমালোচনা করবেন না । নিজের অপ্রাপ্তি , নিজের ক্ষোভ থেকে যদি কাউকে সমালোচনা করতেই হয় তবে ব্যক্তি বা দলকে ( তার আগে তাদের ইতিহাস জেনে নিতে হবে ) নিয়ে করুন - “মুক্তিযুদ্ধ”কে নিয়ে নয় । কারন “মুক্তিযুদ্ধ” কেবল মাত্র একটি চেতনাই নয় , একটা অনুভব , একটা উপলব্দি । অনেক ত্যাগের পরে যা আপনি আপনার অজান্তেই অর্জন করেছেন ।

( মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে আমার বলার কিছুই ছিলোনা যদি অন্য কোনও সময় হতো । শুধু আজকের এই স্বাধীনতার দিনটির প্রতি আমার কৃতজ্ঞতা , আমার ঋণ , আমার মুক্ত নিঃশ্বাসের দায়বদ্ধতা থেকেই লিখছি যদি তাতে কারো সত্যটুকু উপলব্ধি হয় । )

২৬শে মার্চ’ ২০১৮ - সকাল ৯টা ২৫ মিনিটে লেখাটির শুরু ..................... ।
সর্বশেষ এডিট : ২৬ শে মার্চ, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:১৫
৭৩টি মন্তব্য ৭৩টি উত্তর পূর্বের ৫০টি মন্তব্য দেখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

কি হবে জিডিপি দিয়ে যদি আপনার পকেটে টাকা ন থাকে.......

লিখেছেন জুল ভার্ন, ১৭ ই মে, ২০২২ সকাল ১০:৫০

কি হবে জিডিপি দিয়ে যদি আপনার পকেটে টাকা ন থাকে.......

যিনি ভালো আছেন, তিনি দেখছেন যে দেশ খুব ভালো চলছে।
যিনি ভালো নেই, রোল মডেলে তার পেট ভরে না।
জিডিপি বাড়ছে,... ...বাকিটুকু পড়ুন

নিজ হাতে নিজেদের গাছের আম, কাঁঠাল পাড়ার মজাই আলাদা।

লিখেছেন মোঃ মাইদুল সরকার, ১৭ ই মে, ২০২২ সকাল ১১:৫২


দিন যত যাচ্ছে ততই আমরা শহর কেন্দ্রীক হয়ে যাচ্ছি। গ্রামে ছড়ানো আমার শিখড়। যতবার যাই ততই ভালোলাগে। আর এখনতো ফলের সিজন। তাই নিজেদের গাছের তাজা ফল দেখলেও আনন্দ, খেতেও ভারী... ...বাকিটুকু পড়ুন

কিছু মানুষ ভুত, পেত্নী, জ্বীনে বিশ্বাস করলে সমস্যা কোথায়?

লিখেছেন সোনাগাজী, ১৭ ই মে, ২০২২ বিকাল ৪:০৫



সমস্যা আছে, এবং বেশ বড় ধরণের সমস্যা আছে; ভুত, পেত্নী, জ্বীনে বিশ্বাস করলে যেই সমস্যাটা আছে, উহা হলো, যিনি এগুলোতে বিশ্বাস করেন, তাঁর... ...বাকিটুকু পড়ুন

গল্পঃ মাত্রাহীন ভিনগ্রহী

লিখেছেন খাঁজা বাবা, ১৭ ই মে, ২০২২ বিকাল ৪:৩০


ছবিঃ গুগল

১)
মঙ্গলে ঘাটি গেড়েছে এক এলিয়েন সপ্রদায়। পৃথিবী থেকে প্রায় ৪২ আলোকবর্ষ দূরের ক্যানিস গ্যালাক্সিতে এদের উদ্ভিব। এর পর এরা ছড়িয়ে পড়ছে সারা মহাবিশ্বে। এদের শরীর গঠন মানুষের... ...বাকিটুকু পড়ুন

কবিতাঃ বেঁচে থাকি পৃথিবীর মায়ায়

লিখেছেন ইসিয়াক, ১৭ ই মে, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:২৫



অনেক স্বপন ছিল দু'চোখ জুড়ে
কিন্তু
ঘরে ভাত ছিল না বলে
সব একে একে চাপা পড়ে গেছে
দুমুঠো খাবার জোগাড়ের ধান্দায়।

প্রেম সেতো অনেকই ছিল মন জুড়ে
কিন্তু
চারদিকের অপ্রেম সুলভ... ...বাকিটুকু পড়ুন

×